রক্তাক্ত দ্বি-খণ্ডিত পাথর থেকে যেভাবে দেবী সোমেশ্বরী

১৯ মার্চ ২০২৩, ০২:১৪ পিএম | আপডেট: ৩০ মার্চ ২০২৩, ১০:২৬ পিএম


রক্তাক্ত দ্বি-খণ্ডিত পাথর থেকে যেভাবে দেবী সোমেশ্বরী
ফাইল ফটো

সুনামগঞ্জ জেলার উল্লেখযোগ্য একটি উপজেলা শাল্লা। কোনো অঞ্চলের সংস্কৃতি নিয়ে পর্যালোচনা করতে হলে ওই অঞ্চলের নৃতাত্বিক স্বকীয়তা, আঞ্চলিক বিশেষত্ব, ভাষার স্বতন্ত্র ইত্যাদি নিয়েই কাজ করতে হয়। এই উপজেলার কোথাও কোনো প্রকার শিলালিপি, দস্তাবেজ, আদিম মানুষের কঙ্কাল এমন কিছু পাওয়া যায়নি। সঙ্গত কারণে এই উপজেলার সংস্কৃতি স্থানীয় ভাষার প্রতি দৃষ্টি দিয়েই বুঝে নিতে হবে। এখানকার ভাষায় বিভিন্ন অঞ্চলের বিশেষ করে সিলেট, সুনামগঞ্জ, হবিগঞ্জ এবং ময়মনসিংহ অঞ্চলের ভাষার সংমিশ্রণ রয়েছে।

শাল্লা উপজেলার লোক সংস্কৃতি নিয়ে আলোচনা করলে দেখা যায় এই এলাকায় এক সময় পীরবাদ বা মুর্শিদবাদ, দেবদেবী, জীন-ভূত, দৈত্য, দানব, লৌকিক ক্রীয়কর্ম ও জাদু-মন্ত্রের প্রতি লোকজনের বিশ্বাস ছিল খুব বেশি। এখানে দেব-দেবী, জীন-ভূত, দৈত্য দানব, পীর ইত্যাদি ক্ষেত্রে তাবিজ-কবচ, ঝাঁড়-ফুঁক, পানি পড়া ইত্যাদির প্রভাব ছিল। শাল্লা উপজেলার কোনো কোনো এলাকায় বর্তমানেও এই প্রভাব রয়েছে। এক সময় এখানকার মানুষ চাষাবাদের প্রয়োজনে বিভিন্ন ঋতুতে বিভিন্ন আচার-অনুষ্ঠানের আয়োজন করত। পাশাপাশি বিভিন্ন সময় বিভিন্ন কারণে শিরনি মানতের মাধ্যমে নানান অলৌকিক দেবতার প্রতি শ্রদ্ধাশীল থাকত। শাল্লার এমনি এক অলৌকিক দেবী হচ্ছেন সোমেশ্বরী।

আনুমানিক ২৫০ বছর আগেরকার ঘটনা। অগ্রহায়ন মাসের কোনো এক সকাল বেলা। গ্রামের স্থানীয় এক কৃষক বাড়ির সামনের নলখাগড়া কাটতে গিয়ে ঘটে এক অলৌকিক কাণ্ড। তিনি নলখাগড়া কাটতে গিয়ে তার দায়ের কোপ গিয়ে পড়ে একটি পাথর খণ্ডে। তখনই দায়ের কোপে দ্বি-খণ্ডিত হওয়া পাথর থেকে আকস্মিকভাবে রক্ত ঝরতে থাকে বিরামহীন। ভয়ে ওই কৃষকের জ্বর আসতে থাকে। অগত্যা তিনি বাড়ি গিয়ে কাঁথা গায়ে জড়িয়ে শোয়ে পড়েন। ঘুমের মধ্যেই তিনি শোনতে পান, ‘তুই আমার গায়ে আঘাত করে রক্ত জড়িয়েছিস,আমি দেবী সোমেশ্বরী। আজ থেকে এই গ্রামের কোথাও আমাকে প্রতিষ্ঠা করে পূজা শুরু করতে হবে।’ তারপর ঘুম ভেঙে যায় কৃষকের। তিনি স্বপ্নের বিষয়টি নিয়ে সাহায্য চান গ্রামবাসীর কাছে। কৃষকের স্বপ্ন এবং দেবী সোমেশ্বরীর বিষয়টি ছড়িয়ে ইতিমধ্যে ছড়িয়ে পড়ে পার্শ্ববর্তী আরও ৪টি গ্রামে। সেই থেকে উদ্যোগ। অবশেষে স্বপ্নে সুমেশ্বরী দেবীর আদেশ অনুযায়ী বাহাড়া গ্রামের একটি উচুঁ স্থানে সেই কৃষকের হাত ধরেই পাথর খণ্ডে পূজা হচ্ছে দেবী সুমেশ্বরীর। এখানেই শেষ নয়, দ্বি-খণ্ডিত সেই একটি পাথর খণ্ডসহ অলৌকিকভাবে সেখানে স্থান হয় আরও ৩০ থেকে ৪০টি পাথর/ শিলার। তাঁরাও পূজিত হচ্ছেন সুমেশ্বরী মন্দিরে। তবে কবে এবং কিভাবে এই পাথর/শিলাগুলোর মন্দিরে স্থান হলো তার সুনির্দীষ্ট তথ্য কারোর কাছে নেই। কিন্তু বাকী পাথরখন্ড কিংবা শিলাগুলো সোমেশ্বরী দেবীর বোন হিসেবে মন্দিরে আগমন ঘটে-এমন বিষয়টি লোকমুখে বেশি প্রচারিত।

সেই থেকে সোমেশ্বরী দেবীর আগমন উপলক্ষে প্রতি বছর চৈত্র মাসের প্রথম রবিবার ও সোমবার বাহাড়া গ্রামে মেল বন্ধন শুরু হয় ভক্তদের। ভক্তদের পদচারণায় মুখরিত হয়ে উঠে মন্দির প্রাঙ্গন। মেলা এবং পূজানুষ্ঠান পরিচালনা করেন বাহাড়া গ্রামসহ পাঁচ গ্রামের মানুষ। এই অনুষ্ঠানের আয়োজক বাহাড়া, রঘুনাথপুর, শিবপুর, যাত্রাপুর ও পোড়ারপাড় গ্রামের লোকজন। অনুষ্ঠান উপলক্ষে প্রতি বছর প্রায় দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে লাখো ভক্তের ঢল নামে।

স্থানীয়ভাবে সোমেশ্বরী মেলা বারনি হিসেবেও পরিচিত। গ্রামের দাড়াইন নদীর তীরে প্রথম দিনের মেলাটি ‘বেল-কুইশ্যার (ইক্ষু)’ মেলা হিসেবে পরিচিত। চৈত্রের প্রথম রবিবার বেল, আখ ও লাঠির মেলা বসে নদীর তীরে। পরদিন একই স্থানে বসে সোমেশ্বরীর মেলা। সোমেশ্বরী মন্দিরে আসা লোকজন মেলা থেকে ঐতিহ্য ও পূণ্যবস্তু হিসেবে আখ, বেল ও লাঠি নিয়ে বাড়ি ফেরেন।

শাস্ত্রীয় দেবী হিসেবে এই দেবীর কোনো অস্তিত্ব পাওয়া না গেলেও অলৌকিক দেবি হিসেবে বাহাড়া গ্রামে প্রতিষ্ঠিত সোমেশ্বরী দেবীর পূজা নিয়ে বিভিন্ন জনের সঙ্গে কথা বলে বিভিন্ন তথ্য পাওয়া গেছে। কারো কারোর মতে, প্রায় তিন শতাধিক বছর আগে থেকে সুমেশ্বরী দেবীর পূজানুষ্ঠান হচ্ছে। আবার কেউ বলছেন, দেড়শো বছর আগের ঘটনা। তবে অধিকাংশ প্রবীন লোক জানিয়েছেন, অন্তত ২৫০ বছর থেকে বাহাড়া গ্রামে দেবি সুমেশ্বরী পূজা হচ্ছে। এই সময়ে মহিষ বলি দেওয়া সুমেশ্বরী পূজার অন্যতম একটি রেওয়াজ। বলির পর মহিষটাকে ফেলে দেওয়া হয় পানিতে। এর আগে মহিষের রক্ত মিশ্রিত মাটি ভক্তি সহকারে সংগ্রহ করেন ভক্তরা। রক্ত মিশ্রিত সেই মাটি কেউ গায়ে মাখেন, কেউ ভালো ফসলের জন্য জমিতে ফেলেন আবার কেউ শারীরিক সুস্থতা কামনায়ও ভক্তি সহকারে মাটি গায়ে মাখেন।

সোমেশ্বরী দেবীর পূজাকালীন আরও একটি উল্লেখযোগ্য ঘটনা হচ্ছে-মহিষ বলিদানের আগ পর্যন্ত ওই ৫ গ্রামসহ পার্শ্ববর্তী গ্রামগুলোতেও চুলোয় আগুন জ্বালানো হয় না। রেওয়াজ অনুযায়ী-বলিদান শেষে রান্নার যাবতীয় সরঞ্জাম ধুয়ে মুছে তারপর শুরু হয় রান্নার কাজ।

দেবি সুমেশ্বরী পূজায় অলৌকিক কাণ্ডের নানা তথ্য জানা গেছে লোকমুখে। নিয়ম অনুযায়ী বলি না হলে মন্দির প্রাঙ্গনে নানা ভুতুড়ে কাণ্ড ঘটতে থাকে। এমনকি বলির জন্য মহিষ প্রাপ্ত বয়স্ক না হলে বারবার চেষ্টা করেও বলিদান সম্পন্ন করা যায় না-এমন তথ্যও জানিয়েছেন স্থানীয় লোকজন। ফলে সুমেশ্বরী পূজা অনুষ্ঠান করার আগে সবাইকে একনিষ্ট এবং গভীর শ্রদ্ধায় মায়ের কাছে মাথা নত করে পূজা সম্পন্ন করতে হয়। এ ছাড়াও স্থানীয়দের বিশ্বাস, সুমেশ্বরী দেবীর সন্তুষ্টি আদায় করতে পারলে অকাল বন্যার কবল থেকে হাওরের বোরো ফসল রক্ষা করা খুবই সহজ হবে। ফলে কৃষি নির্ভর শাল্লা অঞ্চলের মানুষ গভীর শ্রদ্ধায় মহা আড়ম্বরে মাতা সোমেশ্বরী দেবীর পূজার্চনা করে আসছে।

হাওরাঞ্চলের মানুষ লোকজ বিশ্বাস ও লোকজ প্রথায় প্রবলভাবে বিশ্বাসী। শাল্লায় তার ব্যত্যয় ঘটেনি। সংস্কার-কুসংস্কার বৈজ্ঞানিক বা যৌক্তিকভাবে উঠে গেলেও এক শ্রেণির মানুষের কাছে তা এখনও রয়ে গেছে। যেমন-বিভিন্ন রোগ থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য চৌক্কা গোটা (একজাতীয় গুল্ম) কাইতনে (কালো রঙ্গের মসৃন সুতা) বেঁধে তার সঙ্গে ইমাম বা পীর ফকিরের দেওয়া তাবিজ গলায়, কোমরে, পায়ে, হাতের কব্জিতে বেঁধে রাখা। শিশুর চেহারা লাল-নীল হওয়া কিংবা খিচুনী হওয়া থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য কোমরে বাইট্যা (কালো রঙ্গের মোটা সুতা) বেঁধে দেওয়ায়। টাউকরা-টাউকরি ধরলে শিশুর চেহারা লাল-নীল হয়। এতে শিশুর মৃত্যু হতে পারে। কোনো কারণে শিশুর চেহারা লাল-নীল হলে কবিরাজের মাধ্যমে লোহার বড়শী আগুনে পুড়িয়ে লাল করে শিশুর কপালে বা বুকে ছেক দেওয়া। লোকজনের বিশ্বাসের মধ্যে আরও একটি অন্যতম প্রথা ছিল, স্বামীর নাম মুখে আনলে অমঙ্গল হয়। হাতে চুঁড়ি না থাকলে স্বামীকে খাবার পানি দিতে নেই। ৮/১০ বছরের বাচ্চা ঘুমন্ত অবস্থায় বিছানায় প্রশ্রাব করলে ঘুম থেকে ওঠার পর ওই স্থানে চাল ফেলে জিহ্বা দিয়ে চেঁটে চেঁটে খাওয়ানো ইত্যাদি।

সোমেশ্বরী দেবী ভক্ত ও সোমেশ্বরী সংগঠনের সদস্য বাহাড়া গ্রামের অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক রবীন্দ্র চন্দ্র দাস (৭৫) জানান, ছোট বেলায় তিনি দেখেছেন তার দাদু-দিদা, মা-বাবাসহ স্বজনরা সোমেশ্বরী দেবীকে এসে পূজা দিতেন। তিনিও তাদের পথ ধরে প্রতি বছর পূজা দেন। এ উপলক্ষে দেবীর মন্দির ঘিরে মেলাও বসে।
তিনি আরও জানান, এই মেলা ও পূজার বয়স আনুমানিক ৫ শত বছর হবে।

সুমেশ্বরী মেলা বিষয়ে গ্রামের প্রবীন মুরুব্বী নিবরস রায় জানান, পূর্বসূরীদের ঐতিহ্য হিসেবে প্রতি বছর চৈত্র মাসে দেবী সোমেম্বরী এখানে পূজিত হচ্ছেন। মেলায় ধর্মীয় ভাবগম্ভীর্য ও পবিত্রতা রক্ষায় পরিচালনা কমিটি সুশৃঙ্খলভাবে দায়িত্ব পালন করে।

তিনি বলেন, সোমেশ্বরী দেবী এই অঞ্চলের মানুষের ফসল ও জীবন-জীবিকা রক্ষার অবলম্বন-এমন বিশ্বাস থেকে গভীর শ্রদ্ধায় ও ভক্তি সহকারে দেবির পূজার্চনা সম্পন্ন হয়।

শাল্লা উপজেলার চেয়ারম্যান চৌধুরী আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ জানান, শাল্লায় দীর্ঘদিন থেকে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিরাজমান। ফলে যেকোনো ধর্মের ধর্মীয় অনুষ্ঠানগুলো শান্তিপূর্ণভাবে সম্পন্ন হয়।

তিনি বলেন, দেবি সোমেশ্বরী এই অঞ্চলের ফসল রক্ষার প্রতীক হিসেবে সকল ধর্মের মানুষের কাছে পূজনীয়। ফলে মেলায় সকল ধর্মের মানুষের ভক্তি সহকারে সহাবস্থান মেলার আরও একটি অসাম্প্রদায়িকতার নিদর্শন।

এ ব্যাপারে সোমেশ্বরী মন্দির পরিচালনা কমিটির সভাপতি ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান গনেন্দ্র চন্দ্র সরকার বলেন, মন্দির পরিচালনা কমিটির সার্বিক তত্বাবধানে প্রতি বছর দুই দিনব্যাপী মেলা ও পূজানুষ্ঠান সম্পন্ন হয়।

তিনি বলেন, মেলায় বেল ও কুইশ্যারের ক্রেতা হিসেবে সনাতন ধর্মের পাশাপাশি মুসলিম সম্প্রদায়ের লোকজনের অংশগ্রহণ মেলার আরও একটি উল্লেখযোগ্য দিক। এর ফলে সোমেশ্বরী মেলায় কোনো ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনার সৃষ্টি হয়নি।

এসআইএইচ


বিভাগ : ফিচার