মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪ | ১১ আষাঢ় ১৪৩১
Dhaka Prokash

বিশেষ সাক্ষাৎকার

‘তত্ত্বাবধায়ক সরকার ছাড়া নির্বাচনে যাব না’

বাংলাদেশের সমসাময়িক রাজনীতি নিয়ে ঢাকাপ্রকাশ-এর সঙ্গে একান্ত সাক্ষাৎকারে কথা বলেছেন বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি) এর মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। সেখানে তিনি বিএনপি’র বিভাগীয় সমাবেশ, ১০ ডিসেম্বর ঢাকার সমবেশ, তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবি, র‌্যাবের ওপর নিষেধাজ্ঞাসহ নানা বিষয়ে কথা বলেছেন। সাক্ষাৎকারটি নিয়েছেন ঢাকাপ্রকাশ-এর জ্যেষ্ঠ সহ-সম্পাদক শাহাদাত হোসেন। কারিগরি সহায়তায় ছিলেন আহমদ সিফাত। সাক্ষাৎকারের চুম্বক অংশ ঢাকাপ্রকাশ-এর পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হলো।

ঢাকাপ্রকাশ: সম্প্রতি আপনারা দেশের বিভাগীয় কয়েকটি শহরে সমাবেশ করেছেন। এতে বিপুল পরিমাণ মানুষের উপস্থিতি লক্ষ্য করা গিয়েছে। আপনি কি মনে করেন বিএনপির পক্ষে গণজোয়ার সৃষ্টি হয়েছে?

মির্জা ফখরুল: প্রকৃত বিষয়টি হচ্ছে যে, গত এক দশকের বেশি সময় ধরে আওয়ামী লীগের জোর করে ক্ষমতায় থাকা এবং ক্ষমতায় থাকার সময় ক্ষমতাকে যথেচ্ছ ব্যবহার করা, তাদের দুঃশাসন, দুর্নীতি, মানুষের অধিকার কেড়ে নেওয়া, মানুষের উপর বিভিন্ন রকম অত্যাচার নির্যাতনের ফলে গোটা দেশের মানুষ এখন আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে একটা অবস্থান নিয়েছে। ইতিমধ্যে তাদের দুঃশাসন, দুর্নীতির ফলে নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্য চাল, ডাল, তেলের দাম যেভাবে বেড়েছে। বিদ্যুৎ, গ্যাস, পানির দাম যেভাবে বেড়েছে তাতে মানুষের জীবনধারণ করা এক ধরনের অসম্ভব হয়ে পড়েছে। এই সবকিছু মিলিয়ে তারা মনে করছে বর্তমান আওয়ামী লীগ যতদিন ক্ষমতায় থাকবে ততদিন তাদের সমস্যাগুলো সমাধান হবে না। যে কারণে সরকারের পরিবর্তনের লক্ষ্যে মানুষ বিএনপির এই সমাবেশগুলোতে অংশগ্রহণ করছে।

এটা অবশ্যই শুধু বিএনপির দাবি দাওয়া নয়, গণমানুষের যে দাবি-তা হচ্ছে এই সরকারের এখন পরিবর্তন হওয়া উচিত। তার জন্য একটা নিরপেক্ষ নির্বাচন হওয়া উচিত। সেই নির্বাচনের জন্য-যেটা আমরা আগেও বলেছি যে, এখানে একটা অন্তবর্তীকালীন তত্ত্বাবধায়ক সরকার ছাড়া এই নির্বাচন কখনই সুষ্ঠু হতে পারে না। যে কারণে আমরা এই নির্বাচন যেন তত্ত্বাবধায় সরকারের অধীন হয়, এই সংসদকে বিলুপ্ত করে দিয়ে, সরকারের পদত্যাগের মধ্য দিয়ে নতুন একটা নির্বাচন কমিশন গঠন করে তার মাধ্যমে নির্বাচন করার দাবি তুলেছি। অর্থাৎ একটা গণতান্ত্রিক ব্যবস্থায় নির্বাচনই সবকিছু নয়, কিন্তু নির্বাচন হচ্ছে একটা প্রধান ফটক বা গেট যেটা পার হলে একটা গণতান্ত্রিক পরিবেশের দিকে যাওয়া সম্ভব হয়। আমরা সে কারণেই নির্বাচনকে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিচ্ছি।
কিন্তু আমরা অতীত অভিজ্ঞতায় যেটা দেখেছি-আওয়ামী লীগ সরকারের অধীনে ২০১৪ এবং ২০১৮ সালে পরপর দুটা নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। তারা জোর করে (নির্বাচন) করেছে। যেখানে মানুষের কোনো অংশগ্রহণ ছিল না। তারা আগের রাত্রে ভোট নিয়ে, বিনা ভোটের মাধ্যমে জোর করে ক্ষমতা দখল করে ক্ষমতায় আছে। যে কারণে দেশে চরম অর্থনৈতিক সংকট, রাজনৈতিক সংকট এবং সুশাসনের সংকট সৃষ্টি হয়েছে। যে কারণে মানুষ বিরোধীদলের এই সমাবেশগুলোতে এভাবে উপস্থিত হচ্ছে।

ঢাকাপ্রকাশ: আগামী ১০ ডিসেম্বর আপনারা ঢাকায় মহাসমাবেশের ডাক দিয়েছেন। এই মহাসমাবেশের মধ্য দিয়ে আপনারা সরকারকে কী বার্তা দিতে চান?

মির্জা ফখরুল: প্রথমেই বলে নেই- এটি একটি ভুল ধারণা সৃষ্টি হয়েছে। ১০ ডিসেম্বর আমরা ঢাকায় কোন মহাসমাবেশের ডাক দেইনি। আমরা দশটি বিভাগে ১০টি সমাবেশ করেছি। তার মধ্যে ১০ ডিসেম্বর ঢাকায় আমাদের একটি গণসমাবেশ আছে। এই গণসমাবেশকে সফল করার জন্য ঢাকা বিভাগের বিভিন্ন জেলায় কাজ হচ্ছে, প্রচার হচ্ছে। নেতা-কর্মীরা সে কাজগুলো করছেন। ঢাকা বিভাগের গণসমাবেশের মধ্য দিয়ে বিভাগীয় গণসমাবেশগুলোর একটা ফেজ শেষ হবে। পরবর্তী ধাপে আমরা মূল দাবিগুলো নিয়ে অর্থাৎ সরকার পতনের দাবি, সংসদ বিলুপ্তির দাবি, তত্ত্বাবধায়ক সরকার গঠনের দাবি, নতুন নির্বাচন কমিশন গঠন করার দাবি, এই গুলো নিয়ে আমরা সামনে আসব।

ঢাকাপ্রকাশ: আপনারা তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে আগামী দ্বাদশ সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠানের দাবি করছেন। এক সময় তো আপনারা এর বিরোধিতা করেছিলেন। এখন কেন আবার তত্ত্বাবধায়ক সরকার ফেরাতে চাচ্ছেন?

মির্জা ফখরুল: রাজনীতি কোনো স্ট্যাটিক ব্যাপার নয়। এখানে কোনো দাবি বা বিষয় একটা চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হতে পারে না। মানুষের প্রয়োজনেই রাজনীতি। আমরা যেটা উপলব্ধি করেছি সেটা হচ্ছে যখন তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবিটা উঠেছে- আওয়ামী লীগই দাবিটা করেছে। সে সময় জাতীয় পার্টি ছিল, জামায়াতে ইসলাম ছিল-তাদের সঙ্গে তারা (আওয়ামী লীগ) দাবিটা করেছে। তখন একটা প্রচলিত নিয়ম ছিল দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন হবে। সেটাকে সামনে রেখে আমরা চিন্তা করেছিলাম। পরে আমরা যেটা দেখি যে আমাদের রাজনৈতিক যে সংস্কৃতি সেই সংস্কৃতির জন্যে নির্বাচনকালীন সময়ে একটা নিরপেক্ষ সরকার না থাকলে কখনই সুষ্ঠ নির্বাচন হতে পারে না। সেজন্য দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া সেটাকে মেনে নিয়ে পার্লামেন্টে বিশেষ সেশন ডেকে তিনি এটাকে (তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা) পাশ করেছেন এবং এটাকে সংবিধানে অন্তর্ভুক্ত করেছেন। সেটার (তত্ত্বাবধায়ক সরকার) অধীনে চারটা নির্বাচন সুষ্ঠভাবে অনুষ্ঠিত হয়েছে। সুতরাং এটা একটা মীমাংসিত বিষয় এখানে নির্বাচনকালীন সময়ে একটা নিরপেক্ষ সরকার থাকা একটা বড় প্রয়োজন হয়ে দাড়িয়েছে এবং এটাই সংকটের সমাধান করতে পারে। এ ছাড়া, সংকটের সমাধান সম্ভব নয়।

ঢাকাপ্রকাশ: এবারের তত্ত্বাবধায়ক সরকারের ফর্মুলা কী হবে? এটা কী বিগত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আদলে হবে, না নতুন কোন ফর্মুলায় তত্ত্বাবধায়ক সরকার গঠিত হবে। 

মির্জা ফখরুল: এটা (তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা) তো অতীতে ছিল, আমাদের সংবিধানে ছিল। এর যদি কোনো পরির্বতন করতে হয়, সরকার যদি সেটা এগ্রি করে তাহলে সেটা আলাপ আলোচনা করে কোনো কিছু পরিবর্তন থাকলে সেটুকু পরিবর্তন করা সম্ভব। কিন্তু বেসিক বিষয়টা হচ্ছে একটা নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকার বা নিরপেক্ষ সরকার নির্বাচনকালীন সময়ে থাকতে হবে।

ঢাকাপ্রকাশ: সরকার যদি তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবি না মানে তাহলে আপনারা নির্বাচনের ব্যাপারে কী ধরনের সিদ্ধান্ত নেবেন?

মির্জা ফখরুল: আমরা নির্বাচনে যাব না। আমরা তত্ত্বাবধায়ক সরকার ছাড়া কোনো নির্বাচনে যাব না। আমরা জনমত গড়ে তুলছি এবং জনগণকে সঙ্গে নিয়ে আমরা এই সরকারকে বাধ্য করব তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনেই নির্বাচন দেওয়ার।

ঢাকাপ্রকাশ: বর্তমানে দেশে নানা ধরনের সংকট রয়েছে। আপনি কী মনে করেন বর্তমান সরকার এ সকল সংকট মোকাবিলা করে দেশকে স্বাভাবিক অবস্থায় নিয়ে যেতে পারবে?

মির্জা ফখরুল: এই সরকার তো ব্যর্থ হয়েছে। তারা সংকট মোকাবিলা করতে পারবে না। কারণ এক নম্বর হলো এই সরকারের কোনো জনভিত্তি নেই, জনগণের ম্যান্ডেট নেই। দুই নম্বর হলো এই সরকার সম্পূর্ণ দুর্নীতিপরায়ণ। এত বেশি দুর্নীতিপরায়ণ যে সংকটগুলো দুর্নীতির কারণে আরও বেশি করে সৃষ্টি হয়েছে। এবং ইনিস্টিটিউশনগুলোকে তারা একেবারে ভেঙে ফেলেছে, ব্যাংকিং সিস্টেমকে ভেঙে ফেলেছে, স্টক মার্কেটকে নষ্ট করেছে, পুরো ফিন্যান্স সিস্টেমটাই ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

ঢাকাপ্রকাশ: আপনার বিবেচনায় দেশের বর্তমান সংকট মোকাবিলায় কী ধরনের পদক্ষেপ নেওয়া যেতে পারে?

মির্জা ফখরুল: এটার জন্য বড় প্রয়োজন যেটা সেটা হলো একটা নির্বাচিত সরকার, জনগণের ম্যান্ডেড প্রাপ্ত সরকার।যেটা হলে বিভিন্ন স্টেক হোল্ডার যারা আছে, বিশেষজ্ঞ যারা আছে, দেশের যারা বিশেষজ্ঞ অর্থনীতিবিদ আছেন তাদের সঙ্গে কথা বলে অর্থনৈতিক বিষয়গুলোকে সমাধান করার ব্যবস্থা নিতে পারবে। জনগণের ম্যান্ডেড প্রাপ্ত সরকারের পক্ষে কেবল সেটা সম্ভব। অন্য কোনোভাবে সেটা সম্ভব নয়।

ঢাকাপ্রকাশ: সম্প্রতি গণমাধ্যমে আপনার কয়েকটি সাক্ষাৎকার প্রকাশিত হয়েছে। আপনি তাতে দেশের মানবাধিকার পরিস্থিতি, র‌্যাবের সাবেক ও বর্তমান কিছু কর্মকর্তার উপর যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞার বিষয়ে কথা বলেছেন। আপনি কি মনে করেন নিষেধাজ্ঞার পর পরিস্থিতির উন্নতি হয়েছে?

মির্জা ফখরুল: না বিষয়টা সেরকম নয়। বিষয়টা হলো যে র‌্যাব হলো আমাদের একটি রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠান। এবং এর কাজটা ছিল দেশের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতিকে বিশেষভাবে নিয়ন্ত্রণ করা। কিন্তু দুর্ভাগ্যজনক আওয়ামী লীগ সরকার আসার পরে র‌্যাবকে তারা তাদের রাজনৈতিক উদ্দেশে ব্যবহার করেছে। প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করার জন্য তারা র‌্যাব দিয়ে এমন কতগুলো কাজ করিয়েছে যেগুলো সম্পূর্ণভাবে বেআইনি এবং মানবাধীকার লঙ্ঘন করেছে তারা। সে কারণেই র‌্যাবকে এই স্যাংশনের আওতায় পড়তে হয়েছে। যেটা আমাদের জন্য জাতিগতভাবে অত্যন্ত লজ্জাজনক। কিন্তু এর জন্য সম্পূর্ণভাবে দায়ী হচ্ছে সরকার। যারা তাদেরকে ব্যবহার করে এই বেআইনিভাবে ক্ষমতায় টিকে থাকার ব্যবস্থা করেছে। সেক্ষেত্রে র‌্যাবকে একেবারে পুরোপুরি রাজনীতির বাইরে নিয়ে এসে তাকে তার কাজের যে জায়গাটা সৃষ্টি করা যায় সেটা করা যেতে পারে।

ঢাকাপ্রকাশ: আপনি এবং আপনার দল বর্তমান সরকারকে অবৈধ সরকার বলে আখ্যায়িত করে থাকেন। এর যৌক্তিক কারণ কী?

মির্জা ফখরুল: সংবাদিক হিসেবে এর যৌক্তিক কারণ তো আপনাদের সবচেয়ে বেশি জানা উচিত। এ কারণে যে সরকার কখন বৈধ হয়? যখন সে জনগণের ম্যান্ডেট নিয়ে নির্বাচিত হয়। একটা নির্বাচনের মাধ্যমে পারলামেন্ট গঠিত হয় এবং পাররামেন্টের মাধ্যমে সে সরকার গঠিত হয়। কিন্তু এই সরকার তো কোনো নির্বাচনে জয়ী হয়নি। তারা ২০১৪ সালে ১৫৪ জনকে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত করেছে। পাচঁ শতাংশ মানুষও ভোট দিতে যায়নি। আর ২০১৮ তে আগের রাত্রে জোর করে ভোট নিয়ে চলে গেছে। সুতরাং এই সরকারের কোনো মেন্ডেটই নেই। জনগণের কোনো ভোটই তারা পায়নি। সুতরাং এটাতো অবশ্যই অবৈধ সরকার।

ঢাকাপ্রকাশ: আগে রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে এক ধরনের সৌহার্দপূর্ণ সম্পর্ক ছিল। বর্তমানে তা অনুপস্থিত। এর কারণ কী বলে আপনি মনে করেন?

মির্জা ফখরুল: এর প্রধান কারণ হলো আওয়ামী লীগ মনে করে যে দেশে একমাত্র তারাই রাজনৈতিক দল থাকবে, আর কোনো রাজনৈতিক দল থাকবে না এবং তারা মনে করে এ দেশের মালিক তারা। এ কারণে তারা এ ধরনের আচরণ করে এবং অন্যান্য রাজনৈতিক দলগুলোকে তারা কোন ধর্তব্যের মধ্যে নিয়ে আসে না। তারা অন্যান্য রাজনৈতিক দলগুলোকে নির্মূল করতে চায়। বিএনপির সঙ্গে আওয়ামী লীগের প্রবলেম কোন জায়গায়? প্রবলেম এক জায়গায়। যে আওয়ামী লীগ বিএনপিকে একেবারে সহ্য করতে পারে না। তারা বিএনপিকে নির্মূল করতে চায়। আমরা তো কখনই এগুলো বিশ্বাস করি না। আমরা বহুমাত্রিক গণতন্ত্রে বিশ্বাস করি। আমরা বহু দলীয় গণতন্ত্রে বিশ্বাস করি। আমরা মনে করি যে, সব দলগুলো একসাথে রাজনীতি করবে। সে কারণেই আমরা একদলীয় শাসনব্যবস্থা বাকশাল থেকে বহুদলীয় শাসন ব্যবস্থা নিয়ে এসেছি এবং সেভাবেই আমরা কাজ করি। সুতরাং আমরা মনে করি রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে সৌহার্দ্য থাকা উচিত, তাদের মধ্যে পারস্পারিক সহযোগিতা থাকা উচিত, সহনশীলতা থাকা উচিত এবং গণতান্ত্রিক সংস্কৃতি গড়ে ওঠা উচিত।

ঢাকাপ্রকাশ: মানুষের মনে প্রশ্ন, আপনাদের দল ক্ষমতায় গেলে প্রধানমন্ত্রী কে হবেন? এ বিষয়ে আপনার ভাবনা কী?

মির্জা ফখরুল: এই বিষয়টা আমি মনে করি যে একটি অযৌক্তিক প্রশ্ন। আমাদের দলের চেয়ারপারসন আছেন খালেদা জিয়া। আমাদের দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক জিয়া। সে প্রশ্নতো আসতেই পারে না। জবাব একটাই।

ঢাকাপ্রকাশ: স্যার, আপনাকে অনেক ধন্যবাদ।

মির্জা ফখরুল: থ্যাংক ইউ ভেরি মাচ।

Header Ad

ভারতের কাছে বাংলাদেশ বিক্রি হয় কীভাবে, প্রশ্ন প্রধানমন্ত্রীর

সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ছবি: সংগৃহীত

ভারতের কাছে বাংলাদেশ বিক্রি হয় কীভাবে সেই প্রশ্ন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেছেন, যারা বলে ভারতের কাছে বাংলাদেশ বিক্রি হয়ে যাবে, আমার প্রশ্ন বিক্রিটা হয় কীভাবে? আসলে যারা এ কথা বলে তারা নিজেরাই ভারতের কাছে বিক্রি হওয়া।

মঙ্গলবার (২৫ জুন) সকালে ভারত সফর নিয়ে গণভবনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন।

বাংলাদেশের ভেতর দিয়ে ভারতের রেলপথ ব্যবহার প্রসঙ্গে এক প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, এটা নিয়ে কেন সমালোচনা হচ্ছে আমি বুঝতে পারছি না। ইউরোপে তো এক দেশের সঙ্গে অন্য দেশের কোনো বর্ডার নেই, তারা কী বিক্রি হয়ে গেছে? এতে বরং তাদের যোগাযোগ সুবিধা বেড়েছে। ব্যবসা-বাণিজ্য বেড়েছে। আমাদেরও বাড়বে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, যারা বলে দেশে বিক্রি হয়ে যাচ্ছে, তারা বলুক বিক্রিটা কিসের মাপে হচ্ছে? মাপটা কিসের মাধ্যমে হচ্ছে? বাংলাদেশে স্বাধীন দেশ, আমরা যুদ্ধ করে স্বাধীন হয়েছি। সারাবিশ্বে একটিমাত্র মিত্র শক্তি ভারত, যারা আমাদের মুক্তিযোদ্ধাদের সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে যুদ্ধ করে আমাদের স্বাধীন করে দিয়েছে। পৃথিবীর বিভিন্ন দেশেই কোন দেশ যুদ্ধে সহযোগিতা করতে এলে তারা সেখানেই থেকে যায়। বিজয়ী হওয়ার পরও তারা দেশ ছাড়ে না। এরকম অসংখ্য নজির আমরা দেখেছি। অথচ ভারত আমাদের মিত্র হিসেবে যুদ্ধ করেছে এবং জাতির পিতার আহ্বানে আবার তারা ফিরেও গেছে।

শেখ হাসিনা বলেন, আমরা যুদ্ধ করে স্বাধীন দেশ পেয়েছি। তাহলে বাংলাদেশ কীভাবে বিক্রি হয়? আমি বলবো যারাই বলছে দেশ বিক্রি হয়ে যাচ্ছে, তারাই বরং দেশকে বিক্রি করতে চেয়েছে। আমরা বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক ধরে রেখেছি। এখন যারা দেশ বিক্রির কথা বলে, তারাই মুক্তিযদ্ধের সময় পাকিস্তানের দালালি করেছে।

তিনি আরও বলেন, রেলপথ ব্যবহারের ফলে আমাদের ব্যবসা-বাণিজ্য সহজ হচ্ছে। ওইসব এলাকার মানুষের জন্য যোগাযোগ সহজ হচ্ছে। ইউরোপে তো বর্ডারই নেই, তারা কি তাহলে বিক্রি করে দিচ্ছে? প্রত্যেকটা দেশই তো স্বাধীন দেশ, তারা তো বিক্রি হয়নি। তাহলে সাউথ এশিয়ায় কেন এটা বাঁধা হয়ে থাকবে?

প্রধানমন্ত্রী বলেন, এ সফরে ভারতের নেতৃত্বের সঙ্গে আলোচনার মূল বিষয়বস্তু ছিল নবনির্বাচিত দুটি সরকার কীভাবে সহযোগিতামূলক সম্পর্ককে আরও এগিয়ে নিয়ে যেতে পারে, সে বিষয়ে একটি রূপকল্প প্রণয়ন। যেহেতু নতুন সরকার গঠনের মাধ্যমে ঢাকা ও দিল্লি নতুনভাবে পথচলা শুরু করেছে, সে ধারাবাহিকতায় ‘রূপকল্প ২০৪১’ এর ‘স্মার্ট বাংলাদেশ’ প্রতিষ্ঠা এবং ‘বিকশিত ভারত ২০৪৭’ নিশ্চিত করার জন্য ভবিষ্যৎ কর্মপন্থা নির্ধারণ করার বিষয়ে আমরা আলোচনা করেছি।

তিনি বলেন, ভারত বাংলাদেশের সবচেয়ে বড় ও নিকটতম প্রতিবেশী, বিশ্বস্ত বন্ধু এবং আঞ্চলিক অংশীদার। ১৯৭১ সালে যে সম্পর্কের সূচনা হয়, তাতে বাংলাদেশ সবসময়ই বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে আসছে। সাম্প্রতিক বছরগুলোতে উচ্চপর্যায়ের যোগাযোগ ও সহযোগিতা অব্যাহত রেখেছে।

সফরকালে দুই দেশের মধ্যে পাঁচটি নতুন সমঝোতা স্মারক সই ও বিনিময় হয়। তিনটি নবায়িত সমঝোতা স্মারক সই ও বিনিময় হয়। এ ছাড়া দুটি রূপকল্প ঘোষণা সই ও বিনিময় হওয়ার কথা উল্লেখ করেন প্রধানমন্ত্রী।

এ সফরে দুদেশের মধ্যে নেওয়া কিছু কার্যক্রমের ঘোষণার কথা তুলে ধরেন তিনি। প্রধানমন্ত্রী জানান, গঙ্গা নদীর পানিবণ্টন চুক্তি নবায়ন ও বাংলাদেশের তিস্তা নদীর পানি ব্যবস্থাপনা এবং পানি সংরক্ষণের প্রকল্পে ভারতের সহায়তার বিষয়ে আলোচনা হয়েছে।

বাংলাদেশ থেকে ভারতে চিকিৎসার জন্য যাওয়া রোগীদের ক্ষেত্রে ই-ভিসা চালু হবে এবং রংপুরে ভারতের নতুন সহকারী হাইকমিশন প্রতিষ্ঠা করা হবে। এতে মুমূর্ষু রোগীদের ভিসা আগের চেয়ে দ্রুত প্রক্রিয়াকরণ করা যাবে এবং স্বল্প সময়ের মধ্যে ভ্রমণ করা যাবে।

রাজশাহী ও কলকাতার মধ্যে নতুন ট্রেন পরিষেবা চালু হবে। চট্টগ্রাম ও কলকাতার মধ্যে নতুন বাস পরিষেবা চালু এবং গেদে-দর্শনা এবং হলদিবাড়ি-চিলাহাটির মধ্যে দলগাঁও পর্যন্ত পণ্যবাহী ট্রেন পরিষেবা চালু হবে। এতে দুদেশের মধ্যে যোগাযোগ ও অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড আরও বাড়বে।

আত্মসমর্পণ করে জামিন পেলেন পরীমণি

আত্মসমর্পণ করে জামিন পেয়েছেন অভিনেত্রী পরীমণি। ছবি: সংগৃহীত

মারধর, হত্যাচেষ্টা, ভাঙচুর ও ভয়ভীতি দেখানোর অভিযোগে আলোচিত অভিনেত্রী পরীমণির বিরুদ্ধে ব্যবসায়ী নাসির উদ্দিন মাহমুদের করা মামলায় জামিনের আবেদন মঞ্জুর করেছেন আদালত।

মঙ্গলবার (২৫ জুন) সকালে ঢাকার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট এম সাইফুল ইসলামের আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিন চান পরীমণি। শুনানি শেষে আদালত তার ১ হাজার টাকা মুচলেকায় জামিনের আদেশ দেন।

এদিন সকাল ১০টা ১৫ মিনিটে ঢাকার চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির হন পরীমণি। এসময় তিনি আত্মসমর্পণ করে আইনজীবীর মাধ্যমে জামিন আবেদন করেন। পরীমণির আইনজীবী নীলাঞ্জনা রিফাত (সুরভী) এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

সম্প্রতি মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পিবিআই ঢাকা জেলার পরিদর্শক মো. মনির হোসেন ঢাকার চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে পরীমণি ও তার কস্টিউম ডিজাইনার জুনায়েদ বোগদাদী জিমি ওরফে জিমের বিরুদ্ধে মারধর ও ভয়ভীতি দেখানোর অভিযোগের সত্যতা পেয়েছে মর্মে প্রতিবেদন দাখিল করেন। ১৮ এপ্রিল ঢাকার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট এম সাইফুল ইসলামের আদালত দুই আসামিকে ২৫ জুন আদালতে হাজির হতে সমন জারি করেন।

২০২২ সালের ৬ জুলাই আদালতে মামলাটি করেন নাসির উদ্দিন। মামলার এজাহারে বলা হয়, পরীমণি ও তার সহযোগীরা অ্যালকোহলসেবী। সুযোগ বুঝে তারা বিভিন্ন নামীদামি ক্লাবে ঢুকে অ্যালকোহল পান করেন এবং পার্সেল নিয়ে মূল্য পরিশোধ করেন না। পরীমণি তার পরিচিত পুলিশ কর্মকর্তাদের দিয়ে মিথ্যা মামলা করে হয়রানির ভয় দেখান। ২০২১ সালের ৯ জুন রাত ১২টার পর আসামিরা সাভারের বোট ক্লাবে ঢুকে দ্বিতীয়তলার ওয়াশরুম ব্যবহার করেন।

পরে তারা ক্লাবের ভেতরে বসে অ্যালকোহল পান করেন বলেও উল্লেখ করা হয়েছে এজাহারে। এতে বলা হয়েছে, বাদী ও তার সহযোগী শাহ শহিদুল আলম রাত সোয়া ১টার দিকে যখন ক্লাব ত্যাগ করছিলেন, তখন পরীমণি উদ্দেশ্যমূলকভাবে বাদী নাসির উদ্দিনকে ডাক দেন এবং তাদের সঙ্গে কিছু সময় বসার অনুরোধ করেন।

একপর্যায়ে পরীমণি অশ্লীল অঙ্গভঙ্গির মাধ্যমে নাসির উদ্দিনকে আকৃষ্ট করার চেষ্টা করেন এবং একটি ব্লু লেবেল অ্যালকোহলের বোতল বিনামূল্যে পার্সেল দেওয়ার জন্য বাদীকে চাপ দেন। বাদী এতে রাজি না হওয়ায় পরীমণি বাদীকে গালমন্দ করেন। একপর্যায়ে পরীমণি বাদীর দিকে একটি সারভিং গ্লাস ছুড়ে মারেন এবং হাতে থাকা মোবাইল ফোনটিও ছুড়ে মারেন। এতে নাসির উদ্দিন মাথায় এবং বুকে আঘাতপ্রাপ্ত হন। পরীমণি ও তার সহযোগীরা নাসির উদ্দিনকে মারধর ও হত্যার হুমকি দিয়েছেন ও ভাঙচুর করেছেন।

উদ্বোধনের ছয় মাস না যেতেই রাম মন্দিরে ফাটল, ছাদ বেয়ে ঝরছে পানি

রাম মন্দির। ছবি: সংগৃহীত

শপথ নিতে না নিতেই একের পর এক ধাক্কা প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির। অটল সেতুর ফাটলের পর এবার ছাদ ফেটে অঝোরে পানি পড়ছে অযোধ্যার রামমন্দিরে! এখনও ছয় মাসও হয়নি রাম মন্দির উদ্বোধনের। এ নিয়ে ব্যাপক বিতর্ক ও সমালোচনার ঝড় বইছে ভারতে।

জানা গেছে, এবছরের প্রথম বৃষ্টিতেই ছাদ ফুটো হতে শুরু করেছে রাম মন্দিরে। যার ফলে মন্দিরের ভেতরে এবং আশপাশের কমপ্লেক্সে পানি জমেছে। ফলে মন্দিরের পানি নিষ্কাশন ব্যবস্থা দাঁড়িয়েছে প্রশ্নের মুখে।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম হিন্দুস্তান টাইমস জানিয়েছে, বর্ষা মৌসুম শুরু হতে না হতেই রাম মন্দিরের ছাদ ফুটো হয়ে পানি ঝরতে শুরু করেছে। এরই মধ্যে মন্দিরের ভেতরে এবং আশপাশের কমপ্লেক্সে পানি জমেছে।

চলতি বছরের ২২ জানুয়ারি রাম মন্দির উদ্বোধন করেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। মন্দিরটি তৈরির সময় কোনও ইস্পাত ব্যবহার করা হয়নি। ২ দশমিক ৭ একর জমির ওপর নির্মিত এ মন্দির তৈরিতে খরচ হয়েছে ১৮০০ কোটি ভারতীয় রুপি।

রাম মন্দিরের কাজ এখনও পুরোপুরি শেষ হয়নি। মন্দিরটির প্রধান পুরোহিত আচার্য সত্যেন্দ্র দাস বলেন, চেয়ারম্যান নৃপেন্দ্র মিশ্রের নেতৃত্বে রাম মন্দির নির্মাণ কমিটি এখনও বিভিন্ন চেম্বারে কাজ করছে। যেখানে আরও দেবতাদের স্থাপন করা হবে। এই ইনস্টলেশনগুলো ২০২৫ সালের মধ্যে শেষ হবে বলে আশা করা হচ্ছে৷

নতুন মন্দিরের ছাদ কেন ফুটো হলো তা খতিয়ে দেখে সমস্যার সমাধান করা উচিত বলে মন্তব্য করেন পুরোহিত আচার্য সত্যেন্দ্র দাস।

এদিকে ভারতের দীর্ঘতম সেতু অটল সেতুতেও ফাটল দেখা দিয়েছে। চলতি বছরের ১২ জানুয়ারি সেতুটি উদ্বোধন করেছিলেন নরেন্দ্র মোদি। এর পাঁচ মাস যেতে না যেতেই সেতুটিতে ফাটল দেখা দিল। ১ দশমিক ৮ কিলোমিটার দীর্ঘ এ সেতুটি তৈরিতে খরচ হয়েছে ১৭ হাজার ৮৪০ কোটি রুপি।

উল্লেখ্য, চলতি বছরের ১২ জানুয়ারি বড় আয়োজনের মাধ্যমে অটল সেতুর উদ্বোধন করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। ১.৮ কিলোমিটার দীর্ঘ এই সমুদ্র সেতুটিই ভারতের দীর্ঘতম সমুদ্র সেতু। এর জন্য খরচ পড়েছিল প্রায় ১৭,৮৪০ কোটি টাকা। কিন্তু ৫ মাস যেতে না যেতেই সেই সেতুতে দেখা গেল ফাটল।

সর্বশেষ সংবাদ

ভারতের কাছে বাংলাদেশ বিক্রি হয় কীভাবে, প্রশ্ন প্রধানমন্ত্রীর
আত্মসমর্পণ করে জামিন পেলেন পরীমণি
উদ্বোধনের ছয় মাস না যেতেই রাম মন্দিরে ফাটল, ছাদ বেয়ে ঝরছে পানি
যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে চুক্তি, মুক্তি পেলেন উইকিলিকসের প্রতিষ্ঠাতা জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জ
বাংলাদেশকে হারিয়ে সেমিতে আফগানিস্তান, অস্ট্রেলিয়ার বিদায়
মারা গেলেন দেশের শীর্ষ করদাতা ব্যবসায়ী কাউছ মিয়া
পিস্তল দেখিয়ে হুমকি, সাবেক প্রতিমন্ত্রী জাকিরের বিরুদ্ধে থানায় জিডি
কোপা আমেরিকায় প্রথম ম্যাচেই হোঁচট খেল ব্রাজিল
হজে গিয়ে ৪৭ বাংলাদেশির মৃত্যু, দেশে ফিরেছেন ১৪ হাজার ৮১৬ হাজি
অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে সেমিফাইনালে ভারত
টাঙ্গাইলে বাস-মোটরসাইকেল সংঘর্ষে প্রাণ হারালেন মোটরসাইকেল আরোহী
সেমিতে যেতে বাংলাদেশের লক্ষ্য ১১৬ রান
রুনা লায়লার সংগীত জীবনের ৬০ বছর পূর্ণ
কারাগার থেকে মুক্তি পেলেন আলোচিত পাপিয়া
ভোরে শেষ ম্যাচে আফগানিস্তানের মুখোমুখি হচ্ছে টিম টাইগার্স
আত্রাই বিলসুতি বিলে জব্দ করা ১৫ লক্ষ টাকার জাল আগুনে পুড়িয়ে ধ্বংস
আছাদুজ্জামান মিয়ার তথ্য ফাঁসের অভিযোগে এডিসি জিসানুল বরখাস্ত
ভারতীয় বোর্ডকে শর্ত দিয়েছেন গম্ভীর, কোচ হলে ছাঁটাই হতে পারেন কোহলি-রোহিতরা
টাঙ্গাইলে ২০০ বস্তা চাল উদ্ধার, এক ব্যবসায়ীসহ ২ জন আটক
টাঙ্গাইলে কমতে শুরু করছে যমুনার পানি