বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪ | ৪ আষাঢ় ১৪৩১
Dhaka Prokash

সরকারবিরোধী দলগুলোকে কাছে টানার চেষ্টায় ‘গণতন্ত্র মঞ্চ’

দ্বাদশ নির্বাচনের আগে দেশের রাজনীতিতে নানান পরিবর্তন আসবে। এমনটা ধরে নিয়ে গণতন্ত্র মঞ্চ সরকার বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলোকে কাছে টানার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। সংসদের বিরোধী দল জাতীয় পার্টির সঙ্গেও অনানুষ্ঠানিকভাবে যোগাযোগ চলছে।

জানা গেছে, আওয়ামী লীগ ও বিএনপির সঙ্গে নেই এমন বাম-গণতান্ত্রিক ধারার দলগুলোর সঙ্গেও মতবিনিময় শুরু করেছেন গণতন্ত্র মঞ্চের নেতারা। শুরুতেই মতবিনিময় করেছে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন ১৪ দলীয় জোটের শরিক বাংলাদেশ জাসদের সঙ্গে। মঙ্গলবার মোস্তফা মোহসীন মন্টু নেতৃত্বাধীন গণফোরামের সঙ্গে মতবিনিময় করেছে গণতন্ত্র মঞ্চের

সূত্র জানায়, নির্দলীয় সরকারের অধীন জাতীয় নির্বাচনের দাবিতে বিএনপিসহ বিরোধী দলগুলোর সঙ্গে ‘যুগপৎ আন্দোলনে’ যুক্ত হওয়ার কথা ভাবছেন গণতন্ত্র মঞ্চের নেতারা।

মঞ্চের নেতারা বলছেন, গণতন্ত্র মঞ্চ যে প্রক্রিয়ায় যুক্ত যুগপৎ আন্দোলনে হতে চাচ্ছে, সে বিষয়ে অন্যদলগুলোর সঙ্গে তারা মতবিনিময় করছেন। তারা দলগুলোকে বুঝানোর চেষ্টা করছেন।

যদিও বিএনপি বলেছিল ‘যুগপৎ আন্দোলনের’ রূপরেখা তৈরি করার জন্য ফের সবার সঙ্গে বসবে। গণতন্ত্র মঞ্চের সঙ্গে এখনো আলোচনা শুরু না করলেও তাদের জোটভুক্ত রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে আলোচনা শেষ পর্যায়ে নিয়ে এসেছে। তবে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের যে রূপরেখা দেওয়ার কথা সেটাও এখনো ঘোষণা করতে পারেনি বিএনপি।

গণতন্ত্র মঞ্চের নেতারা বলছে, বর্তমান সরকারের অধীনে নিরপেক্ষ নির্বাচনের কোনো সম্ভাবনা নেই। তবে শুধু সরকারের বিদায় এবং একটা নিরপেক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠানই যথেষ্ট নয়। বিদ্যমান শাসনব্যবস্থাও বদলাতে হবে। সে লক্ষ্যে যুগপৎ আন্দোলনে বিএনপির সঙ্গে প্রাথমিকভাবে কী ধরনের রাজনৈতিক সমঝোতা বা চুক্তিতে তারা পৌঁছেছেন, মতবিনিময়ে সে বিষয়গুলো খোলাসা করবেন মঞ্চের নেতারা। তারা চাচ্ছেন যুগপৎ আন্দোলনে আরও বেশি সংখ্যক দলকে যুক্ত করা এবং আন্দোলনের শক্তি বাড়ানো।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, যেসব দলের সঙ্গে মতবিনিময় করার প্রাথমিক সিদ্ধান্ত হয়েছে, তার মধ্যে নির্বাচন কমিশনে নিবন্ধিত ও অনিবন্ধিত দুই পর্যায়ের দলই রয়েছে। অনিবন্ধিত হলেও কয়েকটি দলের শীর্ষ নেতৃত্বের সমাজে গুরুত্ব ও প্রভাব রয়েছে। তাই সরকারবিরোধী বৃহত্তর আন্দোলনে যত দল, সংগঠন ও ব্যক্তিকে সম্পৃক্ত করা যায়, সে চেষ্টার অংশ হিসেবে তারা বিএনপির বাইরে আলাদা করে এই রাজনৈতিক আলোচনার উদ্যোগ নিয়েছেন। বর্তমান সরকারের পদত্যাগ, সংসদ বিলুপ্ত করা, নির্দলীয় সরকারের অধীন নির্বাচনসহ কিছু সাংবিধানিক ও শাসনতান্ত্রিক সংস্কারে গণতন্ত্র মঞ্চের শরিক দলগুলো বিএনপির সঙ্গে ‘যুগপৎ আন্দোলনে’ নীতিগতভাবে একমত হয়েছে।

প্রথম দফায় বিএনপির পক্ষ থেকে বৈঠক হলেও এবার তারা বিএনপির সঙ্গে পাল্টা বৈঠকে বসবেন। যুগপৎ আন্দোলনের লক্ষ্য ও ভিত্তি কী হবে, আন্দোলনের ধরন কী হবে? বৈঠকে এসব চূড়ান্ত করা হবে। তবে এ বৈঠকের তারিখ এখনো চূড়ান্ত হয়নি।

বাংলাদেশের বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল হক ঢাকাপ্রকাশ-কে বলেন,‘যুগপৎ আন্দোলনের ভিত্তি নির্ধারণে গণতন্ত্র মঞ্চ রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে মতবিনিময় শুরু করেছে। কারণ, ক্ষমতাসীন সরকার আরেকটি ব্যর্থ ও অকার্যকর নির্বাচনের পাঁয়তারা করছে, যা দেশকে গভীর অনিশ্চয়তার দিকে ঠেলে দেবে। অথচ আরেকটা ব্যর্থ ও অকার্যকর নির্বাচনের দায় বহন করা বাংলাদেশের পক্ষে সম্ভব নয়।’

তিনি বলেন, ‘অনানুষ্ঠানিক ও আনুষ্ঠানিকভাবে সরকারবিরোধী রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে বিএনপি মতবিনিময়ে এগিয়ে এসেছে। এবার গণতন্ত্র মঞ্চের পক্ষ থেকে মতবিনিময় শুরু করা হয়েছে। বাংলাদেশ জাসদ ও গণফোরামের সঙ্গে মতবিনিময় হয়েছে। রাজপথে গণজাগরণের মধ্যে দিয়ে এই সরকারকে বিদায় করা হবে। আন্দোলনের মধ্য দিয়ে একটা গণতান্ত্রিক, মানবিক, জবাবদিহিতার রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করা হবে। সরকার দেশের জনগণের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেছে। রাজনৈতিক ঐতিহ্যকে ভুলে গিয়ে আওয়ামী লীগ একটা সন্ত্রাসী দলে পরিণত হয়েছে।’

৮ আগস্ট (সোমবার) ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে এক সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে গণতন্ত্র মঞ্চ’র আনুষ্ঠানিক আত্মপ্রকাশ ঘটে। গণতন্ত্র মঞ্চের দলগুলো হলো; জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জেএসডি), বাংলাদেশের বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টি, গণসংহতি আন্দোলন, নাগরিক ঐক্য, গণঅধিকার পরিষদ, ভাসানী অনুসারী পরিষদ এবং রাষ্ট্র সংস্কার আন্দোলন। এই সাতটি দলের মধ্যে পাঁচটি দল বিএনপির সাথে যুগপৎ আন্দোলনের জন্য সংলাপে অংশ নিয়েছে। জেএসডি ও নাগরিক ঐক্য ২০১৮ সালের নির্বাচনে বিএনপির শরিক হিসেবে ঐক্যফ্রন্টেও ছিল। গণতন্ত্র মঞ্চের ঘোষণা দিয়ে আ স ম আবদুর রব বলেছেন, গণতন্ত্র মঞ্চ হলো জনগণের সমস্ত অধিকার আদায়ের মঞ্চ। আজকে দেশের পরিস্থিতি ভয়াবহ। এই জোট নানা ইস্যুতে সরকার বিরোধি আন্দালনে মাঠে নামবে।

অবশ্য সংশ্লিষ্টরা বলছেন, সরকারের বিরুদ্ধে সবর থেকে আত্মপ্রকাশ ঘটলেও গণতন্ত্র মঞ্চের কার্যক্রম এখন অনেকটা ধীরে চলো নীতিতে চলছে। যদিও সাতটি রাজনৈতিক দলের সমন্বয়ে গড়ে উঠা নতুন এই রাজনৈতিক জোটের অধিকাংশ দলের নিবন্ধন নেই। তাই কর্মসূচির পাশাপাশি নিবন্ধন ইস্যুতে ব্যস্ত সময় কাটছে দলগুলোর। অবশ্য নিবন্ধন পাওয়ার বিষয়ে দলগুলোর নেতারা কোনো প্রকার নিশ্চিয়তা পাননি । আ স ম আবদুর রবের জেএসডি এবং সাইফুল হকের বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টি ছাড়া কারো নিবন্ধন নেই। নাগরিক ঐক্যকে নিবন্ধন দিয়েও আবার বাতিল করেছিল নির্বাচন কমিশন। জোনায়েদ সাকি নেতৃত্বাধীন গণসংহতি আন্দোলনকে নিবন্ধন দিতে উচ্চ আদালতের নির্দেশ থাকলেও কমিশন সেটা তোয়াক্কা করেনি।

ড. রেজা কিবরিয়া ও নুরুল হকদের গণঅধিকার পরিষদও নিবন্ধনের জন্য গত রবিবার (৩০ অক্টোবর) নির্বাচন কমিশন বরাবর আবেদন করেছে। তবে দলটির নেতারা বলছেন; রাজনৈতিক দল হিসেবে নিবন্ধন পেতে যে সমস্ত ক্যাটাগরি/শর্ত থাকে সবকিছু পরিপূর্ণ করেই তারা অগ্রসর হয়েছেন। কিন্তু প্রতিবন্ধকতার সম্মুখীন হতে হচ্ছে। তারপরও নিবন্ধন পাওয়ার বিষয়ে আশাবাদী সংশ্লিষ্টদলগুলোর নেতারা।

নাম প্রকাশে অনিইচ্ছুক গণতন্ত্র মঞ্চের দায়িত্বশীল একজন নেতা ঢাকাপ্রকাশ-কে বলেন, ‘আমরা মুখের কথায় যাই বলি না কেন; সরকারবিরোধী আন্দোলনে এককভাবে রাজপথে দাঁড়ানোর কোনো উপায় বা শক্তি নেই। তাই ইচ্ছা না থাকলেও আমাদেরকে আন্দোলনের জন্য বিএনপির দিকেই তাকিয়ে থাকতে হচ্ছে। বিএনপি একটি বড় রাজনৈতিক দল। বেশ কয়েকবার রাষ্ট্র পরিচালনায় ছিল। তাদের যতটুকু সক্ষমতা আছে গণতন্ত্র মঞ্চের সেটা নেই। জোটে টানতে সংসদে থাকা বিরোধীদল জাতীয় পার্টির সঙ্গেও যোগাযোগ অব্যাহত রয়েছে।’

বাংলাদেশ জাসদ কার্যালয়ে গণতন্ত্র মঞ্চের সঙ্গে মতবিনিময় সভা শেষে দলটির সাধারণ সম্পাদক নাজমুল হক প্রধান বলেন, বর্তমান সরকারের সীমাহীন লুটপাট-অর্থ পাচারের ফলে জনগণের যে নাভিশ্বাস উঠেছে, তার বিরুদ্ধে ঐক্য ও আন্দোলন গড়ে তুলতে সক্রিয় ভূমিকা পালন করবেন তারা।

নাগরিক ঐক্যের সভাপতি মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, গণতান্ত্রিক নির্বাচন করার জন্য যে সমস্ত অবস্থা তৈরি করা দরকার আমার সেভাবেই কাজ করছি। শর্ত হচ্ছে-এই সরকার ক্ষমতায় থাকতে পারবে না, এই নির্বাচন কমিশন থাকতে পারবে না, এই সংসদ বাতিল করতে হবে এবং ইভিএম চলবে না। এই কয়টা শর্তের কোনোটার সঙ্গে কোনো ছাড় নাই। আমরা প্রশাসনকে ঢেলে সাজাব, নির্বাচন করবার উপযুক্ত করব এবং দেশে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। আমি বলব, গণতান্ত্রিক জনতার জয় হবেই হবে। বিএনপি বলেছিল ‘যুগপৎ আন্দোলনের’ রূপরেখা তৈরি করার জন্য সবার সঙ্গে বসবে। এর আগে তাদের তত্ত্বাবধায়ক সরকারের রূপরেখা দেওয়ার কথা। সেটা এখনো ঘোষণা হয়নি।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, গণতন্ত্র মঞ্চ সারাদেশে বিভাগীয় পর্যায়ে কর্মী সম্মেলন ও সুধী সমাবেশের কর্মসূচি শুরু করবে। নভেম্বর মাসেই তা শুরু হবে বলে একাধিক নেতা জানিয়েছেন। এ মুহূর্তে তাদের লক্ষ্য যুগপৎ আন্দোলনের বিষয়ে সমমনা অন্য দলগুলোর সঙ্গে রাজনৈতিক বোঝাপড়া বাড়িয়ে তোলা এবং তাদের আন্দোলনে যুক্ত করে সরকারবিরোধী ঐক্যমঞ্চকে বিস্তৃত করা।

গণতন্ত্র মঞ্চের নেতা ও গণসংহতি আন্দোলনের প্রধান সমন্বয়কারী জোনায়েদ সাকি ঢাকাপ্রকাশ-কে বলেন, ‘আমাদের কর্মসূচি চলছে, একইসঙ্গে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে আলোচনা শুরু করেছি। বিএনপিসহ সরকারবিরোধী সকল রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গেই আমরা আলোচনা করব। সরকারবিরোধী আন্দোলনকে একটি যৌক্তিক অবস্থানে নিয়ে যেতে ভিত্তি তৈরিতেই আলোচনা করা হচ্ছে।’

এনএইচবি/এমএমএ/

 

Header Ad

মূল্যস্ফীতির কারণে ঈদ ব্যাহত হয়েছে, বিএনপির এ তথ্য ঠিক নয় : কাদের

ছবি: সংগৃহীত

মূল্যস্ফীতির কারণে ঈদ ব্যাহত হয়েছে, বিএনপির এ তথ্য ঠিক নয় বলে দাবি করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেছেন, মূল্যস্ফীতির মধ্য দিয়ে এক কোটি ৪০ লাখের বেশি কোরবানি হয়েছে। যা গতবারের তুলনায় বেশি।

মঙ্গলবার (১৮ জুন) রাজধানীর ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির কার্যালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে এ কথা বলেন ওবায়দুল কাদের।

তিনি বলেন, সমালোচনা করে বিএনপিসহ তাদের সমর্থকরা দেশটাকে শ্রীলঙ্কা বানিয়ে ফেলার চেষ্টা করেছে। মূল্যস্ফীতি আছে তবে এটা কমাতে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

ঈদের দিনেও সরকারের বিরুদ্ধে বিএনপির অপপ্রচার বন্ধ থাকেনি অভিযোগ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে তাদের বিরুদ্ধে কোনো বক্তব্যও দেওয়া হয়নি।

মিয়ানমারের বিষয়ে মির্জা ফখরুলকে চ্যালেঞ্জ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, বাংলাদেশের সার্বভৌমত্বে কোথায় আঘাত হানা হচ্ছে। অনুপ্রবেশকারীরা চলে গেছে জাহাজও সরে গেছে।

তিনি আরও বলেন, দুর্নীতির বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি ঘোষণা দিয়েছেন শেখ হাসিনা এবং দুদককেও স্বাধীন করেছেন তিনি। যতই প্রভাবশালী হোক দুর্নীতি করলে কারো ছাড় নেই।

 

দেশের অর্থনীতির কোমর ভেঙে ফেলা হয়েছে : রিজভী

ছবি: সংগৃহীত

বিভিন্ন অনিয়ম আর দূর্নীতি আর সরকারের ব্যর্থতার মাধ্যমে দেশের অর্থনীতির কোমর ভেঙে ফেলা হয়েছে বলে দাবি করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

মঙ্গলবার (১৮ জুন) রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন তিনি।

তিনি বলেন, ব্যাপক বেকারত্ব, চরম মূল্যস্ফীতি, রিজার্ভের ভয়াবহ পতন, ডলার সংকট, বিপুল পরিমাণ খেলাপি ঋণ এবং ব্যাংকগুলো খালি হয়ে যাওয়া, জ্বালানি নিশ্চয়তা ছাড়া একের পর এক ভাড়াভিত্তিক বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্র নির্মাণ, হাজার হাজার কোটি টাকার ভর্তুকির মাধ্যমে দেশের অর্থনীতির কোমর ভেঙে ফেলা হয়েছে।

রিজভী বলেন, ব্যক্তিগত আয় ও জীবনযাত্রার মান দিন দিন প্রকট হচ্ছে। দেশে আর্থিক খাত এখন সবচেয়ে বিপর্যস্ত ও নিরাপত্তাহীন। নৈতিকতাহীন, অপচয়, অনিয়ম, দুর্নীতি ও অব্যবস্থাপনার কারণে ব্যাংক খাত এখন খাদের কিনারে। ভয়াবহ আর্থিক খাতের দুরবস্থা থেকে মানুষের চোখ সরানোর জন্য সরকার এখন নানা তামাশা ও চক্রান্তের আশ্রয় নিয়েছে।

এবারের ঈদে মানুষ নিরানন্দে দিন কাটিয়েছে বলে উল্লেখ করে তিনি বলেন, গরুর হাটে কেনাকাটা ছিল কম। ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়ে খামারিরা গরু বিক্রি করতে না পেরে চরম দেনাগ্রস্ত হয়ে পড়েছে, কারণ মানুষের হাতে টাকা নেই। তাই দখলদার সরকার জোর করে টিকে থাকার জন্য জাতীয় স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব বেচতে শুরু করেছে।

ভারতীয় রেলওয়ে বোর্ড ভারতের সামরিক ও বেসামরিক পরিবহনের জন্য বাংলাদেশের ভেতর দিয়ে রেললাইন নেটওয়ার্ক তৈরি উদ্যোগ গ্রহণ করেছে মন্তব্য করে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব বলেন, এতে একটি স্বাধীন ও সার্বভৌম দেশের ‘ইন্টেলিজেন্স’ ব্যবস্থা ভেঙে পড়বে। দেশের জনগণের ইচ্ছার বিরুদ্ধে বাংলাদেশের নতজানু সরকার যদি এই রেললাইন নেটওয়ার্ক বাস্তবায়ন করে তাতে স্বাধীন বাংলাদেশের অস্তিত্বকে ক্রমাগতভাবে মিলিয়ে দেওয়া হবে।

রিজভী দাবি করেন, মানুষের মতপ্রকাশ ও বাকস্বাধীনতা আরও বিপজ্জনক পরিস্থিতির মধ্যে পড়তে যাচ্ছে বলে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংগঠন অভিমত প্রকাশ করেছে। তিনি বলেন, আন্তর্জাতিক অধিকার গ্রুপগুলো ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের যে ধারাগুলো বাতিলের দাবি জানিয়েছিল, সেই ধারাগুলোই সাইবার নিরাপত্তা আইনের বিধিমালায় অন্তর্ভুক্ত করা হচ্ছে।

প্রস্তাবিত সাইবার নিরাপত্তা বিধিমালায় মতপ্রকাশ, গণমাধ্যমের স্বাধীনতা ও মানবাধিকার হরণমূলক ধারা সংযোজিত হবে বলে উল্লেখ করেন বিএনপির সিনিয়র এ নেতা। তিনি বলেন, এটি বাস্তবায়িত হলে আওয়ামী ফ্যাসিবাদ চূড়ান্ত রূপ ধারণ করবে। মতপ্রকাশের স্বাধীনতা কফিনে ঢুকানোর পর এটাই হবে সর্বশেষ পেরেক।

দেশের খ্যাতিমান কবি অসীম সাহা আর নেই

ছবি: সংগৃহীত

মারা গেছেন দেশের খ্যাতিমান কবি অসীম সাহা। মঙ্গলবার (১৮ জুন) বিকেল ৪টার দিকে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালেয় (বিএসএমএমইউ) শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি।

তার মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেছেন কবি, ছড়াকার ও শিশুসাহিত্যিক মালেক মাহমুদ। কবি অসীম সাহা পারকিনসন (হাতকাঁপা রোগ), কোষ্ঠকাঠিন্য ও ডায়াবেটিসসহ বিভিন্ন রোগে ভুগছিলেন।

১৯৪৯ সালের ২০ ফেব্রুয়ারি নেত্রকোনা জেলায় তার মামার বাড়িতে জন্মগ্রহণ করেন অসীম সাহা। তার পৈতৃক নিবাস মাদারীপুর। তার বাবা অখিল বন্ধু সাহা ছিলেন অধ্যাপক।

অসীম সাহা ১৯৬৫ সালে মাধ্যমিক পাস করেন এবং ১৯৬৭ সালে মাদারীপুর নাজিমুদ্দিন মহাবিদ্যালয় থেকে উচ্চমাধ্যমিক পাস করেন। ১৯৬৯ সালে স্নাতক পাস করে তিনি ১৯৬৯ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে বাংলা বিভাগে ভর্তি হন। ১৯৬৯ সালে অসহযোগ আন্দোলন এবং পরে ১৯৭১ সালে স্বাধীনতাযুদ্ধ শুরু হলে তার স্নাতকোত্তর পরীক্ষা পিছিয়ে যায় এবং তিনি ১৯৭৩ সালে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি লাভ করেন।

বাংলা সাহিত্যে অবদানের জন্য ২০১২ সালে বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার লাভ করেন অসীম সাহা। বাংলা ভাষা ও সাহিত্যে অবদানের জন্য ২০১৯ সালে বাংলাদেশ সরকার তাকে দেশের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ বেসামরিক সম্মাননা একুশে পদকে ভূষিত করে।

 

সর্বশেষ সংবাদ

মূল্যস্ফীতির কারণে ঈদ ব্যাহত হয়েছে, বিএনপির এ তথ্য ঠিক নয় : কাদের
দেশের অর্থনীতির কোমর ভেঙে ফেলা হয়েছে : রিজভী
দেশের খ্যাতিমান কবি অসীম সাহা আর নেই
সালমান খানের বাড়িতে হামলার ঘটনায় এবার ইউটিউবার গ্রেপ্তার
২০২৬ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে যে ১২ দল সরাসরি খেলবে
সুনামগঞ্জে বন্যা পরিস্থিতির আরও অবনতি, ডুবছে নতুন নতুন এলাকা
কমানো হতে পারে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে চলমান ছুটি
ঈদের দ্বিতীয় দিনেও রাজধানীতে চলছে পশু কোরবানি
ওয়েস্ট ইন্ডিজের কাছে ১০৪ রানের বিশাল ব্যবধানে পরাজিত আফগানরা
কোরবানীর গরু নিয়ে বাড়ি ফেরা হলো না দোহার
অপু ছাগল আর বুবলী গরু কোরবানি দিয়েছেন
রাখাইনের বাসিন্দাদের বাংলাদেশ সীমান্তবর্তী এলাকা ছাড়ার আহ্বান আরাকান আর্মির
ভূমধ্যসাগরে নৌকা ডুবে নিহত ১০, বাংলাদেশিসহ জীবিত উদ্ধার ৫১
ঈদের দিনে ৭ জেলার সড়কে প্রাণ গেল ১২ জনের
ঈদের দিনে পর্যটকের দেখা নেই কক্সবাজারে
ভারী বৃষ্টিতে ডুবল সিলেট, কোরবানি দিতে পারেননি অনেকে
ঈদের দিনে মাছ ধরতে গিয়ে বজ্রপাতে জেলের মৃত্যু
রাজধানীতে কসাইসের অভাবে কোরবানি আগামীকাল
নওগাঁয় বেপরোয়া গতিতে মোটরসাইকেল চালিয়ে প্রাণ গেল কিশোরের
বিশ্বকাপের সুপার এইটে বাংলাদেশের ম্যাচের সূচি