সৈয়দ আবু জাফর আহমদের মৃত্যুবার্ষিকীতে শ্রদ্ধাঞ্জলি

৩০ মে ২০২৩, ০৫:৪৩ পিএম | আপডেট: ০৪ অক্টোবর ২০২৩, ০৯:০০ পিএম


সৈয়দ আবু জাফর আহমদের মৃত্যুবার্ষিকীতে শ্রদ্ধাঞ্জলি

মৌলভীবাজারের কোর্ট রোডের একটি ভবনে তখন সাপ্তাহিক ‘মনুবার্তা’ পত্রিকার অফিস। দ্বিতীয় তলায় তিনটি কক্ষ। তার একটি কক্ষে সময় পেলেই বসেন পত্রিকার মালিক ও সম্পাদক। এক-আধটু লেখালেখির সুবাদে প্রায়ই সেখানে যেতাম। তার সঙ্গে দেখা হলে স্মিত হেসে কথা বলতেন অনুচ্চস্বরে কিন্তু দৃঢ়ভাবে এবং গুছিয়ে। হ্যাঁ, তিনি হলেন বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির সাবেক সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আবু জাফর আহমদ।

২৯ মে সোমবার ছিল তার ৪র্থ মৃত্যুবার্ষিকী। মহান মুক্তিযুদ্ধ থেকে শুরু করে সামরিক স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনসহ দেশের প্রতিটি গণতান্ত্রিক, অসাম্প্রদায়িক, প্রগতিশীল আন্দোলনের একজন নির্ভীক সৈনিক ছিলেন তিনি। শোষণ মুক্ত সমাজ নির্মাণ, মেহনতি মানুষের অধিকার আদায়ে লড়াকু এক নেতা ছিলেন কমরেড সৈয়দ আবু জাফর আহমদ। কৈশোরে ছাত্র জীবন থেকে রাজনীতির ময়দানে নেমে আমৃত্যু তাই ছিলেন।

মফস্বল শহর থেকে রাজনীতি করে দেশের অন্যতম একটা প্রাচীন রাজনৈতিক সংগঠন বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করা সহজ কথা নয়। সৈয়দ আবু জাফর আহমদ ১৯৫৪ সালের ১১ জুলাই মৌলভীবাজার জেলার কমলগঞ্জ উপজেলার রঘুনাথপুর গ্রামে জন্ম গ্রহণ করেন। শিক্ষাজীবন শুরু হয় ১৯৫৯ সালে সৈয়ারপুর লক্ষ্মীবালা প্রাথমিক বিদ্যালয়ে। মৌলভীবাজার সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১৯৬৯ সালে এসএসসি পাশ করে ছাত্র ইউনিয়নের রাজনীতিতে যোগ দেন। ১৯৭০ সালে মৌলভীবাজার কলেজ সংসদ নির্বাচনে ছাত্র ইউনিয়নের প্রার্থী হিসেবে সাহিত্য সম্পাদক পদে নির্বাচিত হোন। পরবর্তী সময়ে ১৯৭৩ সালে একই সংগঠনের প্রার্থী হিসেবে একই কলেজ সংসদে জিএস নির্বাচিত হোন।

১৯৭১ সালে ন্যাপ-কমিউনিস্ট পার্টি- ছাত্র ইউনিয়নের যৌথ গেরিলা বাহিনীর সদস্য হিসেবে মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন। ১৯৭৩ সালে তিনি প্রথম কারাবরণ করেন চা শ্রমিক হত্যার প্রতিবাদ করতে গিয়ে। ওই বছরই তিনি বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির সদস্য পদ লাভ করেন। ১৯৭২ সালে বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন মৌলভীবাজার মহকুমা সংসদের সাংগঠনিক সম্পাদক এবং ১৯৭৪ সালে সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হোন। ১৯৭৫ সালে তিনি আবারও গ্রেপ্তার হোন।

স্বপরিবারে জাতির জনক, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নির্মম হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদে আন্দোলন করতে গিয়ে বিনা বিচারে প্রায় এক বছর হাজতবাস করে ১৯৭৬ সালে মুক্তিলাভ করেন। এ ছাড়া, স্বৈরাচার এরশাদ সরকারের আমলেও তিনি কারাবন্দী হোন।

কমরেড সৈয়দ আবু জাফর আহমদের রাজনৈতিক প্রজ্ঞা, লড়াই- সংগ্রাম ও ত্যাগ-তিতিক্ষার কারণে ১৯৭৮ সালে বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি মৌলভীবাজার মহকুমা কমিটির সহ- সাধারণ সম্পাদক পদে অধিষ্ঠিত হোন। পরবর্তীতে দীর্ঘদিন সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। এরই ধারাবাহিকতায় ১৯৯১ সালে পার্টির ৫ম কংগ্রেসে তিনি কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য, ১৯৯৫ সালে ৬ষ্ঠ কংগ্রেসে সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য এবং ২০১২ ও ২০১৬ সালে যথাক্রমে দশম ও একাদশ কংগ্রেসে পার্টির সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হোন। তবে অসুস্থতার কারণে ২০১৭ সালে তিনি সাধারণ সম্পাদকের পদ থেকে অব্যাহতি নিয়ে আমৃত্যু প্রেসিডিয়াম সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

সার্বক্ষণিক রাজনীতিবিদ সৈয়দ আবু জাফর আহমদ সামরিক স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলন ছাড়াও প্রতিটি গণতান্ত্রিক আন্দোলনে ছিলেন সদা সোচ্চার। কৃষক, ক্ষেতমজুর, চা শ্রমিক, পরিবহন শ্রমিক, শব্দকার জনগোষ্ঠী তথা মেহনতি মানুষের অধিকার আদায়ের আন্দোলনসহ স্বাধীনতা বিরোধীদের বিচার, জাতীয় সম্পদ রক্ষার আন্দোলন, জঙ্গিবাদ ও সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে প্রতিটি আন্দোলনে তিনি ছিলেন সামনের কাতারে। তেল গ্যাস বিদ্যুৎ বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটির ২০০২ সালের ঢাকা- বিবিয়ানা লংমার্চে তিনি ছিলেন সিলেট বিভাগীয় সমন্বয়ক।

পার্টির প্রতিনিধি হিসেবে সুবক্তা সৈয়দ আবু জাফর আহমদ ভারত, নেপাল, সোভিয়েত ইউনিয়ন(রাশিয়া), চীন, ইংল্যান্ড, মালয়েশিয়া, হংকং, তুরস্ক প্রভৃতি দেশের রাজনৈতিক কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করেছেন। তা ছাড়া, ১৯৭৯ সালে তিনি এক বছরের জন্যে মার্ক্সবাদ এবং লেনিনবাদ সর্ম্পকে উচ্চতর জ্ঞান লাভের জন্যে জার্মানীতে গমন করেন।

রাজনৈতিক পাঠে অক্লান্ত এবং লেখালেখিতেও দক্ষ ছিলেন তিনি। জাতীয় ও আন্তর্জাতিক বিষয়ে অনেক প্রবন্ধ লিখেছেন। সাহিত্য ও সংস্কৃতি বিষয়েও ছিলেন নিবেদিত। ১৯৯১ সালে তার সম্পাদনায় মৌলভীবাজার থেকে প্রকাশিত হয় সাপ্তাহিক মনুবার্তা। পত্রিকাটি অল্পদিনেই সুধীজনসহ সবার দৃষ্টি আকর্ষণ করে। পত্রিকা অফিসটি অনেক লেখক, সাংবাদিকদের যোগাযোগের কেন্দ্রস্থলে পরিণত হয়। নতুন লেখক সৃষ্টিতেও পত্রিকাটির ভূমিকা উল্লেখযোগ্য।

সার্বক্ষণিক এই রাজনীতিবিদের ৪র্থ মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে জানাচ্ছি বিনম্র শ্রদ্ধা।

জাহাঙ্গীর জয়েস: কবি ও শিক্ষক।


রসায়নে নোবেল পুরস্কার পেলেন তিন মার্কিন বিজ্ঞানী

০৪ অক্টোবর ২০২৩, ০৪:২২ পিএম | আপডেট: ০৫ অক্টোবর ২০২৩, ০৭:২৬ এএম


রসায়নে নোবেল পুরস্কার পেলেন তিন মার্কিন বিজ্ঞানী
রসায়নে নোবেল বিজয়ী হয়েছেন মুঙ্গি জি বাওয়েন্দি, লুইস ই ব্রুস এবং অ্যালেক্সি আই একিমোভ।

২০২৩ সালের জন্য রসায়নে নোবেল বিজয়ী হয়েছেন তিন মার্কিন বিজ্ঞানী। বুধবার (৪ অক্টোবর) এই পুরস্কারের জন্য বাংলাদেশ সময় বিকাল ৩টা ৪৫ মিনিটে তাদের নাম ঘোষণা করে দ্য রয়েল সুইডিশ অ্যাকাডেমি অব সায়েন্সেস। বিজয়ীরা হলেন, মুঙ্গি জি বাওয়েন্দি, লুইস ই ব্রুস এবং অ্যালেক্সি আই একিমোভ।

নোবেল কমিটি ঘোষণায় বলেছে, কোয়ান্টাম ডটের আবিষ্কার, উন্নয়ন এবং ন্যানো ক্রিস্টাল প্রযুক্তি বা ন্যানোপার্টিকলের আকার ও বৈশিষ্ট্য নির্ধারণে ভূমিকা রাখায় এই সম্মানজনক পুরষ্কারে ভূষিত করা হয়েছে তিন গবেষককে। তারা তিন জনই মার্কিন নাগরিক।

তবে নির্ধারিত সময়ের কয়েক ঘণ্টা আগে এবারের নোবেল বিজয়ীদের নাম ফাঁস হয়ে যায়। এ নিয়ে একাধিক সংবাদমাধ্যমে খবর প্রকাশ হয়। কিন্তু বিষয়টিকে গুজব বলে উড়িয়ে দেয় সংশ্লিষ্ট মহল। কিন্তু পৌনে ৪টায় ঘোষিত বিজয়ীদের নামের তালিকার সঙ্গে ফাঁস হওয়া তালিকা মিলে যায়। এ বিষয়ে নোবেল কমিটির তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি।

সোমবার থেকে এই বছরের নোবেল পুরস্কার ঘোষণা শুরু হয়েছে। এরই মধ্যে ঘোষণা করা হয়েছে চিকিৎসা ও পদার্থবিজ্ঞানে নোবেল বিজয়ীদের নাম।

মঙ্গলবার পদার্থবিজ্ঞানে নোবেল বিজয়ীদের নাম ঘোষণা করা হয়। চলতি বছর পদার্থ বিজ্ঞানে নোবেল জিতেছেন যুক্তরাষ্ট্র, জার্মানি ও সুইডেনের তিন বিজ্ঞানী। ইলেকট্রন গতিবিদ্যার গবেষণায় বিশেষ অবদানের স্বীকৃতি হিসেবে তাদেরকে এই পুরস্কার দিয়েছে নোবেল কমিটি।

পদার্থবিজ্ঞানে নোবেল পুরস্কারজয়ী তিন বিজ্ঞানী হলেন- পিয়েরে অ্যাগোস্টিনি (যুক্তরাষ্ট্র), ফেরেঙ্ক ক্রাউস (জার্মানি) এবং অ্যান ল'হুইলিয়ার (সুইডেন)।

এর আগে সোমবার চিকিৎসাবিজ্ঞানে নোবেলজয়ীদের নাম ঘোষণা করা হয়। এবারে নোবেল পুরস্কার পেয়েছেন কাতালিন ক্যারিকো ও ড্রিউ ওয়েইসম্যান। করোনার টিকা তৈরিতে অবদানের জন্য হাঙ্গেরি ও যুক্তরাষ্ট্রের দুই বিজ্ঞানী যৌথভাবে এবারের চিকিৎসাবিজ্ঞানের নোবেল জিতে নিয়েছেন। করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছেন তারা।

আগামীকাল ৬ অক্টোবর সাহিত্যে অবদান রাখায় ঘোষণা করা হবে নোবেলজয়ীর নাম। ৬ অক্টোবর শান্তিতে নোবেলজয়ীর নাম ঘোষণা করা হবে।


বিভাগ : সারাবিশ্ব

বিষয় : নোবেলজয়ী



কবি রাধাপদের ওপর হামলার মূল আসামি গ্রেপ্তার

০৪ অক্টোবর ২০২৩, ০৪:০৫ পিএম | আপডেট: ০৫ অক্টোবর ২০২৩, ০৭:২৭ এএম


কবি রাধাপদের ওপর হামলার মূল আসামি গ্রেপ্তার

কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরীতে পূর্বশত্রুতার জেরে রাধাপদ রায় (৮২) নামের চারণকবিকে হামলার ঘটনায় মামলার মূল আসামি রফিকুল ইসলামকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। বুধবার দুপুরে কুড়িগ্রাম পৌর শহর থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

গণমাধ্যমকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন কুড়িগ্রামের পুলিশ সুপার (এসপি) আল আসাদ মো. মাহফুজুল ইসলাম।

তিনি বলেন, মাছ ধরাকে কেন্দ্র করে এবং পারিবারিক পূর্ব শত্রুতার জেরে কবি রাধাপদকে মারধরের ঘটনায় প্রধান আসামি রফিকুল ইসলামকে আমরা গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হয়েছি। তাকে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠানো হবে। অপর আসামি কদুর আলীকেও গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

পুলিশ সুপার আরও বলেন, এই বিষয়টি একান্তই ব্যক্তিগত। আপনারা সবাই জানেন, এটি পারিবারিক ঘটনা। কেউ কেউ এটিকে অন্যভাবে প্রচারণাও চালিয়েছে। ভুয়া তথ্য না ছড়ানোর জন্য সবাইকে বিনতি অনুরোধ করছি। আমরা কবির খোঁজ রাখছি সবসময়।

এর আগে গত ৩০ সেপ্টেম্বর সকালে রাধাপদ রায়ের নিজ গ্রামে এ হামলার ঘটনা ঘটে। রাধাপদ রায় নাগেশ্বরী উপজেলার ভিতরবন্দ ইউনিয়নের গোড্ডারপাড় বটতলা গ্রামের বাসিন্দা। ওইদিন চিকিৎসার জন্য কবিকে নেওয়া হয় নাগেশ্বরী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে। এ ঘটনায় রাধাপদ রায়ের ছেলে শ্রী জুগল রায় পরদিন রোববার অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে নাগেশ্বরী থানায় মামলা দায়ের করেন।


বিভাগ : সারাদেশ



রাষ্ট্রপতির কাছে নিঃশর্ত ক্ষমা চাইলে খালেদা জিয়ার স্থায়ী জামিনের সুযোগ আছে: আইনমন্ত্রী

০৪ অক্টোবর ২০২৩, ০৩:৫৬ পিএম | আপডেট: ০৫ অক্টোবর ২০২৩, ০৭:২০ এএম


রাষ্ট্রপতির কাছে নিঃশর্ত ক্ষমা চাইলে খালেদা জিয়ার স্থায়ী জামিনের সুযোগ আছে: আইনমন্ত্রী

রাষ্ট্রপতির কাছে নিজের দোষ স্বীকার করে নিঃশর্ত ক্ষমা চাইলেই কেবল বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া স্থায়ী জামিন পেতে পারেন বা বিদেশে যেতে পারেন বলে মন্তব্য করছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। তিনি বলেন, ‘যে কেউ সাংবিধানিকভাবে এই আবেদন করতে পারবেন।’

আজ বুধবার দুপুরে আইন মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে মন্ত্রী এই মন্তব্য করেন।

আইনমন্ত্রী বলেন, ‘সাজাপ্রাপ্ত যে কোনো আসামি তাঁর দণ্ড মওকুফের জন্য মহামান্য রাষ্ট্রপতির কাছে আবেদন করতে পারেন।

নির্বাহী আদেশের বিষয়ে আনিসুল হক বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী নির্বাহী আদেশে ফৌজদারি কার্যবিধির ৪০১ ধারা অনুযায়ী শর্ত যুক্তভাবে খালেদা জিয়ার সাজা স্থগিত করে চিকিৎসার ব্যবস্থা করেছেন, সেটি দ্বিতীয়বার আর করার কোনো সুযোগ নেই।’

মির্জা ফখরুলের বক্তব্যের বিষয়ে আইনমন্ত্রী বলেন, ‘মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সংবাদ সম্মেলনের মিথ্যা ও ভিত্তিহীন বক্তব্য দিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে তুলনা করেছেন। শেখ হাসিনা ২০০৮ সালে নিঃশর্ত জামিনে ছিলেন বলেই বিদেশে চিকিৎসা নিতে পেরেছিলেন। তাকে শর্ত দিয়ে জামিন দেওয়া হয়নি। বেগম খালেদা জিয়া শর্ত সাপেক্ষে জামিনে বাসায় চিকিৎসা নিচ্ছেন।’

আইনমন্ত্রী বলেন, ‘শর্ত সাপেক্ষেই তার দণ্ড স্থগিত করে বাসায় চিকিৎসা নিচ্ছেন। এটা পুনরায় বিবেচনায় রাখার সুযোগ রাখা হয়নি। ফখরুলকে অসত্য মিথ্যা তথ্য দিয়ে জনগণকে বিভ্রান্ত না করার আহ্বান জানিয়েছেন। বেগম জিয়ার রাজনৈতিক কোনো শর্ত দেওয়া হয়নি।’

অনুসরণ করুন