বুধবার, ১৭ জুলাই ২০২৪ | ২ শ্রাবণ ১৪৩১
Dhaka Prokash

সেই ছেলেটি

১৯৭১ সাল। চট্টগ্রামের পাহাড়তুলি গ্রামের শিশু রাজ। তার মা রোকশানা বেগম অন্যের বাড়িতে কাজ করেন, বাবা রহমত আলি একজন সামান্য দিনমুজুর। তার ছোট বোন রহিমা প্রথম শ্রেনীতে পড়ে। রাজ পড়ে নবম শ্রেনীতে।হঠাৎ একদিন তাদের গ্রামের দিকে কারা যেন গুলি ছুড়তে ছুড়তে এগিয়ে আসছিলো। তাদের গুলির প্রথম স্বীকার হলো রাজের বাবা রহমত আলি। মাঠ থেকে ফেরার পথে গুলির আঘাতে নদীর ধারে মুখন থুবড়ে পড়ে গেল। তার মা রোকশানা বেগম এইক খবর পেয়ে ছুটে যাচ্ছিলেন কিন্তু পৌছাতে পারলেন না। একটা গুলি এসে লাগলো তার বুকে।মৃত্যুবরণ করলেন তিনি।

বাবা মাকে হারিয়ে ভেঙ্গে পড়লো রাজা। কিন্তু তার বাবা -মাকে কে বা কারা মারলো কিছুই বুঝতে পারলোনা সে। পরেরদিন তার বাবার বন্ধু আবুল চাচাকে জিজ্ঞেস করলো তার বাবা-মাকে করা বা কেন মারল। চাচা বললেন গ্রামে পাকিস্তানি মিলিটারি এসেছে। তারা আমাদেরকে স্বাধীনতা দিতে চাই তাদের বিরুদ্ধে আমরা মাঠে নেমেছি বলে তারা আমাদের ওপর অত্যাচার করছে।যুদ্ধ করতে হবে, দেশকে দস্যুর হাত থেকে রক্ষা করতে হবে। রাজ অবাক হয়ে বলল যুদ্ধ কি চাচা। আবুল হোসেন বলেন যুদ্ধ হচ্ছে লড়াই। পাকিস্তানিরা আমাদের স্বাধীন হতে দিতে চাই না। তারা আমাদের শোষণ করতে চাই। এই বলে চলে গেলেন আবুল হোসেন। রাজ বাবা মাকে হারিয়ে ভেঙ্গে পড়লেও তার মনে জেগে উঠলো এক নতুন স্বপ্ন।। সে গাছের নিচে দাঁড়িয়ে আছে হঠাৎ দেখলো গ্রামের লোকজন জিনিসপত্র নিয়ে কোথায় চলে যাচ্ছে। সে তার সামিয়া পিসি কে বললো তারা কোথায় যাচ্ছে। পিসি বলল "গ্রামে মিলিটারি এসেছে সবাইকে অনেক মারধোর করেছে তাই গ্রাম ছেড়ে চলে যাচ্ছে। তোরা আমার সঙ্গে চল।"সামিয়া পিসির ছেলে মেয়ে নেই। রাজের মা তার বাড়িতে কাজ করতো তখন থেকেই তাদের ভাই -বোনকে তিনি খুব ভালোবাসতেন। রাজ হেসে বলল আমি যাব না। দেশের জন্য যুদ্ধ করবো।

পিসি তার ওপর রেগে বলল শোনো ছেলের কথা এইটুকু ছেলে তুই আবার কিসের যুদ্ধ করবি। গ্রামের সবাই চলে যাচ্ছে আর তুই কি-না যুদ্ধ করবি। চল আমার সাথে কিন্তু রাজ বললো না আমি যাবোনা। রাজ কে কিছুতেই নিয়ে যেতে না পেরে পিসি রহিমা কে নিয়ে চলে গেলো। সেইদিন রাতে রাজ তার বন্ধু রবিন,সিয়াম,রাহাত সবাইকে যুদ্ধ করতে হবে বলে রাজি করলো। রাহাতদের বাড়ির রেডিও দিয়ে তারা বঙ্গবন্ধুর ভাষণ শুনলো,"এইটাই হয়তো আমার শেষ বার্তা, আজ থেকে বাংলাদেশ স্বাধীন।" সকালে তারা মুক্তিযোদ্ধার কমান্ডার শফিকুদ্দিনের সাথে দেখা করে বলল আমরাও যুদ্ধ করবো।কমান্ডার তাদের মানসিকতা দেখে খুশি হলেন।তাদের কে অস্ত্র দেখাশোনার দায়িত্ব দিলেন। কিন্তু রাজ যুদ্ধ করবে অস্ত্র চালানো শিখবে এইসব ভেবে ব্যস্ত হয়ে পড়ে। তাই কমান্ডার পাশের গ্রামে যেখানে অস্ত্র প্রশিক্ষণ চলছিলো তাদেরকে সেখানে পাঠিয়ে দিলেন। রাজ খুব সহজেই অস্ত্র চালানো শিখে গেল। কমান্ডার প্রধান অনেক খুশি হলেন।

১১মে সে ১০জন মুক্তিযোদ্ধার সাথে যুদ্ধে নেমে পড়ে। সেইদিন রাজ অনেক সাহসিকতার পরিচয় দেখায় শফিকুদ্দিন তাকে কিশোরদেরর ক্যাপ্টেন বানালেন।পরের দিন, ১৫ জন একসাথে মিলে বের হলো যুদ্ধে। তারা একটা গোপন স্থান তৈরি করেছিল। যেখানে ওপরে ছিলো কাঠের পাটাতন এবং মাটির নিচে ঘরের মতো গর্ত। তার সামনে ছিলো উঁচু বন। প্রায় এক হাজার সৈন্য নিয়ে পাকিস্তনিরা হাজির হলো রাজ পিছন থেকে গুলি ছুড়তে থাকে। তারা কয়েকজন করে চার দিকে ছড়িয়ে পড়েছিল। প্রচন্ড গুলির আঘাতে অনেকে নিহত হয় কিন্তু তাদের গুপ্ত স্থান বুঝতে না পারায় চারদিকে গুলি ছুড়তে শুরু করলো। পাকিস্তানিদের তুলনায় তারা অনেক কম থাকায় চারদিকের গুলির তোড় সহ্য করতে না পেরে অনেকেই নিরাপদ স্থানের দিকে চলে গেলো।

রাজকেও সবাই যেতে বললো কিন্তু সে যেতে রাজি হলো না। অসীম সাহসিকতার সাথে যুদ্ধ চালিয়ে গেলো। কিন্তু শত শত অস্ত্রকে একটা অস্ত্র দিয়ে দমিয়ে রাখা সম্ভব না। এইটা বুঝেও পিছু সরে যাই নি সে। কিছুক্ষণ পর একটা গ্রেনেড এসে লাগলো তার বুকে। মুখ থুবড়ে পড়লো মাটিতে। কাঠের পাটাতনের মুখ খোলা ছিলো গড়িয়ে পড়লো গর্তে। তার বন্ধুরা তাকে ধরাধরি করে সরিয়ে নিয়ে গেলো। ঝর ঝর করে রক্ত ঝরছিলো। মৃত্যুশয্যায় তার মুখ দিয়ে একটি শব্দ ভেসে আসছিলো বাংলাদেশ, স্বাধীন বাংলাদেশ। স্বাধীন বাংলার স্বপ্ন নিয়ে ঝরে গেলো একটা প্রাণ। পৃথিবীর বুক থেকে বিদায় নিলো সেই ছেলেটি।

 নিউ গভঃ ডিগ্রি কলেজ, রাজশাহী

 

ডিএসএস/ 

Header Ad

সন্ধ্যায় জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেবেন প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ছবি: সংগৃহীত

কোটা সংস্কার আন্দোলন নিয়ে সৃষ্ট উদ্ভূত পরিস্থিতিতে বুধবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বিকেলে গণমাধ্যমে পাঠানো এক ক্ষুদে বার্তায় এ তথ্য জানিয়েছে প্রধানমন্ত্রীর প্রেস উইং।

বার্তায় জানানো হয়, সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় প্রধানমন্ত্রীর ভাষণ বাংলাদেশ টেলিভিশন ও বাংলাদেশ বেতার একযোগে সম্প্রচার করবে।

প্রসঙ্গত, চলমান কোটা সংস্কার আন্দোলন গতকাল মঙ্গলবার বেশ সহিংস রূপ নেয়। এদিন ঢাকাসহ বিভিন্ন স্থানে সংঘর্ষে ৬ জন মারা যান। আহত হন কয়েকশ আন্দোলনকারী শিক্ষার্থী ও ছাত্রলীগের নেতাকর্মী।

বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কে উত্তাল শিক্ষার্থীরা, উত্তরবঙ্গের ২২ জেলার প্রবেশপথ অবরোধ

বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কে উত্তাল শিক্ষার্থীরা। ছবি: সংগৃহীত

সরকারি চাকরিতে কোটা সংস্কারের এক দফা দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের হামলা, নির্যাতন, ও সারাদেশে বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থী নিহতের প্রতিবাদে পুলিশের বাঁধা উপেক্ষা করে ঢাকা-টাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কের বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব গোল চত্বর অবরোধ কর্মসূচি পালন করেছে সাধারণ শিক্ষার্থীরা।

বুধবার (১৭ জুলাই) সকাল সাড়ে ১০ টায় টাঙ্গাইলের ভূঞাপুর উপজেলার বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব গোল চত্বর এলাকায় এই অবরোধ কর্মসূচি পালন করা হয়।

 

বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কে উত্তাল শিক্ষার্থীরা। ছবি: সংগৃহীত

এসময় অবরোধ ও বিক্ষোভ কর্মসূচিতে বিভিন্ন স্লোগানে স্লোগানে ভূঞাপুরের ইবরাহীম খাঁ সরকারি কলেজ, নিকরাইল শমসের ফকির ডিগ্রী কলেজ, নলছিয়া মমতাজ ফকির উচ্চ বিদ্যালয় এবং কালিহাতী উপজেলার যমুনা কলেজের শিক্ষার্থীরাসহ জেলার বিভিন্ন উপজেলার শতশত সাধারণ শিক্ষার্থীরা বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব চত্বরে খন্ড খন্ড মিছিল নিয়ে সমবেত হয়ে অবরোধে অংশ নেয়।

বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব গোল চত্বরে অবরোধের কারণে টানা দেড় থেকে দুই ঘণ্টা মহাসড়কটি দিয়ে ঢাকা ও ময়মনসিংহসহ উত্তরবঙ্গের ২২টি জেলার সাথে যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যায়। সেতু পূর্ব টোলপ্লাজা থেকে এলেঙ্গা মহাসড়কের প্রায় ১০ থেকে ১২ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে যানজট সৃষ্টি হয়।

এসময় মহাসড়ক অবরোধ করে মহাসড়কে বসে যায় শিক্ষার্থীরা। পরে বেলা সাড়ে ১২ টার দিকে টাঙ্গাইল থেকে র‌্যাব ও পুলিশের উর্ধতন কর্মকর্তারা এসে আন্দোলনকারীদের সাথে কথা বলে অবরোধ তুলে দিতে সক্ষম হয়। সেখান থেকে সরে যায় তারা।

এদিকে- অবরোধের কারণে তীব্র গরমে ঢাকা ও উত্তরবঙ্গগামী গণপরিবহনের চালক ও যাত্রীরা চরম ভোগান্তি পড়েন। সবচেয়ে বেশি ভোগান্তিতে পড়েন নারী ও শিশুরা। এছাড়া অবরোধ চলাচলকালীন সময়ে টাঙ্গাইলের বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব ও সিরাজগঞ্জ পশ্চিম অংশের টোলপ্লাজা সাময়িকের জন্য টোল আদায় বন্ধ রাখে সেতু কর্তৃপক্ষ।

আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা বলেন, সরকারি চাকরিতে কোটা প‌দ্ধতি সংস্কার আমাদের প্রাণের দাবি, দেশের প্রতিটি শিক্ষার্থীদের দাবি। যে পর্যন্ত কোটা সংস্কারের সুষ্ঠু সমাধান না হবে সে পর্যন্ত আমাদের আন্দোলন-সংগ্রাম চলবে। এছাড়া আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ছাত্রলীগের উপর হামলা, নির্যাতন ও গুলি করে হত্যার তীব্র নিন্দা জানান। নিরহ শিক্ষার্থী‌দের হত‌্যার বিচার দাবি করেছে তারা।

বঙ্গবন্ধু সেতুপূর্ব থানার অফিসার ইনচার্জ (ও‌সি) আলমগীর আশরাফ জানান, সকাল সাড়ে ১০ টার দিকে শিক্ষার্থীরা বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব গোল চত্বর অবরোধ করে। একপর্যায়ে তারা মহাসসড়ক অবরোধ করে অবস্থান নেন। দুপুরের দিকে ঊধ্বর্তন কর্মকর্তারা এসে আন্দোলনকারীদের সঙ্গে কথা বলে সেখান থেকে সরিয়ে দেয়। পরে যানবাহন চলাচল স্বাভাবিক হয়ে আসে। এছাড়া বিশৃঙ্খলারোধে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন ছিল।

কোটা সংস্কার আন্দোলন হচ্ছে মুক্তিযুদ্ধের প্রকৃত চেতনা: আসিফ নজরুল

আসিফ নজরুল। ছবি: সংগৃহীত

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় আইন বিভাগের অধ্যাপক আসিফ নজরুল বলেছেন, কোটা সংস্কার দাবিতে যে শিক্ষার্থীরা আন্দোলন করছেন, তাদের আন্দোলনটাই হচ্ছে মুক্তিযুদ্ধের প্রকৃত চেতনা। এ সময় আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের রাজাকার ট্যাগ দেওয়ার রাজনীতি বন্ধের আহ্বান জানান তিনি।

বুধবার (১৭ জুলাই) দুপুর দেড়টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অপরাজেয় বাংলা চত্বরে ‘নিপীড়ন বিরোধী শিক্ষক নেটওয়ার্ক’ আয়োজিত এক সমাবেশে তিনি এ আহ্বান জানান।

অধ্যাপক আসিফ নজরুল বলেন, ‌‘৭২ সালের সংবিধান অনুযায়ী আমাদের মুক্তিযুদ্ধের বড় চেতনা হচ্ছে অসাম্য, বৈষম্যহীনতা ও সমান অধিকার। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ে যে শিক্ষার্থীরা আন্দোলন করছেন, তাদের রাজাকার ট্যাগ দেওয়া হচ্ছে। আমরা এটা প্রত্যাখ্যান করছি। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ কোনো পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী রাজাকার না।’

তিনি বলেন, ‘১৯৭১ সালে মাত্র এক শতাংশ রাজাকার ছিল, ৯৯ শতাংশই ছিল মুক্তিযোদ্ধা। আজকে যারা আন্দোলন করছেন তারাও মুক্তিযোদ্ধা। তারা জনযুদ্ধের মুক্তিযোদ্ধার সন্তান। সুতরাং তাদের রাজাকার ট্যাগ দেওয়া বন্ধ করেন। রাজাকার ট্যাগ দেওয়ার রাজনীতি বন্ধ করেন। এটা করতে করতে আপনারা মুক্তিযোদ্ধাকে হেও করছেন।’

অধ্যাপক আসিফ নজরুল বলেন, ‘যারা আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা করেছেন, নির্যাতন করেছেন, এটা ফৌজদারি অপরাধ। এটা হচ্ছে মার্ডার, মৃত্যুদণ্ডযোগ্য অপরাধ। অবশ্যই এই অপরাধের বিচার করতে হবে। সরকারের যে মন্ত্রী, আওয়ামী লীগের যেসব নেতা প্রকাশ্যে ছাত্রলীগকে আন্দোলন দমনে নির্দেশ দিয়েছেন, তারাও এই অপরাধের সমান অংশীদার। এই অপরাধের সহায়তাকারী হিসেবে তাদেরকে বিচার করতে হবে। দেশে যদি কোনো অপরাধ হয় সেটা দেখার দায়িত্ব আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর, বিচার বিভাগের, ছাত্রলীগের না।’

তিনি বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধের সিদ্ধান্ত কি আমাদের সাধারণ শিক্ষার্থীদের স্বার্থে দেওয়া হলো? তাদের স্বার্থকে বিবেচনা করা হয়েছে? নাকি তাদের কণ্ঠ বিবেচনা করা হয়েছে? আজকে আমরা শুনেছি সন্ধ্যার মধ্যে হল খালি করার সিদ্ধান্ত এসেছে। আমরা স্পষ্ট ভাষায় বলতে চাই হল ত্যাগ করার সিদ্ধান্তে সাধারণ ছাত্ররা হল ত্যাগ করুক আর না করুক সেটা তাদের সিদ্ধান্ত। কিন্তু হলে বা অন্য কোথাও তাদের উপর হামলা নির্যাতন আমরা আর সহ্য করবো না।’

এসময় উপস্থিত ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়, কুষ্টিয়া বিশ্ববিদ্যালয়সহ বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের শতাধিক শিক্ষক।

সর্বশেষ সংবাদ

সন্ধ্যায় জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেবেন প্রধানমন্ত্রী
বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কে উত্তাল শিক্ষার্থীরা, উত্তরবঙ্গের ২২ জেলার প্রবেশপথ অবরোধ
কোটা সংস্কার আন্দোলন হচ্ছে মুক্তিযুদ্ধের প্রকৃত চেতনা: আসিফ নজরুল
শিক্ষার্থীদের নেতৃত্ব এখন বিএনপি-জামায়াতের হাতে: ওবায়দুল কাদের
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পুলিশ, র‍্যাব ও বিজিবি মোতায়েন, শাহবাগে ছাত্রলীগ-যুবলীগ
সান্তাহারে কোটাবিরোধী শিক্ষার্থীদের আন্দোলন, ৩ ঘণ্টা পর ট্রেন চলাচল শুরু
ষড়যন্ত্রকারীদের বিরুদ্ধে অভিযানে নামবে পুলিশ : ডিবিপ্রধান
জাফর ইকবালকে শাবিপ্রবিতে আজীবন নিষিদ্ধ ঘোষণা শিক্ষার্থীদের
কোটা আন্দোলন প্রসঙ্গে বিবৃতি দিয়ে তোপের মুখে নিপুণ
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা, সন্ধ্যার মধ্যে হল ছাড়ার নির্দেশ
চিরনিদ্রায় শায়িত হলেন কোটা আন্দোলনে নিহত শিক্ষার্থী আবু সাঈদ
এবার ছাত্রলীগ সভাপতি সাদ্দামের কক্ষ ভাঙচুর
তিস্তায় ভেসে এলো ভারতের সাবেক শিক্ষামন্ত্রীর লাশ
ঢাবি ছাত্রলীগের সভাপতি-সম্পাদকের রুমে ভাঙচুর, আগ্নেয়াস্ত্র উদ্ধার
কোটা আন্দোলন: হামলা-সংঘর্ষ-হত্যা নিয়ে যা বলছে জাতিসংঘ
রাজধানীতে তাজিয়া মিছিল শুরু
গভীর রাতে বোরখা পরে পালিয়েছেন ইডেন ছাত্রলীগ সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক
ইউজিসি কি বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা করতে পারে, প্রশ্ন ঢাবি অধ্যাপকের
রক্তপাত বন্ধের আহ্বান হৃদয়-শরিফুলের
স্বেচ্ছাসেবক ও ছাত্রদলের ২ নেতাকে তুলে নেয়ার অভিযোগ