বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ | ১৪ ফাল্গুন ১৪৩০
বেটা ভার্সন
Dhaka Prokash

তরুণ-যুবকদের কুরে খাচ্ছে মাদক!

আজিমপুর রায়হান স্কুল অ্যান্ড কলেজে উচ্চমাধ্যমিকে ভর্তি হয়ে প্রথমে সিগারেট পরে মাদকে আসক্ত হয় মো. জাহাঙ্গীর। করোনাকালে লেখাপড়া ছেড়ে দেওয়া যুবকদের নিয়ে গড়ে তুলে ১৫ সদস্যের কিশোর গ্যং।

তারপর থেকেই বেপরোয়া জাহাঙ্গীর গ্রুপ নিয়ে এলাকার বিভিন্ন জায়গায় ও সরকারি কোয়ার্টারে জোরপূর্বক প্রবেশ করে মাদক সেবন করে। কেউ বাধা দিলে সে কোয়ার্টারের দায়িত্বরত গার্ডদের মারধর করে। পুলিশের অভিযানে কয়েক বার ধরা পড়লেও কোনো পরিবর্তন হয়নি। জাহাঙ্গীর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন কর্মচারী। ছেলের এমন কর্মকাণ্ডে তিনি ভীষণ ক্ষুব্ধ।

তিনি বলেন, ‘শয়তানের কপালে দুঃখ আছে। ও খারাপ মানুষের সঙ্গে চলাফেরা করে। ওর উপর থেকে সন্তানের দাবি ছেড়ে দিয়েছি। যা মন চায় তাই করুক। ওর কারণে আমি মানুষের কাছে যেতে পারি না।’

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনা করে সার্টিফিকেট নিতে পারেননি বিশ্ববিদ্যালয়েরই এক কর্মকর্তার মেয়ে। পরে অনার্সে স্টামফোর্ডে ভর্তি হন। কিন্তু সেখানে খারাপ বন্ধুদের সঙ্গে মিশে বিভিন্ন ধরনের মাদকে আসক্ত হয়। তার পিতা আফসোস করে বলেন, মেয়েটা ঘর ছাড়া হয়ে গেল। ওরে বিয়ে দেব, চাকরি দেব। কিন্তু আমাদের কোনো কথা শোনে না। আমাদের সঙ্গে খারাপ ব্যবহার করে এবং জোরে জোরে কথা বলে।

শুধু জাহঙ্গীর বা ওই মেয়ে শিক্ষার্থীই নয়। এ রকম শত শত কিশোর, তরুণ, যুবক প্রতিদিনই মাদকে আসক্ত হচ্ছে। রাজধানী ঢাকাসহ সারাদেশেই শহর কী গ্রাম সব জায়গায়ই মাদকাসক্তদের দৌড়াত্ম্য বাড়ছে।

মাদকের লাগামহীন বিস্তারে নতুন প্রজন্ম ধীরে ধীরে ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে। কিন্তু মাদক নিয়ন্ত্রণে জোরালো কার্যক্রম বা তৎপরতা নেই। মাদকের ভয়াবহ বিস্তারের কারণে বাড়ছে চুরি, ছিনতাই, রাহাজানির মতো অপরাধ। মাদকসেবীরা মাদকের অর্থ সংগ্রহ করতে এসব অপরাধের সঙ্গে যুক্ত হচ্ছে।

মাদকের এমন বিস্তারে সচেতন অভিভাবকরা ভীষণ চিন্তিত হয়ে পড়েছেন। তাদের দুশ্চিন্তায় স্কুল-কলেজে পড়ুয়া সন্তানদের নিয়ে। তারা বলছেন, মাদকের ভায়াবহতা বাড়লেও এটি নিয়ন্ত্রণে সরকারিভাবে তেমন কোনো উদ্যোগ দেখা যাচ্ছে না।

সন্তানদের খেয়াল না রাখলে যেকোনো সময় তারা মাদকে আসক্ত হতে পারে এই আশঙ্কায় অনেক অভিভাবক সন্তানদের সঙ্গ দিচ্ছেন স্কুল-কলেজে আসা-যাওয়া পথে।

অভিভাবকেরা বলছেন, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে মাদকের কুফল নিয়ে আলোচনা করা উচিত। এ বিষয়ে ছেলে মেয়েদের ছোট থেকেই কাউন্সেলিং বা পড়াশোনা করানো দরকার।

উদয়ন উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির একজন ছাত্রের পিতা আযম আলী মিরাজ। তিনি বলেন, ‘সকালে স্কুলে বাচ্চাকে নিজেই নিয়ে আসি। স্কুল শেষে ওর মা এসে নিয়ে যায়। একদিকে ঘটছে বিভিন্ন ধরনের অপরাধ অন্যদিকে মাদকের ভয়াবহতা বেড়ে গেছে। এ জন্য আমার স্ত্রীকে বলেছি যতই কষ্ট হোক ছেলেকে একা কোথাও ছাড়বে না এবং কার সঙ্গে মিশছে সেটাও খেয়াল রাখবে।’

ঢাকা সিটি কলেজে শিহাবুলের বাবা রিয়াদ চোধুরী বলেন, ‘আমি ব্যাংকে চাকরি করি। প্রতিদিন সকালে আমার গাড়িতে করে ছেলেকে কলেজে নামিয়ে দেই। ক্লাস শেষ হলে ও কলেজের শিক্ষকের মোবাইল দিয়ে ফোন করে, তখন আমি গাড়ি পাঠিয়ে দেই বা নিজেই গিয়ে এক সঙ্গে বাসায় চলে যায়।’

তিনি বলেন, এখন ছেলে-মেয়েদের খোঁজ-খবর না নিলে ওরা নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। কেউ জঙ্গিদের লাইনে আবার কেউ খারাপ বন্ধুদের খপ্পরে পড়ে মাদকে আসক্ত হচ্ছে। এ জন্যই এত সতর্কতা।’

তেজগাঁও কলেজে হিসাব বিজ্ঞান বিভাগে পড়ুয়া শিক্ষার্থী রাকিব (ছন্মনাম)। সে অসৎ বন্ধুদের সঙ্গে চলে ইয়াবায় আসক্ত হয়ে লেখাপড়া ছেড়ে দিয়েছে। মাদকের টাকা যোগাতে সে বাসা থেকে বিভিন্ন জিনিস চুরি করত। তার পিতা একটি সরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মচারী আফসোস করে বলেন, ছেলেটা যে কবে মাদকে আসক্ত হলো আমরা কেউ বুঝতে পারলাম না! ওকে ধরে জোর পূর্বক মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরে চিকিৎসা করতে ভর্তি করেছি।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উদয়ন উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত কয়েকজন ছাত্রের অভিভাবক বলেন, এখন ছেলে মেয়েরা মাদকে আসক্ত হওয়ার মূল কারণ হলো অবাধ স্বাধীনতা এবং সোসাল নেটওয়ার্কের মাত্রাতিরিক্ত ব্যবহার। অনেক অভিভাবক আছেন যে তারা সন্তানদের প্রতি খেয়াল রাখেন না।

গাড়ি চালক বা কাজের লোক দিয়ে বাচ্চাদের তদারকি করান। তাদের সঙ্গে পিতা-মাতা না আসায় অনেক বাচ্চা মন খারাপ করে। অন্য বন্ধুদের দেখে তাদের মনে প্রশ্ন জাগে কোনো তাদের বাবা-মা স্কুল-কলেজে তাকে নিতে আসেনি? এসব নিয়ে একাকিত্বে ভোগে অনেক ছেলে মেয়েরা। এজন্য বাচ্চাদের বড় হওয়া পর্যন্ত তাদের সঙ্গে বন্ধুর মতো মিশে থাকা জরুরি।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে শিশু, কিশোর ও পারিবারিক মনোরোগ বিশেষজ্ঞ জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউটের সহযোগী অধ্যাপক ডা. হেলাল উদ্দিন আহমেদ বলেন, দিনদিন মাদকাসক্তের সংখ্যা বেড়ে চলেছে। মাদকাসক্তির কারণে অনেকের মৃত্যুও হচ্ছে।

তিনি বলেন, করোনাকালে স্কুল-কলেজ বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ থাকায় শিক্ষার্থীরা বেশি মাদকাসক্ত হয়ে পড়েছে। বিশেষ করে নারীদের মধ্যে ইয়াবা সেবন বেড়েছে।

তিনি বলেন, শুধু মাদকাসক্তদের চিকিৎসা করে এটি নিয়ন্ত্রণ করা যাবে না। এর থেকে মুক্তি পেতে হলে সবাইকে মাদকের বিরুদ্ধে কথা বলতে হবে, অভিভাবকদের সচেতন হতে হবে।

জানতে চাইলে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার হাফিজ আল আসাদ বলেন, মাদক নিয়ন্ত্রণের জন্য স্কুল কলেজ থেকে শুরু করে সবাইকে এর কুফলগুলো ভালো ভাবে সমাজে উপস্থাপন করতে হবে।

তিনি বলেন, শুধু পুলিশ বা আইনশৃঙ্খলা বাহীনির সদস্যরা এককভাবে মাদক দমন ও নিয়ন্ত্রণ করতে পারবে না। সামাজিক ভাবে সবাইকে মাদককে না বলতে হবে এবং এর বিরুদ্ধে অবস্থান নিতে হবে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজ বিজ্ঞান বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ও অপরাধ বিশেষজ্ঞ তৌহিদুল হক বলেন, ‘দিনদিন মাদকের চাহিদা বাড়ছে যার কারণে এতে আসক্ত হয়ে যুব ও ছাত্র সমাজ ধংস হচ্ছে। এর থেকে বাঁচতে মাদকের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিতে হবে। কিন্তু এটি নিয়ন্ত্রণে তেমন কোনো যথাযথ উদ্যোগ চোখে পড়ে না।’

তিনি বলেন, অপরাধীকে নয় অপরাধকে না বলুন। মাদকের হাত থেকে বাঁচতে প্রথমে সবাইকে সচেতন হতে হবে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর মাদক বিরোধী অভিযানে মাদক ব্যবসায়ী এবং বহনকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান নিলে কিছুটা হলেও মুক্তি পাওয়া সম্ভব হবে।

তৌহিদুল হক বলেন, শুধু আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা এটি দমন বা নিয়ন্ত্রণ করতে পারবে না। মাদকের ভয়ঙ্কর থাবা থেকে বের হতে হলে স্কুল কলেজ ও বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কাউন্সিলিং ও জনসচেতনতা বৃদ্ধি করা ছাড়া তেমন কোনো উপায় দেখা যাচ্ছে না।

এনএইচবি/এমএমএ/

দুই দিন বাড়ল বইমেলার সময়

ছবি: সংগৃহীত

অমর একুশে বইমেলা-২০২৪ এর সময় আরও দুই দিন বাড়ানো হয়েছে। মেলা চলবে আগামী ২ মার্চ (শনিবার) পর্যন্ত।

মঙ্গলবার সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের সচিব খলিল আহমদের বরাতে মেলা পরিচালনা কমিটির সদস্য ও আগামী প্রকাশনীর প্রকাশক ওসমান গনি বিষয়টি সংবাদ মাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, মেলা দুই দিন বৃদ্ধির কথা সংস্কৃতি সচিব জানিয়েছেন। কালকে চিঠি পাঠাবেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বইমেলার সময়সীমা দুদিন বাড়ানোর আবেদনে অনুমোদন দিয়েছেন। তাই বইমেলা চলবে আগামী ২ মার্চ পর্যন্ত।

বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক মুহাম্মদ নুরুল হুদা রাত ৯টায় বইমেলায় ঘোষণা কেন্দ্র থেকেও বইমেলার মেয়াদ বাড়ানো ঘোষণা দেন। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর সদয় সম্মতিক্রমে বই মেলা দুই দিন বাড়ানো হয়েছে।

এর আগে ১৮ ফেব্রুয়ারি একুশে বইমেলার সময় দুদিন বাড়ানোর জন্য বাংলা একাডেমিকে চিঠি দেয় বাংলাদেশ পুস্তক প্রকাশক বিক্রেতা সমিতি।

অশ্লীল অঙ্গভঙ্গির কারণে নিষেধাজ্ঞার মুখে রোনালদো

ছবি: সংগৃহীত

রিয়াদ ডার্বিতে অনুষ্ঠিত সৌদি প্রো লিগে আল শাবাবকে ৩-২ গোলে হারায় ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোর আল নাসর। এই ম্যাচে গোলের দেখা পান রোনালদো। ক্লাব ফুটবল ক্যারিয়ারে ৭৫০ তম গোলের মাইলফলকও স্পর্শ করেন তিনি। তবে মাইলফলকের ম্যাচে অশালীন অঙ্গভঙ্গি করে খবরের শিরোনাম হন রোনালদো। অশ্লীল অঙ্গভঙ্গি করায় নিষেধাজ্ঞার শঙ্কায় পড়েছেন পাঁচবারে ব্যালন ডি'অর জয়ী এই ফুটবলার।

সৌদি সংবাদমাধ্যমের বরাত দিয়ে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম ডেইলি মেইল অনলাইন জানিয়েছে, দৃষ্টিকটু আচরণের জন্য দুই ম্যাচ নিষেধাজ্ঞার পাশাপাশি জরিমানাও দিতে হতে পারে রোনালদোকে।

রোববার রাতে আল শাবাবের বিপক্ষে ৩-২ গোলের ব্যবধানে জয় পায় আল নাসর। ম্যাচের ২১ মিনিটে স্পটকিক থেকে ক্লাব ফুটবল ক্যারিয়ারে ৭৫০তম গোলের মাইলফলক স্পর্শ করেন রোনালদো। ম্যাচ শেষে আল শাবাবের সমর্থকরা 'মেসি, মেসি' বলে স্লোগান দিতে থাকেন। আর এতেই মেজাজ হারিয়ে ফেলেন সিআরসেভেন।

এই সময় কানের পেছনে হাত নিয়ে সেই স্লোগান শুনছেন এমন ভঙ্গি করেন রোনালদো। এরপর আল শাবাব সমর্থকদের উদ্দেশ্য করে অশ্লীল অঙ্গভঙ্গি করেই জয় উদযাপন করেন তিনি। এর আগেও এমন ঘটনা ঘটিয়েছেন রোনালদো।

গত ৯ ফেব্রুয়ারি আল হিলালের বিপক্ষে এক প্রীতি ম্যাচে ২-০ গোলে হারের পর বাজে অঙ্গভঙ্গি করেছিলেন রোনালদো। ম্যাচ শেষে টানেলে ফেরার পর 'মেসি, মেসি' স্লোগান দিয়ে রোনালদোর দিকে স্কার্ফ ছুঁড়ে দেন আল হিলাল সমর্থকরা। সেই স্কার্ফ তুলে নিজের শর্টসের মধ্যে ঢুকিয়ে তা ফেলে দেন এই পর্তুগিজ সুপারস্টার।

সৌদি আরবে একদিনে সাতজনের শিরশ্ছেদ

ছবি: সংগৃহীত

স্থানীয় সময় আজ মঙ্গলবার ‘সন্ত্রাসবাদের’ অভিযোগে সৌদি আরবে একদিনে সাতজনের শিরশ্ছেদের মাধ্যমে তাদের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়েছে।

২০২২ সালে একবার দেশটিতে একদিনে ৮১ জনের শিরশ্ছেদ করা হয়েছিল। ওইদিনের পর আজই আবার একদিনে সর্বোচ্চ সংখ্যক মানুষের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হলো।

সৌদির রাষ্ট্রয়ত্ত বার্তাসংস্থা সৌদি প্রেসি এজেন্সি দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বরাতে জানিয়েছে, এই সাতজন “সন্ত্রাসী সংগঠন তৈরি ও অর্থায়নের” অভিযোগে অভিযুক্ত হয়েছিলেন।

বিশ্বে মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের দিক দিয়ে শীর্ষ তিন দেশের মধ্যে রয়েছে সৌদি আরব। এ বছর এখন পর্যন্ত দেশটিতে ২৯ জনের শিরশ্ছেদ করা হয়েছে। এর আগে ২০২৩ সালে সৌদিতে ১৭০ জনের মৃত্যুদণ্ড কার্যকরা করা হয়েছিল।

দুই বছর আগে একদিনে ৮১ জনের শিরশ্ছেদ করার পর বিশ্বজুড়ে তুমুল সমালোচনার মুখে পড়েছিল সৌদি আরব।

আজ যাদের মৃত্যুদণ্ড কার্যকরা করা হয়েছে তাদের জাতীয়তা প্রকাশ করা হয়নি। তবে তাদের নামের বিষয়টি ইঙ্গিত করছে তারা সবাই সৌদির নাগরিক ছিলেন।

সৌদি প্রেস এজেন্সির খবরে আরও বলা হয়েছে, এই সাতজন “সন্ত্রাসবাদের পথ বেঁছে নেওয়ার অভিযোগে অভিযুক্ত হয়েছেন যেটির মাধ্যমে রক্ত ঝরানোর আহ্বান জানানো হয়, তারা সন্ত্রাসী সংগঠন ও প্রতিষ্ঠান তৈরি এবং অর্থায়ন করেছিলেন এবং সমাজের শান্তি ও স্থিতিশীলতা বিনষ্টের জন্য সন্ত্রাসী সংগঠনের সঙ্গে যোগাযোগ করেছিলেন।”

তবে তারা কোন দল তৈরি করেছিলেন বা কি ধরনের সন্ত্রাসী কার্যক্রমের সঙ্গে যুক্ত হয়েছিলেন সে ব্যাপারে বিস্তারিত কোনো কিছু জানায়নি সৌদি প্রেস এজেন্সি।

সৌদির কর্তৃপক্ষের বক্তব্য হলো, আইন ও কোরআনভিত্তিক শরীয়াহ শাসন অক্ষুন্ন রাখতে মৃত্যুদণ্ড অপরিহার্য।

সর্বশেষ সংবাদ

দুই দিন বাড়ল বইমেলার সময়
অশ্লীল অঙ্গভঙ্গির কারণে নিষেধাজ্ঞার মুখে রোনালদো
সৌদি আরবে একদিনে সাতজনের শিরশ্ছেদ
আইসিইউতে তরুণীকে ধর্ষণ
বায়তুল মোকাররমে বিক্ষোভ-মিছিল নিষিদ্ধের নির্দেশ হাইকোর্টের
শিক্ষাব্যবস্থা থেকে ইসলাম-নৈতিকতাকে সরিয়ে তরুণ প্রজন্মকে ধ্বংস করা হচ্ছে : ড. মাসুদ
মালয়েশিয়ায় গাড়িচাপায় বাংলাদেশি যুবকের মৃত্যু
ধান খেতের পোকা দমনে পার্চিং উৎসব
এবার ঘুষের মামলায় নতুন করে অভিযুক্ত কারাবন্দি ইমরান খান
২৮ বছর পর যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত হত্যা মামলার পলাতক আসামি গ্রেপ্তার
দেশে খাদ্যশস্য মজুদ আছে ১৬ লাখ ৭৯ হাজার মেট্রিক টন : খাদ্যমন্ত্রী
বেঁচে আছেন ‘পঞ্চায়েত ২’ খ্যাত অভিনেত্রী আঁচল তিওয়ারি
সব বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়কে দিতে হবে ১৫ শতাংশ ট্যাক্স: আপিল বিভাগ
দেশের উন্নয়নকে আরও কাছ থেকে দেখবেন বিদেশি কূটনীতিকরা: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
বিয়ে করে হানিমুনে জায়েদ খান !
কারও অবহেলায় এখন কিছু যায় আসে না পরীমণির
ওষুধ ও হার্টের রিংয়ের দাম কমাতেই হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী
রমজানে দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণসহ প্রধানমন্ত্রীর ১৫ নির্দেশনা
যে কারণে ধূমপান ছেড়েছেন শহিদ কাপুর
বাড়ছে বিদ্যুৎ-গ্যাসের দাম, রমজানের আগেই কার্যকর