বিসিএলে ওয়ানডের ফাইনালে দক্ষিণাঞ্চল ও উত্তরাঞ্চল

২৪ নভেম্বর ২০২২, ০৬:১৩ পিএম | আপডেট: ০২ ডিসেম্বর ২০২২, ০৭:০৬ পিএম


বিসিএলে ওয়ানডের ফাইনালে দক্ষিণাঞ্চল ও উত্তরাঞ্চল

বাংলাদেশ ক্রিকেট লিগের ( বিসিএলে) ফাইনাল উঠেছে দক্ষিণাঞ্চল ও উত্তরাঞ্চল। বৃহস্পতিবার (২৪ নভেম্বর) তৃতীয় ও শেষ রাউন্ডের খেলায় দক্ষিণাঞ্চল ৬ উইকেটে পূর্বাঞ্চলকে এবং উত্তরাঞ্চল ৫ উইকেটে মধাঞ্চলকে পরাজিত করে।

দক্ষিণাঞ্চল তিন ম্যাচে শতভাগ জয় পেয়ে ৬ পয়েন্ট নিয়ে সবার উপরে থেকে ফাইনাল খেলবে। উত্তরাঞ্চলের পয়েন্ট ৪। তারা শুধু দক্ষিণাঞ্চলের কাছে হেরেছিল। পূর্বাঞ্চল প্রথম ম্যাচে জয় পেলেও পরের দুই ম্যাচে হেরে ফাইনালে উঠতে ব্যর্থ হয়। মধ্যাঞ্চলর কোনো ম্যাচেই জয় পায়নি। ফাইনাল অনুষ্ঠিত হবে ২৭ নভেম্বর মিরপুরে।

সেঞ্চুরি করেছিলেন মধাঞ্চলের অধিনায়ক মোহাম্মদ মিঠুন। ১১৪ বলে খেলেন ১২১ রানের অপরাজিত ইনিংস। কিন্তু তার এই ইনিংস দলকে হাসাতে পারেনি। কারণ, সেঞ্চুরি করে পাল্টা জবাব দিয়েছেন উত্তরাঞ্চলের ওপেনার হোসেনই শাহদাত দিপু। ‍

তিনি খেলেন ১০১ রানের ইনিংস। তার সঙ্গে রানের দেখা পান মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। মাত্র ৪ রানের জন্য বঞ্চিত হন সেঞ্চুরি থেকে। যে কারণে মধ্যাঞ্চল ৮ উইকেটে ২২৮ রান করার পর উত্তরাঞ্চল ৪৭ ওভারে ৫ উইকেট হারিয় ম্যাচ নিজেদেন করে নেয়।

বিকেএসপির ৩ নম্বার মাঠে টস হেরে ব্যাট করতে নামা মধ্যাঞ্চলের হয়ে একমাত্র অধিনায়ক মোহাম্মদ মিঠুন ছাড়া আর কেউ রানের দেখা পাননি। যে কারণে ইনিংসও হৃষ্টপোষ্ট হয়নি। মিঠুনের অপরাজিত ১২১ রানের ইনিংসের পর দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রান ছিল ১০ নম্বারে নামা হাসান মাহমুদের অপরাজিত ১৮।

মিঠুন ১০৫ বলে সেঞ্চুরি তুলে নেন। মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন, সৈকত আলী ও রিপন মন্ডল ২টি করে উইকেট নেন। জয়ের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে উত্তরাঞ্চল ৪০ রানে ৩ উইকেট হারিয়ে বিপদে পড়লেও চতুর্থ উইকেট জুটিতে হোসেন শাহদাত দিপু ও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ জুটি বেঁধে দলবে জয়ের পথেই নিয়ে যান।

দুই জনে জুটিতে যোগ করেন ৩৬ ওভারে ১৮১ রান। দিপু ১৪৮ বলে সেঞ্চুরি করেই আউট হয়ে যাওয়ার পরপরই মাহমুদউল্লাহও আউট হয়ে যান ৯৬ রানে নাজমুল হোসেন শান্তব বলে উইকেটের পেছনে আলী জাকের অনিকের হাতে ধার পড়ে। এরপর জয়ের জন্য বাকি ৮ রান করেন আকবর আলী ( অপরাজিত ০) ও শামীম হোসের পাটোয়ারি (অপরাজিত ১)। মুশফিক হাসান নেন ২ উইকেট। ম্যাচ সেরা হন হোসেইন শাহদাত দিপু।

বিকেএসপির ৪ নম্বার মাঠে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে পূর্বাঞ্চল কামরুল ইসলাম রাব্বির মারাত্বক বোলিংয়ে মাত্র ১৭০ রানে অলআউট হয়ে যায়।মুশফিকুর রহিম করেন সর্বোচ্চ ৬৮ রান। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রান ছিল রেজাউর রহমান রাজার ২২। কামরুল ইসলাম রাব্বি ৩৭ রানে নন ৪ উইকেট। জিয়াউর রহমান ২ উইকেট নেন ২৪ রানে।

ছোট টর্গেটের পেছনে ছুটে দক্ষিণাঞ্চল ম্যাচসেরা মোহাম্মদ নাঈম শেখের ৮২ রানে ভর করে ৪৫ ওভারে মাত্র ৪ উইকেট হারিয়ে লক্ষ্যে পৌঁছে যায়। নাঈম ইসলাম ২৬, নাসির হোসেন অপিরাজিত ২৩ ও তৌহিদ হৃদয় ২০ রান করেন।শেখ মাহেদি হাসান ২২ রানে নেন ৩ উইকেট।

এমপি/এমএমএ/

 


বিভাগ : খেলা