১৫তম প্লাস্টিক মেলা শুরু ২২ ফেব্রুয়ারি

২৪ জানুয়ারি ২০২৩, ০৭:৩৮ পিএম | আপডেট: ২৮ জানুয়ারি ২০২৩, ০৭:২৬ পিএম


১৫তম প্লাস্টিক মেলা শুরু ২২ ফেব্রুয়ারি

কোভিড-১৯ মহামারির কারণে বন্ধ থাকার তিন বছর পর এবার ৪ দিনব্যাপী প্লাস্টিক মেলার আয়োজন করছে বাংলাদেশ প্লাস্টিক দ্রব্য প্রস্তুতকারক ও রপ্তানিকারক অ্যাসোসিয়েশন (বিপিজিএমইএ)।

আগামী ২২ ফেব্রুয়ারি রাজধানীর ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সিটি বসুন্ধরাতে এ মেলা শুরু হবে।

মঙ্গলবার (২৪ জানুয়ারি) পল্টন টাওয়ারে বিপিজিএমইএর সম্মেলন কক্ষে সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য জানিয়েছেন সংগঠনের সভাপতি সামিম আহমেদ। এ সময় সংগঠনের সিনিয়র সহ-সভাপতি গিয়াস উদ্দিন আহমেদ, সহ-সভাপতি কেএম ইকবাল হোসেন ও কাজী আনোয়ারুল হক, সাবেক সভাপতি ইউসুফ আশরাফ, ফেরদৌস ওয়াহেদ এবং শাহেদুল ইসলাম হেলাল উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, ২২ ফেব্রুয়ারি চার দিনব্যাপী মেলার উদ্বোধন করবেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি। বিশেষ অতিথি থাকবেন প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ বিষয়ক উপদেষ্টা উদ্যোক্তা সালমান এফ রহমান, বাণিজ্য সচিব তপন কান্তি ঘোষ এবং এফবিসিসিআইয়ের সভাপতি জসিম উদ্দিন।

আর ২৫ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত মেলার সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি থাকবেন শিল্পমন্ত্রী নুরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ুন এবং বিশেষ অতিথি শিল্পপ্রতিমন্ত্রী কামাল আহমেদ মজুমদার।

এবারে মেলায় চীন, তাইয়ান, ভারত, ভিতেনাম, শ্রীলঙ্কা এবং পাকিস্তানসহ মোট ১৯টি দেশের ৪৮০টি কোম্পানির ৭৮০টি স্টল বা বুথ থাকবে। যা আগের বছরের চেয়ে ৬২ শতাংশ বেড়েছে। মেলায় মেশিনারীজ, মোল্ড, কাঁচামাল উৎপাদনকারী ও সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানসহ দেশের ব্যবহৃত বিভিন্ন ধরনের প্লাস্টিকপণ্য উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানসমুহ অংশগ্রহণ করবে।

মেলায় নতুন পণ্য এবং প্রযুক্তির সমাবেশ আগের চেয়ে ভালো থাকবে। ১৫ ধরনের প্লাস্ট্রিক পণ্য নিয়ে মেলায় অংশ নেবে প্রতিষ্ঠানগুলো। মেলা সরাসরি পণ্য অর্ডারের পাশাপাশি ৫ মিলিয়ন ডলার পরিমাণ মেশিনারিজ পণ্য বিক্রির অর্ডার পাওয়া প্রত্যাশা মেলা কর্তৃপক্ষের।

সভাপতি জানান, আগের মতোই এই বছরের মেলাতে দেশি-বিদেশি দর্শনার্থীদের অংশগ্রহণ বাড়বে। অর্ডারও একরই রকম পাব। তবে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, ডলার সংকটের কারণে প্লাস্টিকপণ্যের কাঁচামাল আমদানি করতে পারছি না। আর কিছুদিন এই অবস্থা পার হলে- প্লাস্টিকপণ্যের দাম আরও বেশি বাড়বে। পণ্য উৎপাদন বন্ধ হয়ে যাবে।

অপর এক প্রশ্নের জবাবে শাহেদুল ইসলাম হেলাল জানান, গ্যাস ও বিদ্যুৎর দাম বাড়ায় সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে প্লাস্ট্রিক খাত। কারণ পণ্য উৎপাদনে ৫০ শতাংশ সময়ে প্রয়োজন হয় বিদ্যুতের। কিন্তু কষ্টের বিষয় হচ্ছে- বেশি দাম দিয়েও নিয়মিত বিদ্যুৎপাচ্ছি না।

উল্লেখ্য, ২০১৯ সালের জানুয়ারি মাসে সর্বশেষ ১৪তম আন্তর্জাতিক প্লাস্টিক মেলা অনুষ্ঠিত হয়। এ মেলায় মোট ১৯টি দেশ থেকে ৪৮০টি কোম্পানি ৭৮০ টি স্টল ও বুথ মেলায় অংশগ্রহণ করেছিল। ২০২০ সালের ১২ থেকে ১৫ ফেব্রয়ারি ১৫তম ফেয়ার অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা থাকলেও কোভিড মহামারির কারণে তা বন্ধ হয়ে যায়।

জেডএ/এমএমএ/

 


বিভাগ : অর্থনীতি