প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের অধিকার, গ্রামীণ স্থানীয় সরকার এবং অন্তর্ভুক্তিমূলক উন্নয়ন

১৬ এপ্রিল ২০২২, ০২:৩১ পিএম | আপডেট: ৩০ নভেম্বর ২০২২, ০৫:০৯ এএম


প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের অধিকার, গ্রামীণ স্থানীয় সরকার এবং অন্তর্ভুক্তিমূলক উন্নয়ন

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে, প্রাকৃতিক দুর্যোগ, সড়ক দুর্ঘটনা, সামাজিক ও পারিবারিক সহিংসতা, অপুষ্টি, টিকা না পাওয়া এবং জন্মগত ত্রুটির কারণে বাংলাদেশের মোট জনসংখ্যার প্রায় দশ শতাংশ প্রতিবন্ধী জীবনযাপন করছে। সামাজিক ও পরিবেশগত এবং প্রাতিষ্ঠানিক প্রতিবন্ধকতার ক্ষেত্রে নেতিবাচক মনোভাব তাদের দুর্বল ও অবহেলিত শ্রেণীতে পরিণত করার জন্য সমানভাবে দায়ী। বিশেষ করে বাংলাদেশের গ্রামীণ এলাকায়, প্রতিবন্ধীতাকে প্রায়ই অভিশাপ হিসেবে দেখা হয়।

বাংলাদেশ সরকার প্রতিবন্ধী জনগণের অধিকার নিশ্চিত করতে আন্তরিক যা সংসদে ‘বাংলাদেশ প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের অধিকার ও সুরক্ষা আইন ২০১৩’ পাসের মাধ্যমে পরিলক্ষিত। দেশে প্রথমবারের মতো প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের স্বাস্থ্য বীমার আওতায় আনা হচ্ছে যাতে তারা স্বল্প খরচে চিকিৎসা পেতে পারে। অটিজম, ডাউনস সিনড্রোম, বুদ্ধিবৃত্তিক প্রতিবন্ধী এবং সেরিব্রাল পলসিতে আক্রান্ত ব্যক্তিরা প্রাথমিকভাবে ‘প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের জন্য বঙ্গবন্ধু সুরক্ষা বীমা’ পলিসির জন্য যোগ্য হবেন। এমনকি, বর্তমান সরকার অটিজমে আক্রান্ত ব্যক্তিদের জীবন নিরাপদ করার লক্ষ্যে বিভিন্নভাবে সক্ষম ব্যক্তিদের স্থায়ী বাসস্থান ও কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করতে কাজ করছে।

সরকারের প্রচেষ্টাকে পরিপূরক করার জন্য, তাদের অধিকার ও সুযোগ-সুবিধা রক্ষার জন্য, বেশ কয়েকটি জাতীয় ও আন্তর্জাতিক সংস্থাও সক্রিয়ভাবে প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের অধিকারের পক্ষে কথা বলেছে, গোলটেবিল আয়োজন করছে এবং মিডিয়াসহ অ্যাডভোকেসি কার্যক্রম পরিচালনা করছে। স্পষ্টতই, গত কয়েক দশক ধরে উন্নয়নের আলোচনায় নাগরিকদের অংশগ্রহণ ব্যাপকভাবে ব্যবহৃত হচ্ছে। লিঙ্গ, ধর্ম ও প্রতিবন্ধী নির্বিশেষে জনগণের অর্থপূর্ণ অংশগ্রহণ উন্নয়নের জন্য একান্ত অপরিহার্য হিসেবে স্বীকৃত হয়েছে। আমরা ইউনিয়ন পরিষদ পর্যায়ে তেরটি স্থায়ী কমিটির উপস্থিতি লক্ষ্য করি। দুর্ভাগ্যবশত, এই কমিটির সভায়, স্থানীয় সরকার সংস্থাগুলির সিদ্ধান্ত গ্রহণের প্রক্রিয়ার বিভিন্ন প্ল্যাটফর্মে (উদাহরণস্বরূপ; স্থায়ী কমিটি, ওয়ার্ড সভা, প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটি, কমিউনিটি পুলিশিং কমিটি এবং উন্মুক্ত বাজেট আলোচনা) তাদের কণ্ঠস্বর শোনা যায় না।

বাংলাদেশের ইউনিয়ন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটি কী ধরণের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কর্মসূচির পরিকল্পনা ও বাস্তবায়ন করা হয় সে সম্পর্কে প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের জানার সুযোগ নেই। প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের অর্থপূর্ণ অংশগ্রহণ নিশ্চিত করতে তৃণমূল পর্যায়ে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা সংস্কার করা প্রয়োজন। তাছাড়া দুর্যোগ ব্যবস্থাপনার সময় অক্ষম ব্যক্তিদের যত্ন নেওয়ার জন্য সামাজিক সচেতনতামূলক প্রচারণা তৈরি করা; এর পাশাপাশি, ঝুঁকির ঝুঁকি এবং সম্পদ মূল্যায়ন, পরিকল্পনা প্রণয়ন এবং প্রস্তুতি এবং প্রশমন সমাধান বাস্তবায়নের প্রক্রিয়ায় সম্প্রদায়ের অংশগ্রহণ ইউনিয়ন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটি -এর কার্যকারিতার দিকে পরিচালিত করে।

আমাদের নিশ্চিত করতে হবে যে স্থানীয় সরকারের আশীর্বাদে সতর্কতা থেকে পুনরুদ্ধার পর্যন্ত প্রতিটি পদক্ষেপে দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অন্তর্ভুক্তিমূলক এবং প্রতিবন্ধী ব্যক্তিরা মূলধারার অন্তর্ভুক্ত।প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের অবশ্যই ইউনিয়ন পরিষদের সকল স্থায়ী কমিটিতে অন্তর্ভুক্ত করতে হবে এবং সিদ্ধান্ত নেওয়ার সময় তাদের কথা শুনতে হবে। তৃণমূল পর্যায়ে প্রতিবন্ধীদের অধিকার নিশ্চিত করতে ইউনিয়ন পরিষদের স্থায়ী কমিটিকে সোচ্চার হতে হবে।

স্থায়ী কমিটিকে প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের, বিশেষ করে নারী ও প্রতিবন্ধী মেয়েদের এবং প্রতিবন্ধী বয়স্ক ব্যক্তিদের, সামাজিক সুরক্ষা কর্মসূচি এবং দারিদ্র্য নিরসন কর্মসূচিতে প্রবেশাধিকার নিশ্চিত করতে উপজেলা পর্যায়ে সংশ্লিষ্ট অফিসে অবহিত করে সচেতনতা সৃষ্টি করতে হবে। প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের এবং দারিদ্রের পরিস্থিতিতে বসবাসকারী তাদের পরিবারগুলিকে পর্যাপ্ত প্রশিক্ষণ, কাউন্সেলিং, আর্থিক সহায়তা এবং অবকাশের যত্ন সহ প্রতিবন্ধী-সম্পর্কিত খরচের জন্য সরকার থেকে সহায়তা পাওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় সাহায্য স্থায়ী কমিটিকে করতে হবে।

উপজেলা, জেলা ও জাতীয় পর্যায়ে প্রতিবন্ধী অধিকার ও সুরক্ষা কমিটিগুলোর মধ্যে সমন্বয়ের অভাব তাদের অকার্যকর করে তুলছে এবং তাই প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের অধিকার যথাযথভাবে বাস্তবায়ন হচ্ছে না। বাজেটের ঘাটতি কারও নিয়মিত দায়িত্ব থেকে দূরে থাকার কারণ হতে পারে না। শুধু সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয় নয়, প্রতিবন্ধীদের কল্যাণে স্থানীয় সরকার সংস্থাসহ অন্যান্য মন্ত্রণালয় ও বিভাগকে এগিয়ে আসতে হবে।এটা সত্য যে সংশ্লিষ্ট সকল সংস্থা ও মন্ত্রণালয়ের মধ্যে সমন্বয় সৃষ্টি করা একটি চ্যালেঞ্জ।

বিদ্যমান আইনের বিধান বিশ্লেষণ ও প্রয়োগের পাশাপাশি প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের জন্য সকল সুযোগ নিশ্চিত করতে হবে। স্থানীয় পর্যায়ে প্রতিবন্ধীদের জন্য জাতীয় কর্মপরিকল্পনা বাস্তবায়নে কমিটিগুলোকে আরও সক্রিয় ভূমিকা পালন করতে হবে। টেকসই উন্নয়নের স্বার্থে প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের মূলধারায় যুক্ত করার জন্য ইউনিয়ন পরিষদকে যুক্ত করে তৃণমূল পর্যায়ে পৌঁছানোর জন্য সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়কে অবশ্যই তার সমন্বয় ভূমিকা ত্বরান্বিত করতে হবে।

জেলা, উপজেলা ও নগর কমিটির মতো ইউনিয়ন পর্যায়ের কমিটিও মাথায় রাখতে হবে। কমিটিগুলিকে নিশ্চিত করতে হবে যে তারা সঠিকভাবে কাজ করতে পারছে কি না, এবং যদি না হয়, তাহলে অসুবিধাগুলি চিহ্নিত করে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের নজরে আনতে হবে। প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের সুরক্ষা বা পরিষেবা নিশ্চিত করতে এবং জেলা-উপজেলা কমিটিগুলিকে আরও কার্যকর করার জন্য প্রয়োজনীয় তহবিল/জনবল/লজিস্টিক সহায়তা প্রদানের পদক্ষেপ নেওয়া উচিত।

জাতীয় কমিটিগুলোকে আইন অনুযায়ী আরও কার্যকর করতে হবে। প্রয়োজনে, ইউনিয়ন পরিষদ প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের জন্য একটি ছোট ইউনিট প্রবর্তন করতে পারে যাতে এটি ইউনিয়ন পর্যায়ে বসবাসকারী প্রতিবন্ধীদের সঠিক সংখ্যা নিশ্চিত করার পাশাপাশি তাদের চাহিদাগুলি মূল্যায়ন করতে পারে। জনসেবা, তথ্য ও ন্যায়বিচারে প্রতিবন্ধীদের প্রবেশাধিকার নিশ্চিত করতে ইউনিয়ন পরিষদকে কাজ করতে উৎসাহিত করতে হবে।

আমরা এও জানি, সব প্রতিবন্ধী মানুষের ভাতা প্রয়োজন হয় না। আমাদের তাদের মানব সম্পদে পরিণত করতে হবে এবং তাদের সকল সামাজিক কর্মকাণ্ডে অংশগ্রহণ নিশ্চিত করতে হবে।প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের অধিকার ও সুরক্ষা আইনটি সাত বছর ধরে বলবৎ রয়েছে। জনপ্রতিনিধিদের দিয়ে সচেতনতামূলক কার্যক্রম চালাতে হবে। বাংলাদেশ প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের অধিকার ও সুরক্ষা আইন বাস্তবায়নে সবাইকে আন্তরিক হতে হবে। স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের উচিত প্রতিবন্ধী অধিকার সংক্রান্ত প্রশিক্ষণ অন্তর্ভুক্ত করা যাতে সকল স্থানীয় সরকারের প্রতিনিধিরা প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের অধিকার সম্পর্কে বুঝতে পারেন।

প্রতিবন্ধী-অন্তর্ভুক্ত উন্নয়নের জন্য, উন্নয়ন প্রক্রিয়ার সকল পর্যায়ে প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের অন্তর্ভুক্ত এবং অ্যাক্সেসযোগ্য করতে হবে। অন্তর্ভুক্তিমূলক উন্নয়নের জন্য সক্ষম ব্যক্তিদের মতো প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের অবশ্যই শিক্ষা, স্বাস্থ্যসেবা পরিষেবা, কাজ এবং কর্মসংস্থান এবং অন্যান্যদের মধ্যে সামাজিক সুরক্ষার সমান অ্যাক্সেসের ব্যবস্থা করতে হবে। সমান সুযোগ এবং অনুরূপ সম্মান প্রদানের মাধ্যমে, স্থানীয় সরকার প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের মধ্যে আস্থার বোধ বৃদ্ধি করতে হবে এবং তাদের মধ্যে একত্ববোধ গড়ে তুলতে হবে।

সমাজে আমাদের সকলের সাথে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে কাজ করতে প্রতিবন্ধীদের উৎসাহিত করার জন্য একটি ইতিবাচক মানসিকতা গুরুত্বপূর্ণ। ইউনিয়ন পরিষদ মানসিকতা পরিবর্তনের জন্য সচেতনতা সৃষ্টির জন্য সুশীল সমাজ, এনজিও সম্প্রদায় এবং শিক্ষিত লোকদের সম্পৃক্ত করতে পারে। আমাদের মনে রাখতে হবে, প্রতিবন্ধীরা আমাদের আত্মীয়, প্রতিবেশী ও সমাজের সদস্য। এভাবেই স্থানীয় সরকারের নেতৃত্বে টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে এক ধাপ এগিয়ে যেতে সক্ষম হব।আমাদের অবশ্যই মনে রাখতে হবে, প্রতিবন্ধী ব্যক্তিরা তাদের উদ্ভাবনী ধারণা এবং নিষ্ঠার মাধ্যমে জাতি গঠনে অবদান রাখতে পারে।

 

লেখক: ড. মোহাম্মদ তারিকুল ইসলাম, সহযোগী অধ্যাপক, সরকার ও রাজনীতি বিভাগ, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় এবং ভিজিটিং স্কলার (অক্সফোর্ড ও কেমব্রিজ)।

 

ই-মেইল: [email protected]


বিভাগ : মতামত