বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ | ১৪ ফাল্গুন ১৪৩০
বেটা ভার্সন
Dhaka Prokash

গাজীপুর সিটি নির্বাচনে চলছে ভোটগ্রহণ

গাজীপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে সব কেন্দ্রে ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনের (ইভিএম) মাধ্যমে ভোটগ্রহণ চলছে।

বৃহস্পতিবার (২৫ মে) সকাল ৮টায় ভোটগ্রহণ শুরু করে নির্বাচন কমিশন (ইসি), যা বিকাল ৪টা পর্যন্ত বিরতিহীনভাবে চলবে।

নির্বাচনে মেয়র পদে আটজন, সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে ৭৯ জন এবং সাধারণ কাউন্সিলর পদে ২৪৬ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

মেয়র পদের প্রার্থীরা হলেন—মাছ প্রতীকে গণফ্রন্টের প্রার্থী আতিকুল ইসলাম, নৌকা প্রতীকে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রার্থী অ্যাডভোকেট মো. আজমত উল্লা খান, লাঙ্গল প্রতীকে জাতীয় পার্টির প্রার্থী এমএম নিয়াজ উদ্দিন, হাতপাখা প্রতীকে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের গাজী আতাউর রহমান, গোলাপ ফুল প্রতীকে জাকের পার্টির মো. রাজু আহাম্মেদ।

এ ছাড়া স্বতন্ত্র থেকে মেয়র পদে টেবিল ঘড়ি প্রতীকে জায়েদা খাতুন (সাবেক মেয়র জাহাঙ্গীর আলমের মা), ঘোড়া প্রতীকে মো. হারুন-অর-রশীদ ও হাতি প্রতীকে সরকার শাহনূর ইসলাম প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

নির্বাচন কমিশনার মো. আলমগীর জানিয়েছেন, কমিশনের কাছে ৪৮০টি কেন্দ্রই গুরুত্বপূর্ণ। তবে এর মধ্যে বেশি গুরুত্বপূর্ণ হলো ৩৫১টি কেন্দ্র। আর ১২৯টিকে সাধারণ কেন্দ্র হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে।

পুলিশের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, ভোটকেন্দ্রগুলো দুটি ভাগে ভাগ করেছে নির্বাচন কমিশন। এক্ষেত্রে ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্রগুলোকে গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে দেখা হয়। আর ঝুঁকি নেই এমন কেন্দ্রগুলোকে সাধারণ কেন্দ্র হিসেবে দেখা হয়।

নির্বাচন কমিশনার মো. আলমগীরের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, গাজীপুর সিটি নির্বাচনে ৭৩ দশমিক ১৩ শতাংশ বা তিন-চতুর্থাংশ কেন্দ্রই ঝুঁকিপূর্ণ।

তিনি বলেন, শিল্প এলাকা বিধায় গাজীপুর সিটিতে বিভিন্ন ধরনের মানুষের বসবাস। তাই মানুষের মধ্যে অপরাধ প্রবণতাও বেশি। এ কারণে অতিরিক্ত প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে।

মো. আলমগীর বলেন, ৫৭টি ওয়ার্ডে ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োজিত করা হয়েছে ৭৪ জন। জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটও রয়েছেন ১৯জন। সেখানে র‌্যাবের ৩০টি টিম ও বিজিবির ২০ প্লাটুন সদস্য রয়েছে।

এ ছাড়া স্ট্রাইকিং ফোর্স পুলিশের ১৯টি ও মোবাইল টিম হিসেবে ৫৭টি টিম ভোটের মাঠে তীক্ষ্ণ দৃষ্টি রাখছে। গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্রে ১৭ ও সাধারণ কেন্দ্রে ১৬ জনের ফোর্স মোতায়েন করা হয়েছে।

মোট ১১ লাখ ৭৯ হাজার ৪৭৬ জন ভোটার গাজীপুর সিটি নির্বাচনে ভোট দেওয়ার সুযোগ পাবেন। এর মধ্যে পাঁচ লাখ ৯২ হাজার ৭৬২ জন পুরুষ ও পাঁচ লাখ ৮৬ হাজার ৬৯৬ নারী এবং ১৮ জন হিজড়া।

প্রতিটি ভোটকক্ষে সিসি ক্যামেরার (মোট চার হাজার ৪৩৫টি) মাধ্যমে নির্বাচন পর্যবেক্ষণ করছে নির্বাচন কমিশন। এ ক্ষেত্রে আগারগাঁওয়ের নির্বাচন ভবনে বিশাল স্ক্রিনে ভোটের পরিস্থিতি দেখছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়ালসহ অন্য নির্বাচন কমিশনার, ইসির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা এবং গণমাধ্যমকর্মীরা।

নির্বাচন কমিশনার মো. আলমগীর এ নিয়ে বলেছেন, সিসি ক্যামেরায় কোনো অনিয়ম দেখতে পেলে গাইবান্ধা নির্বাচনের চেয়েও কঠোর শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এই নির্বাচনে নিজস্ব ১৫ জন পর্যবেক্ষক নিয়োগ করেছে নির্বাচন কমিশন। এ ছাড়া জানিপপ ও সার্ক মানবাধিকার সংস্থা নামের দুটি সংস্থাও ভোট পর্যবেক্ষণ করছে।

গাজীপুর সিটি করপোরেশনে সর্বশেষ ভোট হয়েছে ২০১৮ সালের ২৬ জুন। নির্বাচিত করপোরেশনের প্রথম সভা অনুষ্ঠিত হয় ২০১৮ সালের ১১ সেপ্টেম্বর। পরবর্তী সাধারণ নির্বাচনের সময় গণনা শুরু হয় গত ১১ মার্চ। বর্তমানে যারা নির্বাচিত রয়েছেন, তাদের মেয়াদ শেষ হবে আগামী ১০ সেপ্টেম্বর।

আরএ/

দুই দিন বাড়ল বইমেলার সময়

ছবি: সংগৃহীত

অমর একুশে বইমেলা-২০২৪ এর সময় আরও দুই দিন বাড়ানো হয়েছে। মেলা চলবে আগামী ২ মার্চ (শনিবার) পর্যন্ত।

মঙ্গলবার সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের সচিব খলিল আহমদের বরাতে মেলা পরিচালনা কমিটির সদস্য ও আগামী প্রকাশনীর প্রকাশক ওসমান গনি বিষয়টি সংবাদ মাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, মেলা দুই দিন বৃদ্ধির কথা সংস্কৃতি সচিব জানিয়েছেন। কালকে চিঠি পাঠাবেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বইমেলার সময়সীমা দুদিন বাড়ানোর আবেদনে অনুমোদন দিয়েছেন। তাই বইমেলা চলবে আগামী ২ মার্চ পর্যন্ত।

বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক মুহাম্মদ নুরুল হুদা রাত ৯টায় বইমেলায় ঘোষণা কেন্দ্র থেকেও বইমেলার মেয়াদ বাড়ানো ঘোষণা দেন। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর সদয় সম্মতিক্রমে বই মেলা দুই দিন বাড়ানো হয়েছে।

এর আগে ১৮ ফেব্রুয়ারি একুশে বইমেলার সময় দুদিন বাড়ানোর জন্য বাংলা একাডেমিকে চিঠি দেয় বাংলাদেশ পুস্তক প্রকাশক বিক্রেতা সমিতি।

অশ্লীল অঙ্গভঙ্গির কারণে নিষেধাজ্ঞার মুখে রোনালদো

ছবি: সংগৃহীত

রিয়াদ ডার্বিতে অনুষ্ঠিত সৌদি প্রো লিগে আল শাবাবকে ৩-২ গোলে হারায় ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোর আল নাসর। এই ম্যাচে গোলের দেখা পান রোনালদো। ক্লাব ফুটবল ক্যারিয়ারে ৭৫০ তম গোলের মাইলফলকও স্পর্শ করেন তিনি। তবে মাইলফলকের ম্যাচে অশালীন অঙ্গভঙ্গি করে খবরের শিরোনাম হন রোনালদো। অশ্লীল অঙ্গভঙ্গি করায় নিষেধাজ্ঞার শঙ্কায় পড়েছেন পাঁচবারে ব্যালন ডি'অর জয়ী এই ফুটবলার।

সৌদি সংবাদমাধ্যমের বরাত দিয়ে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম ডেইলি মেইল অনলাইন জানিয়েছে, দৃষ্টিকটু আচরণের জন্য দুই ম্যাচ নিষেধাজ্ঞার পাশাপাশি জরিমানাও দিতে হতে পারে রোনালদোকে।

রোববার রাতে আল শাবাবের বিপক্ষে ৩-২ গোলের ব্যবধানে জয় পায় আল নাসর। ম্যাচের ২১ মিনিটে স্পটকিক থেকে ক্লাব ফুটবল ক্যারিয়ারে ৭৫০তম গোলের মাইলফলক স্পর্শ করেন রোনালদো। ম্যাচ শেষে আল শাবাবের সমর্থকরা 'মেসি, মেসি' বলে স্লোগান দিতে থাকেন। আর এতেই মেজাজ হারিয়ে ফেলেন সিআরসেভেন।

এই সময় কানের পেছনে হাত নিয়ে সেই স্লোগান শুনছেন এমন ভঙ্গি করেন রোনালদো। এরপর আল শাবাব সমর্থকদের উদ্দেশ্য করে অশ্লীল অঙ্গভঙ্গি করেই জয় উদযাপন করেন তিনি। এর আগেও এমন ঘটনা ঘটিয়েছেন রোনালদো।

গত ৯ ফেব্রুয়ারি আল হিলালের বিপক্ষে এক প্রীতি ম্যাচে ২-০ গোলে হারের পর বাজে অঙ্গভঙ্গি করেছিলেন রোনালদো। ম্যাচ শেষে টানেলে ফেরার পর 'মেসি, মেসি' স্লোগান দিয়ে রোনালদোর দিকে স্কার্ফ ছুঁড়ে দেন আল হিলাল সমর্থকরা। সেই স্কার্ফ তুলে নিজের শর্টসের মধ্যে ঢুকিয়ে তা ফেলে দেন এই পর্তুগিজ সুপারস্টার।

সৌদি আরবে একদিনে সাতজনের শিরশ্ছেদ

ছবি: সংগৃহীত

স্থানীয় সময় আজ মঙ্গলবার ‘সন্ত্রাসবাদের’ অভিযোগে সৌদি আরবে একদিনে সাতজনের শিরশ্ছেদের মাধ্যমে তাদের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়েছে।

২০২২ সালে একবার দেশটিতে একদিনে ৮১ জনের শিরশ্ছেদ করা হয়েছিল। ওইদিনের পর আজই আবার একদিনে সর্বোচ্চ সংখ্যক মানুষের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হলো।

সৌদির রাষ্ট্রয়ত্ত বার্তাসংস্থা সৌদি প্রেসি এজেন্সি দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বরাতে জানিয়েছে, এই সাতজন “সন্ত্রাসী সংগঠন তৈরি ও অর্থায়নের” অভিযোগে অভিযুক্ত হয়েছিলেন।

বিশ্বে মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের দিক দিয়ে শীর্ষ তিন দেশের মধ্যে রয়েছে সৌদি আরব। এ বছর এখন পর্যন্ত দেশটিতে ২৯ জনের শিরশ্ছেদ করা হয়েছে। এর আগে ২০২৩ সালে সৌদিতে ১৭০ জনের মৃত্যুদণ্ড কার্যকরা করা হয়েছিল।

দুই বছর আগে একদিনে ৮১ জনের শিরশ্ছেদ করার পর বিশ্বজুড়ে তুমুল সমালোচনার মুখে পড়েছিল সৌদি আরব।

আজ যাদের মৃত্যুদণ্ড কার্যকরা করা হয়েছে তাদের জাতীয়তা প্রকাশ করা হয়নি। তবে তাদের নামের বিষয়টি ইঙ্গিত করছে তারা সবাই সৌদির নাগরিক ছিলেন।

সৌদি প্রেস এজেন্সির খবরে আরও বলা হয়েছে, এই সাতজন “সন্ত্রাসবাদের পথ বেঁছে নেওয়ার অভিযোগে অভিযুক্ত হয়েছেন যেটির মাধ্যমে রক্ত ঝরানোর আহ্বান জানানো হয়, তারা সন্ত্রাসী সংগঠন ও প্রতিষ্ঠান তৈরি এবং অর্থায়ন করেছিলেন এবং সমাজের শান্তি ও স্থিতিশীলতা বিনষ্টের জন্য সন্ত্রাসী সংগঠনের সঙ্গে যোগাযোগ করেছিলেন।”

তবে তারা কোন দল তৈরি করেছিলেন বা কি ধরনের সন্ত্রাসী কার্যক্রমের সঙ্গে যুক্ত হয়েছিলেন সে ব্যাপারে বিস্তারিত কোনো কিছু জানায়নি সৌদি প্রেস এজেন্সি।

সৌদির কর্তৃপক্ষের বক্তব্য হলো, আইন ও কোরআনভিত্তিক শরীয়াহ শাসন অক্ষুন্ন রাখতে মৃত্যুদণ্ড অপরিহার্য।

সর্বশেষ সংবাদ

দুই দিন বাড়ল বইমেলার সময়
অশ্লীল অঙ্গভঙ্গির কারণে নিষেধাজ্ঞার মুখে রোনালদো
সৌদি আরবে একদিনে সাতজনের শিরশ্ছেদ
আইসিইউতে তরুণীকে ধর্ষণ
বায়তুল মোকাররমে বিক্ষোভ-মিছিল নিষিদ্ধের নির্দেশ হাইকোর্টের
শিক্ষাব্যবস্থা থেকে ইসলাম-নৈতিকতাকে সরিয়ে তরুণ প্রজন্মকে ধ্বংস করা হচ্ছে : ড. মাসুদ
মালয়েশিয়ায় গাড়িচাপায় বাংলাদেশি যুবকের মৃত্যু
ধান খেতের পোকা দমনে পার্চিং উৎসব
এবার ঘুষের মামলায় নতুন করে অভিযুক্ত কারাবন্দি ইমরান খান
২৮ বছর পর যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত হত্যা মামলার পলাতক আসামি গ্রেপ্তার
দেশে খাদ্যশস্য মজুদ আছে ১৬ লাখ ৭৯ হাজার মেট্রিক টন : খাদ্যমন্ত্রী
বেঁচে আছেন ‘পঞ্চায়েত ২’ খ্যাত অভিনেত্রী আঁচল তিওয়ারি
সব বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়কে দিতে হবে ১৫ শতাংশ ট্যাক্স: আপিল বিভাগ
দেশের উন্নয়নকে আরও কাছ থেকে দেখবেন বিদেশি কূটনীতিকরা: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
বিয়ে করে হানিমুনে জায়েদ খান !
কারও অবহেলায় এখন কিছু যায় আসে না পরীমণির
ওষুধ ও হার্টের রিংয়ের দাম কমাতেই হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী
রমজানে দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণসহ প্রধানমন্ত্রীর ১৫ নির্দেশনা
যে কারণে ধূমপান ছেড়েছেন শহিদ কাপুর
বাড়ছে বিদ্যুৎ-গ্যাসের দাম, রমজানের আগেই কার্যকর