শুক্রবার, ১২ জুলাই ২০২৪ | ২৮ আষাঢ় ১৪৩১
Dhaka Prokash

দেশে ব্যবসার পরিবেশ থাকলে আগ্রহী হবে বিনিয়োগকারীরা

পৃথিবী জুড়ে একটি অস্থির অবস্থা বিরাজ করছে। আমি মনে করি, প্রথমত আমাদের অভ্যন্তরীণ অর্থনৈতিক ভারসাম্য ঠিক রাখা দরকার। অর্থনৈতিক সুযোগ সুবিধা বিষয়ে যত কথা বলা হোক না কেন আসলে বাস্তবতা ঠিক সেরকম নয়। উদাহরণস্বরূপ বলা যায়, দেশের শেয়ার বাজারে কিছু লিস্টেড বিদেশি কোম্পানি আছে। এসব কোম্পানি যদি তাদের মুনাফা না পায় তারা এখানে কেন আসবে? আরও একটি দুঃখের বিষয় হলো, বাংলাদেশে সবচেয়ে কম ফরেন কারেন্সি ইনভেস্টমেন্ট হয় । কাজেই সবকিছু মিলিয়ে আমাদের ইকোনোমিক অবস্থা কিন্তু ভাল বলা যাবে না। সেটি থেকে উত্তরণের লক্ষ্যেই বিদেশি বিনিয়োগকারীদের সামনে বাংলাদেশের সম্ভাবনার গল্পগুলো তুলে ধরতে হবে অর্থাৎ সম্ভাবনার দুয়ার খুলে দিতে হবে।

তবে আমি মনে করি যে, আমাদের পলিসি তৈরিতেও অনেক সীমাবদ্ধতা আছে। আগে নিজের ঘর ঠিক করতে হবে। আমার কথা হচ্ছে, ব্যবসা বান্ধব কাগজে কলমে যথেষ্ট আছে কিন্তু বাস্তবে এর প্রতিফলন নেই। আমাদের দেশে বড় ব্যবসায়ীরা ভালো সুযোগ-সুবিধা পাচ্ছে ঠিকই কিন্তু সেটিই যথেষ্ট নয়। কারণ আমাদের এখানে সুষ্ঠু নীতিমালা নেই। তাছাড়া এখানে ঘন ঘন নীতি বদল হয়। যে কারণে বিদেশিরা অসন্তুষ্ট হয় এবং বিনিয়োগে আগ্রহী হয় না। এখানে বিনিয়োগের ক্ষেত্রে একটি এলে আরেকটি তাকে অনুসরণ করে।

সে অর্থে আমি মনে করি যে, আমাদের এখানে ব্যবসাবান্ধব পরিবেশ নেই। আমাদের পথে পথে দুর্নীতি। তাছাড়া এখানে ব্যবসার সংস্কৃতিও ক্ষতিকারক। কারণ ব্যবসা যারা করবেন, তাদের সে বিষয়ে জ্ঞান নেই। আজকাল ব্যবসার নামে সবই চাঁদাবাজি চলে। চাঁদাবাজিই হয়ে গেছে বড় ব্যবসার অনুষঙ্গ এবং নিয়ম বহির্ভূতভাবে এগুলো করা হচ্ছে। যে কারণে এদেশে স্বাভাবিকভাবেই ব্যবসা করা দিন দিন কঠিন হয়ে পড়েছে ।

এখন বলতে হবে দুর্যোগগুলো সারা বিশ্বব্যাপী। বাংলাদেশ থেকে প্রচুর পরিমাণে ডলার বাইরে চলে যাচ্ছে। অর্থ পাচার যদি কিছুটা রোধ করা যেত সেটি হলেও আমাদের এতটা চাপের মধ্যে থাকতে হত না। কথা হচ্ছে যদি সুস্থিরতা না আসে, সেখানে কিন্তু বিপদ আমাদের তাড়া করবে। বিশ্বাসের ঘাটতি হলে আরও বেশি অসুবিধা হবে। অর্থনীতি ও ম্যানেজমেন্টের মধ্য দিয়ে যদি বিশ্বাসের ঘাটতি শুরু হয়ে যায়, তখন তাড়াহুড়ো হতে থাকবে। চারিদিকে নাই নাই দুর্যোগ আসছে। তখন খুব ক্ষতি হয়ে যায়।

বাংলাদেশের প্রকল্প যেগুলো সম্পন্ন হওয়ার পথে, সেগুলো সম্পন্ন করে ফেলা উচিত। এমন কিছু ঘটে নাই যে লোড নেওয়া উচিত। আইএমএফ থেকে লোন নিতে গেলে আইএমএফ অনেকগুলো শর্ত দেয়, বাংলাদেশ সরকারের জন্য সেটি এতটা সহজ হবে না। বাংলাদেশ অপ্রয়োজনীয় ভর্তুকি দিচ্ছে। তখন ঘাটতি বাজেট বাড়তে থাকে, তখন বিদেশ থেকে ঋণ নেয়, ভেতর থেকেও ঋণ নেয়। বিদেশ থেকে ঋণ নিলে সেটি সমস্যা সৃষ্টি করে বেশি। চলতি হিসেবে ঘাটতি যেন ধারাবাহিকভাবে না চলে, এটি দেখতে হবে। আমরা যতটা এক্সপোর্ট করতে পারি ততটা যদি ইমপোর্ট করতে পারি তাহলে ঠিক আছে । এর বাইরে গেলে আমরা বিপদে পড়ব ।

কাজেই আমি মনে করি, আমাদের মেধায় মননে অনেক বেশি পরিশুদ্ধ হতে হবে। কাজেই সুনির্দিষ্ট নীতিমালা ছাড়া ব্যবসার পরিবেশ কোনোভাবেই ফলপ্রসূ হবে না। দেশে ব্যবসার পরিবেশ থাকলে এমনিতেই ব্যবসায়ীরা বিনিয়োগে আগ্রহী হবে।

আবু আহমেদ: অধ্যাপক, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

আরএ/

Header Ad

ফেসবুকের প্রেমে চার সন্তান রেখে পালিয়ে যায় প্রবাসীর স্ত্রী

পরকীয়া প্রেমিকা আমেনা বেগম বালিয়াডাঙ্গী থানা পুলিশ উদ্ধার করে। ছবি: সংগৃহীত

প্রেম মানে না কোনো বাধা কিংবা বয়স। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে পরিচয় হয় এক প্রবাসীর স্ত্রীর সঙ্গে আরেক প্রবাসী যুবকের। তাদের মধ্যে দিন দিন সম্পর্ক এতটাই গভীর হয় যে একে অন্যের সঙ্গে পালিয়ে যাবার সিদ্ধান্ত নেন।

জানা যায়, কুমিল্লার বড়ুয়া থানার ভহিষখোলা গ্রাম থেকে প্রেম করে পালিয়ে আসা প্রবাসীর স্ত্রী পরকীয়া প্রেমিকা আমেনা বেগমকে (৩৪) ঠাকুরগাঁওয়ের বালিয়াডাঙ্গী থানা পুলিশ আমজানখোর ইউনিয়নের কালিবাড়ী গ্রাম থেকে শুক্রবার (১২ জুলাই) ভোর সাড়ে ৫টায় উদ্ধার করেছে।

জানা গেছে, ঘরে তার ১৮, ১৫, ১২ ও ৮ বছরের চার সন্তান রয়েছে। স্বামী থাকেন প্রবাসে। কমিল্লা সদরের বাসিন্দা সৌদি আরবপ্রবাসী স্বামী আলমগীর হোসেন তার আয়ের সবটুকু দেশে পাঠাতেন স্ত্রী আমেনা বেগমের কাছে। কুমিল্লার বড়ুয়া থানার ভহিষখোলা গ্রামের আবুল কালাম ভূইয়া মেয়ে স্ত্রী আমেনা বেগম তার স্বামী আলমগীর হোসেন সৌদি আরব প্রবাসে থাকার সুবাদে ফেসবুকে সম্পর্ক গড়ে তোলেন কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম গ্রামের দুবাইপ্রবাসী দেশে ফেরত এক সন্তানের জনক ‍যুবক শাকিল আলীর সাথে।

দিন যায় মাস যায়- তাদের সম্পর্ক আরো গভীর হতে থাকে। আমেনা বেগম একসময় সিদ্ধান্ত নেন তার প্রেমিকের কাছে চলে যাবেন। কথা অনুযায়ী বাসার স্বর্ণালঙ্কার কাপড় ভরে নিয়ে গত ৭ জুলাই চলে যান পরকীয়া প্রেমিক শাকিল আলীর কাছে।

এরপর আমেনা বেগম তার প্রবাসী স্বামী আলমগীরকে নোটারি পাবলিক ক্লাব ও কাজী অফিসের নিকাহ তালাক রেজিস্ট্রারের মাধ্যমে একতরফা তালাক প্রদান করে তিনি তার স্বামীকে মুক্ত করে দেন। পরে দুবাইয়ে প্রবাসী দেশে ফেরত এক সন্তানের জনক শাকিল আলীর সাথে কাজীর কাছে বিবাহের কাবিননামা রেজিষ্ট্রেশন করেন।

জানা যায়, বিয়ের পর শাকিল আলী তার পরকীয়া প্রেমিকা আমেনা বেগমকে পালিয়ে নিয়ে আসেন ঠাকুরগাঁওয়ের বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার আমজানখোর ইউনিয়নের কালিতলা গ্রামে। সেখানে অবস্থান করতে থাকলে এরই মাঝে আমেনা বেগমের বাবা আবুল কালাম ভূইয়া মেয়ে নিখোঁজের ঘটনায় গত ৮ জুলাই কুমিল্লা দক্ষিণ সদর মডেল থানায় একটি সাধারণ ডাইরি করে। যার জিডি নং- ৪৭৩।

সাধারণ ডাইরি মূলে পুলিশ মোবাইল ফোনের তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে তাদের অবস্থান নিশ্চিত হয়ে বালিয়াডাঙ্গী থানা পুলিশের কাছে সহযোগিতা চায়। এই প্রেক্ষাপটে বালিয়াডাঙ্গী থানার তদন্তকারী পুলিশ কর্মকর্তা এসআই শামীম হোসেন ও তার সঙ্গীয় ফোর্সসহ শুক্রবার ভোর সাড়ে ৫টায় উপজেলার আমজানখোর ইউনিয়নের কালিতলা গ্রামে অভিযান চালিয়ে আমেনা বেগমকে উদ্ধার করতে সক্ষম হয়।

এসময় পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে পরকীয়া প্রেমিক দুবাইপ্রবাসী শাকিল আলী পালিয়ে যান।

পুলিশ আমেনা বেগমকে থানায় নিয়ে আসার পর তার বাবা আবুল কালাম ভূইয়াকে মেয়ে উদ্ধারের বিষয়টি জানানো হলে তিনি থানায় এলে এসময় পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে আমেনা বেগম বিষয়টি প্রকাশ করেন। পরে পুলিশ আমেনা বেগমকে তার বাবার জিম্মায় দিলে তিনি মেয়েকে নিয়ে যান।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, আবুল কালাম ভূইয়ার মেয়ে আমেনা বেগমের সাথে ২০ বছর আগে আলমগীর হোসেনের বিয়ে হয়। ঘর সংসার করাকালে তাদের চার সন্তান হয়।

বালিয়াডাঙ্গী থানার অফিসার ইনচার্জ ওসি ফিরোজ কবির জানান, আমজানখোর ইউনিয়নের কালিতলা গ্রাম থেকে পরকীয়া প্রেমিকাকে আটক করে থানায় নিয়ে আসা হয়। এরপর তার পরিবারকে জানানো হলে তার বাবা থানায় এসে তার মেয়েকে নিজ জিম্মায় নিয়ে যান।

মিয়ানমারকে ধ্বংসের চেষ্টায় নেমেছে জান্তা : জাতিসংঘের সতর্কবার্তা

ফাইল ছবি

ক্ষমতা দখলের পর থেকে দেশজুড়ে বিশৃঙ্খলা এবং গত প্রায় আড়াই বছরে বিভিন্ন সশস্ত্র বিদ্রোহী গোষ্ঠীগুলোর সঙ্গে সংঘাতে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতির শিকার জান্তা বাহিনী এখন মিয়ানমার রাষ্ট্রকে ধ্বংসের চেষ্টা শুরু করেছে। জাতিসংঘের মিয়ানমার বিষয়ক বিশেষ দূত টম অ্যান্ড্রুজ এ সতর্কবার্তা দিয়েছেন। -এএফপি

গতকাল বৃহস্পতিবার জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের বৈঠকে মিয়ানমারের হালনাগাদ পরিস্থিতি তুলে ধরতে গিয়ে এই কর্মকর্তা বলেন, ‘(মিয়ানমারের) জান্তা এখন ব্যাপক চাপে রয়েছে। তারা জনবল, সামরিক সরঞ্জাম এমনকি ভূখণ্ডের ওপর নিয়ন্ত্রণও হারাচ্ছে; কিন্তু তারপরও নমনীয় হচ্ছে না। ক্ষমতা থেকে সরে যাওয়া তো দূর, বিদ্রোহী গোষ্ঠীগুলোর সঙ্গে আপস রফাতেও যাচ্ছে না।’

‘আবার বিদ্রোহী গোষ্ঠীগুলোর হামলাও প্রতিহত করতে পারছে না। গত প্রায় ১০ মাস ধরে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে জান্তা বাহিনী এবং তাদের বিভিন্ন স্থাপনা লক্ষ্য করে হামলা চালাচ্ছে বিদ্রোহী গোষ্ঠীগুলো। এসব হামলার জবাবে জান্তা বাহিনী যেসব পাল্টা হামলা চালাচ্ছে, তাতে মারা যাচ্ছে মূলত বেসামরিক লোকজন।’

‘যদি এই অবস্থা চলতে থাকে, তাহলে অদূর ভবিষ্যতে মিয়ানমার নামে কোনো একক রাষ্ট্রের অস্তিত্ব আর থাকবে না। এ ব্যাপারটি জান্তাও বুঝতে পারছে; কিন্তু তারপরও তারা শান্তি স্থাপনে উদ্যোগ নিচ্ছে না। তাদের এই ভূমিকা মিয়ানমারের জন্য ধ্বংস ডেকে আনবে।’

আইনশৃঙ্খলা ভঙ্গ করলে বরদাশত করা হবে না: ডিএমপি

ডিএমপি কমিশনার হাবিবুর রহমান। ফাইল ছবি

চলমান কোটাবিরোধী আন্দোলন নিয়ে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) কমিশনার হাবিবুর রহমান বলেছেন, আদালতের আদেশ মেনে চলার জন্য বাধ্যবাধকতা রয়েছে। আইনশৃঙ্খলা ভঙ্গজনিত কোনো কার্যক্রম কেউ যদি করে, তবে সেটি বরদাশত করা হবে না।

শুক্রবার (১২ জুলাই) দুপুরে রাজধানীর সেগুনবাগিচায় ক্যাব চত্বরে আয়োজিত ‘ওয়ালটন-ক্র্যাব স্পোর্টস ফেস্টিভ্যাল-২০২৪ ও ফল উৎসব’ অনুষ্ঠানে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এ কথা বলেন তিনি।

ডিএমপি কমিশনার বলেন, সরকারি চাকরিতে কোটা পদ্ধতি নিয়ে হাইকোর্টের রায়ের ওপর এক মাসের স্থিতাবস্থা দিয়েছেন সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ। সরকারি চাকরিতে কোটা পদ্ধতির বিষয়টি আদালতের। আদালতের প্রতি সবার আস্থা রাখা ও শ্রদ্ধা-সম্মান থাকা উচিত। আদালতের আদেশ মেনে চলার জন্য বাধ্যবাধকতা রয়েছে। সেটি সবার মেনে চলা উচিত বলে আমি মনে করি। হাবিবুর রহমান বলেন, আইনশৃঙ্খলা ভঙ্গজনিত কোনো কার্যক্রম কেউ যদি করে, তবে সেটি বরদাশত করা হবে না।

ক্র্যাব সভাপতি কামরুজ্জামান খান বৈরী আবহাওয়া ও জলাবদ্ধতা উপেক্ষা করে অনুষ্ঠানে উপস্থিত হওয়ায় সব সাংবাদিক ও অতিথিদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান। একইসঙ্গে স্পোর্টস ফেস্টিভ্যালে স্পন্সর করায় ওয়ালটনকে ধন্যবাদ জানান তিনি।

সর্বশেষ সংবাদ

ফেসবুকের প্রেমে চার সন্তান রেখে পালিয়ে যায় প্রবাসীর স্ত্রী
মিয়ানমারকে ধ্বংসের চেষ্টায় নেমেছে জান্তা : জাতিসংঘের সতর্কবার্তা
আইনশৃঙ্খলা ভঙ্গ করলে বরদাশত করা হবে না: ডিএমপি
প্রবাসী ছোট ভাইয়ের মরদেহ আনতে গিয়ে বড় ভাইয়ের মৃত্যু
নেপালে ভূমিধসে যাত্রীবাহী দুই বাস নদীতে, নিখোঁজ ৬০
জলাবদ্ধতা নিরসনে কাজ করছে ডিএনসিসির ৫ হাজার কর্মী
স্বাধীনতাবিরোধীদের প্রেতাত্মারা কোটা আন্দোলনের নামে ষড়যন্ত্রে লিপ্ত: আইনমন্ত্রী
পানির নিচে ঢাকার সড়ক ও অলি-গলি, সময় নিয়ে বেরোতে বলছে ডিএমপি
বিকেলে কোটা আন্দোলনকারীদের দেশব্যাপী বিক্ষোভ সমাবেশ
আবারও ভয়ঙ্কর রূপে করোনা, সপ্তাহে মৃত্যু ১৭০০ মানুষের
ইন্ডিপেন্ডেন্ট টেলিভিশনের ক্রীড়া সাংবাদিক সাইদ সাদীর একক চিত্র প্রদর্শনী
১০১ টাকা দেনমোহরে বিয়ে করলেন লেগ স্পিনার রিশাদ
অনন্ত-রাধিকার বিয়েতে চাঁদের হাট, অতিথি থাকছেন যারা
৬ দশমিক ৫ মাত্রার শক্তিশালী ভূমিকম্পে কাঁপল কানাডা
ছুটির সকালে ঢাকা ভিজছে বৃষ্টিতে, রাস্তায় পানি জমে ভোগান্তি
বাবার সাথে জমিতে হাল চাষের সময় বজ্রপাতে প্রাণ গেল ছেলের
আর্জেন্টিনা-কলম্বিয়া ফাইনালে ব্রাজিলের ৫ রেফারি
পটিয়ায় ট্রাক-অটোরিকশার মুখোমুখি সংঘর্ষে মা-ছেলেসহ নিহত ৪
কুড়িগ্রামের রাজিবপুরে জানালা ভেঙে ঘরে ঢুকে গৃহবধূকে ধর্ষণচেষ্টা
উত্তাল শাহবাগ চত্বর থেকে নতুন কর্মসূচি ঘোষণা কোটাবিরোধীদের