বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪ | ৪ আষাঢ় ১৪৩১
Dhaka Prokash

সমঝোতার লক্ষণ নেই, মাঠে থাকবে বিএনপি

আপাতত বিএনপির লক্ষ্য শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন আওয়ামী লীগ সরকারের বিদায়। বিএনপি নেতারা বলছেন, চলমান রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে সংলাপের মাধ্যমে সমঝোতার কোনো লক্ষণ দেখছেন না তারা।

বিএনপি নেতারা এখন নির্দলীয় তত্ত্বাবধায়ক সরকার প্রতিষ্ঠাসহ ১০ দফা ও রাষ্ট্র মেরামতের ২৭ দফার ভিত্তিতে সমমনা দলগুলোর সঙ্গে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। চলমান পরিস্থিতিতে দলের কর্মীদের সাংগঠনিকভাবে চাঙা মনোভাব ধরে রাখতে চলতি বছর ইস্যুভিত্তিক কর্মসূচিতে মাঠে থাকার সিদ্ধান্ত বিএনপি নেতৃত্বের। আপাতত এর বাইরে কিছু ভাবছে না— বিএনপির একাধিক নেতার সঙ্গে কথা বলে এ সব তথ্য জানা গেছে।

সংশ্লিষ্ট নেতারা বলছেন, আওয়ামী লীগ চায় দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনে বিএনপিসহ সব রাজনৈতিক দল অংশ নেবে। কোনো কারণে বিএনপি যদি ভোটে নাও আসে সে ক্ষেত্রে নিবন্ধিত বেশিরভাগ দলকে ভোটে এনে নির্বাচনকে অংশগ্রহণমূলক দেখাবে।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র ঢাকাপ্রকাশ-কে বলেন, বিএনপি নির্বাচনীমুখী দল। নির্বাচনের জন্য আলাদা কোনো প্রস্তুতির প্রয়োজন পড়ে না। এখন কথা হচ্ছে নির্বাচনটা কীভাবে হবে? কার অধীনে হবে? শেখ হাসিনা ও তার সরকারকে ক্ষমতায় রেখে নির্বাচনে যাবো না বলেই তো আমরা আন্দোলন করছি, মামলা হামলার শিকার হচ্ছি, গ্রেপ্তার হচ্ছি। ইতোমধ্যে গণতান্ত্রিক আন্দোলন করতে গিয়ে বেশকয়েকজন প্রাণ দিয়েছে। যদি শেখ হাসিনাকে ক্ষমতায় রেখেই বিএনপি নির্বাচনে যায় তাহলে তো আন্দোলন করার প্রয়োজন পড়ে না।

তিনি বলেন, শেখ হাসিনার অধীনে নির্বাচন আমরা বর্জন করেছি আবার অংশগ্রহণও করেছি। অতীত অভিজ্ঞতা বলে দিচ্ছে যে, দেশে অবাধ সুষ্ঠু নির্বাচনের প্রধান বাধা শেখ হাসিনা। সেই কারণেই আমরা বলছি, শেখ হাসিনার পদত্যাগ হলো আগামী নির্বাচনে সুষ্ঠু অবাধ নির্বাচনের পূর্বশর্ত। এই পূর্বশর্ত পূরণ হলে আমাদের সব শর্তই পূরণ হবে।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু বলেছেন, আশা করছি জাতীয় ঐক্যের ভিত্তিতে এই সরকারের পতন করে বাংলাদেশের মানুষের ভোটাধিকার ফিরিয়ে দেব। তারপর দেশের মানুষ যাকে ইচ্ছা তাকে ভোট দেবে। এ লক্ষ্যে আমরা আন্দোলনে রয়েছি। আশা করি আমরা এই আন্দোলনে জয়লাভ করব।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বিএনপির নেতৃত্বে এই মুহূর্তে কোনো জোট নেই। আনুষ্ঠানিকভাবে না হলেও তাদের ২০-দলীয় জোট ও জাতীয় ঐক্যজোট বিলুপ্ত। দলটি যুগপৎ কর্মসূচির মাধ্যমে সমমনাদের নিয়ে একটি প্ল্যাটফর্ম তৈরির পথে হাঁটছে। সেক্ষেত্রে বিতর্কিত জামায়াতে ইসলামীর সঙ্গে জোটে না থাকতে কৌশল নিয়েছে বিএনপি। যাতে জামায়াতের কারণে অন্য কয়েকটি দলের যুগপৎ আন্দোলনে আসতে সমস্যা না হয়।

চলতি বছর রাজনীতিতে সবচেয়ে আলোচিত বিষয় থাকবে জাতীয় নির্বাচন এবং রাজনৈতিক দলগুলোর কার্যক্রম। নির্বাচনের বাকি এক বছর। ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ এখন নিজেদের অবস্থান পুনরায় পাকাপোক্ত করতে এবং বিএনপি পনেরো বছরের খরা কাটাতে মরিয়া। গত বছর দেশব্যাপী গণ-সমাবেশ, গণ-মিছিলের মতো নানা কর্মসূচির মাধ্যমে নিজেদের দাবি আদায়ের আন্দোলন চালিয়েছে বিএনপি। চলতি বছরও ইস্যুভিত্তিক কর্মসূচিতে মাঠে থাকবে দলটি।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন ঢাকাপ্রকাশ-কে বলেন, বিএনপির ১০ দফা দাবি ও ২৭ দফা রূপরেখার সঙ্গে ইতোমধ্যে একাত্মতা প্রকাশ করেছে ৩৩টি রাজনৈতিক দল। দাবি আদায়ে তারা বিএনপির সঙ্গে যুগপৎ কর্মসূচি পালনেরও ঘোষণা দিয়েছে। যুগপৎ আন্দোলনে আসার জন্য বিএনপি সব দলকেই আহ্বান জানাচ্ছে। সমমনা অনেক দলই সরকারের পতনের দাবিতে আন্দোলন করছে। তারাও যুগপৎ আন্দোলনে নেমে আসুক সেটেই চায় বিএনপি।

তৃণমূলে বিএনপি নেতারা

গত সোমবার (২ জানুয়ারি) থেকে শুরু করে ১০ জানুয়ারি পর্যন্ত দেশব্যাপী ৭১টি জেলা ও মহানগরে এই কর্মসূচি চলবে।

১০ দফা দাবি ও রাষ্ট্র কাঠামো মেরামতের রূপরেখার বিশ্লেষণ ও ব্যাখ্যা প্রদান করতে গত ৩ জানুয়ারি বিএনপির জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান ঠাকুরগাঁও, জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী জামালপুর, ভাইস চেয়ারম্যান মো. শাহজাহান ফেনী, ভাইস চেয়ারম্যান নিতাই রায় চৌধুরী ঝিনাইদহ, ৪ জানুয়ারি বিএনপির জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান নীলফামারী ও সৈয়দপুর, স্থায়ী কমিটির সদস্য ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু সিরাজগঞ্জ, বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু নওগাঁ এবং সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্স শেরপুরের কর্মসূচিতে যোগ দেন।

এ ছাড়া ৫ জানুয়ারি বিএনপির জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আব্দুল মঈন খান মানিকগঞ্জ, স্থায়ী কমিটির সদস্য ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু বগুড়া, ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ আল-নোমান নরসিংদী, ভাইস চেয়ারম্যান মো. শাহজাহান টাঙ্গাইল, ভাইস চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. এ জেড এম জাহিদ হোসেন দিনাজপুর, ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট জয়নুল আবেদীন বরগুনা, চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য আবুল খায়ের ভূঁইয়া খাগড়াছড়ি, ৬ জানুয়ারি বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ডা. এ জেড এম জাহিদ হোসেন হবিগঞ্জ, ভাইস চেয়ারম্যান ব্যারিস্টার শাহজাহান ওমর বীর উত্তম পটুয়াখালী, বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য আমান উল্লাহ আমান গাজীপুর মহানগর, উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য মিজানুর রহমান মিনু নাটোর, ইসমাইল জবিউল্লাহ রাজবাড়ী, বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব অ্যাড. সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল মুন্সিগঞ্জ, যুগ্ম মহাসচিব হাবিব উন-নবী-খান সোহেল ব্রাহ্মণবাড়িয়া এবং সাংগঠনিক সম্পাদক অনিন্দ্য ইসলাম অমিত নড়াইলের কর্মসূচিতে যোগ দেবেন।

অন্যান্য জেলা ও মহানগরে ৭ জানুয়ারি থেকে ১০ জানুয়ারি পর্যন্ত অনুরূপ কর্মসূচি পালিত হবে এবং কেন্দ্রীয় নেতারা সে সব কর্মসূচিতে যোগ দেবেন। বিএনপির কেন্দ্রীয় দপ্তর থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

এনএইচবি/আরএ/

Header Ad

মূল্যস্ফীতির কারণে ঈদ ব্যাহত হয়েছে, বিএনপির এ তথ্য ঠিক নয় : কাদের

ছবি: সংগৃহীত

মূল্যস্ফীতির কারণে ঈদ ব্যাহত হয়েছে, বিএনপির এ তথ্য ঠিক নয় বলে দাবি করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেছেন, মূল্যস্ফীতির মধ্য দিয়ে এক কোটি ৪০ লাখের বেশি কোরবানি হয়েছে। যা গতবারের তুলনায় বেশি।

মঙ্গলবার (১৮ জুন) রাজধানীর ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির কার্যালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে এ কথা বলেন ওবায়দুল কাদের।

তিনি বলেন, সমালোচনা করে বিএনপিসহ তাদের সমর্থকরা দেশটাকে শ্রীলঙ্কা বানিয়ে ফেলার চেষ্টা করেছে। মূল্যস্ফীতি আছে তবে এটা কমাতে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

ঈদের দিনেও সরকারের বিরুদ্ধে বিএনপির অপপ্রচার বন্ধ থাকেনি অভিযোগ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে তাদের বিরুদ্ধে কোনো বক্তব্যও দেওয়া হয়নি।

মিয়ানমারের বিষয়ে মির্জা ফখরুলকে চ্যালেঞ্জ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, বাংলাদেশের সার্বভৌমত্বে কোথায় আঘাত হানা হচ্ছে। অনুপ্রবেশকারীরা চলে গেছে জাহাজও সরে গেছে।

তিনি আরও বলেন, দুর্নীতির বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি ঘোষণা দিয়েছেন শেখ হাসিনা এবং দুদককেও স্বাধীন করেছেন তিনি। যতই প্রভাবশালী হোক দুর্নীতি করলে কারো ছাড় নেই।

 

দেশের অর্থনীতির কোমর ভেঙে ফেলা হয়েছে : রিজভী

ছবি: সংগৃহীত

বিভিন্ন অনিয়ম আর দূর্নীতি আর সরকারের ব্যর্থতার মাধ্যমে দেশের অর্থনীতির কোমর ভেঙে ফেলা হয়েছে বলে দাবি করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

মঙ্গলবার (১৮ জুন) রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন তিনি।

তিনি বলেন, ব্যাপক বেকারত্ব, চরম মূল্যস্ফীতি, রিজার্ভের ভয়াবহ পতন, ডলার সংকট, বিপুল পরিমাণ খেলাপি ঋণ এবং ব্যাংকগুলো খালি হয়ে যাওয়া, জ্বালানি নিশ্চয়তা ছাড়া একের পর এক ভাড়াভিত্তিক বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্র নির্মাণ, হাজার হাজার কোটি টাকার ভর্তুকির মাধ্যমে দেশের অর্থনীতির কোমর ভেঙে ফেলা হয়েছে।

রিজভী বলেন, ব্যক্তিগত আয় ও জীবনযাত্রার মান দিন দিন প্রকট হচ্ছে। দেশে আর্থিক খাত এখন সবচেয়ে বিপর্যস্ত ও নিরাপত্তাহীন। নৈতিকতাহীন, অপচয়, অনিয়ম, দুর্নীতি ও অব্যবস্থাপনার কারণে ব্যাংক খাত এখন খাদের কিনারে। ভয়াবহ আর্থিক খাতের দুরবস্থা থেকে মানুষের চোখ সরানোর জন্য সরকার এখন নানা তামাশা ও চক্রান্তের আশ্রয় নিয়েছে।

এবারের ঈদে মানুষ নিরানন্দে দিন কাটিয়েছে বলে উল্লেখ করে তিনি বলেন, গরুর হাটে কেনাকাটা ছিল কম। ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়ে খামারিরা গরু বিক্রি করতে না পেরে চরম দেনাগ্রস্ত হয়ে পড়েছে, কারণ মানুষের হাতে টাকা নেই। তাই দখলদার সরকার জোর করে টিকে থাকার জন্য জাতীয় স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব বেচতে শুরু করেছে।

ভারতীয় রেলওয়ে বোর্ড ভারতের সামরিক ও বেসামরিক পরিবহনের জন্য বাংলাদেশের ভেতর দিয়ে রেললাইন নেটওয়ার্ক তৈরি উদ্যোগ গ্রহণ করেছে মন্তব্য করে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব বলেন, এতে একটি স্বাধীন ও সার্বভৌম দেশের ‘ইন্টেলিজেন্স’ ব্যবস্থা ভেঙে পড়বে। দেশের জনগণের ইচ্ছার বিরুদ্ধে বাংলাদেশের নতজানু সরকার যদি এই রেললাইন নেটওয়ার্ক বাস্তবায়ন করে তাতে স্বাধীন বাংলাদেশের অস্তিত্বকে ক্রমাগতভাবে মিলিয়ে দেওয়া হবে।

রিজভী দাবি করেন, মানুষের মতপ্রকাশ ও বাকস্বাধীনতা আরও বিপজ্জনক পরিস্থিতির মধ্যে পড়তে যাচ্ছে বলে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংগঠন অভিমত প্রকাশ করেছে। তিনি বলেন, আন্তর্জাতিক অধিকার গ্রুপগুলো ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের যে ধারাগুলো বাতিলের দাবি জানিয়েছিল, সেই ধারাগুলোই সাইবার নিরাপত্তা আইনের বিধিমালায় অন্তর্ভুক্ত করা হচ্ছে।

প্রস্তাবিত সাইবার নিরাপত্তা বিধিমালায় মতপ্রকাশ, গণমাধ্যমের স্বাধীনতা ও মানবাধিকার হরণমূলক ধারা সংযোজিত হবে বলে উল্লেখ করেন বিএনপির সিনিয়র এ নেতা। তিনি বলেন, এটি বাস্তবায়িত হলে আওয়ামী ফ্যাসিবাদ চূড়ান্ত রূপ ধারণ করবে। মতপ্রকাশের স্বাধীনতা কফিনে ঢুকানোর পর এটাই হবে সর্বশেষ পেরেক।

দেশের খ্যাতিমান কবি অসীম সাহা আর নেই

ছবি: সংগৃহীত

মারা গেছেন দেশের খ্যাতিমান কবি অসীম সাহা। মঙ্গলবার (১৮ জুন) বিকেল ৪টার দিকে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালেয় (বিএসএমএমইউ) শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি।

তার মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেছেন কবি, ছড়াকার ও শিশুসাহিত্যিক মালেক মাহমুদ। কবি অসীম সাহা পারকিনসন (হাতকাঁপা রোগ), কোষ্ঠকাঠিন্য ও ডায়াবেটিসসহ বিভিন্ন রোগে ভুগছিলেন।

১৯৪৯ সালের ২০ ফেব্রুয়ারি নেত্রকোনা জেলায় তার মামার বাড়িতে জন্মগ্রহণ করেন অসীম সাহা। তার পৈতৃক নিবাস মাদারীপুর। তার বাবা অখিল বন্ধু সাহা ছিলেন অধ্যাপক।

অসীম সাহা ১৯৬৫ সালে মাধ্যমিক পাস করেন এবং ১৯৬৭ সালে মাদারীপুর নাজিমুদ্দিন মহাবিদ্যালয় থেকে উচ্চমাধ্যমিক পাস করেন। ১৯৬৯ সালে স্নাতক পাস করে তিনি ১৯৬৯ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে বাংলা বিভাগে ভর্তি হন। ১৯৬৯ সালে অসহযোগ আন্দোলন এবং পরে ১৯৭১ সালে স্বাধীনতাযুদ্ধ শুরু হলে তার স্নাতকোত্তর পরীক্ষা পিছিয়ে যায় এবং তিনি ১৯৭৩ সালে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি লাভ করেন।

বাংলা সাহিত্যে অবদানের জন্য ২০১২ সালে বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার লাভ করেন অসীম সাহা। বাংলা ভাষা ও সাহিত্যে অবদানের জন্য ২০১৯ সালে বাংলাদেশ সরকার তাকে দেশের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ বেসামরিক সম্মাননা একুশে পদকে ভূষিত করে।

 

সর্বশেষ সংবাদ

মূল্যস্ফীতির কারণে ঈদ ব্যাহত হয়েছে, বিএনপির এ তথ্য ঠিক নয় : কাদের
দেশের অর্থনীতির কোমর ভেঙে ফেলা হয়েছে : রিজভী
দেশের খ্যাতিমান কবি অসীম সাহা আর নেই
সালমান খানের বাড়িতে হামলার ঘটনায় এবার ইউটিউবার গ্রেপ্তার
২০২৬ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে যে ১২ দল সরাসরি খেলবে
সুনামগঞ্জে বন্যা পরিস্থিতির আরও অবনতি, ডুবছে নতুন নতুন এলাকা
কমানো হতে পারে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে চলমান ছুটি
ঈদের দ্বিতীয় দিনেও রাজধানীতে চলছে পশু কোরবানি
ওয়েস্ট ইন্ডিজের কাছে ১০৪ রানের বিশাল ব্যবধানে পরাজিত আফগানরা
কোরবানীর গরু নিয়ে বাড়ি ফেরা হলো না দোহার
অপু ছাগল আর বুবলী গরু কোরবানি দিয়েছেন
রাখাইনের বাসিন্দাদের বাংলাদেশ সীমান্তবর্তী এলাকা ছাড়ার আহ্বান আরাকান আর্মির
ভূমধ্যসাগরে নৌকা ডুবে নিহত ১০, বাংলাদেশিসহ জীবিত উদ্ধার ৫১
ঈদের দিনে ৭ জেলার সড়কে প্রাণ গেল ১২ জনের
ঈদের দিনে পর্যটকের দেখা নেই কক্সবাজারে
ভারী বৃষ্টিতে ডুবল সিলেট, কোরবানি দিতে পারেননি অনেকে
ঈদের দিনে মাছ ধরতে গিয়ে বজ্রপাতে জেলের মৃত্যু
রাজধানীতে কসাইসের অভাবে কোরবানি আগামীকাল
নওগাঁয় বেপরোয়া গতিতে মোটরসাইকেল চালিয়ে প্রাণ গেল কিশোরের
বিশ্বকাপের সুপার এইটে বাংলাদেশের ম্যাচের সূচি