'লজ্জা-সরম থাকবে এমন সরকার লাগবে'

০৩ ডিসেম্বর ২০২২, ০৭:১০ পিএম | আপডেট: ০২ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ০৮:৩০ এএম


'লজ্জা-সরম থাকবে এমন সরকার লাগবে'

রাজশাহীতে বিভাগীয় গণসমাবেশে অংশ নিয়ে বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান বলেছেন, জিয়াউর রহমানের যখন জোয়ার ওঠে তখন কেউ থামাতে পারে না। আর এরা তো অনির্বাচিত সরকার। পুলিশের সহযোগিতায় বাক্স লোড করে তারা সরকার হয়েছে। যেটা দেশ-বিদেশের পত্র-পত্রিকাগুলো বলেছে। জাপানের রাষ্ট্রদূত বলেছে। কিন্তু এ সরকারের লজ্জা-সরম নাই। ভোট চুরি করে বড় বড় কথা বলে। আপনারা কি এমন সরকার চান? আমাদের এমন সরকার লাগবে যার লজ্জা-সরম থাকবে।

শনিবার (৩ ডিসেম্বর) নিত্যপণ্য ও জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধি, পুলিশের গুলিতে নেতাকর্মীদের মৃত্যুর প্রতিবাদ, বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি ও নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবিতে আয়োজিত সমাবেশে নজরুল ইসলাম খান আরও বলেন, এ সরকারের আমলে ১২ হাজার মানুষ কোটিপতি হয়েছে।

একই সময়ে সাড়ে ৩ কোটি সাধারণ মানুষ অধিক দরিদ্র হয়েছে। সরকার বলেছে তারা উন্নয়ন করেছে। তারা কার উন্নয়ন করেছে? তারা কার সরকার? এই ১২ হাজারের? আজ কেউ শান্তিতে নাই। শুধু সরকারের চেলা-চামচা, ঘুষখোর, দুর্নীতিবাজ, দেশের অর্থ বিদেশে পাচারকারীরা শান্তিতে আছে। স্বাধারণ মানুষ কষ্টে আছে। সাধারণ মানুষ এর পরিবর্তন চাই।

বিএনপি স্থায়ী কমিটির এই সদস্য আরও বলেন, স্বাধীনতার পর শেখ সাহেব যখন ক্ষমতায় তখন বলেছিলেন, 'সবাই পাই সোনার খনি, আমি পেলাম চোরের খনি'। শেখ সাহেব বেঁচে নেই। কিন্তু আজও তার দলে সেই চোর বেঁচে আছে। পত্রিকার উদ্বৃধি দিয়ে তিনি বলেন, গতকালকের পত্রিকার শিরোনাম ৮ হাজার কেজি চালসহ আওয়ামী লীগ নেতা গ্রেপ্তার।

ফরিদপুরের এক ছাত্র লীগ নেতাই ২ হাজার কোটি টাকা পাচার করেছে। একটি শাখার নেতা যদি ২ হাজার কোটি টাকা পাচার করে। তাহলে আওয়ামী লীগের জাতীয় নেতারা কি করেছে? আজ বেগমপাড়া, সেকেন্ড হোমের কথা শোনা যায়। এটা কি আগে শোনা যেত? এই সেকেন্ড হোম করতে কোটি কোটি টাকা লাগে। এই সরকার নিজ দলের সুবিধা করা ছাড়া কিছু চাই না। সাধারণ মানুষের ট্রাক্সের টাকায় এটা চলতে দেয়া হতে পারে না। এর জন্য পরিবর্তন করতে হবে।

আওয়ামী লীগ বিএনপিকে বিভিন্নভাবে উষ্কানি দিচ্ছে দাবি করে তিনি বলেন, পুলিশের মাধ্যমে মিথ্যা মামলা, হত্যা ও হয়রানিসহ বিভিন্নভাবে বিএনপি নেতা-কর্মীদের উষ্কানি দিচ্ছে। যাতে আমরা পাল্টা আঘাত করি। আর সেটা আওয়ামী লীগ সারাবিশ্বকে দেখাতে পারে। বিএনপি শান্তিতে বিশ্বাসী। তারা শান্তিপূর্ণভাবেই আন্দোলন করে সরকারে পতন ঘটাবে। কারণ জনগণ দেশের মালিক। সকল সিদ্ধান্তের মালিক।

রাজশাহী মহানগর বিএনপির সভাপতি এরশাদ আলী ঈশার সভাপতিত্বে সমাবেশে আরও বক্তব্য রাখেন, বিএনপি নেত্রী সেলিমা রহমান, ইকবাল মাহমুদ হাসান টুকু, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা মিজানুর রহমান মিনু, বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর আসনের এমপি হারুন অর রশিদ, বিএনপির রাজশাহী বিভাগের সাংগঠনিক সম্পাদক রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলু প্রমুখ।
এএজেড


বিভাগ : সারাদেশ