সোমবার, ১৫ জুলাই ২০২৪ | ৩০ আষাঢ় ১৪৩১
Dhaka Prokash

বিশেষ সাক্ষাৎকার 

‘আমি কাজকে ভালোবেসে কাজ করার চেষ্টা করছি’

ড. হাছান মাহমুদ। আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। চট্টগ্রাম-৭ আসন থেকে টানা তিনবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন। বেলজিয়াম লিম্বুর্গ ইউনিভার্সিটি সেন্ট্রাম, এনভায়রনেমন্টাল সায়েন্স: পরিবেশ রসায়নে পিএইচডি করা হাছান মাহমুদ এর আগে ২০০৯ থেকে ২০১৪ সাল মেয়াদে প্রথমে আওয়ামী লীগ সরকারের পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী, পরে পরিবেশ ও বন মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৭৭ সালে ছাত্রলীগের রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত হওয়া এই নেতা পরবর্তী সময়ে ছাত্রলীগ ও আওয়ামী লীগের চট্টগ্রাম ও জাতীয় পর্যায়ে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করেন। এখন সরকারের সবচেয়ে গুরুত্ত্বপূর্ণ তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী হিসেবে নিষ্ঠার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করছেন।

গত ২৩ নভেম্বর ঢাকাপ্রকাশ-কে দেওয়া একান্ত সাক্ষাৎকারে ড. হাছান মাহমুদ কথা বলেছেন গত প্রায় চার বছরে তার মন্ত্রণালয়ের সফলতা, বিভিন্ন কর্মকাণ্ড, গণমাধ্যম, ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন, রাজনীতি, আগামী ১০ ডিসেম্বর বিএনপির সমাবেশসহ বিভিন্ন বিষয়ে। 

ঢাকাপ্রকাশ: আপনি দায়িত্ব নেওয়ার পর তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের অনেক ইতিবাচক পরিবর্তন এসেছে। কাজে গতি এসেছে। অনেক বিষয়ে অগ্রগতি হয়েছে। এ সম্পর্কে যদি আপনি কিছু বলেন।

ড. হাছান মাহমুদ: দেখুন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আমাকে তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব দেওয়ার পর আমি চেষ্টা করেছি আমার সমস্ত আন্তরিকতা দিয়ে মন্ত্রণালয়ের কাজে গতি আনার জন্য। একইসঙ্গে বহু বছরের ঝুলন্ত সমস্যাগুলো সমাধান করার জন্য। যেমন আমরা তিন দশক ধরে চেষ্টা করেছি বিটিভি ভারতবর্ষে প্রদর্শনের জন্য। কিন্তু সেই চেষ্টায় আমরা সফল হইনি। কিন্তু  প্রধানমন্ত্রী ২০১৯ সালের জানুয়ারি মাসে আমাকে দায়িত্ব দেওয়ার পর সেপ্টেম্বর মাস থেকে ভারতে বিটিভি ফ্রি ডিসের মাধ্যমে সেখানে প্রদর্শিত হচ্ছে। সমগ্র ভারতবর্ষে। একই সঙ্গে বাংলাদেশ বেতারও সেখানে শোনা যাচ্ছে।

আপনারা জানেন যে, আগে টেলিভিশনগুলোতে কোনো সিরিয়াল ছিল না। কোনটার পর কোনটা, সেটা এলাকা ভেদে একেক রকম হতো। মন্ত্রণালয় থেকে নির্দেশনা দেওয়ার পরও সেটা হয়নি। কিন্তু আমি কঠোর হস্তে এটি কার্যকর করেছি। যেমন এখন সম্প্রচারের তারিখ অর্থাৎ যেই টেলিভিশন যেই সময় সম্প্রচার হচ্ছে সে অনুযায়ী একটা ক্রম নির্ধারণ করে দেওয়া হয়েছে এবং সেই ক্রম অনুযায়ী সারা দেশে টেলিভিশনগুলো প্রদর্শিত হচ্ছে। সেই ক্রম আগে-পিছে করার জন্য ক্যাবল অপারেটরদের সঙ্গে অনেক ধরনের অনিয়ম করতে হতো টেলিভিশন মালিকদেরকে। সেটি এখন বন্ধ হয়েছে।

আপনারা জানেন যে, বাংলাদেশে বিদেশি চ্যানেলগুলো…দেশে আইন আছে। সেই আইন অনুযায়ী বাংলাদেশে কোনো বিদেশি চ্যানেল বিজ্ঞাপন প্রদর্শিত করতে পারে না। একই আইন ভারত, পাকিস্তানসহ অন্যান্য দেশে আছে, ইউরোপ, আমেরিকায় আছে। সেখানে বিদেশি চ্যানেলে কোনো রকম বিজ্ঞাপন প্রদর্শন করতে পারে না। আমাদের দেশে এই আইনকে বৃদ্ধাঙ্গুলি প্রদর্শন করা হচ্ছিল। আমরা গত বছর থেকে সে আইন কঠোরভাবে কার্যকর করেছি। এখন শুধুমাত্র সেই সমস্ত বিদেশি চ্যানেলই বাংলাদেশে সম্প্রচারিত হয় যারা বিজ্ঞাপনহীন ক্লিনফিড পাঠায়। এটা একটা বড় অগ্রগতি এবং এটি না করার জন্য বহু শক্তিশালী মহল এটার পিছনে যুক্ত ছিল। কিন্তু আমরা কোনো মহলের কাছে নতিস্বীকার করিনি। সেটি কার্যকর করা হয়েছে। একইসঙ্গে আমরা সম্প্রচার মাধ্যমকে ডিজিটালাইজড করার কাজ করছি। এরই মধ্যে বাংলাদেশ ডিজিটাইলাইজড হয়ে গেলেও বাংলাদেশের সম্প্রচার মাধ্যম ডিজিটালাইজড হয়নি। আমরা এটা নিয়ে কাজ করছি এবং বহুদূর এগিয়েছি। হাইকোর্টে একটা মামলা হওয়ার কারণে সেটা কিছুটা পিছিয়ে গেছে। আমরা আশা করছি সেই মামলাটা নিষ্পত্তি করে আমরা এটিও কার্যকর করতে সক্ষম হব।

এ ছাড়া, আপানার জানেন যে, আমাদের পিআইডি দীর্ঘদিন ধরে কাজ করছে। সেখানে আধুনিক যুগের সঙ্গে সমন্বয় করে যে কাজ সেটির জন্য পিআইডিকে সেভাবে ঢেলে সাজানো হয়নি। আমরা সেটিকে ঢেলে সাজানোর উদ্যোগ নিয়েছি। আপনারা দেখতে পাবেন যে, কিছুদিন পর পিআইডি আগের তুলনায় আরও অনেক বেশি কার্যকরিভাবে কাজ করছে। এখন আগের তুলনায় ভালো করছে।   

আরও নানা ধরনের পদক্ষেপ আমরা নিয়েছি। চলচ্চিত্র শিল্পী কল্যাণ ট্রাস্ট করেছি। সেটি চলচ্চিত্র শিল্পীদের বহু বছরের দাবি ছিল। কিন্তু কার্যকর হয়নি। সেটি আমরা করেছি। সংসদে আইন পাস হয়েছে। শিল্পী কল্যাণ ট্রাস্ট গঠিত হয়েছে। এই ট্রাস্টের মাধ্যমে টেলিভিশন শিল্পীরাও যাতে সেখান থেকে সহায়তা পেতে পারে সেই ব্যবস্থাও রাখা হয়েছে। এভাবে বহু কাজ করা হয়েছে। আমাদের পিআইবি থেকে শুরু করে অন্য যেসব প্রতিষ্ঠান আছে সেগুলোকে গতিশীল করা হয়েছে। আপনারা জানেন যে, আমাদের চলচ্চিত্র অনেকটা মুখ থুবড়ে পড়েছিল বলা যায়। আমাদের সিনেমা হলের সংখ্যা ১০০ তে নেমে এসেছিল। এখন সেখানে এই করোনা মহামারির মধ্যেও গত কয়েক মাসে আরও ২০০ এর বেশি সিনেমা হল চালু হয়েছে। আগামী ছয় মাস, এক বছরের মধ্যে আরও বহু সিনেমা হল চালু হবে। ইতিমধ্যে মধ্যবিত্তরা হলে ফিরে এসেছেন। বহু সিনেমা তারমধ্যে কিছু অনুদানের সিনেমা আছে। বহু সিনেমা বক্স অফিস হিট করেছে। মানুষ সিনেমা দেখতে যাচ্ছে। এটি বিরাট একটা পরিবর্তন। আমরা করতে পেরেছি। করোনা মহামারি না থাকলে আরও অনেক কিছু করা আমাদের পক্ষে সম্ভব হতো।

প্রশ্ন হচ্ছে এগুলো কীভাবে সম্ভব হলো? প্রথম হচ্ছে আপনি যখনই আমাকে কোনো কাজ দেন না কেন আমি সেটি মনপ্রাণ দিয়ে করার চেষ্টা করি। আমাকে যখন প্রধানমন্ত্রী পরিবেশ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব দিয়েছিলেন তখনো আমি আমার সমস্ত সততা ও আন্তরিকতা দিয়ে করার করার চেষ্টা করেছি। এখানেও আমি সেই চেষ্টা করে যাচ্ছি। প্রথমত কাজকে ভালোবাসতে হয়। কাজকে যদি ভালো না বাসে কেউ তাহলে পারফর্ম করতে পারে না। প্রধানমন্ত্রী আমাকে এ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব দেওয়ার পর প্রথমে আমি কাজকে ভালোবাসতে চেষ্টা করেছি এবং সেই অনুযায়ী কাজ করার চেষ্টা করে যাচ্ছি।

ঢাকাপ্রকাশ: অনলাইন গণমাধ্যম নিয়ে আপনার ভাবনা কী? দেশে এখন অনেক অনলাইন। যদিও অনলাইন অনুমোদন দেওয়ার বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন আছে। তারপরও দেখা যাচ্ছে ঘরে ঘরে অনলাইন। এসব অনলাইন অনেক সময় বুমেরাং হয়ে দেখা দেয়। দেখা গেল গুজব ছড়িয়ে দিচ্ছে, ভুয়া রিপোর্ট দিচ্ছে, ব্যক্তি বিশেষের বিরুদ্ধে মিথ্যাচার করছে। এ নিয়ে আপনাদের ভাবনা কী?

ড. হাছান মাহমুদ: দেশের অনলাইন গণমাধ্যমকে একটা সিস্টেমের মধ্যে নিয়ে আসার জন্য রেজিস্ট্রেশনের ব্যবস্থা করেছি। অনেকগুলো অনলাইনকে রেজিস্ট্রেশন দেওয়া হয়েছে, অনেকগুলো অনলাইনকে বন্ধও করা হয়েছে। অনলাইন রেজিস্ট্রেশন দেওয়া যেমন একটা চলমান প্রক্রিয়া। বন্ধ করাটাও একটা চলমান প্রক্রিয়া। কিন্তু যেভাবে ব্যাঙের ছাতার মতো অনলাইন, আসলে এত অনলাইনের তো প্রয়োজন নেই। অনেকেই অসৎ উদ্দেশে এ সমস্ত অনলাইন চালু করে এবং সেটার অফিস নেই ঠিকমত। ঘরের মধ্যে থেকে করে। আমরা সেগুলো আইডেন্টিফাই করার চেষ্টা করছি এবং আইডেন্টিফাই করার পর ব্যবস্থা নেওয়া হয়।

ঢাকাপ্রকাশ: ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন নিয়ে এখনো নানা আলোচনা-সমালোচনা অব্যাহত আছে। বিভিন্ন সভা-সেমিনারেও আলোচনা-সমালোচনা হচ্ছে। এটি সংশোধন, পরিবর্তন, পরিমার্জনের কোনো চিন্তাভাবনা কি সরকারের আছে?

ড. হাছান মাহমুদ: দেখুন ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনটি হচ্ছে বাংলাদেশের মানুষকে ডিজিটাল সিকিরিউটি দেওয়ার জন্য। এটি একজন সাংবাদিককে সিকিউরিটি দেওয়ার জন্য, একজন গৃহিণীকে ডিজিটাল নিরাপত্তা দেওয়ার জন্য। একজন চাকরিজীবীকে, কৃষককে, একজন ছাত্রকে, একজন মহিলাকে, একজন তরুণীকে ডিজিটাল নিরাপত্তা দেওয়ার জন্যই ডিজিটাল সিকিউরিটি অ্যাক্ট। এই আইনের সাহায্য নিয়ে বহু সাংবাদিকও মামলা করেছেন এবং প্রতিকার পেয়েছেন। এই আইনের সাহায্য নিয়ে বহু সাধারণ মানুষ মামলা করেছেন। এটি কোনো বিশেষ ব্যক্তি-গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে নয়। সাধারণ মানুষের কল্যাণের জন্য এ আইন।  

দেশ যখন ডিজিটাল ছিল না, তখন এই আইনেরও কোনো প্রয়োজন ছিল না। দেশ যখন ডিজিটাল হয়ে গেছে সুতরাং তখন ডিজিটাল নিরাপত্তা দিতে হবে। ডিজিটালি যখন কোনো গুজব ছড়ানো হয় সেটির বিরুদ্ধে কোনো আইনে ব্যবস্থা নেওয়া হবে? সেটির জন্য তো একটা আইন দরকার। সেই আইনটিই হচ্ছে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন। যখন একজন মানুষের চরিত্র হনন করা হয় অনলাইন বা স্যোশাল মিডিয়াতে তখন এর বিরুদ্ধে কীভাবে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। সেজন্য তো একটা আইন দরকার। সে জন্যই ডিজিটাল সিকিউরিটি আইন।

একজন মহিলার বিরুদ্ধে চরিত্র হননমূলক অপপ্রচার চালানো হয়, একজন সাধারণ মানুষের বিরুদ্ধে নানা ধরনের  অপপ্রচার চালানো হয়, একজন জীবন্ত মানুষকে স্যোশাল মিডিয়ায় মেরে ফেলা হয়, গুজব রটানো হয়। সেগুলোর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য তো একটা আইন দরকার। সেই আইনটিই হচ্ছে ডিজিটাল সিকিউরিটি অ্যাক্ট। তো এ আইন সবার জন্য। এই আইনের যাতে অপব্যবহার না হয়, এ আইন দ্বারা যাতে সাংবাদিকদের কোনোরকম হয়রানি না করা হয় সে নিয়েও আমরা সচেষ্ট আছি। এখন দেখতে পাচ্ছেন নিশ্চয়ই সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে সহজেই ডিজিটাল সিকিউরিটি অ্যাক্টে মামলা করা যায় না।

ঢাকাপ্রকাশ: আগামী ১০ ডিসেম্বর বিএনপি ঢাকাতে একটা সমাবেশের ডাক দিয়েছে। এর মধ্যে তারা দেশের সকল বিভাগীয় শহরে সমাবেশ করছে এবং করেছে। তারা বলছে যে, আগামী ১০ ডিসেম্বর চূড়ান্তভাবে সরকার পতনের কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে। সরকারের তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক হিসেবে বিষযটিকে আপনি কীভাবে দেখেন?

ড. হাছান মাহমুদ: দেখুন নির্বাচন ঘনিয়ে এসেছে তো। বিএনপি মুখে যাই বলুক তারা নির্বাচনে যাবেন, তারা দলকে চাঙ্গা করার জন্য এগুলো করছে। তারা চট্টগ্রামে সমাবেশের ডাক দিয়ে বলেছিল ১০ লাখ মানুষের সমাবেশ করবে। সেখানে এক লাখ পুরাতে পারে নাই। সুতরাং ঢাকা শহরে কী হবে সেটা আমরা বুঝি। খালি কলসি বাজার মতো বাজছে। বা বর্ষাকালে ব্যাঙ ডাকার মতো। বর্ষাকালের ব্যাঙ কিন্তু খুব ছোট, আওয়াজটা অনেক বড়। তো ওদের আওয়াজ হচ্ছে খালি কলসি বেশি বাজার মতো আর বর্ষাকালে ব্যাঙের ডাকার মতো।

ঢাকাপ্রকাশ: বিরোধী দল যদি আন্দোলনের যায়, আন্দোলন সংগ্রামের মাধ্যমে সরকার পতনের দিকে যায়, সেক্ষেত্রে সরকারের ভাবনাটা কী? তাদের কীভাবে মোকবাবিলা করবেন? আর রাজনৈতিক দল হিসেবেও আওয়ামী লীগ কীভাবে মোকাবিলা করবে?

ড. হাছান মাহমুদ: দেখুন, উনারা তো আন্দোলনে আছেন। ২০১৩,১৪ ও ১৫ সালে উনাদের আন্দোলনের নমুনা দেখেছি। উনারা সবসময় আন্দোলনে আছেন। উনাদের মোকাবিলা করেই এগিয়ে যাচ্ছি। দেশের জনগণ আমাদেরকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে তিনবার সরকার গঠন করার সুযোগ করে দিয়েছে। তো উনাদের এবারকার আন্দোলনে আমাদের একটা লাভ হয়েছে। এবারকার আন্দোলনের প্রেক্ষিতে, উনারা সাম্প্রতিক যে সমাবেশগুলো করছে এতে দেখতে পাচ্ছেন আমাদের সমাবেশগুলোও আগের চেয়ে অনেক বড় হচ্ছে। আমাদের কর্মীরাও চাঙ্গা হয়েছেন। এটুকু লাভ আমাদের হয়েছে।

ঢাকাপ্রকাশ: গত দুটি জাতীয় নির্বাচন নিয়ে নানাপ্রশ্ন আছে দেশের ভেতরে-বাইরে। বিএনপি ইতিমধ্যে বিদেশিদের দারস্থ হয়েছে। বিদেশি কূটনীতিকরাও বিভিন্ন অনুষ্ঠানে গিয়ে আগামী নির্বাচন নিয়ে নানা কথা বলছেন এবং তারা বলছেন, একটা সুষ্ঠু, গ্রহণযোগ্য, সব দলের অংশগ্রহণে একটা নির্বাচন চান তারা। বিষয়টি বিশেষ করে বিদেশি কূটনীতিকদের বাংলাদেশের রাজনীতি নিয়ে নাক গলানোর বিষয়টিকে কীভাবে দেখছেন?

ড. হাছান মাহমুদ: প্রথমত কূটনৈতিক শিষ্টাচার বলে একটা কথা আছে। তো আমরা সব সময় বলে আসছি কূটনৈতিক শিষ্টাচার বিদেশি রাষ্ট্রদূতদের বা বিদেশি দূতাবাসের যারা বাংলাদেশে পোস্টিং নিয়ে আসেন তাদের এটি অনুসরণ করা উচিত। কিন্তু বিষয়টা হচ্ছে তাদের চেয়েও বেশি দোষী হচ্ছে বিএনপি। বিদেশি কূটনীতিকরা এই নাক গলানোর সুযোগ কখনোই পেত না যদি বিএনপি বা অন্যান্য দল গিয়ে কূটনীতিকদের দুয়ারে ধরনা না দিত। বিএনপি তো জনগণের কাছে না গিয়ে বিদেশি কূটনীতিকদের কাছেই বেশি যায়। যে কারণে বিদেশি কূটনীতিকদের তারা উৎসাহিত করে। উদ্বুদ্ধ করে এ বিষয়ে কিছু বলার জন্য, কিংবা নাক গলানোর জন্য। তবে কূটনৈতিক শিষ্টাচার লঙ্ঘন করে কারও কিছু করা উচিত নয়।

ঢাকাপ্রকাশ: আগামী ডিসেম্বরে আওয়ামী লীগের জাতীয় কাউন্সিল। এই কাউন্সিলে আওয়ামী লীগে নতুন নেতৃত্ব বিশেষ সাধারণ সম্পাদক পদে কোনো পরিবর্তন আসার সম্ভাবনা কি আছে?

ড. হাছান মাহমুদ: দেখুন সেটা প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনাই নির্ধারণ করবেন। কাউন্সিলারদের মতামতের প্রেক্ষিতে প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতি জননেত্রী শেখ হাসিনাই এ বিঢয়টি ঠিক করবেন। এ বিষয়ে আমি কিছু বলতে পারব না।

ঢাকাপ্রকাশ: জাতীয় নির্বাচনের আর মাত্র এক বছর বাকি। দেশে প্রিন্ট, ইলেকট্রনিক ও অনলাইনসহ প্রচুর গণমাধ্যম রয়েছে। নির্বাচনকে সামনে রেখে গণমাধ্যমের প্রতি আপনার কোনো পরামর্শ…

ড. হাছান মাহমুদ: প্রথমত হচ্ছে গণমাধ্যম সমাজের দর্পণ। আমি গণমাধ্যমে কাছে যেটি প্রত্যাশা করব, অনেক সময় দেখা যায় যে কিছু কিছু গণমাধ্যম, কিছু কিছু পত্রিকা এবং দু’একটি টেলিভিশনে বিরোধী দলের ছোট সমাবেশকে বড় করে দেখানোর একটা টেনডেন্সি আছে। আবার সরকারি দলের, আওয়ামী লীগের বড় সমাবেশকে ঠিক সেভাবে কভারেজ দেওয়া হয় না। এগুলো কিন্তু সঠিক নয়। এভাবে করা সমীচীন নয়। সাদাকে সাদা বলতে হবে, কালোকে কালো বলতে হবে। যেই সমাবেশ যতটুকু প্রচার পাওয়া দরকার ততটুকু প্রচার দিতে হবে। আবার কিছু কিছু গণমাধ্যম দেখা যায় যে রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত হয়ে যায়। গণমাধ্যম রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত হওয়া সমীচীন নয়।

আমি গণমাধ্যমের কাছে সবিনয়ে যেটি নিবেদন রাখব সেটি হচ্ছে গণমাধ্যম সমাজের দর্পণ হিসেবে কাজ করবে। সরকারি দল হোক আর বিরোধী দল হোক যেটুকু প্রচার পাওয়া দরকার সেটিই করবে। সেখানে কাউকে ফুলিয়ে ফাঁফিয়ে দেখানোর টেনডেন্সিটা পরিহার করুন। একইসঙ্গে কোনো নেতিবাচক খবর থাকলে কোনো কোনো গণমাধ্যমে সেটি ফলাও করে প্রচার হয়। কিন্তু ইতিবাচক সংবাদটা সেভাবে প্রচার পায় না। এটিও ঠিক নয়। অবশ্যই নেতিবাচক সংবাদ পরিবেশিত হবে। একইসঙ্গে জাতির যে অর্জন, আজকে দেশটা যে বদলে গেল, স্বল্প উন্নত দেশ থেকে মধ্যম আয়ের দেশ হলো এবং দেশ খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ হলো, আজকে পৃথিবী যে দেশের প্রশংসা করছে সে বিষয়গুলো গণমাধ্যমে প্রচার হওয়া দরকার। আমরা যখন মাথাপিছু আয়ে ভারতকে ছাড়িয়ে গেলাম তখন ভারতের পত্রপত্রিকায় যেভাবে প্রচার পেয়েছে, যেভাবে শোরগোল হয়েছে আমাদের দেশে সেভাবে হয়নি। যেটি আমাকে খুব অবাক করেছে।

ঢাকাপ্রকাশ: দীর্ঘ সময় দেওয়ার জন্য ঢাকাপ্রকাশ-এর পক্ষ থেকে আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ।

ড. হাছান মাহমুদ: ঢাকাপ্রকাশ-কেও ধন্যবাদ।

এমএমএ/
 

Header Ad

পরিচয় জানা গেল ৪০০ কোটি টাকার মালিক সেই পিয়নের

জাহাঙ্গীর আলম। ছবি: সংগৃহীত

চীন সফর নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে নিজের বাসার পিয়ন ৪০০ কোটি টাকার মালিক হয়েছেন বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আর তারপর থেকেই এ নিয়ে শুরু হয়েছে নানা জল্পনা-কল্পনা। কে সেই পিয়ন, কি তার পরিচয়। সকল মহলে এখন এই পিয়ন চর্চার কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হয়েছে। অবশেষে তার পরিচয় মিলেছে।

প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে তার পরিচয় নিয়ে কোনো ইঙ্গিত দেওয়া না হলেও প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের একাধিক সূত্র দাবি করছে, সেই পিয়নের নাম জাহাঙ্গীর আলম। তাকে নিয়ে দ্বাদশ জাতীয় নির্বাচনের আগে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে বিশেষ বিজ্ঞপ্তি দেওয়া হয়েছিল। তার বিষয়ে সবাইকে সতর্ক থেকে আইন প্রয়োগকারী সংস্থার সহায়তা নেওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়েছিল।

জাহাঙ্গীর আলম প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত কর্মচারী হিসেবে একসময় কর্মরত ছিলেন। ২০০৯ সাল থেকে ২০১৮ সালের দুই মেয়াদের পুরোটা সময় এবং প্রধানমন্ত্রীর টানা তৃতীয় মেয়াদেরও কিছু সময় ছিলেন।

প্রধানমন্ত্রীর ব্যাগ বহন করতেন, প্রধানমন্ত্রীর খাবার সামনে এগিয়ে দিতেন এবং অন্যান্য ফাই-ফরমাশ খাটতেন। আওয়ামী লীগ সভাপতি যখন বিরোধী দলে তখন থেকেই জাহাঙ্গীর প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ছিলেন। প্রধানমন্ত্রী ঢাকার বাইরে যখন বিভিন্ন রাজনৈতিক সভায় যেতেন সেখানেও জাহাঙ্গীরকে দেখা যেত। আস্তে আস্তে জাহাঙ্গীরের একটি রাজনৈতিক বলয় তৈরি হয়ে যায়।

জাহাঙ্গীরের বাড়ি নোয়াখালীর চাটখিলে। সেই সময় তার আমন্ত্রণে সরকারের অনেক প্রভাবশালী মন্ত্রী হেলিকপ্টারে করে নোয়াখালীর চাটখিলে বিভিন্ন কর্মসূচিতে গিয়েছিলেন। যার কিছু ছিল জাহাঙ্গীরের ব্যক্তিগত আয়োজনের অনুষ্ঠানে। একই সময়ে প্রধানমন্ত্রীর আরেক পিয়ন আবদুল মান্নানকেও চাকরিচ্যুত করা হয়েছিল। তবে তার বিরুদ্ধে হেলিকপ্টার ব্যবহারের কোনো সংবাদ পাওয়া যায়নি।

গণভবনে থাকার সময় তিনি আওয়ামী লীগ নেতাদের চেয়েও ক্ষমতাবান হয়ে উঠেছিলেন। আওয়ামী লীগের কিছু কিছু ব্যক্তি প্রধানমন্ত্রীর ঘনিষ্ঠ, গণভবনে থাকেন, তাকে বলে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করা যায় ইত্যাদি ভ্রান্ত ধারণার বশবর্তী হয়ে জাহাঙ্গীরের প্রতি আলাদা ‘সমীহ’ দেখাতে শুরু করেন। তাদের কেউ কেউ জাহাঙ্গীরকে ‘স্যার’ ডেকেছেন বলেও শোনা যায়। এমনকি, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতাও জাহাঙ্গীরের কাছে তদবির করতেন। এই জাহাঙ্গীর গণভবনে থেকে বিভিন্ন ঊর্ধ্বতন সরকারি কর্মকর্তাকে প্রধানমন্ত্রীর নাম ভাঙিয়ে বিভিন্ন তদবির করতেন। এভাবে আস্তে আস্তে বিত্তশালী হয়ে ওঠেন এই কাজের লোক। পরবর্তীতে অবশ্য গণভবন থেকে রেবিয়ে যাওয়ার পর এখন তাকে রাজনীতিতে দেখা যায় না।

তবে জাহাঙ্গীর আলম প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত কর্মচারী হলেও তিনি নিজের পরিচয় দিতেন প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত বিশেষ সহকারী। এই পরিচয় ব্যবহার করে নিয়মিত সচিবালয়ে তদবির বাণিজ্য করতেন। একই সঙ্গে আওয়ামী লীগের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাদের কাছে নানান তদবির করে অর্থ হাতিয়ে নিয়েছেন। একই পরিচয় ব্যবহার করে তিনি নোয়াখালী জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি পদও বাগিয়ে নিয়েছিলেন। নোয়াখালী-১ সংসদীয় আসনে নিজের একটি রাজনৈতিক ব্লকও তৈরি করেছেন।

প্রধানমন্ত্রীর সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্যের পর দুর্নীতি দমন কমিশনের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে দুদকের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা বলেছেন যে, বিষয়টি সম্পর্কে তারা অবহিত এবং জাহাঙ্গীরের ব্যাপারে ইতোমধ্যে তদন্ত শুরু হয়েছে। খুব শিগগিরই তার সম্পদ জব্দের প্রক্রিয়া শুরু হবে। তবে জাহাঙ্গীর এখন দেশের বাইরে অবস্থান করছেন বলে জানা গেছে।

এ বিষয়ে জাহাঙ্গীর আলমের কাছে জানতে চাইলে তিনি গণমাধ্যমকে বলেন, প্রধানমন্ত্রী কি কারও নাম বলেছেন? তিনি ড্রাইভারের (সৈয়দ আবেদ আলী) কথা বলতে গিয়ে এ কথা বলেছেন।

প্রধানমন্ত্রী তো পিয়ন বলেছেন। সে সময় দুজন পিয়ন চাকরিচ্যুত হয়েছিলেন। এর মধ্যে একজন আপনি, আরেকজন আবদুল মান্নান। কিন্তু সংশ্লিষ্ট সূত্র বলছে, সেই পিয়ন আপনি। এ বিষয়ে জাহাঙ্গীর আলম বলেন, আমি এটা জানি না। আমি কইতে পারব না।

প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য শুনেছেন কি না— জানতে চাইলে তিনি গণমাধ্যমকে বলেন, না না, আমি তো শুনি নাই। এইমাত্র আপনার কাছে শুনলাম।

চতুর্থবারের মতো নেপালের নতুন প্রধানমন্ত্রী হলেন কেপি শর্মা অলি

নেপালের নতুন প্রধানমন্ত্রী কেপি শর্মা অলি। ছবি: সংগৃহীত

মাওবাদী নেতা পুষ্পকমল দাহাল ওরফে প্রচণ্ড আস্থাভোটে হেরে যাওয়ার পর নেপালে নতুন সরকার গঠন করা হয়েছে। এ সরকারের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নিযুক্ত হয়েছেন দেশটির তিনবারের প্রধানমন্ত্রী কে পি শর্মা অলি।

কাঠমান্ডু পোস্ট জানিয়েছে, দেশটির প্রেসিডেন্ট রামচন্দ্র পাউডেল তাকে চতুর্থবারের মতো প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নিয়োগ দিয়েছেন। সোমবার নতুন মন্ত্রিসভার সঙ্গে অলিও শপথ নেবেন।

দেশটির রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতা ও কঠিন চ্যালেঞ্জের মুখে তিনি প্রধানমন্ত্রী নিযুক্ত হলেন। ‘চীনপন্থী’ অলি কমিউনিস্ট পার্টি অব নেপাল (ইউনিফায়েড মার্কসিস্ট লেনিনিস্ট)-এর প্রধান। শের বাহাদুর দেউবার নেতৃত্বাধীন নেপালী কংগ্রেসের সমর্থন নিয়ে তিনি ফের কাঠমান্ডুর কুর্সিতে ফিরলেন।

পুষ্প কমল দাহাল শুক্রবার হাউস অব রিপ্রেজেন্টেটিভসে আস্থা ভোটে হেরে যান। ফলে দেশটির সংবিধানের ৭৬ (২) অনুচ্ছেদ অনুসারে নতুন সরকার গঠনের প্রক্রিয়া শুরু হয়। নেপালী কংগ্রেসের ৮৮ জন, ইউএমএল-এর ৭৮ জনসহ ১৬৬ জন আইন প্রণেতার সমর্থনের পর প্রেসিডেন্ট পাউডেল অলিকে সংবিধানের ৭৬(২) অনুচ্ছেদ অনুসারে নিয়োগ দেন।

৭২ বছর বয়সী কে পি শর্মা অলি এর আগে ২০১৫ সালের ১১ অক্টোবর থেকে ২০১৬ সালের ৩ আগস্ট পর্যন্ত, ২০১৮ সালের ৫ ফেব্রুয়ারি থেকে ২০২১ সালের মে মাস ও ২০২১ সালের মে মাস থেকে ১৩ জুলাই পর্যন্ত নেপালের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। সূত্র: দ্য কাঠমুন্ডু পোস্ট

দেশে বিবাহিত বেশি রাজশাহীতে, অবিবাহিত সিলেটে

প্রতীকী ছবি। ছবি: সংগৃহীত

দেশের মোট জনগোষ্ঠীর ৬৫ শতাংশ মানুষ বিবাহিত। এর মধ্যে বিবাহিতের হার সর্বোচ্চ ৬৯ শতাংশ রাজশাহী বিভাগে। অন্যদিকে এ জনগোষ্ঠীর হার সর্বনিম্ন ৫৫ শতাংশ সিলেট বিভাগে।

বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) আর্থ-সামাজিক ও জনমিতিক জরিপ-২০২৩’র বৈবাহিক অবস্থা বিশ্লেষণ করে এ তথ্য পাওয়া গেছে। গত বছরের ২১ মে থেকে ২২ জুন পর্যন্ত দেশের ১২ হাজারেরও বেশি এলাকার প্রায় দুই লাখ ৯৯ হাজার পরিবারের ওপর এই জরিপ চালানো হয়।

বিবিএসের প্রতিবেদন অনুযায়ী, অবিবাহিত পুরুষের হার সবচেয়ে বেশি সিলেট বিভাগে, প্রায় ৪৫ শতাংশ। অপরদিকে রাজশাহী বিভাগে অবিবাহিত পুরুষ সবচেয়ে কম, ৩১ শতাংশ। পাশাপাশি সিলেট বিভাগে অবিবাহিত নারী সবচেয়ে বেশি, প্রায় ৩২ শতাংশ। অন্যদিকে, রাজশাহীতে এ হার সবচেয়ে কম, ১৮ শতাংশ।

প্রতিবেদন বলছে, নারীর চেয়ে পুরুষের একাধিক বিয়ের হারও বেশি। এর মধ্যে প্রায় ৪ শতাংশ পুরুষ একবারের বেশি বিয়ে করেছেন। বিপরীতে ১ শতাংশের বেশি নারী একবারের বেশি বিয়ে করেছেন। পাশাপাশি বিপত্নীক হিসেবে ১ শতাংশের কিছু বেশি পুরুষ একা জীবনযাপন করছেন। অন্যদিকে, প্রায় ৯ শতাংশ নারী বিধবা হিসেবে জীবনযাপন করছেন।

বৈবাহিক অবস্থা বিশ্লেষণ করে জরিপে বলা হয়েছে, বর্তমানে দেশের মোট জনগোষ্ঠীর ৬৫ শতাংশ বিবাহিত। এর মধ্যে রাজশাহী বিভাগে বিবাহিতের হার সর্বোচ্চ ৬৯ শতাংশ। অন্যদিকে, সিলেট বিভাগে বিবাহিত জনগোষ্ঠীর হার সর্বনিম্ন ৫৫ শতাংশ।

বিবিএস প্রতিবেদনে দেখা যায়, স্বাধীনতার পর ১৯৭৪ সালে অনুষ্ঠিত প্রথম শুমারিতে দেশের জনসংখ্যা ছিল ৭ কোটি ১৫ লাখ। এরপর ১৯৮১ সালে জনশুমারি অনুষ্ঠিত হয়। ওই সময় মোট জনসংখ্যা বেড়ে দাঁড়ায় ৮ কোটি ৭১ লাখ ১৯ হাজার ৯৬৫ জনে। ১৯৯১ সালে দেশে মোট জনসংখ্যা বেড়ে দাঁড়ায় ১০ কোটি ৬৩ লাখে।

সর্বশেষ সংবাদ

পরিচয় জানা গেল ৪০০ কোটি টাকার মালিক সেই পিয়নের
চতুর্থবারের মতো নেপালের নতুন প্রধানমন্ত্রী হলেন কেপি শর্মা অলি
দেশে বিবাহিত বেশি রাজশাহীতে, অবিবাহিত সিলেটে
শাহরুখ খানসহ ২৫ বরযাত্রীকে ২ কোটি টাকার ঘড়ি উপহার দিলেন অনন্ত
কোটা সংস্কারসহ এক দফা দাবিতে টাঙ্গাইলে শিক্ষার্থীদের অবস্থান ও স্মারকলিপি প্রদান
‘বাংলা‌দেশ থে‌কে ৩ হাজার কর্মী নে‌বে ইতালি, জার্মানি, গ্রিস ও রোমানিয়া’
২০২৪ কোপা আমেরিকা ও ইউরোর প্রাইজমানি কত?
আমার পিয়নের কাজ করেছে, সেও ৪০০ কোটি টাকার মালিক: প্রধানমন্ত্রী
মেয়ের বিয়ের ‌‘যৌতুক’ হিসেবে বিসিএস’র প্রশ্নপত্র দেন পিএসসির সাবেক মেম্বার!
বিরামপুরে চালকলে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে একজনের মৃত্যু
পার্লারের আড়ালে অনৈতিক কর্মকাণ্ড, মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশিসহ আটক ৫৬
রেলওয়ের ৪০ শতাংশ পোষ্য কোটা কেন অবৈধ নয়: হাইকোর্ট
২ বিলিয়ন ডলারের সমপরিমাণ অর্থ দেবে চীন: প্রধানমন্ত্রী
রাষ্ট্রপতির কাছে স্মারকলিপি জমা দিলেন কোটাবিরোধী শিক্ষার্থীরা
ট্রাম্পের ওপর হামলায় উদ্বেগ ও নিন্দা জানিয়েছে বাংলাদেশ: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
যে কারণে আম্বানিপুত্রের বিয়েতে যাননি আমির-অক্ষয়-কারিনা-বিরাটরা
আনুষ্ঠানিক বিদায়ে ডি মারিয়াকে বিশেষ জার্সি উপহার
৭ অঞ্চলে সন্ধ্যার মধ্যে ঝড়ের আভাস, বাড়বে তাপমাত্রা
বিশ্ববিদ্যালয়ের জাল সার্টিফিকেট তৈরির মূলহোতা গ্রেপ্তার
ট্রাম্পকে হত্যাচেষ্টাকারী ২০ বছর বয়সি কে এই বন্দুকধারী?