শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪ | ৬ বৈশাখ ১৪৩১
Dhaka Prokash

নষ্ট প্রেমের দহন

নাজনীনের অস্থিরতা বেড়েই চলছে। কোনভাবেই নিজেকে স্থির রাখতে পারছেনা।একটা অশুভ চিন্তা তার মনের কোনায় বারবার হানা দিয়ে যায়।মনের সাথে যুদ্ধ করে সে। এ কি করে সম্ভব? এমনটি সে ভাবতেই পারে না! তাহলে আকাশের মোবাইল ফোনটা বন্ধ কেন?এরই মাঝে আকাশের বন্ধু, অফিসের বস,যাদের সাথে ঘনিষ্টতা রয়েছে আকাশের, সকলকেই ফোন করেছে নাজনীন। কেউ তার হদিস বলতে পারছেনা ওর কাছের বন্ধুদের মধ্যে আবির, দুর্জয় ওরাও বর্তমান অবস্থান জানে না। মোবাইল ফোন বন্ধ হওয়ার আগের বিকেলে নাকি দুর্জয়ের সাথে ছিল,রাতে ঘুমায় বন্ধুর বাসায়। শেষ রাতের দিকে উঠেই কাউকে না জানিয়ে চলে যায় আকাশ। তারপর থেকে ফোন বন্ধ। অল্প কিছুক্ষণ হলো নাজনীন মেয়েকে নিয়ে স্কুল থেকে ফিরেছে। এই সময়েই ফোনটা আসে। কথাটা শুনেই স্তব্ধ হয়ে থাকে অনেকক্ষণ। নিজের কানকে বিশ্বাস করতে পারছে না সে। এ যে হতেই পারে না! কিন্তু রোদেলার স্বামী স্পষ্ট করেই বলে দিল। আপু তোমার স্বামী আমার বউকে নিয়ে চলে গেছে।

গত তিন দিন থেকেই আকাশের মোবাইল ফোন বন্ধ। নাজনীন প্রথমেই ফোন করেছিল আকাশের অফিসে। তার বস জানিয়ে দিল সে গত বেশ ক'দিন অফিসে আসছে না। অফিস থেকে উল্টো জানতে চায়, আকাশের কি হয়েছে? অফিসকে না জানিয়ে , ছুটি ছাড়াই সে সপ্তাহ খানেক অফিসে যাচ্ছে না। সব মিলিয়ে নাজনীন কিছুই ভাবতে পারে না। কেন এমন হবে? সে ত কোন ভাবেই অপূর্ণ রাখেনি আকাশকে। তাদের সংসারে ভালবাসার অভাব ছিলনা কখনোই। চাঁদের আলোর মতো দু'টি কন্যা নাজনীনে'র কোল আলো করে আসে। ভালবাসার চির বন্ধনকে অটুট রাখতে। সাজানো সুখের সংসার কালবৈশাখী ঝড়ে সব এলোমেলো করে দেয়।নাজনীনের দুগাল বেয়ে অশ্রু ঝড়ে। হাজার পাওয়ারের বাতি ঢিপঢিপ করে জ্বলতে থাকে দুচোখের তারায়। টর্নেডোর আওয়াজ শুনে হাজার মাইল জুড়ে। ছোট মেয়েটি কোলে এসে জড়িয়ে ধরে। কি হয়েছে মা? তুমি কাঁদছ কেন? তুমাকে কে বকেছে মা? আমাকে বলো, বাবা বাড়ী এলে, যে তোমাকে বকেছে তাকে মারতে বলবো। মৃত্তিকার আদো আদো বুলে এই কথাগুলি আরো বেশি আঘাত করে নাজনীনকে।

সে আর নিজেকে সামলে রাখতে পারে না। এমন সময় গেটে কলিং বেল বেজে উঠে। উঠে গিয়ে গেট খুলে দেখে শাওলি। স্কুল ড্রেস পরা মেয়েকে আজ খুব আহলাদি মনে হয়। কাঁধে স্কুল ব্যাগ ঝুলিয়ে, হেলতে দুলতে উঠে যায় দু'তলায়। শাওলি রুমে ঢুকেই স্কুল ব্যাগ ছুড়ে ফেলে দেয় খাটের উপর। ড্রয়িং রুমের সোফায় একটু বসার পর বাথ রুমে যায় ফ্রেস হতে। বেরিয়ে এসে হাত-মুখ মুছতে মুছতে বলে: আম্মু ভাত দাও, প্রচন্ড ক্ষুধা লেগেছে। নাজনীন এবার মুখ তুলে কান্না জড়িত কন্ঠে বলে: রান্না করিনি মা। ফ্রিজে খাবার আছে এখন বের করে খেয়ে নাও। মায়ের মুখের দিকে চেয়ে স্তব্ধ হয়ে যায় শাওলি। একি চেহারা মায়ের? আলুথালু বেশ,এলো চুল,চোক দুটি লাল জবা ফুলের মতো। দুগাল বেয়ে অশ্রু গড়িয়ে নামছে অনর্গল। শাওলি অবাক হয়ে এগিয়ে যায় মায়ের কাছে।মাকে জড়িয়ে ধরে বলে, কি হয়েছে মা? গভীর কান্নায় কন্ঠ রোধ হয়ে আছে নাজনীনের। অস্পষ্ট স্বরে বলে তোমাদের কপাল পুড়েছে মা। তুমার বাবা তোমাদের ছেড়ে চলে গেছে। আমার পৃথিবী জুড়ে গভীর অমানিশার অন্ধকার।

সেদিনের সেই সন্ধায় আকাশ নিজেকে আবিষ্কার করে ভিন্ন মাত্রায়! সেকি কখনো এইভাবে কল্পনা করেছে রোদেলাকে? নাজনীনের দুর সম্পর্কের আত্মীয় রোদেলা। ছোট বেলা থেকেই রোদেলা মানুষ হয়েছে তাদের কাছে।আপন ছোট বোনের মতোই এই সংসারে বেড়ে উঠেছে রোদেলা। আকাশ-রোদেলা, দু'জনই মানসিকভাবে কখনো ভাবেনিঃ ভিন্ন কিছু। রোদেলার পড়ালেখা শেষ হতেই আকাশ একটি সুপাত্রের সন্ধান করতে থাকে। একটি ভাল ছেলে পেয়ে যায়। বেশ ঘটা করেই বিয়ের অনুষ্ঠান হয়। রোদেলার বিয়েতে প্রচুর খরচ করে আকাশ। সোনা,গয়না, ফার্নিচার থেকে শুরু করে বেশ কয়েক হাজার মানুষকে দাওয়াত করেন। বেস আনন্দ ঘণ পরিবেশে বিয়ের অনুষ্ঠান সম্পন্ন হয়। সমস্যা তৈরি হয় রোদেলাকে শশুর বাড়ী তুলে নেওয়ার পরে। স্ত্রী, সন্তান,মা, ভাই-বোন সব থাকার পরও আকাশের সবকিছুই শূন্য মনে হচ্ছিল! আকাশ ভাবে, কেন এমন হবে? তাদের মাঝেতো কোনরূপ অপবিত্র সম্পর্ক ছিল না। একসাথে থাকা-খাওয়া,হাসি-আনন্দ, জীবনের সবকিছুই ভাগ করা ছিল। কিন্তু তারা কেউ ভিন্ন চিন্তা করেনি পরস্পরকে ঘিরে। কিন্তু জীবন যখনি আলাদা, তখন কেন এমনি হচ্ছে? রোদেলা যাওয়ার পর থেকে, আকাশের জীবনে শূন্য অনুভুতি নেমে আসে। সংসার, কাজ, বন্ধু,আড্ডা,রাজনীতি সবকিছুই মনে হয়ে অর্থহীন।

সেদিন অফিসে যাওয়ার পথে নাজনীন আকাশকে বলে দেয়, রোদেলা শশুর বাড়ী গেল একমাস পার হয়ে গেল।কোন খবর নেই! ফোন করলেও অল্প কথা বলে। আজ অফিস থেকে ফেরার পথে, একটু খোঁজ নিয়ে এসো। ওদের বলে এসো আগামী সোমবার আসতে। ১০ ফেব্রুয়ারি শাওলির জন্মদিন। তোমার মনে আছেতো মেয়ের জন্মদিনের কথা? আকাশ চোখ তুলে বলে, মেয়ে আমার আর মনে করিয়ে দিবে তুমি! তারপর বলে ঠিক আছে আমি অফিস থেকে ফেরার পথে ওদের বলে আসব। আকাশ একটু আগেই অফিস থেকে বের হয়ে যায়। লোকাল বাসে করেই চলে যায় রোদেলার শশুর বাড়ী। দরজায় কলিংবেল বাজাতেই, রোদেলা দরজা খুলে দেয়। আকাশকে দেখে রোদেলা বলে ভাইয়া! তুমি? আমার কথা মনে পড়লো তোমার? রোদেলার সাথে ড্রয়িং রুমে গিয়ে বসে আকাশ। রেদেলাকে দেখে অবাক হয় আকাশ! একি চেহারা হয়েছে মেয়েটার? এই ক'দিনেই চোখ,মুখ বসে গেছে। গায়ের রং কালো হয়ে গেছে, শুকিয়ে কঙ্কাল। সামনে বসা রোদেলাকে প্রশ্ন করে আকাশ, একি অবস্থা তোমার? রোদেলা উত্তর দেয়ার আগেই ওর শাশুড়ী ঢুকে যায়। সেই বলে: কেমন আছ বাবা? রোদেলাকে নিয়ে আমরা খুব বিপদে: আকাশ উদ্বিগ্ন স্বরে বলে কেন, কি হয়েছে? দেখ বাবা: তোমাদের বাড়ী থেকে আসার পর থেকেই সারাক্ষণ মনমরা হয়ে থাকে। কিছু খেতে চায় না,কারো সাথে তেমন কথাও বলে না, রাতে নাকি ঘুমায় না! এখন কি করবো বল তো? আকাশ রোদেলাকে উদ্দেশ্য করে বলে : এসব কি রোদেলা! কি হয়েছে তোমার? মাথা নিচু করে উত্তর দেয় রোদেলা, আমার কিছুই ভাল লাগেনা ভাইয়া।
এসময় চাই, নাস্তা নিয়ে আসে কাজের বোয়া। রোদেলার শাশুড়ী কে আকাশ বলে, রোদেলাকে তার আপু আগামী সোমবার যেতে বলেছে, শাউলির জন্মদিন। রোদেলা বলে, আমাকে আজকে নিয়ে যাও। আমার বাড়ী যেতে খুব ইচ্ছে করছে। রোদেলাকে সমর্থন করে তার শাশুড়ী বলে তাই করো বাবা। ওকে নিয়ে গিয়ে দেখ, জায়গাবদল হলে হয়ত-তার শারিরীক, মানসিক পরিবর্তন আসতে পারে।
আধ ঘন্টার মধ্যেই রোদেলা প্রস্তুত হয়ে আসে। বাসার গেট পার হতেই ওদের বুকের পাথর নেমে যায়। আকাশের মনে হয়, কি যেন ফিরে পেল সে। অল্প সময়েই পাল্টে যায় রোদেলা। কথা বলতে শুরু করে অনর্গল। সিএনজি ধরেই তারা বাসায় ফিরে। রাতেই রোদেলাকে পেয়ে নাজনীন,শাওলির আনন্দ যেন আর ধরে না। একমাস পরে এই বাড়ীতে যেন প্রাণ ফিরে আসে।

এই কটা দিন বেশ আনন্দেই কেটে যায়। শাউলির জন্মদিনের অনুষ্ঠান শেষ হলো দুই দিন। আজ রোদেলার বর এসেছে তাকে নিয়ে যেতে। আবারো অন্ধকার ঘণিয়ে আসে দু'জনের। এই ক'দিনে নতুন দুর্ঘটনা ঘটে যায়। সে দি ন শাওলি স্কুলে, মৃত্তিকাকে নিয়ে কিন্ডার গার্ডেনে গিয়েছে নাজনীন। নিরিবিলি বাসায় রোদেলা-আকাশ। চা নিয়ে ড্রয়িং রুমে আসে রোদেলা। আকাশের সামনে চা দিয়ে পাশেই বসে। মাথা নিচু করে কাচুমাচু করে বলে, ভাইয়া তোমাকে ছেড়ে থাকতে আমার খুব কষ্ট হয়। রোদেলার কথায় বাধ ভেঙ্গে যায় আকাশের। কিছুক্ষণ রোদেলার দিকে চেয়ে থাকে। তারপর কাছে টেনে নেয়। এবার আকাশের বুকে গড়িয়ে পরে রোদেলা।

আকাশ বলে, তোকে ছাড়া আমার পৃথিবী যে অন্ধকার! তারপর বাধভাঙ্গা জোয়ার, যা কল্পনা করা যায় না, তাই ঘটে যায়। ঘন্টা খানেক পরে ওরা ফিরে আসে আপন সত্তায়। কিন্তু ততক্ষণে ওরা অন্য পৃথিবীর বাসিন্দা। পাল্টে যায় সম্পর্কের গন্ডি। এই কদিনে বেশ ক'বার একাকিত্বে সময় কাটিয়েছে ওরা দুইজন। তারা যেন হাজার বছরের চেনা। প্রেমিক প্রেমিকা!

আজ স্বামীর সাথে চলে যায় রোদেলা। আবার শুরু হয় অস্থিরতা।ওদিকে রোদেলা, এদিক আকাশ একই অবস্থা।রাতে মোবাইলে কথা হয়ে ঘন্টা ধরে। বাড়তে থাকে অস্থিরতা। রোদেলা-আকাশ ছাড়া কেউ আঁচ করতে পারে না। দুই জীবন দুই দিকে গুমরে গুমরে মরে। কাউকে বলতেও পারে না। সমাজ,সংসার, সামাজিক অবস্থান তাদের বুকে পাথর চাপা দেয়। সময়ের চাকা ঘুরে। বাড়তে থাকে অস্থিরতা, কষ্ট। বেঁচে থাকাটাই অসম্ভব মনে হয় ওদের কাছে। তখনই ঘটে চুড়ান্ত দুর্ঘটনা।
প্রতি রাত আর দিনের আলোয় নিজেদের নতুন করে আবিষ্কার করে, অশুভ প্রেমের পরিণতি। জীবনের গতি অনিশ্চয়তায় মুঁছে যেতে থাকে। আগামীর নতুন পৃথিবী ওদের ডাক দিয়ে যায়। ঠিকানা বিহীন এক যাত্রা পথের মাত্রা নির্দেশ করে।
মোবাইলে কথা হয়েছিল রাতেই। খুব ভোরেই পালিয়ে যায় ওরা। চেনা পৃথিবীর গন্ডি ছেড়ে হারিয়ে যায় ওরা। সকল বাধা পিছনে ফেলে, ছুটে চলে অজানার ঠিকানায়। যেখানে কেউ তাদের চিনবে না কোন প্রশ্ন করবে না। বন্ধনহীন জীবনে নতুন বাঁধনে জড়িয়ে।

 

ডিএসএস/ 

স্বচ্ছতার সাথে অনুদানের চলচ্চিত্র বাছাই করা হবে: তথ্য প্রতিমন্ত্রী

সচিবালয়ে তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের সভা কক্ষে বক্তব্য রাখছেন প্রতিমন্ত্রী মোহাম্মদ আলী আরাফাত। ছবি: সংগৃহীত

স্বচ্ছতা ও সর্বোচ্চ পেশাদারিত্বের সাথে সরকারি অনুদানের চলচ্চিত্র বাছাই করা হবে বলে জানিয়েছেন তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী মোহাম্মদ আলী আরাফাত।

বৃহস্পতিবার (১৯ এপ্রিল) বিকালে সচিবালয়ে তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের সভা কক্ষে চলচ্চিত্র বাছাই কার্যক্রমের উদ্বোধনকালে তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী এ কথা বলেন।

তিনি আরও বলেন, 'স্বচ্ছ ও জবাবদিহিমূলক প্রক্রিয়ায় যাতে চলচ্চিত্র নির্মাণের জন্য অনুদান প্রদান করা হয়, সে ব্যাপারে সরকার সচেষ্ট। চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্ট দক্ষ ও অভিজ্ঞ ব্যক্তিরা যাতে অনুদানের জন্য বাছাই প্রক্রিয়ায় যুক্ত হতে পারেন, সরকার সেটিও নিশ্চিত করতে চায়।'

সরকারি অনুদান প্রদানের জন্য স্বচ্ছতা ও সর্বোচ্চ পেশাদারিত্বের সঙ্গে চলচ্চিত্র বাছাইয়ের কার্যক্রম শুরু করেছে তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়। এ লক্ষ্যে প্রথমবারের মতো পূর্ণদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র অনুদানের স্ক্রিপ্ট বাছাই কমিটির সামনে প্রস্তাবিত চলচ্চিত্রগুলো নিয়ে পাওয়ার পয়েন্ট উপস্থাপনা শুরু হয়েছে। ২০২৩-২৪ অর্থবছরে অনুদান প্রাপ্তির জন্য আবেদনকৃত মোট ১৯৫ টি পূর্ণদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রের মধ্য থেকে প্রাথমিকভাবে বাছাইকৃত ৪৫ টি চলচ্চিত্রের পাওয়ার পয়েন্ট উপস্থাপনা শুরু হয়েছে।

এ দিন পাওয়ার পয়েন্ট উপস্থাপনা দেখে চলচ্চিত্রগুলোকে স্ক্রিপ্ট বাছাই কমিটির সদস্যরা গোপনীয়ভাবে আলাদা আলাদা নম্বর প্রদান করেছেন। এ সময় চলচ্চিত্র অনুদান কমিটির সদস্যরাও পর্যবেক্ষক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন।

এ সময় তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, বাছাই কমিটির সদস্যরা আন্তর্জাতিকভাবে প্রচলিত বিভিন্ন মানদন্ডের উপর ভিত্তি করে আবেদনকৃত চলচ্চিত্রের প্রস্তাবনার উপর আলাদা আলাদা ভাবে নম্বর প্রদান করছেন। পরবর্তীতে সকল সদস্যদের নম্বরগুলো গড় করে সর্বোচ্চ নম্বর পাওয়া আবেদনগুলো অনুদানের জন্য বিবেচিত হবে। সর্বোচ্চ নিরপেক্ষতা ও স্বচ্ছতা নিশ্চিত করার স্বার্থে এ ধরণের পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে।

তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মো. হুমায়ুন কবীর খোন্দকার, যুগ্ম সচিব মো. কাউসার আহাম্মদ, উপসচিব মো. সাইফুল ইসলাম, পূর্ণদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র অনুদানের স্ক্রিপ্ট বাছাই কমিটির সদস্য, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টেলিভিশন, ফিল্ম অ্যান্ড ফটোগ্রাফি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক রিফফাত ফেরদৌস, চলচ্চিত্র নির্মাতা মো. মুশফিকুর রহমান গুলজার, অভিনেত্রী ফাল্গুনী হামিদ ও আফসানা মিমি, পূর্ণদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র অনুদান কমিটির সদস্য, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চলচ্চিত্র ও টেলিভিশন অধ্যয়ন বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড.আবু জাফর মো. শফিউল আলম ভূঁইয়া, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের থিয়েটারও পারফরম্যান্স বিভাগের অধ্যাপক ও অভিনেত্রী ওয়াহিদা মল্লিক জলি, স্টামফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিল্ম অ্যান্ড মিডিয়া বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ও চলচ্চিত্র নির্মাতা মতিন রহমান, বাংলাদেশ চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতির সভাপতি ও চলচ্চিত্র নির্মাতা কাজী হায়াৎ, চলচ্চিত্র নির্মাতা অমিতাভ রেজা চৌধুরী চলচ্চিত্রের উপস্থাপনায় উপস্থিত ছিলেন।

শিশু হাসপাতালের আগুন নিয়ন্ত্রণে

ছবি: সংগৃহীত

রাজধানীর শিশু হাসপাতালের কার্ডিয়াক আইসিইউ-তে লাগা আগুন নিয়ন্ত্রণে এসেছে। শুক্রবার (১৯ এপ্রিল) ২টা ৩৯ মিনিটে আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে বলে জানা গেছে।

এ বিষয়ে শিশু হাসপাতালের পরিচালক অধ্যাপক ডা. জাহাঙ্গীর আলম বলেন, হাসপাতালের বি ব্লকে আগুন লেগেছে। আগুনের চেয়ে ধোঁয়া একটু বেশি ছড়িয়েছে। ফায়ার সার্ভিস কাজ করছে। ইতিমধ্যেই সব রোগীদের আমরা সরিয়ে নিয়ে আসছি। ফায়ার সার্ভিস জানিয়েছে আগুন অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে চলে এসেছে।

আগুনের সূত্রপাত সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমরা এখনও বিস্তারিত কিছু বলতে পারছি না। তবে আশঙ্কা করছি এসি থেকে আগুন লেগে থাকতে পারে।

এর আগে দুপুর ১টার পর এই অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে যায় মোহাম্মদপুর ফায়ার স্টেশনের তিনটি ইউনিট। এরপর আগুন নিয়ন্ত্রণে সিদ্দিক বাজার থেকে একটি ইউনিট, তেজগাঁও থেকে আরেকটি ইউনিট ঘটনাস্থলে যায়।

ফায়ার সার্ভিসের নিয়ন্ত্রণ কক্ষের ডিউটি অফিসার লিমা খানম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, প্রাথমিকভাবে আগুন লাগার কারণ ও ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ জানা যায়নি। এ ছাড়া আগুনে হতাহতেরও কোনো সংবাদ পাওয়া যায়নি।

হাসপাতালের পঞ্চম তলায় কার্ডিয়াক বিভাগ থেকে আগুনের সূত্রপাত হয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করছে ফায়ার সার্ভিস। গরমের কারণে হাসপাতালটিতে রোগী ও আত্মীয়স্বজনের চাপ ছিল। প্রায় প্রতিটি বেডেই রোগী ছিল।

তীব্র গরমের মধ্যেই ঢাকাসহ তিন বিভাগে ঝড়-শিলাবৃষ্টির আভাস

ঝড়-শিলাবৃষ্টির আভাস। ছবি: সংগৃহীত

সারাদেশে তীব্র গরমে হাঁসফাঁস জনজীবন অবস্থা। এপ্রিল মাসের বাকি সময় জুড়ে এ পরিস্থিতি অব্যাহত থাকতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। তবে এর মধ্যেই রাজধানী ঢাকাসহ দেশের তিন বিভাগে সুখবর দিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। এই তিন বিভাগে ঝড়সহ শিলাবৃষ্টি হতে পারে বলে জানানো হয়েছে।

শুক্রবার (১৯ এপ্রিল) সকাল ৯টায় দেওয়া বর্ধিত ৫ দিনের আবহাওয়ার পূর্বাভাসে এমন তথ্য জানানো হয়েছে।

পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, আজ শুক্রবার ঢাকা, চট্টগ্রাম এবং সিলেট বিভাগের দু-এক জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা অথবা ঝোড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। সেই সঙ্গে কোথাও কোথাও বিক্ষিপ্তভাবে শিলাবৃষ্টি হতে পারে।

একই সঙ্গে বাগেরহাট, যশোর, চুয়াডাঙ্গা ও কুষ্টিয়া জেলাসমূহের ওপর দিয়ে তীব্র তাপপ্রবাহ এবং দিনাজপুর, রাঙ্গামাটি, চাঁদপুর, খুলনা, সাতক্ষীরা, বরিশাল ও পটুয়াখালী জেলাসহ ঢাকা ও রাজশাহী বিভাগের ওপর দিয়ে মৃদু থেকে মাঝারি ধরনের তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে এবং তা অব্যাহত থাকতে পারে।

এ দিন সারা দেশে দিনের তাপমাত্রা বৃদ্ধি পেতে পারে এবং রাতের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে। জলীয় বাষ্পের আধিক্যের কারণে অস্বস্তি বৃদ্ধি পেতে পারে।

পরের দিন ময়মনসিংহ এবং সিলেট বিভাগের দু-এক জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা অথবা ঝোড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। সেই সঙ্গো কোথাও কোথাও বিক্ষিপ্তভাবে শিলাবৃষ্টি হতে পারে।

তাপমাত্রা সারা দেশে দিন এবং রাতের তাপমাত্রা সামান্য বৃদ্ধি পেতে পারে। জলীয় বাষ্পের আধিক্যের কারণে অস্বস্তি বৃদ্ধি পেতে পারে। এ ছাড়াও রোববার ময়মনসিংহ, চট্টগ্রাম এবং সিলেট বিভাগের দু-এক জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা অথবা ঝোড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। সেই সঙ্গে কোথাও কোথাও বিক্ষিপ্তভাবে শিলাবৃষ্টি হতে পারে।

এদিকে যশোর ও চুয়াডাঙ্গায় বৃহস্পতিবার দেশের সর্বোচ্চ ৪০ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করেছে আবহাওয়া অধিদফতর। এদিন দেশের সর্বনিম্ন ২০ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় কিশোরগঞ্জের নিকলিতে।

সর্বশেষ সংবাদ

স্বচ্ছতার সাথে অনুদানের চলচ্চিত্র বাছাই করা হবে: তথ্য প্রতিমন্ত্রী
শিশু হাসপাতালের আগুন নিয়ন্ত্রণে
তীব্র গরমের মধ্যেই ঢাকাসহ তিন বিভাগে ঝড়-শিলাবৃষ্টির আভাস
ফরিদপুরে মন্দিরে আগুন, সন্দেহের জেরে গণপিটুনিতে ২ ভাই নিহত
রাজধানীর শিশু হাসপাতালে আগুন, নিয়ন্ত্রণে ৫ ইউনিট
জাতীয় পতাকার নকশাকার শিব নারায়ণ দাস মারা গেছেন
ক্ষেপণাস্ত্র হামলার খবর অস্বীকার ইরানের, তেহরানে বিমান চলাচল স্বাভাবিক
নওগাঁয় ভুয়া সিআইডি কর্মকর্তা গ্রেপ্তার
মানুষ এখন ডাল-ভাত নয়, মাছ-মাংস নিয়ে চিন্তা করে: প্রধানমন্ত্রী
দাঁড়িয়ে থাকা বাসকে পিকআপের ধাক্কা, ১০ পোশাককর্মী আহত
নতুন রেকর্ড গড়ে ইউরোপা লিগের সেমিতে লেভারকুসেন
ইরানে ইসরাইলের হামলা: লাফিয়ে বাড়ছে তেল ও স্বর্ণের দাম
মিয়ানমার থেকে পালিয়ে এলেন আরও ১৩ বিজিপি সদস্য
চুয়াডাঙ্গায় স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণ করার লক্ষ্যে কিশোর-কিশোরীদের নিয়ে সেমিনার
ইরানে হামলা শুরু করেছে ইসরায়েল
নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগ, ডিপজলকে শোকজ
টাঙ্গাইলে সেরা ওসি হলেন আহসান উল্লাহ্, পেলেন শ্রেষ্ঠ সম্মাননা পুরস্কার
দেশে প্রতিদিন সড়কে প্রাণ হারাচ্ছেন ১৬ জনের বেশি
টানা তিনদিন চুয়াডাঙ্গায় দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড, হিট অ্যালার্ট জারি
তীব্র গরমে পশ্চিমবঙ্গে স্কুল ছুটি ঘোষণা