বিশেষায়িত হাসপাতালে রিজভীর চিকিৎসার দাবি বিএনপির

২৫ জানুয়ারি ২০২৩, ০৮:৫৩ এএম | আপডেট: ০১ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ০১:২৬ পিএম


বিশেষায়িত হাসপাতালে রিজভীর চিকিৎসার দাবি বিএনপির

কারাগারে গুরুতর অসুস্থ রুহুল কবির রিজভীকে উন্নত চিকিৎসার জন্য কারাগারের বাইরে বিশেষায়িত কোনো হাসপাতালে চিকিৎসার দাবি জানিয়েছেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত দপ্তর সম্পাদক সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্স।

মঙ্গলবার (২৪ জানুয়ারি) রাতে রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত এক জরুরি সংবাদ সম্মেলনে এ দাবি জানান তিনি।

কারাগারে রুহুল কবির রিজভী গুরুতর অসুস্থ হবার সংবাদে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে তিনি বলেন, অবিলম্বে তার উন্নত চিকিৎসার জন্য কারাগারের বাইরে বিশেষায়িত কোনো হাসপাতালে হস্তান্তর করার ও নিঃশর্ত মুক্তির জোর দাবি জানাচ্ছি। অন্যথায় আল্লাহ না করুন, যদি রিজভী আহমেদের কোনো অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা ঘটে এর দায়ভার সরকারকেই নিতে হবে। একই সঙ্গে কারাগারে তার বিষয়ে স্পষ্ট করার জন্য সরকারের কাছে দাবি জানাচ্ছি।

এমরান সালেহ প্রিন্স বলেন, আমরা গভীর উদ্বেগ এবং উৎকণ্ঠার সঙ্গে জানাচ্ছি যে, কারান্তরীণ বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী গত ২ দিন ধরে মারাত্মকভাবে অসুস্থ। আমরা জানতে পেরেছি তিনি বর্তমানে কারা হাসপাতালে ২ দিন ধরে চিকিৎসাধীন আছেন এবং কোনো খাবার খেতে পারছেন না। রুহুল কবির রিজভীর স্ত্রী আরজুমান আরা আইভী আমাদেরকে জানিয়েছেন, তিনিও এ বিষয়ে বার বার যোগাযোগ করে কোনো কিছু জানতে পারছেন না।

রিজভী আহমেদ আগে থেকেই অসুস্থ ছিলেন জানিয়ে প্রিন্স বলেন, স্বৈরাচার এরশাদবিরোধী আন্দোলনে তিনি হরতালে গুলিবিদ্ধ হয়েছিলেন। সেসময় এবং পরবর্তীতে সড়ক দুর্ঘটনায় তার শরীরে অপারেশন হয়। গত ২ বছরে তিনি হৃদরোগে ও করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন। এ ছাড়া তিনি বেশ কিছু জটিল রোগে আক্রান্ত ছিলেন।

তিনি বলেন, এর আগেও তিনি কারাগারে বন্দী থাকাবস্থায় অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে বিশেষায়িত হাসপাতালে ভর্তি রেখে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছিল। কারা হাসপাতালে রেখে চিকিৎসা করানো সম্ভব ছিল না বলেই বিশেষায়িত হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছিল।

গণতন্ত্র ও ভোটাধিকারের দাবিতে গড়ে উঠা আন্দোলনে ভীত হয়ে ক্ষমতাসীন দলের নেতারা বেসামাল আচরণ করছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান, মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ বিএনপি নেতাদের বিরুদ্ধে অশালীন ভাষায় কথা বলছেন, যা রাজনৈতিক শিষ্টাচার বহির্ভূত।

তিনি আরও বলেন, স্বয়ং আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের, শেখ হেলালসহ অন্যান্য নেতারা কুরুচিপূর্ণ ভাষায় শুধু নেতাদেরকে নিয়ে নয়, আন্দোলন নিয়েও ব্যঙ্গ বিদ্রুপ করছে। আমরা এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। আন্দোলনের গণজোয়ারে পতনের ভয়ে ভীত হয়ে তারা অরাজনৈতিক আচরণ করছে। আমরা তাদের প্রতি এ ধরনের অশালীন, অরাজনৈতিক, কুরুচিপূর্ণ ভাষা পরিত্যাগ করে রাজনৈতিক শিষ্টাচার মেনে কথা বলার আহ্বান জানাচ্ছি।

সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি নেতা আবদুস সালাম আজাদ, শামীমুর রহমান শামীম, আবদুস সাত্তার পাটোয়ারী প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

এমএইচ/এসজি


বিভাগ : রাজনীতি