ভূঞাপুরে মামলার আসামি ৭৬, বিএনপি বলছে গায়েবি!

০৩ ডিসেম্বর ২০২২, ০৭:২৬ পিএম | আপডেট: ০১ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ০১:০৭ এএম


ভূঞাপুরে মামলার আসামি ৭৬, বিএনপি বলছে গায়েবি!

টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরে গভীর রাতে বিএনপি নেতা-কর্মীদের গোপন বৈঠক ও ককটেল বিস্ফোরণের অভিযোগে ইলিয়াস শেখ ও ঠান্ডু সর্দার নামে দুই জনকে আটক করেছে পুলিশ। আটককৃত ইলিয়াস শেখ উপজেলার নিকরাইল ইউনিয়নের কোনাবাড়ি গ্রামের মৃত ইমান আলীর ছেলে। তিনি কোনাবাড়ী ৭ নং ওয়ার্ড বিএনপির সদস্য এবং ঠান্ডু উপজেলার গাবসারা এলাকার জহির উদ্দিনের ছেলে। সে গাবসারা ইউনিয়ন শ্রমিক দলের সভাপতি।

বুধবার (৩০ নভেম্বর) ভূঞাপুর পৌর এলাকার শিয়াকোল হাটখোলা থেকে রাতে ইলিয়াস শেখকে এবং শুক্রবার (২ ডিসেম্বর) গভীর রাতে ঠান্ডুকে তার নিজ বাড়ি আটক করে ভূঞাপুর থানা পুলিশ। এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার (১ ডিসেম্বর) ভূঞাপুর থানার উপ-পরিদশর্ক (এসআই) আব্দুস ছালাম বাদী হয়ে উপজেলার বিভিন্ন এলাকার বিএনপির ১৬ নেতাকর্মীসহ আরও অজ্ঞাত ৫০/৬০ জনের নামে মামলা দায়ের করেন।

এর আগে বুধবার (৩০ নভেম্বর) রাতে ভূঞাপুর পৌরসভার শিয়ালকোল বাজার মাছের শিডের ঘরে এই ঘটনা ঘটে। তবে পুলিশের উল্লেখ করা রাতের ঘটনায় সেখানে ককটেল বিষ্ফোরণ ও গুলির শব্দ পায়নি বলে জানিয়েছে এলাকাবাসী। তবে, এ ঘটনার স্বাক্ষী উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি নুরুল ইসলাম তালুকদার মোহন ও আওয়ামী লীগ নেতা কামরুজ্জামান তালুকদার বিদ্যুত।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, বুধবার রাত ১১টা ৪০ মিনিটে পৌর এলাকার শিয়ালকোল বাজার মাছের সীডের নিচে বিএনপির ৬০-৭০ জন নেতাকর্মীরা নাশকতা মূলক কর্মকাণ্ডের জন্য গোপন বৈঠক করছিল। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছলে তাদের লক্ষ্য করে ককটেল নিক্ষেপ করে বিএনপির নেতাকর্মীরা।

এসময় একটি ককটেল বিষ্ফোরিত হয়ে প্রচুর ধোঁয়া ও বিকট শব্দ হয়। পরে পুলিশ আত্মরক্ষার্থে দুই রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুড়ে। পরে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে অবিষ্ফোরিত ককটেল ও গুলির খোসা উদ্ধার করে। এ ঘটনায় ১৬ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত ৫০-৬০ জনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে।

এ ঘটনায় উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক সেলিমুজ্জামান তালুকদার সেলু জানান, আগামী ১০ ডিসেম্বর ঢাকায় বিএনপির গণসমাবেশকে সরকার বানচাল করতে পুলিশ দিয়ে নেতাকর্মীদের হয়রানি ও মিথ্যা-গায়েবি মামলা দিচ্ছেন। শিয়ালকোল এলাকায় এই ধরণের কোনো ঘটনা ঘটেনি। দুইজন গ্রেপ্তারসহ বিএনপির ১৬ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত ৫০-৬০ জনের বিরুদ্ধে মামলার তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি।

এ ব্যাপারে ভূঞাপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মুহাম্মদ ফরিদুল ইসলাম জানান, মামলায় জড়িতরা নাশকতা করার পরিকল্পনা করছিল। এতে পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে তারা ককটেল নিক্ষেপ করে। পরে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ এবং আত্মরক্ষার্থে পুলিশ ২ রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছুড়ে। তিনি আরও জানান, এ সময় ঘটনাস্থল থেকে একজনকে গ্রেপ্তার করা হলেও বাকিরা পালিয়ে যায়। পরবর্তীতে ঠান্ডুকে শুক্রবার (২ ডিসেম্বর) রাতে তাকে আটক করে।
এএজেড


বিভাগ : সারাদেশ