অস্ট্রেলিয়ার সড়ক সজ্জায় ফখরুল কন্যা ড. শামারুহ মির্জার ফেস্টুন

২০ জানুয়ারি ২০২৩, ০৮:৪৬ পিএম | আপডেট: ২৮ জানুয়ারি ২০২৩, ১১:০৪ পিএম


অস্ট্রেলিয়ার সড়ক সজ্জায় ফখরুল কন্যা ড. শামারুহ মির্জার ফেস্টুন
Photo: collected

অস্ট্রেলিয়ার সড়ক সজ্জায় এবার স্থান পেল বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি) এর মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের জ্যেষ্ঠ কন্যা অস্ট্রেলিয়া প্রবাসী ড. শামারুহ মির্জার ফেস্টুন। আগামী ২৬ জানুয়ারি অস্ট্রেলিয়ার জাতীয় দিবস উপলক্ষে জাতীয় সংসদের সামনে সড়ক সজ্জায় দেশটির জাতীয় ও আন্তর্জাতিক গণ্যমান্য ব্যক্তির পাশে ড. শামারুহ মির্জার ফেস্টুন উড়তে দেখা গেছে।

এর আগে গত ৯ নভেম্বর ‘অস্ট্রেলিয়ান অব দ্য ইয়ার-২০২৩’ পুরস্কারে ভূষিত হন ড. শামারুহ মির্জাসহ দুই বাংলাদেশি। অপর বাংলাদেশি নাজমুল হাসান। ড. শামারুহ মির্জা ও নাজমুল হাসান ‘এসিটি লোকাল হিরো’ ক্যাটাগরিতে মনোনীত হয়েছেন।

এ বিষয়ে ডা. শামারুহ মির্জার সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে ঢাকাপ্রকাশ-কে জানান, তিন গত ৯ নভেম্বর ‘অস্ট্রেলিয়ান অব দ্য ইয়ার-২০২৩’-এ মনোনীত হয়েছেন। বিষয়টি আসলে তারই ফলোআপ।

মির্জা ফখরুল-কন্যা ড. শামারুহ মির্জা পেশায় একজন চিকিৎসাবিজ্ঞানী। এই পেশার পাশাপাশি ২০১৭ সালে তিনি ‘সিতারাস স্টোরি’ নামে একটি সংগঠন সহ-প্রতিষ্ঠা করেন।

স্বেচ্ছাসেবী, অলাভজনক এই প্রতিষ্ঠানটি বিভিন্ন কর্মশালা, টক শো, সেমিনার এবং সৃজনশীল প্রতিযোগিতার আয়োজন করে থাকে, যা নারীদের মানসিক স্বাস্থ্য, গার্হস্থ্য সহিংসতা, নিজের যত্ন এবং দক্ষতা উন্নয়ন নিয়ে আলোচনা করতে সহায়তা করে।

২০২১ সালে ড. শামারুহর সহ-প্রতিষ্ঠিত সংস্থা ‘সিতারাস স্টোরি’ ‘এসিটি মেন্টাল হেলথ মান্থ অ্যাওয়ার্ড’ পুরস্কার লাভ করে। ৪৪ বছর বয়সী শামারুহ নিজেও ‘ক্যানবেরা কমিউনিটি স্পিরিট অ্যাওয়ার্ড ২০২১’ এর চূড়ান্ত পর্বের একজন প্রতিযোগী ছিলেন।

প্রসঙ্গত, ১৭৮৮ সালের ২৬ জানুয়ারি সিডনি উপসাগরে ইংরেজদের যে প্রথম বহরটি এসেছিল সেটিই অস্ট্রেলিয়ায় ব্রিটিশ উপনিবেশের সূচনা করেছিল। সেই দিনটির স্বরণে প্রতিবছর ২৬ জানুয়ারি 'অস্ট্রেলিয়ান অব দ্য ডে' পালন করা হয়। দিবসটি উদযাপনের জন্য সরকারি ছুটির পাশাপাশি নানা ধরনের আয়োজন করা হয়। সড়কে ফেস্টুন সজ্জা মূলত তারই একটি অংশ।

 

এসএইচ/


বিভাগ : প্রবাস