বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ | ১৪ ফাল্গুন ১৪৩০
বেটা ভার্সন
Dhaka Prokash

অর্থনীতির প্রধান চালিকাশক্তি গ্রামীণ রূপান্তরে মনোযোগ দিতে হবে

গ্রামীণ রূপান্তর নিয়ে বেশকিছু প্রশ্ন সামনে আসছে। এগুলোর উত্তর খোঁজা জরুরি। স্বীকার করতেই হবে, গ্রাম নিয়ে সমাজতাত্ত্বিক গবেষণার ঘাটতি রয়েছে। গ্রামীণ অর্থনীতি নিয়ে কিছু গবেষণা হয়েছে বটে, কিন্তু তার বিস্তৃতি বাড়েনি। সমাজতাত্ত্বিক গবেষণার দৃষ্টিভঙ্গিতে নতুন গ্রামীণ বাস্তবতায় দুটি গুরুত্বপূর্ণ বৈশিষ্ট্য দেখার আছে- নতুন গ্রামীণ বাস্তবতায় ক্ষমতা বলতে কী বোঝায় এবং ক্ষমতার কেন্দ্রবিন্দুগুলো কী? আগে গ্রামের ক্ষমতাকাঠামোয় জোতদার, মাতব্বর প্রভৃতি শিক্ষিত মধ্যবিত্ত গোষ্ঠী ছিল। এখন সেখানে রাজনীতি ও রাষ্ট্রের অনুপ্রবেশ ঘটেছে। গ্রামীণ ক্ষমতার কেন্দ্রের মধ্যে পুলিশের উপস্থিতি এখন দৃশ্যমান। গবেষণার একটা বিষয় হতে পারে, গ্রামে আজকাল কী নিয়ে ঝগড়া হয়? গ্রামীণ বিবাদের মূল বিষয়গুলো কী? বিবাদের ধরনগুলো বুঝলে ক্ষমতার ভরকেন্দ্রগুলো সম্পর্কে ধারণা পাওয়া যাবে। নারীর আবির্ভাবও গ্রামীণ বিবর্তনের একটি নিয়ামক শক্তি। আরেকটা বড় ইস্যু চলে আসছে পরিবেশ। জলবায়ু পরিবর্তন নিয়ে ঢাকায় যত সেমিনার হয়, তার তথ্যউপাত্ত আসে গ্রাম থেকেই। উপকূলীয় অঞ্চলে কয়েকটা ঘূর্ণিঝড় হলো, সেটার জন্য জলবায়ু পরিবর্তন কতটা দায়ী ইত্যাদি বিষয় রয়েছে।

আরেকটা বড় বিষয় হচ্ছে গ্রামীণ সংস্কৃতির পরিবর্তন। সংস্কৃতির বিবর্তনটা গ্রামে কেমন হয়েছে? একটা বিষয় আমরা বুঝতে পারছি গ্রামে নগরের সংস্কৃতি, এমনকি বিশ্ব সংস্কৃতি প্রবেশ করছে। বাউল গান, যাত্রাপালা, পটগান ইত্যাদি একসময় গ্রামীণ সংস্কৃতির অংশ ছিল। এখন সেখানেও পরিবর্তনের ছোঁয়া লেগেছে। ক্যাবল টিভি এখনো গ্রামেও বিস্তৃত হয়েছে। এক্ষেত্রে গ্রামীণ সংস্কৃতির বিবর্তনটা কেমন হচ্ছে, সেটাও খুব স্পষ্ট নয়। এর ফলে দুর্ভাগ্যজনকভাবে বিভেদ তৈরি হচ্ছে, যা অর্থনীতির অগ্রগতির জন্য সুখকর নয়।

গ্রাম হচ্ছে পুনর্জন্মের আধার। গ্রাম হচ্ছে বাড়ি। বাড়ি শব্দটা এখনো ব্যবহার হয়। মানুষকে তার বাড়ি জিজ্ঞাসা করলে তিনি বলেন, ‘আমার বাড়ি ওমুক গ্রামে। পৃথিবী যদি বিলীন হয়ে যায়, তাহলে আমি কোথায় গিয়ে থাকব? আমি গ্রামের বাড়িতে থাকব, এ ধারণাটি এখনো বিদ্যমান। কভিডের সময়ে কর্মসংস্থান হারিয়ে মানুষ গ্রামে ফিরেছে। সুতরাং গ্রামের মনস্তাত্ত্বিক আকর্ষণ এখনো রয়েছে। এক্ষেত্রে গ্রাম হচ্ছে আশ্রয়স্থল, সেখানে এত নিয়ম-কানুন নেই। যে নিয়ম-কানুনগুলো আছে, সেগুলো সামাজিক নিয়ম-কানুন। যেটা সবাই আত্মস্থ করে রেখেছে।’

এক্ষেত্রে একটি প্রশ্ন রেখে গ্রামীণ রূপান্তরের এবারের পর্ব শেষ করতে চাই। পারিবারিক ব্যবস্থা কি গ্রামেও ভেঙে গেছে? আমরা জানি শহরে মানুষ আসে, হঠাৎ করে চলেও যায়। এর মধ্যে জলবায়ু পরিবর্তন শহরের অভিবাসনকে আরও বাড়িয়ে তুলেছে। তার পরও মনস্তাত্ত্বিক আশ্রয়স্থল হিসেবে শহর এখনো নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করতে পারেনি। ব্যতিক্রম হিসেবে বিশেষ একটা গোষ্ঠী হয়তো করতে পেরেছে। এমনকি শহরের মধ্যে পাড়াভিত্তিক যে কমিউনিটি লাইফ ছিল, সেটাও ছিল গ্রামীণ সমাজের একটা রূপান্তর। গ্রামের পাড়াকে কেন্দ্র করে শহরের পাড়া গড়ে উঠেছিল। গ্রামের মনস্তাত্ত্বিক আশ্রয়স্থলকে মানুষ নগরে নিয়ে এসেছিল। গ্রামে পাড়ার কী অবস্থা? সেটি ভেঙে গেছে, নাকি চিন্তার মধ্যে একটা অবস্থান এখনো রয়ে গেছে।

বাংলাদেশের উন্নয়নের পাঠ ও পরের স্তরকে বুঝতে হলে গ্রামের রূপান্তর সম্পর্কে সম্মুখ ধারণা লাভ করতে হবে। সেক্ষেত্রে সামাজিক, রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক ও নৃতাত্ত্বিক গবেষণা প্রয়োজন। কারণ ভবিষ্যতের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির বড় অংশের জোগান আসবে গ্রাম থেকে। ফলে গ্রামের কাঠামোগত বিবর্তন, বিন্যাস সম্পর্কে ধারণা লাভ না করে উন্নয়ন পরিকল্পনা প্রণয়ন কঠিন হয়ে পড়বে। উপর থেকে চাপিয়ে দেওয়া নীতি গ্রামীণ রূপান্তরকে ক্ষতিগ্রস্ত করতে পারে। বাস্তবতা উপলব্ধি করে গ্রামীণ রূপান্তরকে পরবর্তী ধাপে নিয়ে যেতে হবে। এক্ষেত্রে সরকার, ব্যক্তি খাত ও এনজিওকে বড় ভূমিকা রাখতে হবে।

ড. হোসেন জিল্লুর রহমান: নির্বাহী চেয়ারম্যান, পিপিআরসি ও চেয়ারম্যান, ব্র্যাক।

এসএন

দুই দিন বাড়ল বইমেলার সময়

ছবি: সংগৃহীত

অমর একুশে বইমেলা-২০২৪ এর সময় আরও দুই দিন বাড়ানো হয়েছে। মেলা চলবে আগামী ২ মার্চ (শনিবার) পর্যন্ত।

মঙ্গলবার সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের সচিব খলিল আহমদের বরাতে মেলা পরিচালনা কমিটির সদস্য ও আগামী প্রকাশনীর প্রকাশক ওসমান গনি বিষয়টি সংবাদ মাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, মেলা দুই দিন বৃদ্ধির কথা সংস্কৃতি সচিব জানিয়েছেন। কালকে চিঠি পাঠাবেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বইমেলার সময়সীমা দুদিন বাড়ানোর আবেদনে অনুমোদন দিয়েছেন। তাই বইমেলা চলবে আগামী ২ মার্চ পর্যন্ত।

বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক মুহাম্মদ নুরুল হুদা রাত ৯টায় বইমেলায় ঘোষণা কেন্দ্র থেকেও বইমেলার মেয়াদ বাড়ানো ঘোষণা দেন। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর সদয় সম্মতিক্রমে বই মেলা দুই দিন বাড়ানো হয়েছে।

এর আগে ১৮ ফেব্রুয়ারি একুশে বইমেলার সময় দুদিন বাড়ানোর জন্য বাংলা একাডেমিকে চিঠি দেয় বাংলাদেশ পুস্তক প্রকাশক বিক্রেতা সমিতি।

অশ্লীল অঙ্গভঙ্গির কারণে নিষেধাজ্ঞার মুখে রোনালদো

ছবি: সংগৃহীত

রিয়াদ ডার্বিতে অনুষ্ঠিত সৌদি প্রো লিগে আল শাবাবকে ৩-২ গোলে হারায় ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোর আল নাসর। এই ম্যাচে গোলের দেখা পান রোনালদো। ক্লাব ফুটবল ক্যারিয়ারে ৭৫০ তম গোলের মাইলফলকও স্পর্শ করেন তিনি। তবে মাইলফলকের ম্যাচে অশালীন অঙ্গভঙ্গি করে খবরের শিরোনাম হন রোনালদো। অশ্লীল অঙ্গভঙ্গি করায় নিষেধাজ্ঞার শঙ্কায় পড়েছেন পাঁচবারে ব্যালন ডি'অর জয়ী এই ফুটবলার।

সৌদি সংবাদমাধ্যমের বরাত দিয়ে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম ডেইলি মেইল অনলাইন জানিয়েছে, দৃষ্টিকটু আচরণের জন্য দুই ম্যাচ নিষেধাজ্ঞার পাশাপাশি জরিমানাও দিতে হতে পারে রোনালদোকে।

রোববার রাতে আল শাবাবের বিপক্ষে ৩-২ গোলের ব্যবধানে জয় পায় আল নাসর। ম্যাচের ২১ মিনিটে স্পটকিক থেকে ক্লাব ফুটবল ক্যারিয়ারে ৭৫০তম গোলের মাইলফলক স্পর্শ করেন রোনালদো। ম্যাচ শেষে আল শাবাবের সমর্থকরা 'মেসি, মেসি' বলে স্লোগান দিতে থাকেন। আর এতেই মেজাজ হারিয়ে ফেলেন সিআরসেভেন।

এই সময় কানের পেছনে হাত নিয়ে সেই স্লোগান শুনছেন এমন ভঙ্গি করেন রোনালদো। এরপর আল শাবাব সমর্থকদের উদ্দেশ্য করে অশ্লীল অঙ্গভঙ্গি করেই জয় উদযাপন করেন তিনি। এর আগেও এমন ঘটনা ঘটিয়েছেন রোনালদো।

গত ৯ ফেব্রুয়ারি আল হিলালের বিপক্ষে এক প্রীতি ম্যাচে ২-০ গোলে হারের পর বাজে অঙ্গভঙ্গি করেছিলেন রোনালদো। ম্যাচ শেষে টানেলে ফেরার পর 'মেসি, মেসি' স্লোগান দিয়ে রোনালদোর দিকে স্কার্ফ ছুঁড়ে দেন আল হিলাল সমর্থকরা। সেই স্কার্ফ তুলে নিজের শর্টসের মধ্যে ঢুকিয়ে তা ফেলে দেন এই পর্তুগিজ সুপারস্টার।

সৌদি আরবে একদিনে সাতজনের শিরশ্ছেদ

ছবি: সংগৃহীত

স্থানীয় সময় আজ মঙ্গলবার ‘সন্ত্রাসবাদের’ অভিযোগে সৌদি আরবে একদিনে সাতজনের শিরশ্ছেদের মাধ্যমে তাদের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়েছে।

২০২২ সালে একবার দেশটিতে একদিনে ৮১ জনের শিরশ্ছেদ করা হয়েছিল। ওইদিনের পর আজই আবার একদিনে সর্বোচ্চ সংখ্যক মানুষের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হলো।

সৌদির রাষ্ট্রয়ত্ত বার্তাসংস্থা সৌদি প্রেসি এজেন্সি দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বরাতে জানিয়েছে, এই সাতজন “সন্ত্রাসী সংগঠন তৈরি ও অর্থায়নের” অভিযোগে অভিযুক্ত হয়েছিলেন।

বিশ্বে মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের দিক দিয়ে শীর্ষ তিন দেশের মধ্যে রয়েছে সৌদি আরব। এ বছর এখন পর্যন্ত দেশটিতে ২৯ জনের শিরশ্ছেদ করা হয়েছে। এর আগে ২০২৩ সালে সৌদিতে ১৭০ জনের মৃত্যুদণ্ড কার্যকরা করা হয়েছিল।

দুই বছর আগে একদিনে ৮১ জনের শিরশ্ছেদ করার পর বিশ্বজুড়ে তুমুল সমালোচনার মুখে পড়েছিল সৌদি আরব।

আজ যাদের মৃত্যুদণ্ড কার্যকরা করা হয়েছে তাদের জাতীয়তা প্রকাশ করা হয়নি। তবে তাদের নামের বিষয়টি ইঙ্গিত করছে তারা সবাই সৌদির নাগরিক ছিলেন।

সৌদি প্রেস এজেন্সির খবরে আরও বলা হয়েছে, এই সাতজন “সন্ত্রাসবাদের পথ বেঁছে নেওয়ার অভিযোগে অভিযুক্ত হয়েছেন যেটির মাধ্যমে রক্ত ঝরানোর আহ্বান জানানো হয়, তারা সন্ত্রাসী সংগঠন ও প্রতিষ্ঠান তৈরি এবং অর্থায়ন করেছিলেন এবং সমাজের শান্তি ও স্থিতিশীলতা বিনষ্টের জন্য সন্ত্রাসী সংগঠনের সঙ্গে যোগাযোগ করেছিলেন।”

তবে তারা কোন দল তৈরি করেছিলেন বা কি ধরনের সন্ত্রাসী কার্যক্রমের সঙ্গে যুক্ত হয়েছিলেন সে ব্যাপারে বিস্তারিত কোনো কিছু জানায়নি সৌদি প্রেস এজেন্সি।

সৌদির কর্তৃপক্ষের বক্তব্য হলো, আইন ও কোরআনভিত্তিক শরীয়াহ শাসন অক্ষুন্ন রাখতে মৃত্যুদণ্ড অপরিহার্য।

সর্বশেষ সংবাদ

দুই দিন বাড়ল বইমেলার সময়
অশ্লীল অঙ্গভঙ্গির কারণে নিষেধাজ্ঞার মুখে রোনালদো
সৌদি আরবে একদিনে সাতজনের শিরশ্ছেদ
আইসিইউতে তরুণীকে ধর্ষণ
বায়তুল মোকাররমে বিক্ষোভ-মিছিল নিষিদ্ধের নির্দেশ হাইকোর্টের
শিক্ষাব্যবস্থা থেকে ইসলাম-নৈতিকতাকে সরিয়ে তরুণ প্রজন্মকে ধ্বংস করা হচ্ছে : ড. মাসুদ
মালয়েশিয়ায় গাড়িচাপায় বাংলাদেশি যুবকের মৃত্যু
ধান খেতের পোকা দমনে পার্চিং উৎসব
এবার ঘুষের মামলায় নতুন করে অভিযুক্ত কারাবন্দি ইমরান খান
২৮ বছর পর যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত হত্যা মামলার পলাতক আসামি গ্রেপ্তার
দেশে খাদ্যশস্য মজুদ আছে ১৬ লাখ ৭৯ হাজার মেট্রিক টন : খাদ্যমন্ত্রী
বেঁচে আছেন ‘পঞ্চায়েত ২’ খ্যাত অভিনেত্রী আঁচল তিওয়ারি
সব বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়কে দিতে হবে ১৫ শতাংশ ট্যাক্স: আপিল বিভাগ
দেশের উন্নয়নকে আরও কাছ থেকে দেখবেন বিদেশি কূটনীতিকরা: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
বিয়ে করে হানিমুনে জায়েদ খান !
কারও অবহেলায় এখন কিছু যায় আসে না পরীমণির
ওষুধ ও হার্টের রিংয়ের দাম কমাতেই হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী
রমজানে দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণসহ প্রধানমন্ত্রীর ১৫ নির্দেশনা
যে কারণে ধূমপান ছেড়েছেন শহিদ কাপুর
বাড়ছে বিদ্যুৎ-গ্যাসের দাম, রমজানের আগেই কার্যকর