বৃহস্পতিবার, ২০ জুন ২০২৪ | ৬ আষাঢ় ১৪৩১
Dhaka Prokash

৯ বছরেও শেষ হয়নি উপকূল রক্ষা বাঁধের কাজ, ব্যয় বাড়ানোর প্রস্তাব!

ঘূর্ণিঝড় ও জলোচ্ছ্বাস হলেই ভেসে যায় উপকূলীয় অঞ্চল। এতে প্রাণহানির ঘটনা কমে এলেও ফসল এবং ঘর-বাড়ি ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। সর্বশেষ ঘূর্ণিঝড় সিত্রাংয়ের আঘাতে উপকূলীয় ১৩ জেলায় ১০ হাজারের বেশি ঘরবাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ফসলের ক্ষতি হয়েছে ছয় হাজার হেক্টরেরও বেশি জমির। আর এক হাজার খামারের মাছ ভেসে গেছে।

উপকূলের মানুষকে ঝড়-জলোচ্ছ্বাস, লবণ পানি, বন্যা আর ভাঙনের হাত থেকে রক্ষা করতে সরকার ২০১৩ সালে একটি প্রকল্পের অনুমোদন দিয়েছিল। পটুয়াখালীসহ ছয় জেলার জীবন, ফসল ও প্রাণিসম্পদ রক্ষা করার এ প্রকল্পটির কাজ গত নয় বছরেও শেষ হয়নি। অথচ এটি শেষ করার কথা ছিল ২০২০ সালে। প্রকল্পের মেয়াদ শেষ হয়ে গেলেও প্রকল্পের কাজ শেষ না হওয়ায় প্রকল্পটি সংশোধন করে গত জুনে শেষ করার কথা ছিল। সেটিও সম্ভব হয়নি। তবে দীর্ঘ নয় বছরে প্রকল্পের সাত জন প্রকল্প কর্মকর্তা (পিডি) বদল হয়েছে। আর কাজের অগ্রগতি হয়েছে ৮৫ শতাংশ ও আর্থিক অগ্রগতি ৭৫ শতাংশ। এই অবস্থায় প্রকল্পের মেয়াদ আরও দেড় বছর বাড়ানো হচ্ছে। একইসঙ্গে শেষ সময়ে এসে পরামর্শকের ব্যয় ১৫ কোটি টাকা বাড়ানোর প্রস্তাব করা হয়েছে। অবশ্য পরিকল্পনা কমিশন এতে আপত্তি জানিয়েছে।

পরিকল্পনা কমিশন সূত্রে প্রকল্পের সর্বশেষ অবস্থা সম্পর্কে এ সব তথ্য জানা গেছে।

জানা যায়, তিন হাজার কোটি টাকারও বেশি ব্যয়ে ‘উপকূলীয় বাঁধ উন্নয়ন প্রকল্প প্রথম পর্যায়-১ (সিইআইপি) শীর্ষক প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করছে বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড। প্রকল্পে অর্থায়ন করছে বিশ্বব্যাংক।

সিইআইপি প্রকল্পের প্রথম প্রকল্প পরিচালক ছিলেন সারাফাত খান। এরপর পিডির দায়িত্ব নিয়েছেন ছয় জন। ৭ম প্রকল্প পরিচালক হিসেবে দায়িত্ব পালন অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী সাইদ হাসান ইমাম।

সর্বশেষ অবস্থা সম্পর্কে জানতে চাইলে প্রকৌশলী সাইদ হাসান ইমাম ঢাকাপ্রকাশ-কে বলেন, ‘প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করা হচ্ছে বিশ্বব্যাংকের অর্থায়নে। টিম লিডার হিসেবে দায়িত্ব পালন করছে বিদেশি প্রকৌশলী ও পরামর্শক। ১৭টি পোল্ডারের মধ্যে ১০টির কাজ চলছে। আগামী জুনে পুরো কাজ শেষ হয়ে যাবে।’

প্রকল্পের কাজ শেষ করতে এত দেরি কেন—এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘আসলে আমি সাত নম্বর পিডি। এর আগে ছয় জন দায়িত্ব পালন করেছেন। দেরির কারণ তারা বলতে পারবেন। আমি এক বছর হলো দায়িত্ব নিয়েছি। আসলে পিডি হিসেবে তেমন কাজ নেই। টিম লিডারের কাজই প্রধান। বিশ্ব ব্যাংকের শর্ত মোতাবেক পরামর্শক প্রতিষ্ঠানই সেই দায়িত্ব পালন করছে।’

অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘আসলে ঘন ঘন পিডি বদলের কারণে প্রকল্পের কাজ পিছিয়েছে বিষয়টি তা না। কারণ কারো পদোন্নতি হয়, অনেকের চাকরির মেয়াদও শেষ হয়ে যায়। দেরির কারণ মূলত ভূমি অধিগ্রহণে জটিলতা। অধিগ্রহণকৃত জমি জেলা প্রশাসন থেকে ঠিকমতো বুঝিয়ে দিতে পারেনি। করোনাকালে কাজও হয়নি। এ জন্য কিছুটা দেরি হয়েছে। আশা করি, এবার সংশোধন করে সময় বৃদ্ধি করা হচ্ছে, তাতে কাজ শেষ হয়ে যাবে। আবার ফেজ-২ নামে আরও একটা প্রকল্প হাতে নেওয়া হবে। এজন্য ফিজিবিলিটি স্টাডির কাজও করা হচ্ছে।’

পরিকল্পনা কমিশন ও পানি সম্পদ মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, উপকূলীয় অঞ্চলের উন্নয়নে বিশ্ব ব্যাংকের অর্থায়নে তিন হাজার ২৮০ কোটি টাকা সরকার ২০১৩ সালের অক্টোবরে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক) সভায় এই প্রকল্পের অনুমোদন দেয়। ২০২০ সালের জুনে শেষ করার কথা ছিল। বিশ্বব্যাংকের অর্থায়নে যেসব প্রকল্প বাস্তবায়িত হয়েছে তার মধ্যে এটি মেগা প্রকল্প।

উপকূলীয় জেলা খুলনা, সাতক্ষীরা, বাগেরহাট, পিরোজপুর, বরগুনা, পটুয়াখালি জেলার ১৭টি স্থানে পোল্ডার নির্মাণ করে বসবাসের উপযোগী করা ছাড়াও চাষাবাদযোগ্য রক্ষার কথা বলা হয়েছিল। পোল্ডার এলাকা নির্বাচন করা হয়েছে কারিগরি দিক, পরিবেশ, সামাজিক, অর্থনৈতিক এবং ভৌগলিক দিক বিবেচনায় নিয়ে।

এতে খুলনা জেলায় ৬টি, সাতক্ষীরায় ২টি, বাগেরহাটে ৩টি, পিরোজপুরে ১টি, বরগুনায় ২টি এবং পটুয়াখালী জেলায় ৩টিসহ মোট ১৭টি পোল্ডার নির্মাণ করার কথা। যাতে নির্ধারিত উপকূলীয় এলাকার জনবসতির জীবন, সম্পদ প্রাকৃতিক দুর্যোগের সময়ও রক্ষা পাবে। প্রকল্প এলাকায় বাণিজ্যিক বনায়নেরও পরিকল্পনা নেওয়া হয়। একই সঙ্গে পোল্ডার এলাকায় অগভীর চিংড়ি ঘেরও তৈরি করা হবে।

বাঁধ রক্ষা করাই এ প্রকল্পের প্রধান কাজ। কারণ, পোল্ডার এলাকার বাঁধ রক্ষা না করা গেলে কোনো উন্নয়নমূলক কাজই করা যাবে না। এ ছাড়া ঘূর্ণিঝড়, সিডর, আইলার মতো যেকোনো ধরনের প্রাকৃতিক দুর্যোগের সময় পোল্ডার এলাকাগুলো রক্ষার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার কথা বলা হয়। এ ছাড়াও অপেক্ষাকৃত নিচু উপকূলীয় এলাকাগুলোকে উঁচু করারও সিদ্ধান্ত হয়।

প্রকল্পের প্রধান প্রধান কাজ ধরা হয় ৬টি জেলার উপকূলীয় এলাকায় এক লাখ ৮১৭ হেক্টর জমি নদীর গ্রাসের হাতে থেকে উদ্ধার। ৮০ হাজার ৫৭৪ হেক্টর জমি আবাদযোগ্য করে তোলা ও পোল্ডার এলাকায় প্রায় ৭ লাখ ৬২ হাজার ৯৬০ জনকে পুনর্বাসন। কারণ ২০৫০ সালে উপকূলীয় জনবসতির সংখ্যা দ্বিগুণ ছাড়িয়ে যাবে।

পরিকল্পনা কমিশন সূত্রে জানা গেছে, প্রকল্পটির ২০২০ সালের জুনে শেষ করার কথা থাকলেও সময় করতে না পারায় ব্যয় ঠিক রেখে সংশোধন করে দুই বছর সময় বাড়ানো হয় ২০২১ সালের ১৯ জানুয়ারিতে। সে অনুযায়ী ২০২২ সালের জুনে শেষ করার কথা। কিন্তু তাতেও কাজ শেষ না হওয়ায় এবারও ব্যয় ঠিক রেখে সময় দেড় বছর বাড়ানো হচ্ছে।

প্রস্তাবনাটি যাচাই করতে সম্প্রতি পরিকল্পনা কমিশনে প্রকল্প মূল্যায়ন কমিটির (পিইসি) সভা অনুষ্ঠিত হয়। সরকার বিভিন্ন খাতে ব্যয় কমাতে বললেও পরামর্শক খাতে ব্যয় ৪০৭ কোটি টাকা থেকে বাড়িয়ে ৪২২ কোটি টাকার প্রস্তাব করেছে। অর্থাৎ ১৫ কোটি টাকা ব্যয় বাড়ছে। এই ব্যয় অত্যধিক বলে পিইসি সভায় আপত্তি তুলে ব্যয় যৌক্তিক পর্যায়ে আনতে বলা হয়েছে। একই সঙ্গে ব্যয় কমিয়ে কুয়াকাটার জিরো পয়েন্ট পর্যন্ত এক কিলোমিটার বাঁধ উন্নয়নের কাজ করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। পিইসি বলেছে, এ সব সংশোধন করা হলে প্রকল্পটির চূড়ান্ত অনুমোদন দেওয়া হবে।

এনএইচবি/আরএ/

Header Ad

ইতোমধ্যে বিভিন্ন এলাকায় ভাঙন শুরু হয়েছে

যমুনা নদীতে বাড়ছে পানি, ভাঙন আতঙ্কে নদীপাড়ের মানুষ

বসতভিটা নদী গর্ভে বিলীন হয়ে যাচ্ছে। ছবি: ঢাকাপ্রকাশ

উজান থেকে আসা পাহাড়ি ঢলে টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরে যমুনা নদীতে পানি বাড়ছে। একইসঙ্গে শুরু হয়েছে নদীর পাড় ভাঙন। বিগত ভাঙনের পর যেটুকু সম্বল বেঁচে ছিল, সেটিও ভাঙনের আশঙ্কায় চরম হতাশায় দিন পার করছেন নদীপাড়ের শতশত ভাঙন কবলিত মানুষ। ইতোমধ্যে কিছু কিছু এলাকায় ভাঙন শুরু হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২০ জুন) দুপুরে উপজেলার গোবিন্দাসী ইউনিয়নের এলাকায় ঘুরে দেখা যায়- চিতুলিয়াপাড়া, ভালকুটিয়া, কষ্টাপাড়া ও নিকরাইল ইউনিয়নের মাটিকাটা, পাটিতাপাড়া, কোনাবাড়ী এলাকাসহ বেশ কয়েকটি এলাকায় কয়েক দিন ধরে ভাঙন দেখা দিয়েছে। ফলে দিশেহারা নদীপাড়ের মানুষগুলো।

নদীপাড়ের মানুষের অভিযোগ, গেল বছর ভাঙনরোধে খানুরবাড়ী, চিতুলিয়াপাড়াসহ বিভিন্নস্থানে নামমাত্র নিম্নমানের জিও ব্যাগ ফেলে জেলা পানি উন্নয়ন বোর্ড। সেগুলো এখন ধসে যাওয়ার শঙ্কা রয়েছে। এছাড়া প্রভাবশালী ব্যক্তিরা প্রভাব খাটিয়ে নিজ নিজ বাড়ির সামনে জিওব্যাগ ফেলে। দরিদ্র পরিবারের বাড়ির সামনে জিওব্যাগ ফেলা হয় না।

বসতভিটা নদী গর্ভে বিলীন হয়ে যাচ্ছে। ছবি: ঢাকাপ্রকাশ

গত বছর ভাঙনের শিকার একাধিক ব্যক্তিরা বলেন- শুকনো মৌসুমে বালু ব্যবসায়ীরা অবৈধভাবে নদীতে জেগে ওঠা চর কেটে ট্রাকযোগে বিক্রি করে। এতে নদীর গতিপথ পরিবর্তন হয়ে নতুন নতুন এলাকায় ভাঙন দেখা দেয়। বালু ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করা যায় না। যার কারণে নদীতে পানি আসলে ব্যাপক ভাঙন দেখা দেয়।

গত বছর বন্যায় ভাঙন রোধে পানি উন্নয়ন বোর্ডের ফেলা গাইড বাঁধের জিওব্যাগ আনলোড ড্রেজারগুলোর কারণে ধসে যাচ্ছে। যার ফলে কোটি কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত পাকা ও আধ-পাকা সড়ক, গাইড বাঁধ বসত-বাড়ি, মসজিদ-মন্দির, ছোট-বড় বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ নানা স্থাপনা ভাঙনের হুমকিতে রয়েছে।

পাটিতাপাড়ার ওমেছা, সুফিয়া ও কোরবান আলী বলেন- যমুনা নদীতে গত কয়েকদিন ধরে পানি বাড়ছে। এতে পানি বৃদ্ধির সঙ্গে ভাঙনও দেখা দিয়েছে। কিন্তু ভাঙনরোধে কোনো উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে না। গত বছর বসতভিটা ভেঙে যেটুকু থাকার জায়গা ছিল সেটি এবারও চোখের সামনে নদী গর্ভে বিলীনের পথে।

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মামুনুর রশীদ বলেন- কিছুদিন ধরে যমুনা নদীতে পানি বৃদ্ধি শুরু হয়েছে। কিন্তু ভাঙনের বিষয়টি আপনার মাধ্যমে জানতে পারলাম। ভাঙনরোধে ঊর্ধ্বতন দপ্তরে অবগত করাসহ জেলা পানি উন্নয়ন বোর্ডের সাথে কথা বলব এবং ভাঙনরোধে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

টাঙ্গাইল জেলা পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. সাজ্জাদ হোসেন বলেন- ভূঞাপুরে ভাঙনের বিষয়টি ইউএনও’র মাধ্যমে জানতে পারলাম। ভাঙন এলাকাগুলোর মধ্যে গোবিন্দাসী ও নিকরাইলের জন্য একটি প্রকল্প জমা দেওয়া হয়েছে। এছাড়া ওই এলাকার ইকোনমিক জোনের কাজ শুরু হলে স্থায়ী বাঁধ হয়ে যাবে।

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে গ্রীষ্মকালীন ছুটি কমল, শনিবার ছুটি বহাল

ছবি: সংগৃহীত

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধীনে থাকা মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ের সব ধরনের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে এবারের গ্রীষ্মের ছুটি কমানো হয়েছে। আগামী ২ জুলাই পর্যন্ত এই ছুটি থাকার কথা ছিল। এখন নতুন সিদ্ধান্ত হলো বুধবার (২৬ জুন) থেকে খুলে দেওয়া হবে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। তবে শুক্রবারের পাশাপাশি শনিবারও সাপ্তাহিক ছুটি থাকবে।

বৃহস্পতিবার (২০ জুন) শিক্ষামন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এক সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

শিক্ষাপঞ্জি অনুসারে, এবার পবিত্র ঈদুল আজহা ও গ্রীষ্মকালীন ছুটি শুরু হয়েছে ১৩ জুন, যা চলার কথা ২ জুলাই পর্যন্ত। ছুটি সংক্ষিপ্ত করার পরিকল্পনার কারণ হিসেবে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের যুক্তি হলো, পাঠদানের কর্মদিবস সারা বছরব্যাপী কমেছে।

এ ছাড়া শনিবারের বন্ধ পুনর্বহাল রাখার কারণে কর্মদিবস কমে যাবে। তাই গ্রীষ্মের ছুটির এক সপ্তাহ কমানোর এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

বিষাক্ত মদপানে নারীসহ ৩৭ জনের মৃত্যু, হাসপাতালে ৫৫

প্রতীকী ছবি। ছবি: সংগৃহীত

ভারতে বিষাক্ত মদপানে ৩৭ জনের মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে। এছাড়া চেন্নাই থেকে ২৫০ কিলোমিটার দূরবর্তী কল্লাকুরিচি জেলায় গত কয়েকদিন ধরে বিষাক্ত মদপানে আরও কমপক্ষে ৫৫ জন গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। তাদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। খবর ভারতীয় গণমাধ্যম এনডিটিভির।

মদপানে অসুস্থ হয়ে পড়া এবং মৃত্যু হওয়াদের অধিকাংশই কারুনাপুরাম এলাকার। এক নারী জানান, বিষাক্ত মদপানে তার ছেলের মৃত্যু হয়েছে। তিনি বলেন, তার ছেলের প্রচণ্ড পেটে ব্যথা করছিল এবং সে চোখ খুলতে পারছিল না। মদপানে অসুস্থ হয়ে পড়ায় তাকে হাসপাতালেও ভর্তি করা যায়নি।

অন্য এক মা জানান, তার ছেলের প্রচণ্ড পেটে ব্যথা। সে কিছু দেখতেও পারছে না আর কিছু শুনতেও পাচ্ছে না। তিনি বলেন, এমনটা কারও সঙ্গে যেন না হয়। এ ধরনের বিষাক্ত মদ বিক্রি বন্ধ হওয়া উচিত। এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত তিনজনকে আটক করেছে পুলিশ।

এদিকে বৃহস্পতিবার কল্লাকুরিচির জেলা প্রশাসক এমএস প্রশান্ত বলেন, অসুস্থদের মধ্যে কয়েকজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। পরিস্থিতি সামাল দেওয়ার জন্য কাছাকাছি সরকারি মেডিক্যাল কলেজের বিশেষজ্ঞসহ পর্যাপ্ত চিকিৎসাকর্মীদের জেলায় মোতায়েন করা হয়েছে।

এই ঘটনার এর জের ধরে কঠোর পদক্ষেপ নিয়েছে রাজ্য সরকার। বিষাক্ত মদপানে একসঙ্গে এত মানুষের মৃত্যু ও অসুস্থতা ঠেকাতে ব্যর্থ হওয়ায় ও গাফিলতির অভিযোগে কল্লাকুরচির জেলা প্রশাসককে বদলি করা হয়েছে। এছাড়া জেলার পুলিশ সুপারসহ একাধিক কর্মকর্তাকে বরখাস্ত করা হয়েছে।

এক বিবৃতিতে রাজ্য সরকার জানিয়েছে, ২৬ জনের পান করা দেশি মদের প্যাকেট থেকে নমুনা নিয়ে ফরেনসিক রিপোর্টের জন্য পাঠানো হয়েছে এবং সেখানে বিষাক্ত মিথানলের উপস্থিতি পাওয়া গেছে।

সর্বশেষ সংবাদ

যমুনা নদীতে বাড়ছে পানি, ভাঙন আতঙ্কে নদীপাড়ের মানুষ
শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে গ্রীষ্মকালীন ছুটি কমল, শনিবার ছুটি বহাল
বিষাক্ত মদপানে নারীসহ ৩৭ জনের মৃত্যু, হাসপাতালে ৫৫
শিল্পীদের ১০ লাখ টাকা ঈদ উপহার দিলেন ডিপজল
বিয়ের আসরে স্ত্রীর দাবি নিয়ে হাজির বরের খালাতো বোন
সুপার এইটে আসতে পেরে খুশি, এখন যা হবে বোনাস: হাথুরুসিংহে
বিএনপি ভারতের সঙ্গে বৈরী সম্পর্ক তৈরি করে দেশের ক্ষতি করেছিল: ওবায়দুল কাদের
যাত্রাবাড়ীতে বাসায় ঢুকে স্বামী-স্ত্রীকে কুপিয়ে হত্যা
নওগাঁয় ঈদের আগে ও পরে সড়কে ঝরে গেল ৫ প্রাণ
বিশ্ব শরণার্থী দিবস আজ
মিয়ানমার থেকে গুলিবর্ষণের ঘটনা জাতিসংঘে উত্থাপন
ক্যারিবীয়দের গুঁড়িয়ে দিয়ে সুপার এইটে শুভসূচনা ইংল্যান্ডের
৩ বিভাগে বৃষ্টির পূর্বাভাস
পালিয়ে মায়ের কাছে যাওয়ার চেষ্টা, সাততলার কার্নিশে আটকে গেল কিশোরী
প্রেমিকা নিয়ে দ্বন্দ্ব, ‘বিশেষ অঙ্গ’ হারালেন দুই বন্ধু
১৫ লাখ টাকায় ছাগল কেনা ইফাত আমার ছেলে নয়: রাজস্ব কর্মকর্তা
ভাসানী বিশ্ববিদ্যালয়ে উপাচার্যের পদত্যাগের দাবিতে কর্মচারীদের মানববন্ধন
সিলেটে বন্যা পরিস্থিতির অবনতি, পানিবন্দি ৭ লাখ মানুষ
ফুটপাথে ঘুমন্ত যুবককে বিএমডব্লিউ দিয়ে পিষে দিলেন এমপিকন্যা!
ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগের সূচি প্রকাশ, প্রথম দিনে মাঠে নামছে ম্যানইউ