সোমবার, ২৭ মে ২০২৪ | ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
Dhaka Prokash

রক্তাক্ত দ্বি-খণ্ডিত পাথর থেকে যেভাবে দেবী সোমেশ্বরী

ফাইল ফটো

সুনামগঞ্জ জেলার উল্লেখযোগ্য একটি উপজেলা শাল্লা। কোনো অঞ্চলের সংস্কৃতি নিয়ে পর্যালোচনা করতে হলে ওই অঞ্চলের নৃতাত্বিক স্বকীয়তা, আঞ্চলিক বিশেষত্ব, ভাষার স্বতন্ত্র ইত্যাদি নিয়েই কাজ করতে হয়। এই উপজেলার কোথাও কোনো প্রকার শিলালিপি, দস্তাবেজ, আদিম মানুষের কঙ্কাল এমন কিছু পাওয়া যায়নি। সঙ্গত কারণে এই উপজেলার সংস্কৃতি স্থানীয় ভাষার প্রতি দৃষ্টি দিয়েই বুঝে নিতে হবে। এখানকার ভাষায় বিভিন্ন অঞ্চলের বিশেষ করে সিলেট, সুনামগঞ্জ, হবিগঞ্জ এবং ময়মনসিংহ অঞ্চলের ভাষার সংমিশ্রণ রয়েছে।

শাল্লা উপজেলার লোক সংস্কৃতি নিয়ে আলোচনা করলে দেখা যায় এই এলাকায় এক সময় পীরবাদ বা মুর্শিদবাদ, দেবদেবী, জীন-ভূত, দৈত্য, দানব, লৌকিক ক্রীয়কর্ম ও জাদু-মন্ত্রের প্রতি লোকজনের বিশ্বাস ছিল খুব বেশি। এখানে দেব-দেবী, জীন-ভূত, দৈত্য দানব, পীর ইত্যাদি ক্ষেত্রে তাবিজ-কবচ, ঝাঁড়-ফুঁক, পানি পড়া ইত্যাদির প্রভাব ছিল। শাল্লা উপজেলার কোনো কোনো এলাকায় বর্তমানেও এই প্রভাব রয়েছে। এক সময় এখানকার মানুষ চাষাবাদের প্রয়োজনে বিভিন্ন ঋতুতে বিভিন্ন আচার-অনুষ্ঠানের আয়োজন করত। পাশাপাশি বিভিন্ন সময় বিভিন্ন কারণে শিরনি মানতের মাধ্যমে নানান অলৌকিক দেবতার প্রতি শ্রদ্ধাশীল থাকত। শাল্লার এমনি এক অলৌকিক দেবী হচ্ছেন সোমেশ্বরী।

আনুমানিক ২৫০ বছর আগেরকার ঘটনা। অগ্রহায়ন মাসের কোনো এক সকাল বেলা। গ্রামের স্থানীয় এক কৃষক বাড়ির সামনের নলখাগড়া কাটতে গিয়ে ঘটে এক অলৌকিক কাণ্ড। তিনি নলখাগড়া কাটতে গিয়ে তার দায়ের কোপ গিয়ে পড়ে একটি পাথর খণ্ডে। তখনই দায়ের কোপে দ্বি-খণ্ডিত হওয়া পাথর থেকে আকস্মিকভাবে রক্ত ঝরতে থাকে বিরামহীন। ভয়ে ওই কৃষকের জ্বর আসতে থাকে। অগত্যা তিনি বাড়ি গিয়ে কাঁথা গায়ে জড়িয়ে শোয়ে পড়েন। ঘুমের মধ্যেই তিনি শোনতে পান, ‘তুই আমার গায়ে আঘাত করে রক্ত জড়িয়েছিস,আমি দেবী সোমেশ্বরী। আজ থেকে এই গ্রামের কোথাও আমাকে প্রতিষ্ঠা করে পূজা শুরু করতে হবে।’ তারপর ঘুম ভেঙে যায় কৃষকের। তিনি স্বপ্নের বিষয়টি নিয়ে সাহায্য চান গ্রামবাসীর কাছে। কৃষকের স্বপ্ন এবং দেবী সোমেশ্বরীর বিষয়টি ছড়িয়ে ইতিমধ্যে ছড়িয়ে পড়ে পার্শ্ববর্তী আরও ৪টি গ্রামে। সেই থেকে উদ্যোগ। অবশেষে স্বপ্নে সুমেশ্বরী দেবীর আদেশ অনুযায়ী বাহাড়া গ্রামের একটি উচুঁ স্থানে সেই কৃষকের হাত ধরেই পাথর খণ্ডে পূজা হচ্ছে দেবী সুমেশ্বরীর। এখানেই শেষ নয়, দ্বি-খণ্ডিত সেই একটি পাথর খণ্ডসহ অলৌকিকভাবে সেখানে স্থান হয় আরও ৩০ থেকে ৪০টি পাথর/ শিলার। তাঁরাও পূজিত হচ্ছেন সুমেশ্বরী মন্দিরে। তবে কবে এবং কিভাবে এই পাথর/শিলাগুলোর মন্দিরে স্থান হলো তার সুনির্দীষ্ট তথ্য কারোর কাছে নেই। কিন্তু বাকী পাথরখন্ড কিংবা শিলাগুলো সোমেশ্বরী দেবীর বোন হিসেবে মন্দিরে আগমন ঘটে-এমন বিষয়টি লোকমুখে বেশি প্রচারিত।

সেই থেকে সোমেশ্বরী দেবীর আগমন উপলক্ষে প্রতি বছর চৈত্র মাসের প্রথম রবিবার ও সোমবার বাহাড়া গ্রামে মেল বন্ধন শুরু হয় ভক্তদের। ভক্তদের পদচারণায় মুখরিত হয়ে উঠে মন্দির প্রাঙ্গন। মেলা এবং পূজানুষ্ঠান পরিচালনা করেন বাহাড়া গ্রামসহ পাঁচ গ্রামের মানুষ। এই অনুষ্ঠানের আয়োজক বাহাড়া, রঘুনাথপুর, শিবপুর, যাত্রাপুর ও পোড়ারপাড় গ্রামের লোকজন। অনুষ্ঠান উপলক্ষে প্রতি বছর প্রায় দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে লাখো ভক্তের ঢল নামে।

স্থানীয়ভাবে সোমেশ্বরী মেলা বারনি হিসেবেও পরিচিত। গ্রামের দাড়াইন নদীর তীরে প্রথম দিনের মেলাটি ‘বেল-কুইশ্যার (ইক্ষু)’ মেলা হিসেবে পরিচিত। চৈত্রের প্রথম রবিবার বেল, আখ ও লাঠির মেলা বসে নদীর তীরে। পরদিন একই স্থানে বসে সোমেশ্বরীর মেলা। সোমেশ্বরী মন্দিরে আসা লোকজন মেলা থেকে ঐতিহ্য ও পূণ্যবস্তু হিসেবে আখ, বেল ও লাঠি নিয়ে বাড়ি ফেরেন।

শাস্ত্রীয় দেবী হিসেবে এই দেবীর কোনো অস্তিত্ব পাওয়া না গেলেও অলৌকিক দেবি হিসেবে বাহাড়া গ্রামে প্রতিষ্ঠিত সোমেশ্বরী দেবীর পূজা নিয়ে বিভিন্ন জনের সঙ্গে কথা বলে বিভিন্ন তথ্য পাওয়া গেছে। কারো কারোর মতে, প্রায় তিন শতাধিক বছর আগে থেকে সুমেশ্বরী দেবীর পূজানুষ্ঠান হচ্ছে। আবার কেউ বলছেন, দেড়শো বছর আগের ঘটনা। তবে অধিকাংশ প্রবীন লোক জানিয়েছেন, অন্তত ২৫০ বছর থেকে বাহাড়া গ্রামে দেবি সুমেশ্বরী পূজা হচ্ছে। এই সময়ে মহিষ বলি দেওয়া সুমেশ্বরী পূজার অন্যতম একটি রেওয়াজ। বলির পর মহিষটাকে ফেলে দেওয়া হয় পানিতে। এর আগে মহিষের রক্ত মিশ্রিত মাটি ভক্তি সহকারে সংগ্রহ করেন ভক্তরা। রক্ত মিশ্রিত সেই মাটি কেউ গায়ে মাখেন, কেউ ভালো ফসলের জন্য জমিতে ফেলেন আবার কেউ শারীরিক সুস্থতা কামনায়ও ভক্তি সহকারে মাটি গায়ে মাখেন।

সোমেশ্বরী দেবীর পূজাকালীন আরও একটি উল্লেখযোগ্য ঘটনা হচ্ছে-মহিষ বলিদানের আগ পর্যন্ত ওই ৫ গ্রামসহ পার্শ্ববর্তী গ্রামগুলোতেও চুলোয় আগুন জ্বালানো হয় না। রেওয়াজ অনুযায়ী-বলিদান শেষে রান্নার যাবতীয় সরঞ্জাম ধুয়ে মুছে তারপর শুরু হয় রান্নার কাজ।

দেবি সুমেশ্বরী পূজায় অলৌকিক কাণ্ডের নানা তথ্য জানা গেছে লোকমুখে। নিয়ম অনুযায়ী বলি না হলে মন্দির প্রাঙ্গনে নানা ভুতুড়ে কাণ্ড ঘটতে থাকে। এমনকি বলির জন্য মহিষ প্রাপ্ত বয়স্ক না হলে বারবার চেষ্টা করেও বলিদান সম্পন্ন করা যায় না-এমন তথ্যও জানিয়েছেন স্থানীয় লোকজন। ফলে সুমেশ্বরী পূজা অনুষ্ঠান করার আগে সবাইকে একনিষ্ট এবং গভীর শ্রদ্ধায় মায়ের কাছে মাথা নত করে পূজা সম্পন্ন করতে হয়। এ ছাড়াও স্থানীয়দের বিশ্বাস, সুমেশ্বরী দেবীর সন্তুষ্টি আদায় করতে পারলে অকাল বন্যার কবল থেকে হাওরের বোরো ফসল রক্ষা করা খুবই সহজ হবে। ফলে কৃষি নির্ভর শাল্লা অঞ্চলের মানুষ গভীর শ্রদ্ধায় মহা আড়ম্বরে মাতা সোমেশ্বরী দেবীর পূজার্চনা করে আসছে।

হাওরাঞ্চলের মানুষ লোকজ বিশ্বাস ও লোকজ প্রথায় প্রবলভাবে বিশ্বাসী। শাল্লায় তার ব্যত্যয় ঘটেনি। সংস্কার-কুসংস্কার বৈজ্ঞানিক বা যৌক্তিকভাবে উঠে গেলেও এক শ্রেণির মানুষের কাছে তা এখনও রয়ে গেছে। যেমন-বিভিন্ন রোগ থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য চৌক্কা গোটা (একজাতীয় গুল্ম) কাইতনে (কালো রঙ্গের মসৃন সুতা) বেঁধে তার সঙ্গে ইমাম বা পীর ফকিরের দেওয়া তাবিজ গলায়, কোমরে, পায়ে, হাতের কব্জিতে বেঁধে রাখা। শিশুর চেহারা লাল-নীল হওয়া কিংবা খিচুনী হওয়া থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য কোমরে বাইট্যা (কালো রঙ্গের মোটা সুতা) বেঁধে দেওয়ায়। টাউকরা-টাউকরি ধরলে শিশুর চেহারা লাল-নীল হয়। এতে শিশুর মৃত্যু হতে পারে। কোনো কারণে শিশুর চেহারা লাল-নীল হলে কবিরাজের মাধ্যমে লোহার বড়শী আগুনে পুড়িয়ে লাল করে শিশুর কপালে বা বুকে ছেক দেওয়া। লোকজনের বিশ্বাসের মধ্যে আরও একটি অন্যতম প্রথা ছিল, স্বামীর নাম মুখে আনলে অমঙ্গল হয়। হাতে চুঁড়ি না থাকলে স্বামীকে খাবার পানি দিতে নেই। ৮/১০ বছরের বাচ্চা ঘুমন্ত অবস্থায় বিছানায় প্রশ্রাব করলে ঘুম থেকে ওঠার পর ওই স্থানে চাল ফেলে জিহ্বা দিয়ে চেঁটে চেঁটে খাওয়ানো ইত্যাদি।

সোমেশ্বরী দেবী ভক্ত ও সোমেশ্বরী সংগঠনের সদস্য বাহাড়া গ্রামের অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক রবীন্দ্র চন্দ্র দাস (৭৫) জানান, ছোট বেলায় তিনি দেখেছেন তার দাদু-দিদা, মা-বাবাসহ স্বজনরা সোমেশ্বরী দেবীকে এসে পূজা দিতেন। তিনিও তাদের পথ ধরে প্রতি বছর পূজা দেন। এ উপলক্ষে দেবীর মন্দির ঘিরে মেলাও বসে।
তিনি আরও জানান, এই মেলা ও পূজার বয়স আনুমানিক ৫ শত বছর হবে।

সুমেশ্বরী মেলা বিষয়ে গ্রামের প্রবীন মুরুব্বী নিবরস রায় জানান, পূর্বসূরীদের ঐতিহ্য হিসেবে প্রতি বছর চৈত্র মাসে দেবী সোমেম্বরী এখানে পূজিত হচ্ছেন। মেলায় ধর্মীয় ভাবগম্ভীর্য ও পবিত্রতা রক্ষায় পরিচালনা কমিটি সুশৃঙ্খলভাবে দায়িত্ব পালন করে।

তিনি বলেন, সোমেশ্বরী দেবী এই অঞ্চলের মানুষের ফসল ও জীবন-জীবিকা রক্ষার অবলম্বন-এমন বিশ্বাস থেকে গভীর শ্রদ্ধায় ও ভক্তি সহকারে দেবির পূজার্চনা সম্পন্ন হয়।

শাল্লা উপজেলার চেয়ারম্যান চৌধুরী আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ জানান, শাল্লায় দীর্ঘদিন থেকে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিরাজমান। ফলে যেকোনো ধর্মের ধর্মীয় অনুষ্ঠানগুলো শান্তিপূর্ণভাবে সম্পন্ন হয়।

তিনি বলেন, দেবি সোমেশ্বরী এই অঞ্চলের ফসল রক্ষার প্রতীক হিসেবে সকল ধর্মের মানুষের কাছে পূজনীয়। ফলে মেলায় সকল ধর্মের মানুষের ভক্তি সহকারে সহাবস্থান মেলার আরও একটি অসাম্প্রদায়িকতার নিদর্শন।

এ ব্যাপারে সোমেশ্বরী মন্দির পরিচালনা কমিটির সভাপতি ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান গনেন্দ্র চন্দ্র সরকার বলেন, মন্দির পরিচালনা কমিটির সার্বিক তত্বাবধানে প্রতি বছর দুই দিনব্যাপী মেলা ও পূজানুষ্ঠান সম্পন্ন হয়।

তিনি বলেন, মেলায় বেল ও কুইশ্যারের ক্রেতা হিসেবে সনাতন ধর্মের পাশাপাশি মুসলিম সম্প্রদায়ের লোকজনের অংশগ্রহণ মেলার আরও একটি উল্লেখযোগ্য দিক। এর ফলে সোমেশ্বরী মেলায় কোনো ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনার সৃষ্টি হয়নি।

এসআইএইচ

Header Ad

কুমিল্লায় ভবন ধসে শ্রেণিকক্ষেই প্রাণ গেল শিক্ষার্থীর

কুমিল্লায় ভবন ধসে শ্রেণিকক্ষেই এক শিক্ষার্থীর মৃত্যু হয়েছে। ছবি: সংগৃহীত

কুমিল্লায় বিদ্যালয়ে ক্লাসরত অবস্থায় পার্শ্ববর্তী নির্মাণাধীন সাততলা ভবনের দেয়াল (লিংটার) ধসে সাইফুল ইসলাম সাগর (১২) নামে এক শিক্ষার্থী নিহত হয়েছেন।

সোমবার (২৭ মে) বেলা পৌনে ১১টার দিকে জেলার সদর দক্ষিণ উপজেলার নোয়াগাঁও চৌমুহনী এলাকায় নুর আইডিয়াল স্কুলে এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত স্কুলছাত্র সাইফুল ইসলাম সাগর ওই প্রতিষ্ঠানের পঞ্চম শ্রেণির ছাত্র। সে শাকতলা এলাকার অলী আহমেদের ছেলে।

নূর আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজের প্রধান শিক্ষক মো. আশিকুর রহমান বলেন, বেলা ১১টা ৪০ মিনিটের দিকে পঞ্চম শ্রেণির ক্লাস চলছিল। হঠাৎ স্কুলের পূর্বপাশে নির্মাণাধীন একটি ভবনের ৭তলার দেওয়ালের একটি অংশ স্কুলের টিনের চালায় ভেঙে পড়ে। এতে স্কুলের চেয়ার-টেবিলের ব্যাপক ক্ষতি হয়। এ সময় ইটের আঘাতে সাইফুল ইসলাম সাগর গুরুতর আহত হয়। দ্রুত তাকে কুমিল্লা সদর হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত ডাক্তার মৃত ঘোষণা করেন।

প্রধান শিক্ষক আশিকুর রহমানের অভিযোগ, কোনো প্রকার সেফটি ছাড়াই ভবন কর্তৃপক্ষ নির্মাণকাজ চালাচ্ছিল। তাদের অবহেলার কারণেই আজ শিশুটির মৃত্যু হয়েছে। প্রশাসনের কাছে এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচার দাবি করেন তিনি।

এ বিষয়ে কুমিল্লা সদর দক্ষিণ মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) খাদেমুল বাহার জাগো নিউজকে বলেন, খবর পেয়ে নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। অভিযোগের ভিত্তিতে এ বিষয়ে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

হেরে গেলেন নিপুণ, শিল্পী সমিতির সম্পাদক পদ ফিরে পেলেন ডিপজল

নিপুণ আক্তার এবং ডিপজল। ছবি: সংগৃহীত

চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির এবারের নির্বাচনে সাধারণ সম্পাদক পদে মনোয়ার হোসেন ডিপজলের দায়িত্ব পালনে হাইকোর্টের দেওয়া নিষেধাজ্ঞার আদেশ স্থগিত করেছেন চেম্বার আদালত।

সোমবার (২৭ মে) আপিল বিভাগের চেম্বার বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম হাইকোর্ট থেকে দেওয়া আদেশ স্থগিতের রায় দেন।

এর ফলে সমিতির সম্পাদক পদে ডিপজলের দায়িত্ব পালনে আর কোনো বাধা রইল না। টিকল না সাবেক সাধারণ সম্পাদক নিপুণ আক্তারের করা রিট। আইনি লড়াইয়ে ডিপজলের কাছে হেরে গেলেন তিনি।

নিপুণের করা রিট আবেদনের প্রেক্ষিতে গত ২০ মে শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক পদে দায়িত্ব পালনের ওপর নিষেধাজ্ঞা দেন হাইকোর্ট। সেই পদ ফিরে পেতে শনিবার চেম্বার আদালতে আবেদন করেন ডিপজল। সোমবার তিনি রায় পেলেন নিজের পক্ষে।

গত ১৫ মে নিপুণের পক্ষে আইনজীবী অ্যাডভোকেট পলাশ চন্দ্র রায় হাইকোর্টে একটি রিট আবেদন করেন। তাতে শিল্পী সমিতির নির্বাচনে অনিয়ম ও কারচুপির অভিযোগ আনার পাশাপাশি নতুন নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা এবং মিশা-ডিপজলের নেতৃত্বাধীন কমিটির দায়িত্ব পালনে নিষেধাজ্ঞা চাওয়া হয়।

সেই রিটের শুনানিতে গত ২০ মে ডিপজলের সাধারণ সম্পাদক পদের ওপর নিষেধাজ্ঞা দেন বিচারপতি নাইমা হায়দার ও বিচারপতি কাজী জিনাত হকের হাইকোর্ট বেঞ্চ। সেই সঙ্গে পরাজিত প্রার্থী নিপুণ আক্তারের অভিযোগ তদন্তের জন্য সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়কে নির্দেশও দেন।

গত ১৯ এপ্রিল এফডিসিতে অনুষ্ঠিত হয় শিল্পী সমিতির ২০২৪-২৬ মেয়াদের নির্বাচন। ফলাফল ঘোষণা হয় পরদিন সকালে। তাতে নতুন সভাপতি নির্বাচিত হন মিশা সওদাগর। অন্যদিকে, নিপুণকে ১৬ ভোটে হারিয়ে সাধারণ সম্পাদক হন মনোয়ার হোসেন ডিপজল।

সে সময় বিজয়ী প্রার্থীদের গলায় ফুলের মালা পরিয়ে অভিনন্দন জানান বিদায়ী সাধারণ সম্পাদক নিপুণ আক্তার।

এর প্রায় এক মাস পর হাইকোর্টে রিট করেন তিনি। স্থগিত হয়ে যায় সাধারণ সম্পাদক পদে ডিপজলের দায়িত্ব পালন। চেম্বার আদালতের রায়ে আবার তা ফিরেও পেলেন।

পাপুয়া নিউ গিনিতে ভূমিধস: জীবিত সমাহিত দুই হাজারেরও বেশি মানুষ

ছবি: সংগৃহীত

প্রশান্ত মহাসাগরীয় দ্বীপ রাষ্ট্র পাপুয়া নিউ গিনির এনগা প্রদেশের একটি প্রত্যন্ত গ্রামে গত শুক্রবার ভয়াবহ ভূমিধসের পরে দুই হাজারেরও বেশি মানুষ মাটির নিচে চাপা পড়ে জীবিত সমাহিত হয়েছেন বলে অনুমান করেছে কতৃপক্ষ।

সোমবার (২৭ মে) এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানিয়েছে বার্তাসংস্থা এএফপি।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, দেশের একটি প্রত্যন্ত গ্রামে প্রবল ভূমিধসে ২ হাজারেরও বেশি লোক চাপা পড়েছে বলে পাপুয়া নিউ গিনি সোমবার জাতিসংঘকে অবহিত করেছে। মূলত একটি চিঠিতে দেশটি জাতিসংঘকে এই তথ্য জানায় এবং সেই চিঠির একটি অনুলিপি এএফপির হাতে এসেছে।

পাপুয়া নিউ গিনির জাতীয় দুর্যোগ কেন্দ্র রাজধানী পোর্ট মোরেসবিতে অবস্থিত জাতিসংঘের অফিসকে বলেছে, ‘ভূমিধসে ২ হাজারেরও বেশি লোক জীবিত সমাহিত হয়েছে এবং এই ভূমিধস বড় ধরনের ধ্বংসযজ্ঞের সৃষ্টি করেছে।’

গত বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে পাপুয়া নিউ গিনির এঙ্গা প্রদেশে যে ভূমিধস হয়েছে, তাতে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে প্রদেশের ৬টিরও বেশি গ্রাম। তবে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে কাওকালাম নামের একটি গ্রাম।

কাওকালাম গ্রামের বাসিন্দা নিঙ্গা রোলে জানিয়েছেন, বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত ৩ টায় এই ভূমিধস ঘটেছে। গভীর রাতে সবাই ঘুমিয়েছিলেন, তাই দুর্যোগের সময় অধিকাংশ মানুষই বাড়ি থেকে বের হতে পারেননি।

দুর্যোগ অফিস বলেছে, ভূমিধসের ফলে ভবন, খাবারের গাছের বাগানের বড় ধরনের ক্ষতি হয়েছে এবং দেশের অর্থনৈতিক লাইফলাইনে বড় ধরনের প্রভাব পড়েছে।

সোমবার সকালে জাতিসংঘের কর্মকর্তারা এই চিঠিটি পেয়েছেন। সেখানে আরও বলা হয়েছে, পোরগেরা মাইনে যাওয়ার প্রধান মহাসড়কটি ‘সম্পূর্ণভাবে অবরুদ্ধ’।

এতে বলা হয়েছে, ‘পরিস্থিতি এখনও অস্থিতিশীল রয়ে গেছে। কারণ ল্যান্ডস্লিপটি ধীরে ধীরে স্থানান্তরিত হচ্ছে, আর এটি উদ্ধারকারী দল এবং বেঁচে থাকা বাসিন্দা উভয়ের জন্যই বিপজ্জনক।’

সর্বশেষ সংবাদ

কুমিল্লায় ভবন ধসে শ্রেণিকক্ষেই প্রাণ গেল শিক্ষার্থীর
হেরে গেলেন নিপুণ, শিল্পী সমিতির সম্পাদক পদ ফিরে পেলেন ডিপজল
পাপুয়া নিউ গিনিতে ভূমিধস: জীবিত সমাহিত দুই হাজারেরও বেশি মানুষ
বিএনপি সহযোগিতার নামে ফটোশেসন করে: ওবায়দুল কাদের
ঘূর্ণিঝড় রেমালের কারণে ১৯ উপজেলায় নির্বাচন স্থগিত
ঘূর্ণিঝড় রেমালের তাণ্ডব: নিহত বেড়ে ১০
গোবিন্দগঞ্জে ৮ হাজার ৮৮৪ পিস ট্যাপেন্টাডলসহ মাদক কারবারি গ্রেফতার
‘রেমালের কেন্দ্রভাগ বিকেলের মধ্যে ঢাকায় ঢুকবে’
ইরানের প্রেসিডেন্ট প্রার্থী হওয়ার ঘোষণা দিলেন আহমাদিনেজাদ
ঢাকায় রেমালের প্রভাব, দমকা বাতাসের সঙ্গে ঝরছে বৃষ্টি
টাঙ্গাইলে ৪ লাখ ৯৩ হাজার শিশুকে খাওয়ানো হবে ‘ভিটামিন এ প্লাস ক্যাপসুল’
যুক্তরাষ্ট্রে টর্নেডোর তাণ্ডব, ১৫ জনের মৃত্যু
ঘূর্ণিঝড় রেমালে দেশের বিভিন্ন জেলায় ৬ জনের মৃত্যু
বিভিন্ন খালে জাল ফেলে এখনও মেলেনি এমপি আনারের লাশ
ভয়াবহ ইসরাইলি হামলা, গাজায় নারী-শিশুসহ নিহত ৩৫
৪৫ হাজার হজযাত্রী সৌদি পৌঁছেছেন, ৬ বাংলাদেশির মৃত্যু
উপকূল অতিক্রম করে দুর্বল হচ্ছে ‘রেমাল’
মধ্যরাতে বাংলাদেশের বিশ্বকাপ জার্সি উন্মোচন
সরকার তারেককে ফিরিয়ে এনে অবশ্যই আদালতের রায় কার্যকর করবে: প্রধানমন্ত্রী
উপকূলজুড়ে চলছে রিমালের তাণ্ডব, সমুদ্রবন্দরে মহাবিপদ সংকেত