রবিবার, ২৬ মে ২০২৪ | ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
Dhaka Prokash

ড্রাগন ফল চাষে আগ্রহ বাড়ছে বরেন্দ্র অঞ্চলের কৃষকদের

ছবি সংগৃহিত

ড্রাগন ফল চাষে আগ্রহ বাড়ছে কৃষকদের। বিকল্প চাষ হিসাবে ভালো সফল হয়েছেন একাধিক কৃষক। বাজারে ড্রাগন ফলের চাহিদা রয়েছে ব্যাপক। ফলে স্থানীয় বাজার গুলিতে বিক্রি হচ্ছে ড্রাগন ফল। লাভবান হচ্ছেন কৃষকেরা। নতুন করে অনেকেই এই ফল চাষে আগ্রহ প্রকাশ করছেন।

বরেন্দ্র ভূমিতে বিদেশি ফল ড্রাগন চাষ করে সফলতার দেখা পেয়েছেন রাজশাহীর শতাধিক চাষি। ফলটি দেখতে সুন্দর। খেতেও সুস্বাদু ও মানে ভালো হওয়ায় বাজারে চাহিদাও প্রচুর। ফলে রাজশাহী-নাটোর-নওগাঁ ও চাঁপাইনবাবগঞ্জে দ্বিগুণ বৃদ্ধি পেয়েছে ড্রাগন ফলের চাষ। শুধু চাষই নয়, বেড়েছে বিক্রিও। বেশি দামে বিক্রি হওয়ায় বরেন্দ্র অঞ্চলের চাষিরা এখন আমেরিকার জনপ্রিয় এই ড্রাগন চাষে ঝুঁকছেন।

চাষিরা বলছেন, বরেন্দ্র অঞ্চলের আশা জাগাচ্ছে ড্রাগন ফল। ড্রাগন ফল চাষ করে ভাগ্যবদল হয়েছে শতাধিক কৃষকের। সময় বেশি লাগলেও অল্প পুঁজি বিনিয়োগ করে অধিক লাভবান হচ্ছেন। এতে তাদের অভাব মোচন হওয়ায় বাণিজ্যিকভাবে চাষে আগ্রহ বাড়ছে। খরাপ্রবণ এই এলাকার মাটিতে আগে ফল তো দূরের কথা অন্যান্য ফসল তেমনভাবে উৎপাদন হতো না। কিন্তু দিন যত যায় এই অঞ্চলের মানুষের নতুন নতুন উদ্ভাবনের চিন্তা আসায় বরেন্দ্র অঞ্চলের এই মাটিতে ফলছে বিভিন্ন জাতের ফল, শাকসবজিসহ নানান ধরনের ফসল। স্ট্রবেরি, লাল তরমুজ, পেয়ারা চাষ হলেও দিন দিন ‘ড্রাগন’ ফলের চাষ বাড়ছে বহুগুণে।

রাজশাহী কৃষি বিভাগ বলছে, এটা এক ধরনের ক্যাকটাস জাতীয় গাছ। তবে এই গাছে ফুল ধরে। ফুল থেকেই হয় ড্রাগন ফল। ফলের গাছ সাধারণত দেড় থেকে আড়াই মিটার পর্যন্ত লম্বা হয়। একটি ফলের ওজন কমপক্ষে ১৫০ থেকে ৬০০ গ্রাম পর্যন্ত হয়। এর বীজগুলো খুবই ছোট, কালো ও নরম। তবে এই গাছের কোনো পাতা হয় না। প্রতি বছরে বরেন্দ্র অঞ্চলে এই ফলের চাষ বৃদ্ধি পাচ্ছে।

রাজশাহী বিভাগীয় কৃষি অধিপ্তর বলছে, ২০২২-২৩ অর্থবছরে রাজশাহী জেলায় ২১৪ হেক্টর জমিতে চাষ হয়েছিল ড্রাগন। আর এর উৎপাদন হয় ৪ হাজার ৪১৮ মেট্রিক টন। চাঁপাইনবাবগঞ্জে ৭ দশমিক ৫ হেক্টর জমিতে চাষ হয়ে উৎপাদন হয় ৩২৫ মেট্রিক টন। নওগাঁ জেলায় ৪৫ হেক্টর জমিতে চাষ হয়ে উৎপাদন হয় ৩৬০ মেট্রিক টন। নাটোর জেলায় ১৩৪ হেক্টর জমিতে চাষ হয়ে উৎপাদন হয় ১ হাজার ৫৪৫ মেট্রিক টন।

এরে আগে ২০২১-২২ অর্থবছরে রাজশাহী জেলায় ৫৭ হেক্টর জমিতে চাষ হয়ে ড্রাগন ফল উৎপাদন হয় ৬৮৮ মেট্রিক টন। চাঁপাইনবাবগঞ্জে ১৩ হেক্টর জমিতে চাষ হয়ে উৎপাদন হয় ২৩৪ মেট্রিক টন। নওগাঁ জেলায় ২৬ হেক্টর জমিতে চাষ হয়ে উৎপাদন হয় ২২০ মেট্রিক টন। নাটোর জেলায় ৬৫ হেক্টর জমিতে চাষ হয়ে উৎপাদন হয় ৫৫২ মেট্রিক টন। ২০২০-২১ অর্থবছরে রাজশাহী জেলায় ২৭ হেক্টর জমিতে চাষ হয়ে ড্রাগন ফল উৎপাদন হয় ৩২৪ মেট্রিক টন। চাঁপাইনবাবগঞ্জে ১৪ হেক্টর জমিতে চাষ হয়ে উৎপাদন হয় ২ মেট্রিক টন। নওগাঁ জেলায় ২২ হেক্টর জমিতে চাষ হয়ে উৎপাদন হয় ১০৮ মেট্রিক টন। নাটোর জেলায় ৪০ হেক্টর জমিতে চাষ হয়ে উৎপাদন হয় ৬৪০ মেট্রিক টন।

বরেন্দ্র ভূমিতে বিদেশি ফল ড্রাগন চাষ করে সফলতার দেখা পেয়েছেন রাজশাহী গোদাগাড়ী উপজেলার পিরিজপুর এলাকার বাসিন্দা ইসমাইল হোসেন। রাজশাহী-চাঁপাইনবাবগঞ্জ মহাসড়কের পাশে গোদাগাড়ী উপজেলার সোনাদীঘির মোড় এলাকায় ৫ একর (১৫ বিঘা) জমিতে গড়ে তুলেছেন বিশাল ড্রাগন বাগান। চারা রোপণের বছর না পেরোতেই দেখা পেয়েছেন ফলনের। নিয়মিত পরিচর্যায় সম্ভাবনার দাঁড় খুলেছে এই কৃষি উদ্যোক্তার। ২০২১ সালে এক একর (৩ বিঘা) জমিতে ড্রাগন চাষ শুরু করেন তিনি। দীর্ঘ ১৭ বছরের ভোজ্যতেলের ব্যবসা ছেড়ে হয়ে যান কৃষি উদ্যোক্তা। প্রথম বছরেই প্রায় ২০ থেকে ২২ লাখ টাকার ফল বিক্রি করেন।

ড্রাগন চাষের প্রাথমিক ধাপে ভালো ফলন পেয়ে সিদ্ধান্ত নেন পরিসর বাড়ানোর। এক বছরের মাথায় ৪ একর জমি লিজ নেন ইসমাইল। বছর না পেরোতেই সেখানেও ফলন পেতে শুরু করেছেন তিনি। প্রতি সিজনে এক একর জমিতে ২২ থেকে ২৫ লাখ টাকার ফল বিক্রি হয় অনায়াসেই। সেই হিসেবে ৫ একর জমিতে বছরে কোটি টাকার ড্রাগন বিক্রির বাণিজ্যিক সম্ভাবনা দেখছেন এই চাষী।

তিনি বলেন, ড্রাগন আবাদে আসল কথা লস নাই, লাভজনক একটা আবাদ। এই আবাদ করলে ইনশাআল্লাহ কিছু করতে পারবে। এক বিঘা ড্রাগন বাগানে ২ থেকে আড়াই লাখ টাকা খরচ করলেই সে ফল দেখতে পারবে। যদি ভালোভাবে আবাদ করতে পারে তবে প্রতি বিঘায় মোটামুটি ৮০ থেকে ১০০ মণ ফলন পাওয়া যায়। ১০০ টাকা করে কেজি বিক্রি করলেও ড্রাগনে কোনো লস নাই। এক একর জমি থেকে মোটামুটি ১০ একর জমিতে চারা বিক্রি করা হয়েছে। আমি নিজেও চার একর জমি বাড়াইছি।

গোদাগাড়ী উপজেলার আরেক ড্রাগনচাষি শরিফুল ইসলাম বলেন, বেশ কয়েক বছর থেকে এই ফল চাষ করে আসছি। এ বছরে আবারও শুরু হয়েছে চাষ করা। এবার ২৭ একর জমিতে ড্রাগনের চাষ করা হবে। এর চাষ প্রতিবছর বাড়ানো হচ্ছে। স্বল্প খরচে অধিক লাভের কারণে এর চাষ বাড়ছে।

জানা যায়, ২০০৫ ও ২০০৬ সালে ড্রাগন ফল প্রথম আমদানি করা হয়। সে সময় চড়া দামে বিক্রি হতো এই ফল। এই ফল থাইল্যান্ড, ফ্লোরিডা ও ভিয়েতনাম থেকে নিয়ে আসা হতো। কিন্তু এর এক দশক পর থেকে দেশেই চাষ হচ্ছে পাতাবিহীন এই ফলটি। এখন বেশ জনপ্রিয়তা পেয়েছে।

রাজশাহী জেলা কৃষি সম্প্রসারণের অধিদপ্তরের উপপরিচালক মোজদার হোসেন বলেন, এ অঞ্চলের আবহাওয়া ও মাটির ধরন ড্রাগন চাষের জন্য বেশ উপযোগী। উৎপাদন বেশি ও চাষাবাদে খরচ কম হওয়ায় এর চাষ বাড়ছে। কৃষি বিভাগ উৎসাহিত করার ফলে ড্রাগান চাষ আজকের অবস্থানে এসেছে।

রাজশাহী বিভাগীয় কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের অতিরিক্ত পরিচালক শামসুল ওয়াদুদ বলেন, বরেন্দ্রভূমিতে ড্রাগন চাষ বেশ লাভজনক। ড্রাগন হচ্ছে মরুভূমি এলাকার ফল। এদিক থেকে রাজশাহী অঞ্চলের মাটি অধিকাংশ সময় খরায় শুষ্ক থাকে। ড্রাগন চাষ সহজসাধ্য ও চাষে খরচও কম হয়। এর ফলে পোকামাকড় কম আক্রমণ করে আবার অতি বৃষ্টিতেও এর ক্ষতি হয় না। একারণে আগের চেয়ে বর্তমানে এর চাষ বেড়েছে। কাজেই এ অঞ্চলে ড্রাগন চাষ লাভজনক।

 

Header Ad

‘ক্ষমতা হারানোর আতঙ্ক থেকেই সরকার নেতাকর্মীদের কারাবন্দি করছে’

ছবি : ঢাকাপ্রকাশ

যুবদল শান্তিপ্রিয় রাজনীতিতে বিশ্বাস করে। শান্তিপূর্ণ আন্দোলনকে যদি সরকার দুর্বলতা মনে করে তাহলে ভুল করবে। সরকার ক্ষমতা হারানোর ভয়ে সারাদেশে বিএনপি-যুবদলসহ হাজার হাজার নেতাকর্মীদের বিনা কারণে কারাবন্দি করছে। বিরোধী মতধারীদের গুম করা হচ্ছে, খুন করা হচ্ছে। আসলে ক্ষমতা হারানোর আতঙ্ক থেকেই সরকার এগুলো করছে বলে মন্তব্য করেছেন যুবদলের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মোনায়েম মুন্না।

শনিবার (২৫ মে) বিকালে নওগাঁ শহরের কেডির মোড়ে আল ফারুক উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে দলকে শক্তিশালী ও গতিশীল করতে নেতাকর্মীদের খোঁজ নিতে জেলা যুবদল আয়োজিত সমাবেশে বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। এ সময় যুবদলের সাধারণ সম্পাদকের নেতৃত্বে সংগঠনটির কেন্দ্রীয় প্রতিনিধি দল সাথে ছিলেন।

আব্দুল মোনায়েম মুন্না বলেন, বিএনপির সংগ্রাম ক্ষমতায় যাওয়ার জন্য নয়। জনগণের ভোটাধিকার ও বাকস্বাধীনতা ফিরিয়ে আনার সংগ্রাম। ফ্যাসিস্ট সরকারের বিরুদ্ধে দেশবাসীকে ঐক্যবদ্ধ করে যুবদল রাজপথে থাকবে। যুবদল একটি শক্তিশালী সংগঠন। এ শক্তি কাজে লাগিয়ে জনগণের আশা-আকাঙ্ক্ষার প্রতিফলন ঘটাতে হবে।

তিনি আরোও বলেন, সংগঠনকে সুসংগঠিত, শক্তিশালী ও গতিশীল করতে সারা দেশের ৬৪ জেলায় গিয়ে নেতাকর্মীদের খোঁজ নিচ্ছেন যুবদল। ইতিমধ্যে ৪০টি জেলায় নেতকর্মীদের পাশে দাঁড়িয়েছে যুবদল।

পরে নওগাঁ জেলা যুবনেতা কোহিনুর ইসলাম মিলি গত ২১ সালের ৩০ মার্চ কেডির মোড় দলীয় কার্যালয়ের সামনে পুলিশের গুলিতে বাম চোখ গুলিবিদ্ধ হয়ে মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হোন ও নওগাঁ পৌর যুবদলের যুগ্ম আহ্বায়ক অসুস্থ মো. কবির আলম লিটনের কাছে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের পক্ষ থেকে উপহার তুলে দেন যুবদল কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মোনায়েম মুন্না।

 

ছবি : ঢাকাপ্রকাশ

এ সময় যুবদলের প্রতিনিধি দলে ছিলেন- কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সহ-সভাপতি মাহফুজার রহমান রিটন,প্রচার সম্পাদক আব্দুল করিম সরকার,সহ সাংগঠনিক সম্পাদক আরিফুল হক আরিফ,সহ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক কে এম এস মুসাব্বির শাফি,সদস্য আনোয়ার হোসেন জনি,সদস্য মাহামুদুস সালেহিন, নওগাঁ জেলা যুবদলের আহবায়ক মাসুদ হায়দার টিপু,সদস্য সচিব রুহুল আমিন মুক্তার, সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক একেএম রওশন-উল ইসলাম, যুগ্ম আহ্বায়ক দেওয়ান মুস্তাকিন আহমেদ নিপু ও রুবেল হোসেন।

এছাড়া ছিলেন- কেন্দ্রীয় বিএনপি, জেলা বিএনপি ও যুবদলের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ প্রমুখ।

সিটিকে হারিয়ে ৮ বছর পর এফএ কাপ জিতল ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড

ছবি: সংগৃহীত

ম্যানচেস্টার ইউনাইটেডের পাড় ভক্তরাও হয়ত ভাবতে পারেননি এমন একটা ম্যাচ উপহার দিতে পারে রেড ডেভিলরা। সাম্প্রতিক সময়ে ম্যানচেস্টার সিটি ছড়ি ঘুরিয়েছে প্রায় সব দলের ওপর। ইউরোপিয়ান শ্রেষ্ঠত্ব পেয়েছে কেবল এক মৌসুম আগে। টানা চারবার হয়েছে ইংলিশ চ্যাম্পিয়ন। কিন্তু সেই দলটাই কি না প্রথমার্ধে ইউনাইটেডের সঙ্গে পিছিয়ে থাকল ২-০ গোলে!

এফএ কাপের ফাইনালের আগেই ম্যান ইউনাইটেড কোচ এরিক টেন হাগের ভাগ্য নির্ধারণের খবর প্রকাশ করেছিল ইংলিশ পত্রিকা দ্য গার্ডিয়ান। বলা হয়েছিল, এই ম্যাচে ফলাফল যাইই হোক না কেন, ইউনাইটেড কোচের পদে টেন হাগের থাকা হচ্ছে না। নিজের এই সম্ভাব্য শেষ ম্যাচে যেন কতৃপক্ষকে বড় বার্তা দিলেন টেন হাগ। এফএ কাপের শিরোপা ম্যান ইউনাইটেড জিতেছে ২-১ গোলের ব্যবধানে।

ম্যানচেস্টার সিটির বিপক্ষে ম্যাচের পুরোটা সময়ে ইউনাইটেড খেলেছে পুরোপুরি রক্ষ্মণাত্মক ভঙ্গিতেই। সুযোগ বুঝে এগিয়েছে আক্রমণের দিকে। রাফায়েল ভারানে এবং লিসান্দ্রো মার্টিনেজে গড়া ইউনাইটেড রক্ষণভাগ নিজেকের কাজটা করেছে দুর্দান্তভাবে। সিটির আক্রমণভাগের মূল ভরসা আর্লিং হালান্ডকে দুজনেই রেখেছেন কড়া মার্কে।

তাতে কাজও দিয়েছে। নার্ভাস হালান্ড একের পর এক সুযোগের সামনে থেকে হতাশ হয়েছেন। আর ফিল ফোডেন, বার্নাদো সিলভা কিংবা কেভিন ডি ব্রুইনার ওপর বেড়েছে চাপ। অতিরিক্ত প্রেসিং আর অ্যাটাকিং ফুটবল খেলতে যাওয়া সিটি পরাস্ত হয়েছে ইউনাইটেডের কাউন্টার অ্যাটাকে। প্রথমার্ধেই দুই গোল তুলে নিতে সমস্যাই হয়নি রেড ডেভিলদের। সেটাই ম্যান ইউনাইটেডকে এনে দিয়েছে এফএ কাপের শিরোপা।

দুই গোলেই অবশ্য সিটির রক্ষণভাগের দায় আছে অনেকটা। ম্যাচের ঠিক ৩০ মিনিটে দিয়েগো দালোত অনেকটা লম্বা পাস দিয়েছিলেন ছুটতে থাকা আলেহান্দ্রো গার্নাচোর উদ্দেশে। সিটি গোলরক্ষক স্টেফান ওর্তেগা বেরিয়ে এসেছিলেন। রক্ষণের ইয়াস্কো গাভার্দিওল হেডে বল বাড়িয়েছিলেন তার দিকেই। ভুল বোঝাবুঝির সুযোগ পুরোপুরি পেয়ে যান গার্নাচো। আলতো টোকায় ফাঁকা পোস্টে গোল করেন এই তরুণ আর্জেন্টাইন।

গোল খেয়ে আরও মরিয়া হয়ে আক্রমণে যায় ম্যানচেস্টার সিটি। তবে একাধিকবার তাদের ব্যর্থ হয়ে ফিরতে হয়েছে শুধুমাত্র ভারানে-মার্টিনেজ জুটির কারণে। দুপাশ থেকে অ্যারন ওয়ান বিসাকা এবং দিয়েগো দালত সাপোর্ট দিয়েছেন দারুণভাবে। সেটাই পরবর্তীতে কাজে লেগেছে।

৩৮ মিনিটে ভারানের পাসে বল জালে জড়ান রাশফোর্ড। তবে সেই গোল বাতিল হয় অফসাইডে। এক মিনিট পরেই ইউনাইটেড পায় আরেকটি গোল। এবার অবশ্য বাতিল হয়নি। চলতি মৌসুমে ইউনাইটেডের সেরা প্রাপ্তি ছিল উদীয়মান তারকা কোবি মাইনু। ব্রুনো ফার্নান্দেজ, মার্কাস রাশফোর্ডের সম্মিলিত আক্রমণে সিটি রক্ষণভাগ অনেকটাই উন্মুক্ত হয়ে যায় কোবির সামনে। ঠাণ্ডা মাথায় দলকে এনে দেন দ্বিতীয় গোল।

দ্বিতীয়ার্ধে ম্যানসিটি সুযোগ যে পায়নি তা না। যদিও গোল তারা পায়নি। কখনো গোলরক্ষক আন্দ্রে ওনানার কাছে আটকেছেন। আবার কখনো হালান্ডের শট ফিরে এসেছে গোলবারে লেগে। এরপরেও অবশ্য জেরেমি ডোকু এক গোল করেছেন ৮৭তম মিনিটে এসে। তাতে ওনানার দায় আছে খানিক। কিন্তু, শেষের ওই গোল অবশ্য ম্যাচের ভাগ্য বদলাতে পারেনি। ম্যানচেস্টার সিটিকে হতাশ করে গেলবারের এফএ কাপ ফাইনালের প্রতিশোধ ঠিকই নিয়েছে ম্যান ইউনাইটেড।

আমরা দু’জনই বেহায়া, জয়কে বললেন জায়েদ খান

ছবি: সংগৃহীত

সম্প্রতি সময়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় আলোচনার আরেক নাম চিত্রনায়ক জায়েদ খান। কখনও ডিগবাজি দিয়ে কখনও নিজের সাজপোশাকের শো-অফ করে। অন্যদিকে কম যান না উপস্থাপক ও অভিনেতা শাহরিয়ার নাজিম জয়ও। তিনিও সঞ্চালনার জন্য আলোচনায় থাকেন।

প্রায়ই তার অনুষ্ঠানে অতিথিদের প্রশ্ন করে বিব্রতকর পরিস্থিতিতে ফেলেন এই অভিনেতা। এবার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নতুন করে আলোচনায়ে এলেন এই দু’জন।

সম্প্রতি জয়ের উপস্থাপনায় একটি অনুষ্ঠানে হাজির হয়েছিলেন জায়েদ। আর সেখানেই নিজেদের বেহায়া বলে মন্তব্য করেন জায়েদ। জায়েদকে জয় প্রশ্ন করেন, ‘অনেকে বলে, জায়েদ খানকে ধইরা যদি ধুমসে পিটাইতে পারতাম। তাহলে মনে খুব শান্তি পেতাম।’ এমন কথার উত্তরে জায়েদ বলেন, ‘এটা আপনার ব্যাপারেও শুনেছি বিদেশে গেলে। আমি বলেছি, পিটাইতে পারব না।’

জায়েদের এমন উত্তরে খানিকটা বিব্রত হয়ে যান জয়। তবে বিষয়টি নিশ্চিত হওয়ার জন্য ফের অভিনেতার কাছে তিনি জানতে চান, ‘এরকম শুনছেন?’ জবাবে জায়েদ বলেন, ‘অনেক। আপনার আমার সেইম কেস। আমারে যারা গালি দেয়, তারা আপনারেও গালি দেয়। আমাকে ফোন করে বলে যে, এই বেহায়া লোকের শো তে যাওয়া যাবে না। আমি বলেছি, ভাই আমিও আরেক বেহায়া। আমরা দু’জনই বেহায়া।’ এরই মধ্যে সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে জয় ও জায়েদের এই অনুষ্ঠানের কিছু অংশ। যার কারণে নতুন করে ট্রলের মুখে পড়েছেন তারা।

সর্বশেষ সংবাদ

‘ক্ষমতা হারানোর আতঙ্ক থেকেই সরকার নেতাকর্মীদের কারাবন্দি করছে’
সিটিকে হারিয়ে ৮ বছর পর এফএ কাপ জিতল ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড
আমরা দু’জনই বেহায়া, জয়কে বললেন জায়েদ খান
এমপি আনার হত্যাকাণ্ড, জড়িত শিলাস্তির মিলেছে অজানা পরিচয়
ঠাকুরগাওঁয়ে সোনার খোঁজে মাটি খুঁড়ছে মানুষ
চীন গেল আওয়ামী লীগের ৫০ সদস্যের প্রতিনিধি দল
প্রতিষ্ঠান সিলগালা: ভোক্তা অধিদপ্তরের তৎপরতা চ্যালেঞ্জ করে তনির রিট
গোবিন্দগঞ্জে বালতির পানিতে পড়ে শিশুর মৃত্যু
কলেজে ভর্তির আবেদন শুরু হচ্ছে কাল
চুয়াডাঙ্গায় পানিতে ডুবে দুই শিশুর মৃত্যু
একই অ্যাপে দুটি হোয়াটসঅ্যাপ অ্যাকাউন্ট ব্যবহার করবেন যেভাবে
সাগরে গভীর নিম্নচাপ, উপকূলীয় এলাকায় লঞ্চ চলাচল বন্ধের নির্দেশ
গলায় ফাঁস দিয়ে রুয়েট শিক্ষার্থীর আত্মহত্যা
চুয়াডাঙ্গায় আবারো সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড, বইছে তীব্র তাপপ্রবাহ
রাইসির হেলিকপ্টারে নাশকতার কোনো প্রমাণ মেলেনি
নওগাঁয় শ্রমিক নেতাদের মুক্তির দাবিতে জেলার অভ্যন্তরীণ রুটে বাস চলাচল বন্ধ
যৌনকর্মীর চরিত্রে অভিনয় করে কানে সেরা পুরস্কার জিতলেন বাঙালি অভিনেত্রী
চট্টগ্রামে বাস-সিএনজি মুখোমুখি সংঘর্ষ, নিহত ২
বিরোধীদের শত্রু বলে কখনোই মনে করি না: নরেন্দ্র মোদি
এমপি আনার খুনের তদন্তে ভারত যাবে ডিবি