৮০ বছর পর পৃথিবীর জনসংখ্যা ২শ কোটি কমে যাবে

১৫ জুলাই ২০২০, ০৮:৪২ পিএম | আপডেট: ০৮ আগস্ট ২০২০, ০৫:৩১ পিএম


৮০ বছর পর পৃথিবীর জনসংখ্যা ২শ কোটি কমে যাবে
ছবি সংগৃহীত

২১০০ সালে বিশ্বের জনসংখ্যায় বড় ধরনের পরিবর্তন আসতে যাচ্ছে। কারণ আগামী ৮০ বছর পর পৃথিবীতে মানুষের সংখ্যা ২০০ কোটি কমে যাবে। আলজাজিরা জানায়, বুধবার বিশ্বের সবচেয়ে পুরোনো মেডিকেল জার্নাল দ্য ল্যানসেটে প্রকাশিত এক গবেষণা নিবন্ধে এ তথ্য পাওয়া গেছে।

তাতে দেখা যায়, ২১০০ সালে ইতালি, জাপান, পোল্যান্ড, পর্তুগাল, দক্ষিণ কোরিয়া, স্পেন, থাইল্যান্ডসহ ২০টিরও বেশি দেশে জনসংখ্যা অর্ধেক কমে যাবে। চীনের জনসংখ্যাতেও বড় ধরনের পরিবর্তন ঘটবে। বিশ্বের সর্বাধিক জনসংখ্যার দেশটিতে বর্তমান মানুষের সংখ্যা কমে আগামী ৮০ বছর পর ৭৩০ মিলিয়নে দাঁড়াবে।

এই শতাব্দীর শেষে ৮.৮ বিলিয়ন মানুষের বসবাস থাকবে পৃথিবীতে। যা জাতিসংঘের বর্তমান পরিসংখ্যান থেকে ২০০ কোটিরও কম। অভিবাসীদের ঢল আটকে দেয়ার ফলে ১৯৫টির দেশের মধ্যে ১৮৩টিতেই জনসংখ্যার স্তর বজায় রাখতে প্রয়োজনীয় প্রতিস্থাপন সীমা কমে যাবে।

অন্যদিকে সাব সাহারা আফ্রিকায় জনসংখ্যা তিনগুণ বেড়ে দাঁড়াবে তিন বিলিয়নে। এককভাবে নাইজেরিয়াতেই জনসংখ্যা হবে ৮০০ মিলিয়ন এবং ভারতের এক ১.১ বিলিয়ন।

গবেষণাপত্রটির প্রধান লেখক ওয়াশিংটন ইউনিভার্সিটির ইনস্টিটিউট ফর হেলথ মেট্রিকস অ্যান্ড ইভালুয়েশন (আইএইএমই) এর ডিরেক্টর ক্রিস্টোফার মারে।

তার মতে, জনসংখ্যার পরিবর্তনের এই পূর্ভাবাস পরিবেশের জন্য সুসংবাদ। এতে খাদ্য উৎপাদন ব্যবস্থায় চাপ কমে যাবে, কার্বণ নিঃসরণও হ্রাস পাবে।

চট্টগ্রাম নগর কমিটিতে নিজেদের রাখতে নগর বিএনপির শীর্ষ নেতাদের অবরুদ্ধ করেছে বিবাহিত ছাত্রদল নেতারা। এসময় নগর বিএনপির সভাপতি ডা. শাহাদাত হোসেন, সিনিয়র সহ-সভাপতি আবু সুফিয়ান, সাধারণ সম্পাদক আবুল হাশেম বক্কর, সাংগঠনিক সম্পাদক কামরুল ইসলামসহ শীর্ষ কয়েকজন নেতা দেড় ঘণ্টা অবরুদ্ধ হয়ে পড়েন। পরে এ বিষয়ে কেন্দ্রের সাথে কথা বলার আশ্বাস দিয়ে মুক্ত হন বিএনপি নেতারা। বুধবার দুপুরে নগর বিএনপি’র কার্যালয় নাসিমন ভবনে এ ঘটনা ঘটে।

মহানগর বিএনপি’র সভাপতি ডা. শাহাদাত হোসেন বলেন, বিবাহিত ও অবিবাহিতদের সমন্বয় করে কমিটি করার দাবি নিয়ে এসেছিল কিছু ছাত্রনেতা। যারা কারা নির্যাতিত ও দলের জন্য ত্যাগ স্বীকার করেছে তাদের কমিটিতে রাখার সুপারিশ করবো এমন আশ্বাস দিয়েছে। এ বিষয়ে আমরা কেন্দ্রের সাথে কথা বলবো।’
জানা যায়, মহানগর বিএনপি’র উদ্যোগে করোনা রোগীদের জন্য ফ্রি অক্সিজেন ও মেডিসিন সেবা কার্যক্রম উদ্বোধনের জন্য কার্যালয়ে আসেন বিএনপি নেতারা। অনুষ্ঠান শেষে বিএনপি নেতারা বের হওয়া চেষ্টা করলে তাদের অবরুদ্ধ করে রাখেন বিবাহিত ছাত্রদল নেতারা। বিবাহিত অবিবাহিতদের সমন্বয়ে কমিটি করা হবে এমন আশ্বাস দিয়ে অবরুদ্ধ থেকে মুক্ত হন বিএনপির নেতারা।

বিবাহিত ছাত্রদল নেতাদের পক্ষে আরিফ উদ্দিন রুবেল বলেন, ‘আমরা বিগত সময়ে আন্দোলন সংগ্রামে ছিলাম। কারাভোগ করেছি। নির্যাতন সহ্য করেছি। তাই ছাত্রদলের স্বীকৃতি দাবি করে সিনিয়র নেতাদের দাবি জানিয়েছি। তারা আশ্বাস দিয়েছেন বিবাহিত ও অবিবাহিতদের সমন্বয়ে কমিটি গঠন করতে কেন্দ্রীয় ছাত্রদল নেতাদের অনুরোধ করা হবে।’


বিভাগ : ফিচার