মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ | ১৩ ফাল্গুন ১৪৩০
বেটা ভার্সন
Dhaka Prokash

১০ লাখ মানুষের গণপ্রার্থনায় নেতৃত্ব দিলেন পোপ ফ্রান্সিস

দশ লাখেরও বেশি ধর্মপ্রাণ কঙ্গোবাসী খ্রিস্টানদের প্রর্ধান ধমযাজক ও ভ্যাটিকানের প্রধান ধর্মাধ্যক্ষ পোপ ফ্রান্সিসের দেশটি সফরের শুরুতেই তাকে স্বাগত জানাতে ও প্রার্থনায় অংশ নিতে শামিল হয়েছেন বলে জানিয়েছে স্থানীয় কর্তৃপক্ষ।

৯০ দশমিক ৫ শতাংশের বেশি খ্রিস্টানের এই দেশটিতে মঙ্গলবার সকালে পোপ ফ্রান্সিস ও তার সফরসঙ্গী কার্ডিনালরা এসে পৌঁছেছেন। রাজধানী কিনসাসায় তার পোপাল বিমানটি অবতরণ করেছে।

তারা অবতরণ করেছেন এন’ডোলো বিমানবন্দরে। হাজার, হাজার কঙ্গোবাসী তাকে স্বাগত জানাতে লাইন ধরে অপেক্ষা করেছেন।

এ সময় সাড়ে সাত হাজার স্বেচ্ছাসেবক তাদের নিরাপত্তার কাজে যুক্ত হয়েছেন। বিপুল পুলিশ নিয়োগ করেছেন প্রেসিডেন্ট ফিলিক্স সিশেকেডি।

পোপ ফ্রান্সিস মধ্য ও পূব আফ্রিকার দুটি দেশ কঙ্গো এবং দক্ষিণ সুদান সফর করছেন। তখনই ‘ভিজিল (জাগরণ)’ নামের একটি বিশেষ প্রার্থনানুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে পোপ ফ্রান্সিসের জন্য। সেখানে এই বিপুল পরিমাণ ক্যাথলিক খ্রিস্টান তাদের প্রধান ধর্মগুরুর সঙ্গে তার প্রার্থনায় মিলিত হয়েছেন ‘কনফেশন (স্বীকারোক্তি)’ এবং ধর্মগীত ও সুরের মাধ্যমে। এই গণপ্রার্থনায় বিশেষ অতিথি হিসেবে অংশগ্রহণ করেছেন কঙ্গোর রাষ্ট্রপতি।

৩০ জানুয়ারি রাত থেকে এই ধর্মীয় বিপুল সম্মিলনে অংশগ্রহণের জন্য অনেকে বহু দূর থেকে যাত্রা করেছেন। তারা বিমানবন্দরের বাইরে খোলা আকাশের নিচে পরিবার নিয়ে বা একা অথবা বন্ধুদের সঙ্গে, পরিজনকে নিয়ে রাত কাটিয়েছেন। ঘন্টার পর ঘন্টা আগে থেকে মাঠে হাজির হয়েছেন তারা। পরদিন ভোর সকালে ‘পোপ ফ্রান্সিসের মাস’ অনুষ্ঠিত হয়েছে তাদের সকলের আনন্দচিত্তে।

৩১ জানুয়ারি স্থানীয় সময় সকাল সাড়ে ৯টায় আয়োজিত হয়েছে তাদের সকলের গণপ্রার্থনা পোপ ফ্রান্সিসের নেতৃত্বে। ধমীয় গানগুলো, ইংরেজি ও তাদের আদিবাসীদের ভাষায় গেয়েছেন তারা। গানের তালে নেচেছেন। ধর্মীয় গীতের মধ্যে ‘মামান মারিয়া’ নামের কঙ্গোবাসীদের বিখ্যাত গানটিতে তারা নেচে, গেয়ে উন্মাতাল হয়েছেন। এই গানটিকে ফরাসি ভাষায় তারা বলেন ‘মামা মেরি’। আমাদের ভাষায় ‘মাতা মেরি’ বা ‘মা মেরি’। এই গানটি গেয়েই পোপ ফ্রান্সিসকে স্বাগত জানিয়েছেন তার ধমানুসারী নিষ্ঠাবান খ্রস্টানরা। এছাড়াও আরো অনেক বিখ্যাত ইংরেজি ও তাদের ভাষার খ্রিস্টধর্ম সংগীত গাওয়া হয়েছে।

পোপের দেশ ভ্যাটিকানের হলি সি অফিসের সূত্র মতে, তারা পরিসংখ্যান করেছেন ৫ কোটি ২০ লাখের বেশি ক্যাথলিকই আছেন ‘দ্য ডেমোক্রেটিক রিপাবলিক অব কঙ্গো’ বা ‘গণতান্ত্রিক প্রজাতন্ত্র কঙ্গো’তে। তারাই ১০ কোটি ৫০ লাখের বেশি মানুষের এই দেশে প্রায় অর্ধেক জনগোষ্ঠী।

কঙ্গোর প্রাতিষ্ঠানিক বা অফিস আদালতের ভাষা ফরাসিতে পোপ ফ্রান্সিস তার অনুসারীদের সঙ্গে উদযাপন করেছেন তাদের ধর্মীয় সম্মেলন। এ ছাড়া, তিনি কথা বলেছেন ‘লিঙ্গালা’ নামের ভাষাতে। বান্টু নামের প্রাচীন খর্বকায় আদিবাসীদের ভাষা ও নিগ্রো এবং সাদা চামড়ার মানুষদের ভাষাটি হলো এই, তারা ক্রিওল বা মিশ্র জাতি হিসেবেও পরিচিত, দেশের কিছু অংশে তাদের এই ভাষা ব্যবহার করা হয়। এই ভাষায় মধ্য আফ্রিকার কয়েক মিলিয়ন মানুষ কথা বলেন।

পোপ ফ্রান্সিস তার ‘হমিলি’ বা ধর্মীয় হিতোপদেশ প্রদান করেছেন ভ্যাটিকানের ভাষা ইতালিতে। সেটি ফরাসিতে অনুবাদ করেছেন তার কার্ডিনালরা। সাধারণ রোমান রীতিতে তিনি ধর্মবাণী প্রদান করেছেন বলে জানানো হয়েছে।

জায়ার নামের আলাদা একটি দেশ আছে এখন। প্রার্থনা করেছেন জায়ার ভাষাভাষীদের জন্যও তিনি, ১৯৮৮ সালে সাবেক জায়ার প্রজাতন্ত্র, আজকের কঙ্গোর ডায়োসিসেসগুলোতে প্রতিটি বিশপের ধর্মীয় এলাকাগুলোতে ভাষাটি আনুষ্ঠানিকভাবে ব্যবহারের জন্য ভ্যাটিকান থেকে অনুমোদন প্রদান করা হয়েছিল।

খ্রিস্টধর্মের এই বিপুল তীর্থযাত্রীরা ছাতা মাথায় দিয়ে এসেছেন। অনেকের মাথায় ছিল হ্যাট, পশ্চিমী কায়দায় বানানো টুপি। অনেকে মাথার ওপর রেখেছেন গরম থেকে বাঁচার জন্য কাগজ বা পত্রিকা। হয়েছিল খুব গরম।

এই গণপ্রার্থনায় পোপ ফ্রান্সিস তার ভাষণে বলেছেন, ‘ভাই ও বোনেরা, প্রভু যিশুর সঙ্গে কোনোদিন, কখনো শয়তান জয়ী হতে পারে না। আমাদের ভুবনে ‘শেষ’ বলে কোনো শব্দ নেই। এ কাজ আমাদের ‘শান্তি’র জন্য।

প্রভু যিশুর ভুবনে শান্তিই জয়লাভ করে। পাশাপাশি আমরা যারা খ্রিষ্টধমে বিশ্বাস করি ও ধারণ করি জীবনে এবং কর্মে, অবশ্যই আমাদের কখনো ‘কান্না’ উৎপাদন করা যাবে না। আমাদের অবশ্যই কখনো ‘পদত্যাগ’ অনুমোদন করা যাবে না কোনো ক্ষেত্রে, ‘নিয়তি’কে আমাদের মেনে নিতে হবে। এমনকী বিরুদ্ধ পরিবেশ আমাদের চারপাশে রাজত্ব করলেও সেটি অবশ্যই কখনো আমাদের জন্য হবে না।”

তিনি আরও বলেছেন, ‘হয়তো এখন একটি ভালো সময় তাদের সবার জন্য যারা নিজেদের ‘খ্রিস্টান’ বলে অভিহিত করো এবং বিশ্বাসী, তবে যুক্ত থাকো ‘সংঘাত’-এ। ঈশ্বর তোমাদের বলছেন, ‘তোমাদের অস্ত্রগুলোতে ফেলে দাও, শান্তিকে ও শান্তিতে আলিঙ্গন করো।’

তিনি অনুরোধ করেছেন ‘শান্তির জন্য মিশনারি’ হতে। তিনি সংঘষের চক্রটিকে ভেঙে ফেলার প্রয়োজনীয়তার ওপর জোর দিয়েছেন। যাতে ভেঙে টুকরো, টুকরো করে ফেলা যায় কৌশলগত অপরাধ ও কুমন্ত্রণাগুলোকে এবং ঘৃণার বিরাট চক্রটিকে। আমাদের শান্তির মিশনারি হতে বলা হয়েছে, ডাক দেওয়া হয়েছে এবং এটি আমাদের কাছে শান্তিকে নিয়ে আসবে।

আমাদের প্রত্যেকের হৃদয়ে অন্য সকলের জন্য ঘর খুঁজে বের করার প্রয়োজনীয়তা রয়েছে। আমাদের বিশ্বাস করার দরকার রয়েছে যে, জাতিগত, আঞ্চলিক, সামাজিক, ব্যক্তিগত ও ধর্মীয় পাথক্যগুলো হলো দ্বিতীয় প্রধান এবং এগুলোর কোনোটিই কখনোই বাধা নয়। অন্যরা সবাই হলো আমাদের ‘ভাই’ ও ‘বোন’। আমরা সবাই একই ‘মানবিক’ সমাজের সদস্য।’

গণতান্ত্রিক প্রজাতন্ত্র কঙ্গোতে সংঘাত, সহিংসতা ও যুদ্ধ এত বেশি বেড়ে গিয়েছিল যে মানবতার সংকট দেখা গিয়েছিল। ফলে ৫ কোটি ৫০ লাখ কঙ্গোবাসী তাদের বাড়িঘর থেকে উচ্ছেদ হয়ে গিয়েছেন। এটিই বিশ্বের তৃতীয় সবোচ্চ অভ্যন্তরীণভাবে বাস্তুচ্যুত মানুষের সংখ্যা।

গতকাল বুধবার বিকালে পোপ ফান্সিস দেখা করেছেন পশ্চিম কঙ্গোর এই বাস্তুচ্যুত ও সংঘাতের বলি সাধারণ নাগরিকদের সঙ্গে। তিনি তাদের নিয়ে কাজ করা স্থানীয় স্বেচ্ছাসেবক প্রতিষ্ঠানগুলোর সঙ্গে কথা বলেছেন।

চলমান সংঘাত, সংঘষ ও যুদ্ধ থেকে বেঁচে যাওয়া সব হারানো মানুষরা তাদের ভয়াবহ জীবনকাহিনীগুলো পোপ ফ্রান্সিসকে জানিয়েছেন এবং শান্তি লাভ করেছেন। এই দেশের যুদ্ধে গণহত্যা ও অঙ্গছেদ ঘটানো হয়েছে, অপহরণ করা হয়েছে, তারা তাদের পরিবার-পরিজনকে হারিয়েছেন, একের পর এক নারীকে ধর্ষণের শিকার হতে হয়েছে, যৌনদাসী হতে বাধ্য হয়েছেন কত নারী।

খ্রিস্টানদের প্রধান ধর্মযাজক পোপ ফ্রান্সিস নিন্দা জানিয়েছেন এই সকল ধরণের অন্যায় ও বর্বরতার। তিনি সকল ধরণের নৃশংসতা ও বর্বরতারই বিপক্ষে দাঁড়িয়েছেন। তিনি বলেছেন, ‘হত্যাকারীরা, দেশের সম্পদকে অবৈধভাবে লুটেরারা, দেশকে নিয়ন্ত্রণের জন্য যারা টুকরো, টুকরো করতে চেষ্টা করছেন আমি তাদের সকল ধরনের কমকান্ডের বিপক্ষে।’

পোপ ফ্রান্সিস বলেছেন, ‘যারা যুদ্ধ প্রদর্শণ করছেন তাদের সকলকে আমি জিজ্ঞাসা করি ও বলি যুদ্ধে সমাপ্তি টানুন। গরীবের টাকায় ধনী হওয়ার কাজ থামিয়ে দিন। সম্পদের উৎসগুলো লুট করে ধনী হওয়া এবং রক্ত লেগে থাকা টাকা উপার্জন থামিয়ে দিন। যারা কঙ্গোতে বসবাস করেন, তাদের প্রত্যেককে আমি কখনো হার না মেনে নেওয়ার জন্য ডাক দিচ্ছি। তাদের সবাইকে আমি একটি ভালো ও উন্নত ভবিষ্যত তৈরি করতে অনুরোধ করছি। শান্তিই সম্ভব। আসুন আমরা তাকে বিশ্বাস স্থাপন করি। আসুন আমরা প্রত্যেকে অন্যের হাতে অর্পণ না করে সেজন্য কাজ করি।’

পোপ ফ্রান্সিস এসময়ও শান্তির জন্য প্রার্থনা সভায় নেতৃত্ব দিয়েছেন। তিনি কঙ্গোর অধিবাসীদের সকলকে দশকের পর দশক ধরে চলা সংঘাত ও যুদ্ধের বিপরীতে একে অন্যকে ক্ষমা করে দিতে অনুরোধ করেছেন, এজন্য ও তাদের হয়ে প্রার্থনা করেছেন ও যুদ্ধের সমাপ্তি টানতে কাতরভাবে অনুরোধ করেছেন।

আফ্রিকার বিভিন্ন দেশ থেকে আসা তার কার্ডিলান, আর্চবিশপ, বিশপ, ফাদার, ব্রাদার ও সিস্টাররা পোপ ফ্রান্সিসের কঙ্গো ও দক্ষিণ সুদান সফরের অনুসারী হয়েছেন।
তাদের মধ্যে নাম করেছে গণমাধ্যমগুলোর কয়েকটিÑরুয়ান্ডার কার্ডিনাল অন্টন কামবান্ডা, মধ্য আফ্রিকান রিপাবলিকের কার্ডিনাল ডিওডোনে ইনজাপালিঙ্গা, চাদের আর্চবিশপ এডমন্ড ডিজিটাংগার ও নাইজেরিয়ার বিশপ ম্যাথু হাসান কুকাহ প্রমুখ।

ওএফএস/

পবিত্র রমজানের আগে বিশ্বের তৃতীয় বৃহত্তম মসজিদ উদ্বোধন

ছবি: সংগৃহীত

আসন্ন রমজান উপলক্ষে বিশ্বের তৃতীয় বৃহত্তম এবং আফ্রিকার বৃহত্তম মসজিদের উদ্বোধন করেছে আলজেরিয়া। সোমবার (২৬ ফেব্রুয়ারি) দেশটির প্রেসিডেন্ট আব্দেল মাজিদ তেবুন ভূমধ্যসাগরের উপকূলবর্তী রাজধানী আলজিয়ার্সে গ্র্যান্ড মসজিদটির উদ্বোধন করেন। খবর আল জাজিরার।

স্থানীয়ভাবে মসজিদটি জামা এল-জাজাইর নামে পরিচিত। মসজিদটিতে ২৬৫ মিটার দৈর্ঘ্যের বিশ্বের সবচেয়ে উঁচু মিনার রয়েছে এবং এই মসজিদে ১ লাখ ২০ হাজার মানুষ একত্রে নামাজ পড়তে পারবে। সৌদি আরবের মক্কা ও মদিনার মসজিদের পর এটিই বিশ্বের বৃহত্তম মসজিদ।

২৭ দশমিক ৭৫ হেক্টর জমির উপর সাত বছর ধরে মসজিদটি নির্মিত হয়েছে। মসজিদটির নকশা হচ্ছে আধুনিক কাঠামোর, এবং আরব ও উত্তর আফ্রিকার বিভিন্ন দেশ থেকে যোগাড় করা কাঠ ও মার্বেল মসজিদটিতে ব্যবহার করা হয়েছে। মসজিদটিতে হেলিকপ্টার নামার জায়গা এবং দশ লাখ বই রাখার মতো একটি পাঠাগারও রয়েছে।

মসজিদটির উদ্বোধনের ফলে আসন্ন রমজানে এখানে অসংখ্য মুসল্লির নামাজ পড়া এবং অনুষ্ঠান আয়োজন করার ব্যবস্থা হবে। উদ্বোধনের পাঁচ বছর আগে থেকেই মসজিদটি আন্তর্জাতিক পর্যটক এবং আলজেরিয়া সফরে আসা রাষ্ট্রীয় অতিথিদের জন্য উন্মুক্ত ছিল। এমনকি ২০২০ সালের অক্টোবরে মসজিদটিকে নামাজ পড়ার জন্য খুলেও দেওয়া হয়েছিল।

মসজিদটি একটি চীনা প্রতিষ্ঠান ৯০০ মিলিয়ন ডলার ব্যয়ে নির্মাণ করেছে। তবে সমালোচকরা বলছেন, মসজিদটি সাবেক প্রেসিডেন্ট আব্দেল আজিজ বুতফ্লিকা শখের বসে নির্মাণ করেছেন। ২০ বছর ক্ষমতায় থাকার পর ২০১৯ সালে তাকে ক্ষমতা থেকে উৎখাত করা হয়।

বুতফ্লিকা মসজিদটির নামকরণ করেছিলেন নিজের নামে এবং ২০১৯ সালে এটির উদ্বোধনের চেষ্টা করে ব্যর্থ হন। জনগণের আন্দোলন এবং সামরিক বাহিনীর হস্তক্ষেপে তাকে ক্ষমতা থেকে সরানো হয়েছিল।

জাতীয় মহাসড়কের পাশে এবং লাখ লাখ নতুন আবাসন প্রকল্পেরমাঝে অবস্থিত মসজিদটির কাজ শুরু সময় থেকেই দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছিল। সমালোচকদের মতে, কাজ পাওয়ার জন্য ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানগুলো আলজেরিয়া সরকারকে প্রচুর টাকা উৎকোচ হিসেবে প্রদান করেছে।

বিশ্ববাজারে আবারো কমেছে জ্বালানি তেলের দাম

ছবি: সংগৃহীত

আন্তর্জাতিক বাজারে আবারও কমেছে জ্বালানি তেলের দাম। সোমবার সকালে এশিয়ার বাজারে তেলের দাম কমেছে। গত সপ্তাহে তেলের দাম ২ থেকে ৩ শতাংশ কমেছিল। দাম কমার ধারাবাহিকতা বজায় রয়েছে এ সপ্তাহেও। অর্থাৎ, যুক্তরাষ্ট্রের নীতি সুদহার শিগগিরই কমছে না-বাজারে এই খবর চাউর হওয়ার প্রভাব পড়েছে তেলের বাজারে।

সোমবার সকালে এশিয়ার বাজারে ব্রেন্ট ক্রুড তেলের দাম ব্যারেলপ্রতি ৩৪ সেন্ট কমে ৮১ দশমিক ২৮ ডলারে নেমে এসেছে; অন্যদিকে ইউএস টেক্সাস ইন্টারমিডিয়েট বা ডব্লিউটিআই ক্রুডের দাম ৩৩ সেন্ট কমে ব্যারেলপ্রতি ৭৬ দশমিক ১৬ ডলারে নেমে এসেছে। রয়টার্স।

এদিকে আর্থিক প্রতিষ্ঠান এএনজেডের বিশ্লেষকেরা বলেছেন, তেলের দাম বাড়তে পারে এমন কোনো নতুন বাস্তবতা তৈরি হয়নি। একদিকে ওপেক ও সহযোগী সদস্যদেশগুলো তেলের উৎপাদন হ্রাস করছে; অন্যদিকে চীনের মতো দেশে চাহিদা কমে গেছে। বাস্তবতা হচ্ছে, তেলের বাজার এই দুই বিপরীতমুখী প্রবণতার মধ্যে আটকা পড়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের এনার্জি ইনফরমেশন অ্যাডমিনিস্ট্রেশন গত সপ্তাহে বলেছে, ১৬ ফেব্রুয়ারি শেষ হওয়া সপ্তাহে জ্বালানি তেলের মজুত ৩৫ লাখ ব্যারেল বৃদ্ধি পেয়ে ৪৪ কোটি ২৯ লাখ ব্যারেলে উন্নীত হয়েছে। বার্তা সংস্থা রয়টার্স বিশ্লেষকদের নিয়ে যে জরিপ করেছিল, এই মজুত বৃদ্ধি তার সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ।

সুগন্ধা বিচকে ‘বঙ্গবন্ধু বিচ’ নামকরণের সিদ্ধান্ত বাতিল

কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতের সুগন্ধা বিচ। ছবি: সংগৃহীত

কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতের সুগন্ধা বিচকে 'বঙ্গবন্ধু বিচ' ও কলাতলাী ও সুগন্ধা বিচের মাঝখানের এলাকাকে 'মুক্তিযোদ্ধা বিচ' নামকরণের সিদ্ধান্ত বাতিল করেছে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণনালয়। সুগন্ধা বিচকে 'বঙ্গবন্ধু বিচ' ও 'মুক্তিযোদ্ধা বিচ' নামের আরেকটি নতুন নামকরণের সিদ্ধান্ত দিয়ে নানান আলোচনা-সমালোচনার মধ্যে এক সপ্তাহের মধ্যে সিদ্ধান্ত বাতিল করা হয়।

রোববার (২৫ ফেব্রুয়ারি) মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সহকারি সচিব মো. সাহেব উদ্দিন স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়,পূর্বে পাঠানো নির্দেশনার উপর কোন ব্যবস্থা গ্রহণ না করার জন্য নির্দেশনাক্রমে অনুরোধ করা হলো। একই সাথে পূর্বে পাঠানো পত্রটি বাতিল বলে গণ্য করা হলো।

উল্লেখ্য, গত ৮ ফেব্রুয়ারি মুক্তিযোদ্ধা সন্তান সংসদ নামের একটি সংগঠন মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়ে একটি চিঠি দেয়। সংগঠনের সভাপতি মো. সোলায়মান মিয়া স্বাক্ষরিত ওই চিঠিতে কক্সবাজারের সুগন্ধা সমুদ্র সৈকতের নাম ‌‘বঙ্গবন্ধু বিচ’ এবং সুগন্ধা ও কলাতলী বিচের মাঝখানের জায়গাটিকে বীর ‌‘মুক্তিযোদ্ধা বিচ’ নামকরণের দাবি জানানো হয়।

এরপর গত ১৯ ফেব্রুয়ারি এ বিষয়ে ব্যবস্থা নিতে কক্সবাজারের জেলা প্রশাসককে নির্দেশ দিয়ে চিঠি পাঠায় মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রণালয়। চিঠিতে বলা হয়, স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি ও জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নামে কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতে সুগন্ধা বিচকে ‘বঙ্গবন্ধু বিচ’ এবং সুগন্ধা ও কলাতলী বিচের মাঝখানের খালি জায়গার নাম হবে ‘বীর মুক্তিযোদ্ধা বিচ’।

বিষয়টি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নানা প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়। অবশেষে আলোচনা-সমালোচনার মধ্যেই সিদ্ধান্তটি বাতিল করলো সরকার।

সর্বশেষ সংবাদ

পবিত্র রমজানের আগে বিশ্বের তৃতীয় বৃহত্তম মসজিদ উদ্বোধন
বিশ্ববাজারে আবারো কমেছে জ্বালানি তেলের দাম
সুগন্ধা বিচকে ‘বঙ্গবন্ধু বিচ’ নামকরণের সিদ্ধান্ত বাতিল
ওয়াজ শুনে বাড়ি ফেরার পথে এসএসসি পরীক্ষার্থীকে পিটিয়ে হত্যা
কুড়িগ্রামের রাজিবপুরে ৫০ শয্যার হাসপাতালে নেই ৩১ শয্যার লোকবলও
নিয়মনুযায়ী হাথুরুসিংহের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে: পাপন
থানচিতে ২২ পর্যটককে জিম্মি করে মোবাইল-টাকা ছিনতাই
শিক্ষা সফরে গিয়ে ছাত্রদের সঙ্গে স্কুল শিক্ষকের ‘মদপান’, ভিডিও ভাইরাল
ঢাকায় ভারতীয় বিমানবাহিনীর প্রধান
রমজান শুরু হতে পারে ১১ মার্চ থেকে
গাজা যুদ্ধের প্রভাব পড়েছে ভারতীয় মুসলমানদের ওপর
টাঙ্গাইলে শিক্ষক হত্যা: ১১ দিনেও গ্রেফতার হয়নি পলাতক ২ আসামি
রাষ্ট্রপতির কাছে যে পরিকল্পনা তুলে ধরতে চায় দুদক
বিশ্বজয়ী হাফেজ বশির আহমেদকে ছাত্রলীগের সংবর্ধনা
তিনমাসে ভিন্ন নাম-ঠিকানায় ১৪৩ রোহিঙ্গার হাতে বাংলাদেশি পাসপোর্ট
আরবি লেখা পোশাক পরায় পাকিস্তানে কিশোরীকে পিটিয়ে হত্যার চেষ্টা
গ্রামে চিকিৎসকদের পর্যাপ্ত সুরক্ষা দেওয়ার বিষয়ে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় কাজ করছে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী
পাকিস্তানে প্রথম নারী মুখ্যমন্ত্রী হলেন নওয়াজকন্যা মরিয়ম
দেশে ২৪ ঘণ্টায় ৪৫ জনের দেহে করোনা শনাক্ত
টাঙ্গাইলে নাহিদ হত্যার রহস্য উদঘাটন: মা-ছেলেসহ গ্রেফতার ৫