এক-পঞ্চমাংশ করোনা রোগীর ‘মানসিক সমস্যা তৈরি হয়’

১১ নভেম্বর ২০২০, ০৭:৫৩ এএম | আপডেট: ২৩ নভেম্বর ২০২০, ০৫:১৩ পিএম


এক-পঞ্চমাংশ করোনা রোগীর ‘মানসিক সমস্যা তৈরি হয়’
ছবি সংগৃহীত

কোভিড-১৯-এ আক্রান্ত হওয়ার পর বেঁচে যাওয়া রোগীদের একটি অংশ মানসিক অসুস্থতার ঝুঁকিতে আছেন বলে জানিয়েছেন মনোরোগ বিশেষজ্ঞরা। আক্রান্তদের ২০ শতাংশের ৯০ দিনের মধ্যেই মানসিক সমস্যা দেখা যাচ্ছে বলে এক গবেষণায় উঠে এসেছে। সম্প্রতি ল্যানসেটের সাইকিয়াট্রি জার্নালে গবেষণাপত্রটি প্রকাশিত হয়।

এদিকে করোনার টিকা নিয়ে সুখবর দিয়েছে মার্কিন কোম্পানি ফাইজার ও জার্মান কোম্পানি বায়োএনটেক। নতুন টিকা দিয়ে কোভিড-১৯ থেকে ৯০ শতাংশ পর্যন্ত সুরক্ষার দাবি করেছে উৎপাদনকারী দুটি প্রতিষ্ঠান। তবে এই টিকার দাবি নিয়ে ফাইজার ও ডেমোক্র্যাটদের ওপর চটেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। অপরদিকে চীনের সিনোভ্যাকের তৈরি করোনাভাইরাসের টিকার ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল স্থগিত ঘোষণা করেছে ব্রাজিল।

ল্যানসেটের গবেষণা : এটি তৈরিতে ৬২ হাজারের বেশি কোভিড-১৯ রোগীসহ যুক্তরাষ্ট্রের ৬ কোটি ৯০ লাখ মানুষের স্বাস্থ্য সংক্রান্ত তথ্য পর্যালোচনা করা হয়েছে। গবেষণায় বলা হয়: সুস্থ হয়ে ওঠা কোভিড-১৯ রোগীদের বেশিরভাগের মধ্যেই উদ্বেগ, অনিদ্রা ও হতাশা দেখা যায়; যা পরবর্তী সময়ে মানসিক স্বাস্থ্য সমস্যাও সৃষ্টি করে। করোনাভাইরাসে আক্রান্ত বিপুলসংখ্যক রোগীর ডিমেনশিয়া বা স্মৃতিভ্রংশ হওয়ার ঝুঁকিও প্রবল বলে দেখেছেন গবেষকরা।

যুক্তরাজ্যের অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের সাইকিয়াট্রির অধ্যাপক পল হ্যারিসন বলেছেন, ‘কোভিড-১৯ থেকে সুস্থ হয়ে ওঠা ব্যক্তিরা মানসিক সমস্যার ভয়াবহ ঝুঁকিতে আছেন বলে অনেকে মনে করেন, আমাদের গবেষণায়ও একই আশঙ্কা উঠে এসেছে।’

গবেষণায় দেখা গেছে, কোভিড-১৯ শনাক্ত হওয়ার তিন মাসের মধ্যেই প্রতি ৫ রোগীর একজনের মধ্যে প্রথমবারের মতো উদ্বেগ, হতাশা বা অনিদ্রা দেখা দেয়। এই হার অন্য রোগে আক্রান্তদের ক্ষেত্রে একই সময়ে এ ধরনের সমস্যায় পড়ার হারের প্রায় দ্বিগুণ। যারা আগে থেকেই মানসিক রোগে ভুগছিলেন তাদের ক্ষেত্রে কোভিড-১৯-এ আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা অন্যদের তুলনায় ৬৫ শতাংশ বেশি বলেও এই গবেষণায় উঠে এসেছে।

ফাইজার ও ডেমোক্র্যাটদের ওপর চড়াও ট্রাম্প : মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প অভিযোগ করেছেন, দেশটির খাদ্য ও ঔষধ প্রশাসন (এফডিএ) এবং ওষুধ কোম্পানি ফাইজার ইচ্ছাকৃতভাবে করোনাভাইরাসের টিকার অগ্রগতিবিষয়ক ঘোষণাটি এতদিন আটকে রেখেছিল। ট্রাম্প এক টুইটে এ অভিযোগ করেন।

করোনাভাইরাসের টিকার অগ্রগতি বিষয়ে মার্কিন ওষুধ কোম্পানি ফাইজার এক ঘোষণায় জানায়, তাদের টিকা করোনাভাইরাস থেকে ৯০ শতাংশ পর্যন্ত সুরক্ষা দিতে পারে। ট্রাম্পের অভিযোগ, এফডিএ ও ডেমোক্র্যাটরা চায়নি যে মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের আগে একটি টিকা আসুক। তাই নির্বাচনের পাঁচ দিন পর টিকার অগ্রগতির ঘোষণাটি এসেছে।

ট্রাম্প বলেন, ‘আমি অনেক আগেই বলেছিলাম, ফাইজার ও অন্যরা টিকার বিষয়ে নির্বাচনের পর ঘোষণা দেবে। কারণ, এই ঘোষণা দেয়ার সাহস তাদের নেই। তেমনি, এফডিএরও রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে নয়; বরং জীবন বাঁচাতে আগেই ঘোষণা দেয়া উচিত ছিল।’

তবে করোনাভাইরাসের টিকার অগ্রগতি বিষয়ে ফাইজারের ঘোষণার প্রশংসা করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। তিনি বলেছেন, এফডিএ কঠোর পর্যালোচনা করে টিকা অনুমোদনের প্রক্রিয়া পরিচালনা করবে বলে তার আশা।

ফাইজারের টিকা রাখতে হবে মাইনাস ৭০ ডিগ্রি তাপমাত্রায় : করোনার টিকা ৯০ শতাংশ পর্যন্ত সুরক্ষার দাবির পর এটি সরবরাহের জন্য কার্যক্রম জোরদার করছে মার্কিন কোম্পানি ফাইজার ও জার্মান কোম্পানি বায়োএনটেক। কিন্তু এই টিকার ক্ষেত্রে সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ এখন এর সংরক্ষণের বিষয়টি। ফাইজারের টিকা তৈরিতে এমআরএনএ-র মতো যে নতুন প্রযুক্তি ব্যবহার করা হচ্ছে, তা ভাইরাসের বিরুদ্ধে মানুষের প্রতিরোধী শক্তিকে সক্রিয় করে। টিকাটি সংরক্ষণে মাইনাস ৭০ ডিগ্রি সেলসিয়াস (মাইনাস ৯৪ ডিগ্রি ফারেনহাইট) তাপমাত্রার প্রয়োজন পড়ে।

যুক্তরাষ্ট্রের ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানি ‘ফাইজার’ বলেছে, তারা এ বছরের মধ্যে পাঁচ কোটি ডোজ এবং ২০২১ সালের শেষ নাগাদ ১৩০ কোটি ডোজ টিকা সরবরাহ করতে পারবে।

চীনের টিকার পরীক্ষা স্থগিত করল ব্রাজিল : চীনের সিনোভ্যাকের তৈরি করোনাভাইরাসের টিকার ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল স্থগিত ঘোষণা করেছে ব্রাজিল। কোনো ‘বিরূপ ঘটনার’ কারণেই এ ট্রায়াল স্থগিত করা হয়েছে বলে জানায় দেশটির স্বাস্থ্য সংক্রান্ত নিয়ন্ত্রক সংস্থা। তবে সেই ‘বিরূপ ঘটনাটি’ আসলে কী, তা বিশদে বলা হয়নি সরকারের পক্ষ থেকে।

ব্রাজিলে চীনের টিকার পরীক্ষার নিয়ন্ত্রণকারী প্রতিষ্ঠান অ্যানভিসা জানায়, করোনাভ্যাক টিকার ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল স্থগিত করা হয়েছে গত ২৯ অক্টোবর ঘটা এক বিরূপ ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে। সিনোভ্যাকের টিকার নাম করোনাভ্যাক। প্রতিষ্ঠানটি জানায়, টিকা ট্রায়ালের সময় মেনে চলা গোপনীয়তার কারণে এর চেয়ে বেশি কিছু তারা বলবে না।

তবে টিকার ট্রায়াল সাধারণত স্থগিত হয় যখন টিকা গ্রহণকারী কেউ গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়ে, ব্যাপক পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দেয় বা কারও মৃত্যু হয়। অ্যানভিসা এ ঘটনার কারণ খতিয়ে দেখতে জোর অনুসন্ধান করছে।

রাশিয়ার দাবি তাদের টিকা ৯০ শতাংশের বেশি কার্যকর : ফাইজারের পর এবার রাশিয়াও দাবি করেছে তাদের তৈরি করোনা ভ্যাকসিন ‘স্পুটনিক ফাইভ’ ৯০ শতাংশের বেশি কার্যকর। মার্কিন ওষুধ কোম্পানি ফাইজারের ঘোষণার পরেই রাশিয়ার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের এক প্রতিনিধি দাবি করেন, করোনাপ্রতিরোধী তাদের ভ্যাকসিনও ৯০ শতাংশের বেশি কার্যকর। রাশিয়ার ওই প্রতিনিধি জানান, কোনো ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের ওপর নির্ভর করে এই তথ্য দিচ্ছি না। রাশিয়ায় যেসব নাগরিককে ইতোমধ্যে ভ্যাকসিন দেয়া হয়েছে, তাদের রিপোর্টের ভিত্তিতেই এ তথ্য।

বিশ্বে করোনায় মারা গেছে পৌনে ১৩ লাখ : করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা প্রতিদিনই বাড়ছে। এখন পর্যন্ত সারা বিশ্বে আক্রান্ত হয়েছেন ৫ কোটি ১২ লাখ ৫৭ হাজার জন। মারা গেছেন ১২ লাখ ৭০ হাজার। জনস হপকিনস ইউনিভার্সিটির করোনাভাইরাস রিসোর্স সেন্টার মঙ্গলবার এ তথ্য জানিয়েছে। তাদের তথ্যানুযায়ী, করোনায় এখন পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি মানুষ আক্রান্ত হয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রে। দেশটিতে আক্রান্তের সংখ্যা ১ কোটি ১ লাখ ৭ হাজার ৫৬৮ জন। মারা গেছেন ২ লাখ ৩৮ হাজার ২৩৫ জন। যুক্তরাষ্ট্রের পর সবচেয়ে বেশি ৮৫ লাখ ৫৩ হাজার ৬৫৭ জন আক্রান্ত হয়েছে ভারতে। দেশটিতে মারা গেছেন ১ লাখ ২৬ হাজার ৬১১ জন।