বুধবার, ২৯ মে ২০২৪ | ১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
Dhaka Prokash

সামাজিক উন্নয়নে ধর্মীয় পর্যটনের প্রভাব

তীর্থযাত্রার তাত্ত্বিকতার সঙ্গে ধর্মীয় পর্যটন ওতপ্রোতভাবে যুক্ত। ধর্মীয় পর্যটনে ধর্মীয় অনুশীলনকে একটি অংশ হিসেবে বিবেচনা করা হয়। সাংস্কৃতিক অনুশীলনের মাধ্যমে মানুষ বিশ্বকে অনুভব করে ও বুঝতে সক্ষম হয়। ধর্ম এই ক্ষেত্রে একটি মৌলিক উপাদান হিসেবে মানুষের সর্বজনীন অনুভবকে চেতনায় রূপ দেয়। সমকালীন বিবেকমান মানুষেরা মনে করেন যে, নির্দিষ্ট ধর্ম অনুশীলনের ক্ষেত্র সমাজে বৈচিত্র্য ও পরমত সহিষ্ণুতার সৃষ্টি করে। সুতরাং, ধর্ম পর্যটনসহ সমাজের নানাবিধ বিষয়কে যুক্ত করে। সংস্কৃতি ও ধর্মের সম্পর্ক সাংস্কৃতিক অভিব্যক্তির প্রেরণা ও অনুশীলনের মাধ্যমে প্রকাশ পায়। তাই ধর্মের সমাজবিজ্ঞান মানুষ ও সংস্কৃতির কাঠামোগত রূপ দেয়। ধর্মের নিয়ম-কানুন, আচার-অনুষ্ঠান সমাজে শান্তিপূর্ণ ও সৌহার্দ্যপূর্ণ অবস্থা তৈরি করে।

পর্যটনের মাধ্যমে ধর্মীয় এলাকার সাংস্কৃতিক সংরক্ষণের মৌলিক বিষয়গুলি উদ্ভাবন করে যা সমাজে প্রয়োগ করা যেতে পারে। সংস্কৃতির উপর যেমন সমাজতাত্ত্বিক ধারণার প্রভাব পরিলক্ষিত হয়, তেমনি ধর্মীয় প্রভাবও পরিলক্ষিত হয়। অনেকে সাংস্কৃতিক যুক্তি, গতিশীলতা ও প্রগতিশীল মূল্যবোধকে ধর্মীয় সংস্কৃতি বলে মনে করেন। যাই হোক, সংস্কৃতি ও ধর্ম নিজেদের মধ্যে অবিচ্ছিন্নভাবে জড়িয়ে রয়েছে। ধর্মীয় এলাকার শান্তির উপাদানগুলিকে শক্তিশালী করতে হলে পর্যটনকে সঙ্গে নিতে হবে। কারণ নান্দনিকতা ও নীতিশাস্ত্রের সঙ্গে, ধমীর্য় সংস্কৃতিকে যুক্ত করতে হলে নানা ধর্মের নানা মতের পর্যটকরূপী মানুষের সমন্বিত অংশগ্রহণ দরকার। ধর্মের মধ্যে পর্যটনের অবস্থান ধর্মের সংস্কৃতির রক্ষক হিসাবে কাজ করবে।

সংস্কৃতি ও পর্যটনের প্রতি ধর্মের মনোভাব
নির্দিষ্ট ধর্মীয় গোষ্ঠীর মানসিক ও শারীরিক স্বাস্থ্যের উপর ধর্ম ও আধ্যাত্মিকতার ইতিবাচক প্রভাব রয়েছে বলে গবেষকরা নানাভাবে পর্যবেক্ষণ করেছেন। ধর্মীয় বিশ্বাস ও আচার-অনুষ্ঠান ইতিবাচক বলে অনেক গবেষক তা প্রমাণও করেছেন। উন্নত গুণমান, উন্নত জীবন, কল্যাণ, শারীরিক ও মানসিক স্বাস্থ্য, বৈবাহিক সন্তুষ্টি, টেকসই জীবন ও ইতিবাচক কর্মক্ষমতা ইত্যাদি মূলত সব ধর্মের প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ কর্ম প্রচেষ্টা। এইজন্য মানুষ ধর্ম ও ধর্মীয় ক্ষেত্রে দৃঢ় বিশ্বাসের সঙ্গে তীব্রভাবে ধার্মিক হয়ে ওঠে। সমাজে ধর্ম কেবল একটি বিশ্বাস ব্যবস্থা নয়। বরং জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রে উপলব্ধি ও বিশ্বাসের ভিত্তিও বটে। ধর্মবিশ্বাস ও সংস্কৃতি বিশেষত মানসিক স্বাস্থ্যসেবার নৈতিক উদ্দেশ্য এবং ব্যক্তিগত শক্তির সম্ভাব্য উৎস হিসাবে সামাজিকভাবে স্বীকৃত। তাই ধর্মীয় অনুশীলনের মাত্রা ও জীবনের সন্তুষ্টির মধ্যে একটি নিবিড় সম্পর্ক বিদ্যমান, যার জন্য ধার্মিকরা জীবনে অধিক সন্তুষ্ট থাকেন।

ভ্রমণ ও আতিথেয়তা শিল্পের মতো ধর্ম পণ্য ও পরিষেবার সঙ্গে সম্পৃক্ত। যেমন হালাল খাদ্য ধর্মীয় উপলব্ধি ও জীবনের সঙ্গে সম্পৃক্ত। পর্যটনের প্রতি ধর্মের দৃষ্টিভঙ্গি সম্প্রদাসমূহের মধ্যে ধর্মীয় মনোভাবের প্রভাব সৃষ্টি করে। সামাজিক ও গোষ্ঠীগত চাহিদা পর্যটন থেকে অর্থ উপার্জনের পথ দেখায়, যা ধর্মীয় সম্প্রদায়ের মনোভাবের উপর গুরুত্বপূর্ণ প্রভাব ফেলে। কিছু সামাজিক তত্ত্ব ও অনুশীলন থেকে বুঝা যায় যে, ধর্মীয় গোষ্ঠী যত বেশি চরম আচরণ করে, বাহ্যিকভাবে তত বেশি বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। এই আচরণ পর্যটনের প্রতি কম ইতিবাচক হিসাবে পরিগণিত। যেহেতু পর্যটন স্থানীয় জনগোষ্ঠীর আতিথেয়তার উপর নির্ভর করে, তাই পর্যটনের প্রতি স্থানীয় জনগণের সর্বজনীন ধর্মীয় উপলব্ধি একটি বড় বিষয়। সেবাদানের বিনিময়ে অধিক অর্থ আদায়, অপরাধ, পতিতাবৃত্তি কিংবা মাদক সরবরাহ ইত্যাদি ধর্মীয় নৈতিকতা বর্জিত। ফলে পর্যটন গন্তব্যে উদ্বেগের কারণ হয়ে দাঁড়ায়। আরো নেতিবাচক দিকগুলি হল আবাসনের দাম বৃদ্ধি, পারস্পরিক বিশ্বাসের মধ্যে দ্ব›দ্ব ও জীবনযাত্রার মান হ্রাস ইত্যাদি। ধর্মের টেকসই নীতি, আচার-অনুষ্ঠান ও ধর্মের সর্বজনীনতার প্রকাশ ইত্যাদি পর্যটনের বহুমুখী রূপকে সমন্বয়ের মাধ্যমে পর্যটনের প্রতি ধর্মের মনোভাবকে প্রকাশ করে।

ধর্মীয় পর্যটন বনাম সাংস্কৃতিক পর্যটন
ধর্মীয় পর্যটন বলতে নির্দিষ্ট ধর্মের অনুসারীগণ কর্তৃক ধর্মীয় বিবেচনায় পবিত্র স্থানসমূহ পরিদর্শনকে বুঝায়। এই পর্যটনের মধ্যে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে সকল ধর্মীয় বিশ্বাসের কারণ গ্রন্থিত। ফলে অনুসারীরা এই বিশ্বাস দ্বারা অনুপ্রাণিত হন যে, এই জাতীয় পর্যটন উপাসনার পথকে প্রশস্ত করে। গবেষকরা পর্যটনের জন্য ধর্মীয় স্থানগুলির প্রমোশন ও সম্প্রসারণকে বিশেষ প্রয়োজনীয় বলে মনে করেন। এইজন্য বর্তমান ও আদি উপাসনাস্থলগুলি অর্থনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক গুরুত্ব বহন করে। ধর্মীয পর্যটনের স্থানগুলি বুঝাপড়ার মাধ্যমে জ্ঞানের দিকে পরিচালিত করতে হবে, যা আধ্যাত্মিক ভাবধারাকে শক্তিশালী করবে এবং বিশ্বাস ব্যবস্থার শক্তির ভিত্তিকে সমাজে প্রগাঢ় করবে। তাই পর্যটন পণ্যগুলিকে ক্রমবর্ধমান বৈশ্বিক গন্তব্যগুলিতে প্রচার ও ভৌত প্রকাশ একান্ত জরুরি।

অন্যদিকে, সাংস্কৃতিক পর্যটন হলো এমন এক ধরনের পর্যটন যেখানে দর্শনার্থীরা পর্যটন গন্তব্যে মূর্ত ও বিমূর্ত সাংস্কৃতিক আকর্ষণ শিখতে, আবিষ্কার করতে, অভিজ্ঞতা লাভ করতে এবং ধারণ করতে উদ্বুদ্ধ হন। জাতিসংঘ বিশ্ব পর্যটন সংস্থার সংজ্ঞা অনুসারে, সাংস্কৃতিক পর্যটন হলো মূলত সাংস্কৃতিক অনুপ্রেরণার জন্য ব্যক্তির গমনাগমন অর্থাৎ স্মৃতিস্তম্ভ পরিদর্শন, শিক্ষা সফর, পারফর্মিং আর্টস, সাংস্কৃতিক ভ্রমণ, উৎসব ভ্রমণ এবং অন্যান্য সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে যোগদানকে বুঝায়। প্রকৃতি, লোককাহিনী বা শিল্প ইত্যাদি সাংস্কৃতিক পর্যটনের প্রধান বিষয়। উল্লেখ্য যে, ধর্মীয় পর্যটন বা তীর্থযাত্রাও এক ধরনের সাংস্কৃতিক পর্যটন। এই পর্যটন লৌকিক ও সামাজিক আচার ধর্মীয় অনুশীলনের মধ্যে প্রবেশ করে প্রগতিশীল নতুন চেহারা তৈরি করে। যার জন্য আমরা বলি, ধর্ম যার যার উৎসব সবার।

বাংলাদেশে ধর্ম, সংস্কৃতি, জাতিগত ও লোককাহিনীভিত্তিক নানা ধরনের উৎসব রয়েছে। কিছু সাধারণ উৎসব, যা সারা দেশের মানুষ সম্মিলিতভাবে উদযাপন করে। এদের মধ্যে জাতীয়, ঐতিহাসিক ও ঐতিহ্যগত উৎসবগুলো প্রধান। অন্যদিকে বেশ কিছু সাংস্কৃতিক উৎসব যেমন সাহিত্য, সংগীত, শিল্প, নাটক, লোকনৃত্য, যাত্রা, ঐতিহ্যবাহী পরিবহন, পোশাক ইত্যাদি আছে। যেগুলো সংস্কৃতির প্রধান উপাদান সম্বলিত যা, দেশের সকল ধর্মের মানুষেরা সমানভাবে উপভোগ করে। এভাবেই একটি দেশে সাংস্কৃতিক পর্যটন উৎকর্ষ লাভ করে।

পর্যটন ধর্মীয় ও সাংস্কৃতিক সকল উপাদানকে সর্বোত্তম একটি উৎকর্ষী বিন্দুকে নিয়ে যেতে পারে। যা নতুন জীবনদর্শন ও জীবনধারা গড়ে তুলতে সক্ষম। ধর্মীয় পর্যটন ও তীর্থযাত্রা ইত্যাদি অনুশীলন সামাজিক-সাংস্কৃতিক বাস্তুসংরক্ষণের জন্য অত্যন্তÍ প্রয়োজনীয় বিষয়। মানুষ সামাজিক প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে ধর্ম ও জীবনের উৎকর্ষতাকে একটি সমসত্ত্ব বিন্দুতে পৌঁছে দিতে পারে।

বাংলাদেশের ধর্মীয় পর্যটন এলাকা
বাংলাদেশে অধিকাংশ মানুষই মুসলমান। তবে হিন্দু, খ্রিস্টান ও বৌদ্ধ এখানে অন্য তিনটি মহান ধর্মও রয়েছে। সব ধর্মেরই রয়েছে তাদের নিজস্ব ধর্মীয় বিশ্বাস, ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান, আচার-অনুষ্ঠান ও উৎসব। কিন্তু তারা সবসময় অন্য ধর্মের আচার-অনুষ্ঠানকে সম্মান করে। এটি বাংলাদেশের একটি অনন্য সাসংস্কৃতিক বৈশিষ্ট্য।

এখানে সবচেয়ে ব্যাপক ও দীর্ঘস্থায়ী প্রভাব রয়েছে ইসলাম ধর্মের। বাংলাদেশে বিভিন্ন ধর্মের অনেক ধর্মীয় এলাকা রয়েছে। তবে অধিকাংশই ইসলামি স্থাপনাসমৃদ্ধ যেমন মসজিদ, মাদ্রাসা ও মাজার ইত্যাদি। বিডিনিউজ ২৪ ডটকম ১ মার্চ ২০১১ তারিখে বলছে যে, বাংলাদেশে মোট ২,৫০,৩৯৯টি মসজিদ আছে। মন্দির হলো হিন্দু ধর্মীয় অনুশীলন ও ভক্তির জন্য নির্মিত ভবন বা স্থাপনা। ডেভিড ম্যাককাচিওন (১২ আগস্ট ১৯৩০ - ১২ জানুয়ারি ১৯৭২) এর মতে, বাংলাদেশে ৪ (চার) ধরনের মন্দির আছে। এরা ঐতিহ্যবাহী নির্মানশৈলী সমৃদ্ধ। এই শৈলী ২ (দুই) ধরণের: রেখা ও পিধা দেউল। উইকিপিডিয়া বলছে, এই দেশে ১৪৪ টি বিশিষ্ট হিন্দু মন্দির আছে। এ ছাড়াও মোট ৫১ (একান্ন)টি শক্তিপীঠের মধ্যে ৬ (ছয়)টি শক্তিপীঠ বাংলাদেশে অবস্থিত। এইসব শক্তিপীঠের সঙ্গে রয়েছে ২ (দুই)টি করে গুরুত্বপূর্ণ মন্দির। বৌদ্ধধর্ম বাংলাদেশের তৃতীয় বৃহত্তম দর্শন ধর্ম। একাদশ শতাব্দীতে এই ভূখণ্ডে বর্তমান নওগাঁ জেলায় প্রথম বৌদ্ধধর্ম যাত্রা শুরু করে। এখানে রয়েছে বেশ কয়েকটি বৌদ্ধ মন্দির, বিহার, স্তুপা, ওয়াট ও গোম্পা ইত্যাদি। ক্যাথলিক এবং প্রোটেস্টাইন উভয় ধরণের খ্রিস্টানের বাস বাংলাদেশে। এখানে রয়েছে তাঁদের বেশ কিছু গির্জা এবং ১৬টি খ্রিস্টান ধর্মতাত্ত্বিক প্রতিষ্ঠান।

ধর্মীয় পর্যটন উন্নয়নের ধরণ
সাধারণত তীর্থযাত্রা ও পর্যটনের মধ্যে জটিল সম্পর্কের সারাংশ দিয়ে ধর্মীয় পর্যটনের প্রবর্তন ঘটে। ধর্মীয় পর্যটনের মধ্যে রয়েছে আধ্যাত্মিক স্থান ও সংশ্লিষ্ট পরিষেবাগুলির পরিসর, যা ধর্মনিরপেক্ষ এবং ধর্মীয় উভয় কারণেই পরিদর্শন করা হয়। বর্তমান সময়ে ধর্মীয় পর্যটনকে একটি অর্থনৈতিক অনুষঙ্গ হিসাবে বিশ্লেষণ করা হয়। ধর্ম ও পর্যটন উভয়ই সামাজিক প্রক্রিয়ার অংশ এবং অর্থনৈতিক সম্পর্কের সঙ্গে ঘনিষ্ঠভাবে জড়িত। যা সমাজে একটি প্রধান অবদানকারী বিষয় হিসেবে পরিগণিত। সুতরাং ধর্মকে তার সমস্ত অর্থ ও বৈশিষ্ট্য বজায় রেখে পর্যটন নামক বাজারযোগ্য পণ্য বিকাশে এগিয়ে আসতে হবে। ভোক্তাগণ তীর্থযাত্রী ও অন্যান্য পর্যটক হিসেবে সমাজে স্থান দখল করে আছে। ধর্মীয় পর্যটন বিকাশের এই ধরণটি বৈজ্ঞানিকভাবে বর্তমান বিশ্বে বহুল আলোচিত ও সমাদৃত।

স্থানীয় সম্প্রদায়ের সামাজিক-সাংস্কৃতিক প্রভাব ও অবদানের কারণে ধর্মীয় পর্যটনকে পর্যটনের একটি নতুন রূপ হিসাবে বিবেচনা করা হচ্ছে। স্মিথ (১৯৯২) নামক একজন গবেষক উল্লেখ করেছেন যে, পর্যটক ও তীর্থযাত্রী-পর্যটকদের জন্য ২ (দুটি) সমান্তরাল ও বিনিময়যোগ্য পথ পুনঃসংজ্ঞায়িত করা উচিত। যার মধ্যে একটি হলো ধর্মনিরপেক্ষ জ্ঞান-ভিত্তিক পথ; অন্যটি বিশ্বাস দ্বারা নির্মিত পবিত্র পথ। তাহলে বিশ্বব্যাপী প্রতিটি মানুষ ব্যক্তিগত প্রয়োজন বা অনুপ্রেরণার ভিত্তিতে সময়, স্থান ও সাংস্কৃতিক পরিস্থিতিতে নির্দিষ্ট পথে ভ্রমণ করতে পারবেন বা ইচ্ছামতো পথ পরিবর্তন করতে পারবেন। তিনি উপসংহারে বলেছেন যে, পর্যটক ও তীর্থযাত্রীরা একই অবকাঠামো ভাগ করে নিতে চায়। তাই আন্তর্জাতিক বাজারে ধর্মীয় পর্যটনের দ্রুত বিকাশ ও বৃদ্ধির কারণে ভবিষ্যতের জন্য নানাবিধ বিষয় নিয়ে চিন্তাভাবনা করতে হবে।

সাম্প্রতিক বছরগুলিতে অনেকেই ধর্মীয় পর্যটকদের বহুবিধ অবয়বের কথা ভাবতে শুরু করেছেন। যেমন আধ্যাত্মিক পর্যটক, নতুন প্রজন্মের আধ্যাত্মিক পর্যটক, সাইবার ধর্মীয় পর্যটক ইত্যাদি। বিশেষত ইন্টারনেট ব্যবহার করে সাইবার ধর্মীয় পর্যটকরা ভিডিওর মাধ্যমে নিয়মিতভাবে কিছু ধর্মীয় আচার-অনুষ্ঠান দেখতে ও তাতে অংশগ্রহণ করতে পারেন। ধর্মীয় পর্যটনের এইসব নতুন নতুন পর্যটকদের জন্য উপযোগী সেবাদান গড়ে তোলা এখন সময়ের দাবি।

পর্যটনের মাধ্যমে সাংস্কৃতিক সংরক্ষণ
ধর্ম হলো বিশ্বাস, দৃষ্টিভঙ্গি ও অনুশীলনের সমষ্টি। সৃষ্টিকর্তার উপাসনা বা অলৌকিক শক্তি, অঙ্গীকার ও ধর্মীয় বিশ্বাসের প্রতি নিষ্ঠাই ধর্ম পালন। কিন্তু ধর্মের সমাজতাত্ত্বিক দৃষ্টিভঙ্গি হলো পবিত্র বা আধ্যাত্মিক উদ্বেগের সঙ্গে বিশ্বাস, মূল্যবোধ ও অনুশীলনের উপস্থাপনা । পর্যটন এই সকল পবিত্র উপাদানের সঙ্গে সম্পর্কিত বিশ্বাস ও অনুশীলনের পদ্ধতিকে একীভূত করতে পারে। তাই পর্যটন কার্যক্রম সমস্ত ধর্ম বিশ্বাসী মানুষ দ্বারা জৈবিক ও আধ্যাত্মিক সম্পদ সংরক্ষণ করতে সক্ষম। মানুষ আধ্যাত্মিক ও ধর্মীয় পর্যটন অনুশীলন করে সামাজিক শান্তি ও সম্প্রীতির দূত হিসেবে নিজেদের স্থান তৈরি করতে পারে। এই পদ্ধতি মানবজাতি ও সভ্যতাকে বাঁচাতে পারে। ধর্মীয় পর্যটনের মাধ্যমে সাংস্কৃতিক সংরক্ষণ সমাজে একটি গভীর ধারণা সৃষ্টি করতে পারে।

ধর্মীয় বিশ্বাস একদিকে ধর্মীয় পর্যটনে ভূমিকা পালন করে, অন্যদিকে পর্যটকরা যখন ধর্মীয় স্থানগুলি পরিদর্শনকালে প্রায় তীর্থযাত্রীদের মতো আচরণ করে। এই ধরণের পর্যটনের মাধ্যমে ধর্ম ও সাংস্কৃতিক পণ্য ও আচরণ প্রদর্শিত হয়, যা চিন্তা ও চেতনার সমৃদ্ধি ঘটায়। পবিত্র স্থানের চারপাশে অবস্থিত সাংস্কৃতিক পর্যটনের এটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ।

পৃথিবীতে এখন বিশ্বায়নের সাংস্কৃতিক মাত্রা প্রবল। তাই বিশ্বায়ন প্রক্রিয়ার অংশ হিসেবে ধর্মীয় পর্যটনের গভীর ধারণা প্রয়োজন। ধর্মীয় পর্যটন একটি অনন্য ধরণের জ্ঞানীয় পর্যটন হিসাবে কাজ করে। এই পর্যটন যাত্রীদের সন্তুষ্টি, তাদের ধর্মীয় সংস্কৃতি, আচার-অনুষ্ঠানের প্রক্রিয়া ইত্যাদির মাধ্যমে ধর্মীয় সম্পদের সুরক্ষা এবং স্যুভেনির সংরক্ষণের মাধ্যমে ধর্মীয় পবিত্র স্মৃতি সংরক্ষণে বিশেষ ভূমিকা রাখে।

ধর্মীয় পর্যটনের ক্ষেত্রে একাধিক অনুপ্রেরণা সমানভাবে কাজ করে ও ভোক্তা সংস্কৃতির চাহিদা পূরণ করে। পাশাপাশি ধর্মীয় পর্যটন নতুন অভিজ্ঞতা সঞ্চয়ে সাহায্য করে। সাংস্কৃতিক চাহিদাগুলি বিনোদনের সঙ্গে জড়িত, ধর্মীয় স্থান পরিদর্শনের মাধ্যমে জ্ঞান বৃদ্ধি হয় ও তা সক্রিয় মানসিক শিথিলতার উৎস হিসেবে কাজ করে। ধর্ম সমাজে শান্তি প্রচারণার অন্যতম নিয়ামক বলে সমাজবিজ্ঞানীগণ মনে করেন। ধর্মনিরপেক্ষতার মাধ্যমে সকল ধর্ম নিজ নিজ বৈশিষ্ট্য বজায় রেখে সমাজকে একত্রিত করে। পর্যটন এখানে সবচেয়ে বড় অনুঘটক। মানুষের মধ্যে ধর্মীয় সহনশীলতা অন্যের বিশ্বাসকে গ্রহণ করছে। এই বিশ্বাস নিজস্ব সংস্কৃতির মাধ্যমে সর্বত্র সমানভাবে ছড়িয়ে পড়ছে। ধর্মীয় এলাকাকে পর্যটন গন্তব্যে পরিণত করা ধর্মীয় পর্যটনের একটি চূড়ান্ত কাজ হতে পারে, যা ধর্ম ও সংস্কৃতি সংরক্ষণে সমান ভূমিকা রাখতে সক্ষম । ধর্মীয় পর্যটন ধর্মীয় অসহিষ্ণুতা হ্রাস করবে, সুশাসন ও মানবাধিকার প্রতিষ্ঠা করবে এবং বৈষম্যহীন বিশ্বাস ও ঐতিহ্য দিয়ে ধর্মীয় স্বাধীনতাকে সংরক্ষণ করবে। ধর্ম সমাজের এমন একটি শক্তি, যা অর্থনীতি, সামাজিক সম্প্রীতি বজায় রাখার জন্য পর্যটনকে ব্যবহার করতে পারে। ধর্মীয় পর্যটন হতে পারে আর্থ-সামাজিক বাস্তুশাস্ত্রের শক্তিঘর যা শেষ পর্যন্ত ভবিষ্যতের মানবজাতিকে রক্ষা করবে।

এসএন

Header Ad

ফের গাজায় তাঁবু ক্যাম্পে ইসরায়েলি হামলা, ১২ নারীসহ নিহত ২১

ছবি: সংগৃহীত

দক্ষিণ গাজা উপত্যকার রাফাতে তাঁবু ক্যাম্পে ফের ইসরাইলি হামলার পর ফিলিস্তিনিরা তাদের তাঁবু পরিদর্শন করছেন। অবরুদ্ধ গাজা ভূখণ্ডে বাস্তুচ্যুতদের ক্যাম্পে ফের হামলা চালিয়েছে ইসরাইল বাহিনী। এতে অন্তত ২১ জন নিহত হয়েছেন। নিহতদের মধ্যে ১২ নারী ছিলেন। হামলায় আহত হয়েছেন আরও অর্ধশতাধিক মানুষ।

বুধবার (২৯ মে) এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানিয়েছে সংবাদমাধ্যম আলজাজিরা।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, গাজার দক্ষিণাঞ্চলীয় রাফা শহরের কাছে আল-মাওয়াসিতে বাস্তুচ্যুত পরিবারগুলোর একটি তাঁবু ক্যাম্পে ইসরাইলি বাহিনীর হামলায় অন্তত ২১ জন নিহত হয়েছেন বলে ফিলিস্তিনি চিকিৎসা কর্মকর্তারা এবং ফিলিস্তিনি বার্তাসংস্থা জানিয়েছে।

এর আগে রোববার রাতে গাজা ভূখণ্ডের দক্ষিণাঞ্চলীয় রাফা শহরে বাস্তুচ্যুত লোকদের শিবিরে ভয়াবহ হামলা চালায় ইসরায়েল। এতে কমপক্ষে ৪৫ ফিলিস্তিনি নিহত হন। সর্বশেষ এই হামলা এমন এক সময়ে হলো যখন আগের ওই হামলার কারণে ইসরায়েল বিশ্বব্যাপী নিন্দা ও সমালোচনার মুখে পড়েছে।

গাজার চিকিৎসা কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, মঙ্গলবার রাফা গভর্নরেটে হওয়া এই হামলায় নিহতদের মধ্যে অন্তত ১২ জন নারী।

গাজার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় টেলিগ্রামে দেওয়া এক পোস্টে জানিয়েছে, হামলায় আরও ৬৪ জন আহত হয়েছেন, যাদের মধ্যে ১০ জনের অবস্থা গুরুতর। অন্যদিকে ফিলিস্তিনের সরকারি বার্তাসংস্থা ওয়াফা জানিয়েছে, ওই এলাকাটিতে ইসরাইল বিমান হামলা চালিয়েছে।

তবে ইসরাইলি সামরিক বাহিনী রাফার আলমাওয়াসিতে হামলা চালানোর কথা অস্বীকার করেছে। আগ্রাসন পরিচালনাকারী এই সামরিক বাহিনী এক বিবৃতিতে বলেছে, ‘গত কয়েক ঘণ্টার প্রতিবেদনের বিপরীতে (আমরা বলতে চাই), আইডিএফ (ইসরায়েলি প্রতিরক্ষা বাহিনী) আল-মাওয়াসির ওই মানবিক এলাকায় হামলা করেনি।’

এদিকে ইসরায়েলি আক্রমণ গাজাকে ধ্বংসস্তূপে পরিণত করেছে। জাতিসংঘের মতে, ইসরায়েলের বর্বর আক্রমণের কারণে গাজার প্রায় ৮৫ শতাংশ ফিলিস্তিনি বাস্তুচ্যুত হয়েছেন। আর খাদ্য, বিশুদ্ধ পানি এবং ওষুধের তীব্র সংকটের মধ্যে গাজার সকলেই এখন খাদ্য নিরাপত্তাহীন অবস্থার মধ্যে রয়েছেন।

এছাড়া অবরুদ্ধ এই ভূখণ্ডের ৬০ শতাংশ অবকাঠামো ক্ষতিগ্রস্ত বা ধ্বংস হয়ে গেছে। ইসরায়েল ইতোমধ্যেই আন্তর্জাতিক বিচার আদালতে গণহত্যার অভিযোগে অভিযুক্ত হয়েছে।

তৃতীয় ধাপে ৮৭ উপজেলায় ভোটগ্রহণ শুরু

তৃতীয় ধাপে ৮৭ উপজেলায় ভোটগ্রহণ শুরু। ছবি: সংগৃহীত

ষষ্ঠ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের তৃতীয় ধাপে দেশের ৮৭ উপজেলায় ভোটগ্রহণ শুরু হয়েছে। সকাল ৮টা থেকে শুরু হওয়া এ ভোটগ্রহণ চলবে বিকেল ৪টা পর্যন্ত। ইলেক্ট্রনিক ভোটিং মেশিনের (ইভিএম) মাধ্যমে ১৬ উপজেলায় এবং বাকিগুলোতে ব্যালটের মাধ্যমে ভোটগ্রহণ চলছে।

তৃতীয় ধাপে ১১২ উপজেলায় ভোট হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু মৃত্যুজনিত ও মামলার কারণে ধাপ পরিবর্তন হয়েছে দুটি উপজেলার, আর পিরোজপুরের ভান্ডারিয়ার তিন পদের সবাই বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়ী হওয়ায় এবং ঘূর্ণিঝড় রিমালের প্রভাবে ২২ উপজেলার ভোট স্থগিত হওয়ায় এই ধাপে ৮৭ উপজেলায় ভোট হবে। এই ধাপে চেয়ারম্যান পদে একজন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে চারজন এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে সাতজনসহ মোট ১২ জন বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়ী হয়েছেন।

উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে দলীয় প্রতীকে চেয়ারম্যান পদে ভোট করার সুযোগ থাকলেও স্থানীয় সরকারের এ নির্বাচনে দলীয় প্রতীক বা মনোনয়ন দেয়নি ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। ফলে, আওয়ামী লীগ নেতারা নির্বাচন করছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে। অন্যদিকে বিএনপির অল্প কিছু নেতার স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে লড়লেও, দলটি উপজেলা পরিষদের ভোট বর্জন করেছে।

নির্বাচন কমিশনের (ইসি) দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, তৃতীয় ধাপে মোট এক হাজার ১৫২ জন প্রার্থী ভোটের লড়াইয়ে রয়েছেন। এর মধ্যে চেয়ারম্যান পদে ৩৯৭, ভাইস চেয়ারম্যান ৪৫৬ এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ২৯৯ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। ৫৬টি পৌরসভা ও ৮৪১টি ইউনিয়নের দুই কোটি ৮ লাখ ৭৫ হাজার ১৮৪ জন ভোটার তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করবেন। নির্বাচনে ভোটকেন্দ্র রয়েছে সাত হাজার ৪৫০টি। এর মধ্যে দুর্গম এলাকার ৪১৪টি কেন্দ্রে গতকাল রাতেই ব্যালট পেপারসহ নির্বাচনি সরঞ্জাম পাঠানো হয়েছে। বাকি সাত হাজার ৩৬টি কেন্দ্রে আজ ভোরেই এসব সরঞ্জাম পাঠানো হচ্ছে।

নির্বাচনে মোবাইল ও স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে মোট বিজিবি মোতায়েন থাকবে ২৯৯ প্লাটুন। ভোটকেন্দ্রে মোট পুলিশ সদস্য মোতায়েন থাকবে ২৯ হাজার ৯৫৮ জন, মোবাইল টিমে মোট পুলিশ সদস্য মোতায়েন থাকবে সাত হাজার ৭৯৪ জন, স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে মোট পুলিশ সদস্য মোতায়েন থাকবে তিন হাজার ৩৬৪ জন। সর্বমোট পুলিশ সদস্য মোতায়েন থাকবে ৫৯ হাজার ২১৯ জন। মোবাইল ও স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে মোট র‌্যাব মোতায়েন থাকবে ২৩০টি টিম। ভোটকেন্দ্র এবং মোবাইল ও স্ট্রাইকিং ফোর্স হিসেবে মোট আনসার সদস্য মোতায়ন থাকবে এক লাখ ৪০ হাজার ৬৬৯ জন। নির্বাচনে স্বাভাবিক এলাকার ভোটকেন্দ্রে পুলিশ, আনসার, ভিডিপি, গ্রাম পুলিশ, চৌকিদার, দফাদারসহ মোট ১৭ জন সদস্য দায়িত্ব পালন করবেন। আর গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্রে ১৮ থেকে ১৯ জন সদস্য দায়িত্ব পালন করবেন। বিশেষ এলাকার (পার্বত্য ও দুর্গম এলাকা) সাধারণ কেন্দ্রে ১৯ জন ও গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্রে ২০ থেকে ২১ জন সদস্য দায়িত্ব পালন করবেন।

নির্বাচন উপলক্ষে ভোটগ্রহণের জন্য নির্ধারিত দিবসের পূর্ববর্তী মধ্যরাত অর্থাৎ ২৮ মে দিনগত মধ্যরাত ১২টা থেকে ২৯ মে দিনগত মধ্যরাত ১২টা পর্যন্ত ট্যাক্সি ক্যাব, পিকআপ, মাইক্রোবাস ও ট্রাক চলাচলে নিষেধাজ্ঞা থাকবে। ৮৭টি উপজেলায় তিনদিনের জন্য মোটরসাইকেল চলাচলের ওপর নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। এক্ষেত্রে গত সোমবার মধ্যরাত থেকে পরবর্তী ৭২ ঘণ্টা মোটরসাইকেল চলাচল বন্ধ থাকবে। ভোটের পরিবেশ নিয়ন্ত্রণে রাখতে মাঠে নামানো হয়েছে র‌্যাব, বিজিবি, পুলিশসহ অন্যান্য আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। নির্বাচন অপরাধ আমলে নিয়ে সংক্ষিপ্ত বিচার কাজ পরিচালনায় মাঠে রয়েছেন বিচারিক ম্যাজিস্ট্রেট ও আচরণ বিধি প্রতিপালনে নিয়োজিত করা হয়েছে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট।

ভোটের প্রস্তুতির বিষয়ে গতকাল মঙ্গলবার নির্বাচন কমিশনার মো. আলমগীর বলেন, ‘আগের মতোই ভালো প্রস্তুতি আছে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য প্রথম ও দ্বিতীয় ধাপে যা ছিল, এই ধাপে তার চেয়ে আরও বাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে, বিশেষ করে ঝুঁকিপূর্ণ এলাকায়। অতএব সেটায় কোনো সমস্যা নেই। আবহাওয়া কেমন থাকবে বা না থাকবে সেটার উপর অনেক কিছুই নির্ভর করবে। ভোটার উপস্থিতি কেমন হবে, এই মুহূর্তে আমরা বলতে পারছি না। এটি ভোটের দিনই বোঝা যাবে।’

সাংবাদিকদের আরেক প্রশ্নের জবাবে ইসি আলমগীর বলেন, ‘আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা, নির্বাচন পরিচালনার সঙ্গে জড়িত সংশ্লিষ্টরা এবং কমিশন খুব কঠোর অবস্থানে আছে। অতএব আমরা মনে করি না, সহিংসতা করে কেউ পার পাবে। যারা নিজেদের ভালো চাইবেন তারা সহিংসতা করতে চাইবেন না, এটাই স্বাভাবিক।’

বিকেল তিনটা বা তার আগে খুব কম সংখ্যক ভোট কাস্ট হয়। ওই সময়ে ১০, ১২ বা ১৫ শতাংশ ভোট পড়ে। কিন্তু, ৪টা নাগাদ ভোটগ্রহণ শেষে কেন্দ্রীয়ভাবে যখন ফলাফলটা আসে তখন শতাংশটা বেড়ে যায়। জনশ্রুতি যেটা থাকে, হয়তো কমিশন ওখান থেকে ভোটের হার বাড়িয়ে দেওয়া হয়। বিষয়টি নজরে আনলে এই নির্বাচন কমিশনার বলেন, ‘এটি একেবারেই এবসার্ট। যদি ১ শতাংশ ভোটও পড়ে তাহলেও কমিশন হ্যাপি। আমাদের কঠোর নির্দেশ, ভোটার যদি একজন আসে কোনো কেন্দ্রে ওই একটি ভোটেই হবে। দুইটা দেখানোর কোনো সুযোগ নেই। ভোট বাড়ানো বা কমানোর কোনো সুযোগ নেই। কেউ যদি এ কাজ করে এবং তা যদি প্রমাণ হয়, তার বিরুদ্ধে আমরা কঠিন ব্যবস্থা নেব।’

তৃতীয় ধাপের নির্বাচনে তিন হাজার ২৭৭ জন পর্যবেক্ষককে অনুমোদন কমিশন। নির্বাচন কমিশনে নিবন্ধিত ১৫টি পর্যবেক্ষক সংস্থার কেন্দ্রীয়ভাবে ২২৯ জন ও স্থানীয়ভাবে তিন হাজার ৪৮ জন পর্যবেক্ষককে এ নির্বাচন পর্যবেক্ষণ করবেন। আগামী ৫ জুন চতুর্থ ধাপের ভোট অনুষ্ঠিত হবে।

পেটে গজ রেখেই সেলাই, মারা গেছেন সেই সুমি

ছবি: ঢাকাপ্রকাশ

নওগাঁয় এক প্রসূতির সিজারের সময় অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ ও পেটে গজ রেখেই সেলাই করে দেওয়ার পর উন্নত চিকিৎসার জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। দুই বার আইসিইউতে নিবির পর্যক্ষেনে থাকার পর মঙ্গলবার (২৮ মে) সকাল ৬টার দিকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায় সেই প্রসূতি নারী সুমি খাতুন (৩৫)। মৃত্যূর খবর জানার পর সুমির পরিবারে ও গ্রামে বইছে শোকের মাতম। এমন মৃত্যূ কিছুতেই মেনে নিতে পারছেনা গৃহবধূ সুমির পরিবার।

এ ঘটনায় অভিযুক্ত ডাক্তার ও ক্লিনিক মালিকের বিচার দাবি করেছেন পরিবার ও প্রতিবেশি স্বজনরা।

এ বিষয়ে গত ২০ মে ‘পেটে গজ রেখেই সেলাই, আইসিইউতে’ শিরোনামে গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশিত হলে টনক নড়ে জেলা স্বাস্থ্য বিভাগের। তদন্ত কমিটি গঠন করা হলেও এখনও প্রতিবেদন দাখিল করা হয়নি। এর মাঝেই না ফেরার দেশে চলে গেলেন সুমি।

সুমির পরিবার ও ক্লিনিক সূত্রে জানা যায়, গত ১৫ মে সকালে প্রসবব্যথা শুরু হলে নওগাঁ শহরের হাসপাতাল রোড এলাকায় অবস্থিত একতা ক্লিনিকে নেয়া হয় ওই প্রসূতি নারীকে। সেখানে ওই দিনই সিজার করান প্রসূতি বিদ্যা ও স্ত্রী রোগ বিশেষজ্ঞ সার্জন ডাক্তার তানিয়া রহমান তনি। সিজারের জন্য জেনারেল অ্যানেস্থেসিয়া প্রয়োগ করেন ডাক্তার তানিয়ার স্বামী নওগাঁ সদর হাসপাতালের অ্যানেসথেসিওলজিস্ট ডাক্তার আদনান ফারুক। সিজারের পরই ওই সুমি তার পেটে তীব্র ব্যথা অনুভব করেন এবং প্রচুর পরিমাণে রক্তক্ষরণ শুরু হয়। ডাক্তার তানিয়া ক্লিনিকের মার্কেটিং অফিসার আব্দুর রউফকে দিয়ে দ্রুত রোগীর পেটে সেলাই করিয়ে নেয়। তার পর রাত ১০টার দিকে রামেক হাসপাতালে পাঠানো হয় সুমিকে। হাসপাতালে নেয়ার পর রাতেই পরিক্ষা করে জানা যায় সুমির পেটে বাড়তি কিছু একটা জিনিস রয়েছে। সেই সাথে অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ হয় আর সেটার জন্য তাকে পর দিন বৃহস্পতিবার সকালে পরিবারের সম্মতিতে ফের অপারেশন করা হয়। এর ১৩দিন পর আজ মঙ্গলবার সকালে মারা যায় সুমি। সুমির এমন মৃত্যুতে শোকের মেছে এসেছে জেলার আত্রাই উপজেলার সন্নাসবাড়ী গ্রামে। সুমির এমন মৃত্যূ কিছুতেই মেনে নিতে পারছেনা স্থানীয় প্রতিবেশিরারও।

স্থানীয় প্রতিবেশী ফারজানা খাতুন ও খালেদ বিন ফিরোজ বলেন, পেটে ব্যাথা উঠলো ভর্তি করা হলো সিজারের জন্য। আস্থা ও ভরসা নিয়েই তো ক্লিনিকে ডাক্তার কাছে যায় রোগী। কিন্তু একটি তাজা প্রাণ ঝরে গেলো। সিজার করার কারনে কিভাবে প্রসূতি মারা যায়। অবশ্যই ভুল অপারেশন বা ভুল চিকিৎসা হয়েছে। নইলে কেন উন্নত চিকিৎসার জন্য নওগাঁ থেকে রাজশাহীতে রেফার করা হলো। আর কত মানুষ অপ-চিকিৎসার কারনে মারা যাবে। মাঝে মাঝে আমরা শুনতে পাই নওগাঁয় ভুল চিকিৎসার কারনে রোগীর মৃত্যুর ঘটনা। দ্রুত বিচারের আওতায় নিয়ে আসা হোক এসব ডাক্তার ও ক্লিনিক মালিকদের।

সুমি খাতুনের খালা ফাহিমা বেগম বলেন, আমার ভাগিনীকে ভুল চিকিৎসা দিয়ে মেরে ফেলা হয়েছে। তিনটি বাচ্চার এখন কি হবে। সদ্যজাত সন্তান তো পৃথিবীর আলো দেখার পরই মাকে হারিয়ে ফেললো। ভুল সিজারের কারনেই সুমির মৃত্যু হয়েছে। জড়িত সবার কঠিন শাস্তি চাই আমরা।

সুমির খাতুনের মা রহিমা বেগম বেগম বলেন, অভিযুক্তরা তাদের লোকজনের মাধ্যমে টাকার অফার দিয়ে ঘটনাটি ধামাচাঁপা দেয়ার চেষ্টা করেছিল। আমরা তাতে রাজি হইনি। রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের ডাক্তাররা যখন প্রথমে সুমিকে দেখেছিল তখনই বলেছিল এই রোগীর অবস্থা খুব খারাপ নওগাঁতে প্রোপার ভাবে সিজারিয়ান করা হয়নি। তার পর যখন সেখানে অপারেশন করলো তখন ডাক্তাররা জানাই সুমির অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ ও পেটে সামান্য গজ ছিল। যার কারনে শারীরিক অবস্থা ভালো ছিলনা। দুই বার আইসিইউতে নেওয়ার পরও আমার মেয়েটাকে বাঁচানো গেলনা। আমার মেয়েটাকে নওগাঁর একতা ক্লিনিকে গরুকে সেলাই করার মত পায়ের হাঁটুর উপর উঠে সেলাই করেছিল। সব কিছুই তাদের ভুল চিকিৎসা ছিল। ওই ডাক্তার তানিয়াকে কাছে পেলে তার হাঁটুর উপর উঠে ওভাবেই সেলাই করে দিতাম। অভিযুক্ত ডাক্তার, ক্লিনিক মালিক ও এর সাথে জড়িতদের দ্রুত বিচার দাবি করছি। আর যেন আমার সুমির মত কারো ভুল চিকিৎসায় মৃত্যু না হয়।

অভিযুক্ত ডাক্তার তানিয়া রহমান তনি বলেন, আমি এ বিষয়ে কোন কথা বলতে চাইনা। প্রয়োজনে ডাক্তারদের সংগঠন বা সিভিল সার্জন এর সাথে কথা বলতে পারেন। আমার যা বলার আমি কিছুদিন আগে সংবাদ সম্মেলন করে জানিয়ে দিয়েছি। আর রাজশাহীতে সুমিকে নিয়ে যাওয়ার পর কি হয়েছে সে বিষয়ে আমি অবগত নয়।

এ প্রসঙ্গে কথা হলে সিভিল সার্জন মো. নজরুল ইসলাম ঢাকাপ্রকাশকে বলেন,‘তদন্ত কমিটি দুইটি গঠন করা হয়েছে ‘স্থানীয় তদন্ত কমিটি' ও রাজশাহী বিভাগীয় তদন্ত কমিটি। স্থানীয় তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন প্রস্তুত হয়েছে। রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) পরিচালকের তদন্ত প্রতিবেদন পেলেই দুইটা মিলে ভূল কার নিশ্চিত হওয়া যাবে। সে অনুযায়ী প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলেও জানান এই স্বাস্থ্য কর্মকর্তা।’

সর্বশেষ সংবাদ

ফের গাজায় তাঁবু ক্যাম্পে ইসরায়েলি হামলা, ১২ নারীসহ নিহত ২১
তৃতীয় ধাপে ৮৭ উপজেলায় ভোটগ্রহণ শুরু
পেটে গজ রেখেই সেলাই, মারা গেছেন সেই সুমি
বগুড়ায় সোনালী ব্যাংক ডাকাতির চেষ্টা
বেনজীর আহমেদ ও তার স্ত্রী-কন্যাকে দুদকে তলব
কোনো অপরাধী শাস্তি ছাড়া পার পাবে না : সাবেক সেনাপ্রধান ও বেনজির প্রসঙ্গে কাদের
এমপি আনারের ৪ কেজি মাংস উদ্ধার
খালের পাড়ে বসছে সিসি ক্যামেরা, ময়লা ফেললেই আইনি ব্যবস্থা
চুয়াডাঙ্গায় ইউপি চেয়ারম্যানকে কুপিয়ে জখম
বিরামপুরে দুর্নীতি প্রতিরোধে স্কুল পর্যায়ে বিতর্ক প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত
ঘূর্ণিঝড় রেমালের ক্ষয়ক্ষতি পরিদর্শনে পটুয়াখালী যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী
ফিলিস্তিনকে রাষ্ট্রের স্বীকৃতি দিল স্পেন ও নরওয়ে
টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ ২০২৪-এর অজানা সব খবর
ঢাকা সফরে আসছেন আইএমও’র মহাসচিব
বেনজিরকে গ্রেফতারে আইনী কোন বাধা নেই: দুদক আইনজীবী
মানি লন্ডারিং: বেসিকের বাচ্চুসহ ৬ জনের বিরুদ্ধে দুদকের চার্জশিট
আমি রেকর্ডের পেছনে ছুটি না, রেকর্ডই আমার পেছনে ছোটে: রোনালদো
তরুণরা তামাকের পেছনে বছরে ৫০ হাজার কোটি টাকা ব্যয় করেন
বকেয়া বেতনের দাবিতে পোশাক শ্রমিকদের সড়ক অবরোধ
স্বাধীন ফিলিস্তিন রাষ্ট্র না থাকলে ইসরায়েলের অস্তিত্বই থাকবে না: সৌদি