সোমবার, ২৭ মে ২০২৪ | ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
Dhaka Prokash

‘সরকারে থাকা আওয়ামী লীগ কোনো রাজনৈতিক দল না’

ববি হাজ্জাজ। জাতীয়তাবাদী গণতান্ত্রিক আন্দোলনের (এনডিএম) প্রতিষ্ঠাতা ও চেয়ারম্যান। সম্প্রতি ঢাকাপ্রকাশ-কে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে তিনি বলেছেন, দল গঠন করলেও রাজনীতি তার পেশা না। পেশায় শিক্ষক ববি আরও অনেক বিষয়ে কথা বলেছেন। বলেছেন, আওয়ামী লীগ কোনো দল না। তিনি তার বাবাকে (মুসা বিন শমসের) ছাত্রলীগের নেতা হিসেবেও প্রতিষ্ঠিত করার চেষ্টা করেছেন। সাক্ষাৎকারের চুম্বক অংশ পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হলো-

ঢাকাপ্রকাশ: আপনি একজন তরুণ রাজনীতিক। জাতীয়তাবাদী গণতান্ত্রিক আন্দোলন (এনডিএম) নামে আপনার একটা রাজনৈতিক দলও আছে। রাজনীতিটা আপনি কেমন উপভোগ করেন?

ববি হাজ্জাজ: আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ। একই সঙ্গে আপনার মাধ্যমে ঢাকাপ্রকাশ এবং ঢাকাপ্রকাশ-এর সকল দর্শক, শ্রোতা ও পাঠকদেরকে সালাম ও শুভেচ্ছা।

আমি অত্যন্ত আনন্দের সঙ্গে গত ১০-১২ বছর ধরে রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত আছি। যারাই রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত হন বা রাজনীতি করেন এটা তাদের জীবনের একটা অংশ হিসেবেই করেন। তারা জনগণের কাছে থাকতে চান। মানুষের কাছে থাকতে চান, মানুষের কাছে পৌঁছানোর জন্য তারা কাজ করেন এবং একবার যখন মানুষের কাছে পৌঁছান তখন তারা মানুষকে নিয়েই কথা বলেন। মানুষকে নিয়েই তারা কাজ করেন। আসলে রাজনীতি বৃহত্তর ও একটা জীবনের অংশ।

ঢাকাপ্রকাশ: তাহলে রাজনীতি আপনার পেশা না?

ববি হাজ্জাজ: না, রাজনীতি আমার পেশা না। একটা নির্বাচন জিতে আপনি চেয়ারম্যান বলেন, কাউন্সিলর বলেন কিংবা এমপি বলেন, ওই একটা জায়গায় বসার আগ পর্যন্ত রাজনীতি আসলে পেশা হতে পারে বলে আমি মনে করি না।

ঢাকাপ্রকাশ: আপনি জাতীয় পার্টির প্রয়াত চেয়ারম্যান এ এইচ এম এরশাদের উপদেষ্টা ছিলেন। মানে জাতীয় পার্টির রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত হয়েছিলেন। সেখান থেকে বের হয়ে গেলেন কেন?

ববি হাজ্জাজ: প্রথমত মরহুম প্রেসিডেন্ট হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ আমাকে অনেক স্নেহ করতেন। উনি দাওয়াত দিয়ে আমাকে পার্টিতে জয়েন্ট করতে বলেন। উনার বিশেষ উপদেষ্টা বানান। দলের প্রধান নির্বাচনী সমন্বয়কও বানান এবং স্পোকস্ পার্সনও বানান। কিন্তু মূল বিষয় ছিল উনার বিশেষ উপদেষ্টা।

২০১৫ সালের মাঝামাঝির দিকে একটা সময় আসে যেখানে দলীয় কিছু কারণে জাতীয় পার্টির সঙ্গে আমার একটা দূরত্ব তৈরি হয়। এই দূরত্ব একবার তৈরি হওয়ার পর আর আসলে জাতীয় পার্টিতে আমি ফিরে যাইনি। আমি জাতীয় পার্টি ছেড়ে দিয়েছি, এ কথাটা আসলে ভুল।

ঢাকাপ্রকাশ: হঠাৎ কেন নতুন রাজনৈতিক দল করার ইচ্ছা জাগল আপনার মতো একজন শিক্ষকের?

ববি হাজ্জাজ: ২০১৫ সালে জাতীয় পার্টির সঙ্গে আমার একটা দূরত্ব তৈরি হওয়ার পর থেকে আমি…তখনও আমি জাতীয় পার্টির হয়ে জেলা-উপজেলা পর্যায়ে কাজ করছিলাম। কাজ করতে করতে কিছু উপলব্ধি হলো। আমি যে জিনিষগুলো বিশ্বাস করি, জাতীয় পার্টি ভালো না খারাপ সেটা বিষয় না। আমি বিশ্বাস করি, গণতন্ত্রের জন্য, দেশের জন্য, দেশের জনগণের জন্য কাজ করা। সেই কাজগুলো জাতীয় পার্টির মাধ্যমে করা অত্যন্ত মুশকিল হতো। আমি যে জিনিষগুলো সঠিক বলে মনে করি সেগুলো নিয়ে কাজ করার প্রত্যাশা থেকেই জাতীয়তাবাদী গণতান্ত্রিক আন্দোলন গঠন করা।

ঢাকাপ্রকাশ: দেশে তো অসংখ্য রাজনৈতিক দল আছে। এতো দলের ভিড়ে আরেকটি রাজনৈতিক দলের কি খুব প্রয়োজন ছিল?

ববি হাজ্জাজ: আলবত প্রয়োজন ছিল। প্রয়োজন ছিল বলেই আমরা শুরু করি। অনেক রাজনৈতিক দল আছে নিশ্চয়ই। নিবন্ধিত অনেক রাজনৈতিক দল আছে নিশ্চয়ই। কিন্তু যেই বিশ্বাসে আমরা বিশ্বাসী সেই বিশ্বাসে অন্যকোনো দল না থাকার কারণে আমরা এনডিএম গঠন করি।

ঢাকাপ্রকাশ: দল নিয়ে ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা কি?

ববি হাজ্জাজ: দেখেন রাজনৈতিক দল আমরা সৃষ্টি করি জনণকে রিপ্রেজেন্ট করার জন্য। আর জনগণকে রিপ্রেজেন্ট একমাত্র ইলেকট্রেট পজিশনে গেলেই হয়। সো, দল নিয়ে ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা হল সব পর্যায়ে অর্থাৎ স্থানীয় নির্বাচনে, জাতীয় নির্বাচনে জয়ী হয়ে জনগণকে রিপ্রেজেন্ট করা।

ঢাকাপ্রকাশ: সামনে তো নির্বাচন আসছে। নির্বাচনে আপনার দলের প্রার্থী দেওয়ার মতো অবস্থা কি আছে কোথাও?

ববি হাজ্জাজ: ২০১৯ সালে আমরা নিবন্ধন পাই সিংহ প্রতীক নিয়ে। সামনে যে জাতীয় নির্বাচন হতে যাচ্ছে, ২০২৪ সালের নির্বাচন যদি সঠিকভাবে হয়, একসেপ্টবল একটা নির্বাচন দিতে সরকার সক্ষম হয় তাহলে ২০২৪ সালের নির্বাচনে আলবত এনডিএম বড় ভাবে প্রার্থী দেবে এবং নির্বাচন করবে।

ঢাকাপ্রকাশ: আপনি বলছেন নির্বাচন যদি সঠিক হয়, আপনার মনে নির্বাচন নিয়ে কোনো প্রশ্ন আছে কিনা?

ববি হাজ্জাজ: দেখেন আমি এক মুহূর্তের জন্য ধরছি না যে নির্বাচন সঠিক, স্বচ্ছ ও সুন্দর হবে। ২০১৪ তে হয়নি, ১৮তে হয়নি। এটা হবেই না। তারপরও ২০২৪-এ এসে যদি সরকার একটা আশাবাদের জায়গা তৈরি করতে পারে, যেখানে একটা মিনিমাম জায়গা তৈরি হবে তাহলে আমরা নির্বাচনে যাব। মিনিমাম একটা জায়গা তৈরি করা, বেসিক একটা জয়গা তৈরি করা। যেখানে সবার একটা আস্থা আসে যে, এটলিস্ট একটা মিনিমাম স্বচ্ছতা থাকবে নির্বাচনে। ফুল স্বচ্ছতা না, আমার বিশ্বাস ফুল স্বচ্ছতা আসবে না। নির্বাচন কমিশনের সঙ্গে আমাদের বসা হয়েছে। নির্বাচন কমিশনও কিছু বিষয়ে তাদের অপারগতার কথা জানিয়েছেন যে, অনেক জিনিসই তাদের ক্ষমতার বাইরে। তাদের ক্ষমতার ভেতরে থাকলে যে তারা করতেন আমি সেটাও বলছি না।

ঢাকাপ্রকাশ: আপনি কয়েকদিন আগে ফেনীতে একটি সমাবেশে বলেছেন, আওয়ামী লীগ কোনো রাজনৈতিক দল নয়। আওয়ামী লীগকে উড়িয়ে দিলেন…

ববি হাজ্জাজ: আমি আওয়ামী লীগকে উড়িয়ে দেইনি। আওয়ামী লীগ এদেশের একটা প্রাচীন রাজনৈতিক দল। কিন্তু সেই দলের সঙ্গে আজকের আওয়ামী লীগকে আমি রাজনৈতিক দল হিসেবে ধরি না। কারণ ক্ষমতায় যারা আছেন তারা জনগণের সঙ্গে সম্পৃক্ত। আওয়ামী লীগ এদেশের সবচেয়ে বড় রাজনৈতিক দল। এটা আমি বিশ্বাস করি। তবে যতদিন সরকারে আছে ততোদিন আওয়ামী লীগ জনসম্পৃক্ত না এবং কোনো রাজনৈতিক দল না। দ্বিতীয়ত, আমরা মনে করি আমরা শুধু সত্য বলছি। সত্যটা যদি কারো বিরুদ্ধে যায়, তাতে আমার করার কিছু নেই।

ঢাকাপ্রকাশ: আপনার বাবা তো একজন ব্যবসায়ী এবং জনশক্তি রপ্তানির পাশাপাশি অস্ত্র ব্যবসায়ী হিসেবে স্বীকৃত। এ নিয়ে অনেক বিতর্ক আছে। আপনার রাজনীতির ক্ষেত্রে তার কোনো প্রভাব পড়ে কি না?

ববি হাজ্জাজ: প্রথমত আপনাকে বলে রাখি, এই জনশক্তি রপ্তানি, এই সেক্টরটার জন্ম দিয়েছে আমার বাবা। আজকের বাংলাদেশের অর্থনীতির যে অবস্থা তার উপর বড় কোনো ইন্ড্রাস্টিয়াল ইম্পেক্ট যদি থেকে থাকে…বাংলাদেশের উন্নয়নের মাপকাঠি, উন্নত দেশ, এতো হাইরাইজ জিডিপি, আজকে যে ডলার ক্রাইসিস তৈরি হল… তখন কিন্তু এই ফরেন রেমিটেন্সের কারণেই আমরা বলতে পারছি ডলার ভ্যালু একটা সামঞ্জস্যে আসছে। এই জনশক্তি রপ্তানির কারণে, এই ইন্ড্রাস্টির কারণে। আর এই ইন্ড্রাস্টির জন্মদাতা আমার বাবা।

দ্বিতীয়ত, অস্ত্রের ব্যবসা নিয়ে অনেকভাবে কথা বলা যায়। রাস্তাঘাটে যারা অস্ত্র নিয়ে বা অবৈধ আর্মস নিয়ে হেলমেট বাহিনী দৌড়াদৌড়ি করছে, এটা যারা বিক্রি করছে এটাও অস্ত্রের ব্যবসা। আবার বিএই সিস্টেমস এ যারা অস্ত্র বিক্রি করছে সেটাও অস্ত্রের ব্যবসা। আমার বাবা বড় বড় ফাইটার জেট, ট্যাংক, ওয়্যার শিপ, ফ্রিগেট… একটা দেশ যখন আরেকটা দেশে বিক্রি করত তখন উনার মাধ্যমে বিক্রি করছে। বহু বছর আমার বাবা এই ব্যবসার সঙ্গে জড়িত ছিলেন। আমার বাবা কখনই বিতর্কিত কোনো কিছুর সঙ্গে জড়িত ছিলেন না। তাকে নিয়ে কেন বিতর্ক সেটা আমার বোধগম্য নয়। আর আমার রাজনীতিতে সেটা কোনো প্রভাব ফেলেনি।

ঢাকাপ্রকাশ: আপনার পিতার বিরুদ্ধে মুক্তিযুদ্ধের বিরোধীতা করা, পাকবাহিনীকে সহায়তা করার সুনির্দিষ্ট অভিযোগ রয়েছে। মামলাও হয়েছে। কিন্তু আপনাদের পরিবারের সঙ্গে সরকারি দলের একজন প্রভাবশালী নেতার পরিবারের আত্মীয়তার কারণে সেই মামলাটি আগায়নি। যার ফলে যুদ্ধাপরাধীর বিচার প্রক্রিয়া আগায়নি। যুদ্ধাপরাধের বিষয়টি আপনি কীভাবে খণ্ডাবেন…।

ববি হাজ্জাজ: প্রথমত প্রশ্নটা একটা অবাঞ্ছিত প্রশ্ন। যেহেতু আপনি জিজ্ঞেস করে ফেলেছেন সেকারণে উত্তর দেই। যেকোনো বড় মানুষের বিরুদ্ধে যেকোনো ধরনের আরোপ আনা যায়। কখনো উনার নামে কোনো মামলা হয়ে কিছু প্রমাণিত হয়নি এবং বড় কথা কোনো মামলা নেয়ওনি। এই কমপ্লেইন আইসিটি ট্রাইব্যুনাল থেকে শুরু করে দুদক সব জায়গায় গিয়েছে। কিন্তু কোথাও কোনো অভিযোগ পাওয়া যায়নি। আওয়ামী লগের মরহুম নেতা আব্দুর রাজ্জাক সাহেব যার ছেলেও এখন সংসদে আছেন, আব্দুর রাজ্জাক সাহেব পর্যন্ত বক্তব্য দিয়েছেন যে, আমার বাবা কখনো… এবং আমার বাবা ছাত্রলীগের নেতা ছিলেন এবং আব্দুর রাজ্জাক সাহেবের আন্ডারেই উনি ছিলেন। মানে আব্দুর রাজ্জাক ছিলেন সিনিয়র নেতা, আর আমার বাবা ছিলেন জুনিয়র নেতা। সেই হিসেবে আওয়ামী লীগের অনেক নেতা সেই এলাকায় বক্তব্য দিয়েছেন যে, উনি কখনো যুদ্ধাপরাধের সঙ্গে জড়িত ছিলেন না। এমনকি কোনো মামলায় তার বিরুদ্ধে কোনো আইসিটি এভিডেন্স বের করতে পারেননি।

আর আপনি যদি বলেন যে, সরকারি দলের সঙ্গে সম্পর্কের…সরকারি দলের সঙ্গে যদি আমার এতোই দহরম-মহরম সম্পর্ক থাকে তাহলে আমার রাজনীতিতে এতো নাজেহাল কেন হতে হয়। এতোই যদি দহরম মহরম থাকে তাহলে দেখান গত ২০ বছরে আমার পরিবার… গত ৩০ বছরে আমাদের পারিবারিক যে ব্যবসা তার একটা কন্ট্রাক্ট সরকারের সঙ্গে করেছে। সরকারের সঙ্গে এতো দহরম মহরম থাকে তাহলে সরকারের কাছ থেকে না আমি একটা টাকা বানাতে পারছি …এই সরকারের আমলে দুদকে হয়রানি হয়, এই সরকারের আমলে রেন্ডম মামলা করে…যখন এদেশের অর্থনীতি যাদের উপর দাঁড়িয়ে তাদের নাজেহাল করে…তখন এই দেশের সরকারের সঙ্গে কতোখানি সম্পর্ক আমার, এখানে কি প্রতীয়মান হয় না।

আরএ/

Header Ad

কুমিল্লায় ভবন ধসে শ্রেণিকক্ষেই প্রাণ গেল শিক্ষার্থীর

কুমিল্লায় ভবন ধসে শ্রেণিকক্ষেই এক শিক্ষার্থীর মৃত্যু হয়েছে। ছবি: সংগৃহীত

কুমিল্লায় বিদ্যালয়ে ক্লাসরত অবস্থায় পার্শ্ববর্তী নির্মাণাধীন সাততলা ভবনের দেয়াল (লিংটার) ধসে সাইফুল ইসলাম সাগর (১২) নামে এক শিক্ষার্থী নিহত হয়েছেন।

সোমবার (২৭ মে) বেলা পৌনে ১১টার দিকে জেলার সদর দক্ষিণ উপজেলার নোয়াগাঁও চৌমুহনী এলাকায় নুর আইডিয়াল স্কুলে এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত স্কুলছাত্র সাইফুল ইসলাম সাগর ওই প্রতিষ্ঠানের পঞ্চম শ্রেণির ছাত্র। সে শাকতলা এলাকার অলী আহমেদের ছেলে।

নূর আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজের প্রধান শিক্ষক মো. আশিকুর রহমান বলেন, বেলা ১১টা ৪০ মিনিটের দিকে পঞ্চম শ্রেণির ক্লাস চলছিল। হঠাৎ স্কুলের পূর্বপাশে নির্মাণাধীন একটি ভবনের ৭তলার দেওয়ালের একটি অংশ স্কুলের টিনের চালায় ভেঙে পড়ে। এতে স্কুলের চেয়ার-টেবিলের ব্যাপক ক্ষতি হয়। এ সময় ইটের আঘাতে সাইফুল ইসলাম সাগর গুরুতর আহত হয়। দ্রুত তাকে কুমিল্লা সদর হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত ডাক্তার মৃত ঘোষণা করেন।

প্রধান শিক্ষক আশিকুর রহমানের অভিযোগ, কোনো প্রকার সেফটি ছাড়াই ভবন কর্তৃপক্ষ নির্মাণকাজ চালাচ্ছিল। তাদের অবহেলার কারণেই আজ শিশুটির মৃত্যু হয়েছে। প্রশাসনের কাছে এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচার দাবি করেন তিনি।

এ বিষয়ে কুমিল্লা সদর দক্ষিণ মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) খাদেমুল বাহার জাগো নিউজকে বলেন, খবর পেয়ে নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। অভিযোগের ভিত্তিতে এ বিষয়ে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

হেরে গেলেন নিপুণ, শিল্পী সমিতির সম্পাদক পদ ফিরে পেলেন ডিপজল

নিপুণ আক্তার এবং ডিপজল। ছবি: সংগৃহীত

চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির এবারের নির্বাচনে সাধারণ সম্পাদক পদে মনোয়ার হোসেন ডিপজলের দায়িত্ব পালনে হাইকোর্টের দেওয়া নিষেধাজ্ঞার আদেশ স্থগিত করেছেন চেম্বার আদালত।

সোমবার (২৭ মে) আপিল বিভাগের চেম্বার বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম হাইকোর্ট থেকে দেওয়া আদেশ স্থগিতের রায় দেন।

এর ফলে সমিতির সম্পাদক পদে ডিপজলের দায়িত্ব পালনে আর কোনো বাধা রইল না। টিকল না সাবেক সাধারণ সম্পাদক নিপুণ আক্তারের করা রিট। আইনি লড়াইয়ে ডিপজলের কাছে হেরে গেলেন তিনি।

নিপুণের করা রিট আবেদনের প্রেক্ষিতে গত ২০ মে শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক পদে দায়িত্ব পালনের ওপর নিষেধাজ্ঞা দেন হাইকোর্ট। সেই পদ ফিরে পেতে শনিবার চেম্বার আদালতে আবেদন করেন ডিপজল। সোমবার তিনি রায় পেলেন নিজের পক্ষে।

গত ১৫ মে নিপুণের পক্ষে আইনজীবী অ্যাডভোকেট পলাশ চন্দ্র রায় হাইকোর্টে একটি রিট আবেদন করেন। তাতে শিল্পী সমিতির নির্বাচনে অনিয়ম ও কারচুপির অভিযোগ আনার পাশাপাশি নতুন নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা এবং মিশা-ডিপজলের নেতৃত্বাধীন কমিটির দায়িত্ব পালনে নিষেধাজ্ঞা চাওয়া হয়।

সেই রিটের শুনানিতে গত ২০ মে ডিপজলের সাধারণ সম্পাদক পদের ওপর নিষেধাজ্ঞা দেন বিচারপতি নাইমা হায়দার ও বিচারপতি কাজী জিনাত হকের হাইকোর্ট বেঞ্চ। সেই সঙ্গে পরাজিত প্রার্থী নিপুণ আক্তারের অভিযোগ তদন্তের জন্য সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়কে নির্দেশও দেন।

গত ১৯ এপ্রিল এফডিসিতে অনুষ্ঠিত হয় শিল্পী সমিতির ২০২৪-২৬ মেয়াদের নির্বাচন। ফলাফল ঘোষণা হয় পরদিন সকালে। তাতে নতুন সভাপতি নির্বাচিত হন মিশা সওদাগর। অন্যদিকে, নিপুণকে ১৬ ভোটে হারিয়ে সাধারণ সম্পাদক হন মনোয়ার হোসেন ডিপজল।

সে সময় বিজয়ী প্রার্থীদের গলায় ফুলের মালা পরিয়ে অভিনন্দন জানান বিদায়ী সাধারণ সম্পাদক নিপুণ আক্তার।

এর প্রায় এক মাস পর হাইকোর্টে রিট করেন তিনি। স্থগিত হয়ে যায় সাধারণ সম্পাদক পদে ডিপজলের দায়িত্ব পালন। চেম্বার আদালতের রায়ে আবার তা ফিরেও পেলেন।

পাপুয়া নিউ গিনিতে ভূমিধস: জীবিত সমাহিত দুই হাজারেরও বেশি মানুষ

ছবি: সংগৃহীত

প্রশান্ত মহাসাগরীয় দ্বীপ রাষ্ট্র পাপুয়া নিউ গিনির এনগা প্রদেশের একটি প্রত্যন্ত গ্রামে গত শুক্রবার ভয়াবহ ভূমিধসের পরে দুই হাজারেরও বেশি মানুষ মাটির নিচে চাপা পড়ে জীবিত সমাহিত হয়েছেন বলে অনুমান করেছে কতৃপক্ষ।

সোমবার (২৭ মে) এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানিয়েছে বার্তাসংস্থা এএফপি।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, দেশের একটি প্রত্যন্ত গ্রামে প্রবল ভূমিধসে ২ হাজারেরও বেশি লোক চাপা পড়েছে বলে পাপুয়া নিউ গিনি সোমবার জাতিসংঘকে অবহিত করেছে। মূলত একটি চিঠিতে দেশটি জাতিসংঘকে এই তথ্য জানায় এবং সেই চিঠির একটি অনুলিপি এএফপির হাতে এসেছে।

পাপুয়া নিউ গিনির জাতীয় দুর্যোগ কেন্দ্র রাজধানী পোর্ট মোরেসবিতে অবস্থিত জাতিসংঘের অফিসকে বলেছে, ‘ভূমিধসে ২ হাজারেরও বেশি লোক জীবিত সমাহিত হয়েছে এবং এই ভূমিধস বড় ধরনের ধ্বংসযজ্ঞের সৃষ্টি করেছে।’

গত বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে পাপুয়া নিউ গিনির এঙ্গা প্রদেশে যে ভূমিধস হয়েছে, তাতে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে প্রদেশের ৬টিরও বেশি গ্রাম। তবে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে কাওকালাম নামের একটি গ্রাম।

কাওকালাম গ্রামের বাসিন্দা নিঙ্গা রোলে জানিয়েছেন, বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত ৩ টায় এই ভূমিধস ঘটেছে। গভীর রাতে সবাই ঘুমিয়েছিলেন, তাই দুর্যোগের সময় অধিকাংশ মানুষই বাড়ি থেকে বের হতে পারেননি।

দুর্যোগ অফিস বলেছে, ভূমিধসের ফলে ভবন, খাবারের গাছের বাগানের বড় ধরনের ক্ষতি হয়েছে এবং দেশের অর্থনৈতিক লাইফলাইনে বড় ধরনের প্রভাব পড়েছে।

সোমবার সকালে জাতিসংঘের কর্মকর্তারা এই চিঠিটি পেয়েছেন। সেখানে আরও বলা হয়েছে, পোরগেরা মাইনে যাওয়ার প্রধান মহাসড়কটি ‘সম্পূর্ণভাবে অবরুদ্ধ’।

এতে বলা হয়েছে, ‘পরিস্থিতি এখনও অস্থিতিশীল রয়ে গেছে। কারণ ল্যান্ডস্লিপটি ধীরে ধীরে স্থানান্তরিত হচ্ছে, আর এটি উদ্ধারকারী দল এবং বেঁচে থাকা বাসিন্দা উভয়ের জন্যই বিপজ্জনক।’

সর্বশেষ সংবাদ

কুমিল্লায় ভবন ধসে শ্রেণিকক্ষেই প্রাণ গেল শিক্ষার্থীর
হেরে গেলেন নিপুণ, শিল্পী সমিতির সম্পাদক পদ ফিরে পেলেন ডিপজল
পাপুয়া নিউ গিনিতে ভূমিধস: জীবিত সমাহিত দুই হাজারেরও বেশি মানুষ
বিএনপি সহযোগিতার নামে ফটোশেসন করে: ওবায়দুল কাদের
ঘূর্ণিঝড় রেমালের কারণে ১৯ উপজেলায় নির্বাচন স্থগিত
ঘূর্ণিঝড় রেমালের তাণ্ডব: নিহত বেড়ে ১০
গোবিন্দগঞ্জে ৮ হাজার ৮৮৪ পিস ট্যাপেন্টাডলসহ মাদক কারবারি গ্রেফতার
‘রেমালের কেন্দ্রভাগ বিকেলের মধ্যে ঢাকায় ঢুকবে’
ইরানের প্রেসিডেন্ট প্রার্থী হওয়ার ঘোষণা দিলেন আহমাদিনেজাদ
ঢাকায় রেমালের প্রভাব, দমকা বাতাসের সঙ্গে ঝরছে বৃষ্টি
টাঙ্গাইলে ৪ লাখ ৯৩ হাজার শিশুকে খাওয়ানো হবে ‘ভিটামিন এ প্লাস ক্যাপসুল’
যুক্তরাষ্ট্রে টর্নেডোর তাণ্ডব, ১৫ জনের মৃত্যু
ঘূর্ণিঝড় রেমালে দেশের বিভিন্ন জেলায় ৬ জনের মৃত্যু
বিভিন্ন খালে জাল ফেলে এখনও মেলেনি এমপি আনারের লাশ
ভয়াবহ ইসরাইলি হামলা, গাজায় নারী-শিশুসহ নিহত ৩৫
৪৫ হাজার হজযাত্রী সৌদি পৌঁছেছেন, ৬ বাংলাদেশির মৃত্যু
উপকূল অতিক্রম করে দুর্বল হচ্ছে ‘রেমাল’
মধ্যরাতে বাংলাদেশের বিশ্বকাপ জার্সি উন্মোচন
সরকার তারেককে ফিরিয়ে এনে অবশ্যই আদালতের রায় কার্যকর করবে: প্রধানমন্ত্রী
উপকূলজুড়ে চলছে রিমালের তাণ্ডব, সমুদ্রবন্দরে মহাবিপদ সংকেত