সোমবার, ২৭ মে ২০২৪ | ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
Dhaka Prokash

সৈয়দ আবু জাফর আহমদের মৃত্যুবার্ষিকীতে শ্রদ্ধাঞ্জলি

মৌলভীবাজারের কোর্ট রোডের একটি ভবনে তখন সাপ্তাহিক ‘মনুবার্তা’ পত্রিকার অফিস। দ্বিতীয় তলায় তিনটি কক্ষ। তার একটি কক্ষে সময় পেলেই বসেন পত্রিকার মালিক ও সম্পাদক। এক-আধটু লেখালেখির সুবাদে প্রায়ই সেখানে যেতাম। তার সঙ্গে দেখা হলে স্মিত হেসে কথা বলতেন অনুচ্চস্বরে কিন্তু দৃঢ়ভাবে এবং গুছিয়ে। হ্যাঁ, তিনি হলেন বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির সাবেক সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আবু জাফর আহমদ।

২৯ মে সোমবার ছিল তার ৪র্থ মৃত্যুবার্ষিকী। মহান মুক্তিযুদ্ধ থেকে শুরু করে সামরিক স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনসহ দেশের প্রতিটি গণতান্ত্রিক, অসাম্প্রদায়িক, প্রগতিশীল আন্দোলনের একজন নির্ভীক সৈনিক ছিলেন তিনি। শোষণ মুক্ত সমাজ নির্মাণ, মেহনতি মানুষের অধিকার আদায়ে লড়াকু এক নেতা ছিলেন কমরেড সৈয়দ আবু জাফর আহমদ। কৈশোরে ছাত্র জীবন থেকে রাজনীতির ময়দানে নেমে আমৃত্যু তাই ছিলেন।

মফস্বল শহর থেকে রাজনীতি করে দেশের অন্যতম একটা প্রাচীন রাজনৈতিক সংগঠন বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করা সহজ কথা নয়। সৈয়দ আবু জাফর আহমদ ১৯৫৪ সালের ১১ জুলাই মৌলভীবাজার জেলার কমলগঞ্জ উপজেলার রঘুনাথপুর গ্রামে জন্ম গ্রহণ করেন। শিক্ষাজীবন শুরু হয় ১৯৫৯ সালে সৈয়ারপুর লক্ষ্মীবালা প্রাথমিক বিদ্যালয়ে। মৌলভীবাজার সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১৯৬৯ সালে এসএসসি পাশ করে ছাত্র ইউনিয়নের রাজনীতিতে যোগ দেন। ১৯৭০ সালে মৌলভীবাজার কলেজ সংসদ নির্বাচনে ছাত্র ইউনিয়নের প্রার্থী হিসেবে সাহিত্য সম্পাদক পদে নির্বাচিত হোন। পরবর্তী সময়ে ১৯৭৩ সালে একই সংগঠনের প্রার্থী হিসেবে একই কলেজ সংসদে জিএস নির্বাচিত হোন।

১৯৭১ সালে ন্যাপ-কমিউনিস্ট পার্টি- ছাত্র ইউনিয়নের যৌথ গেরিলা বাহিনীর সদস্য হিসেবে মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন। ১৯৭৩ সালে তিনি প্রথম কারাবরণ করেন চা শ্রমিক হত্যার প্রতিবাদ করতে গিয়ে। ওই বছরই তিনি বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টির সদস্য পদ লাভ করেন। ১৯৭২ সালে বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন মৌলভীবাজার মহকুমা সংসদের সাংগঠনিক সম্পাদক এবং ১৯৭৪ সালে সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হোন। ১৯৭৫ সালে তিনি আবারও গ্রেপ্তার হোন।

স্বপরিবারে জাতির জনক, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নির্মম হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদে আন্দোলন করতে গিয়ে বিনা বিচারে প্রায় এক বছর হাজতবাস করে ১৯৭৬ সালে মুক্তিলাভ করেন। এ ছাড়া, স্বৈরাচার এরশাদ সরকারের আমলেও তিনি কারাবন্দী হোন।

কমরেড সৈয়দ আবু জাফর আহমদের রাজনৈতিক প্রজ্ঞা, লড়াই- সংগ্রাম ও ত্যাগ-তিতিক্ষার কারণে ১৯৭৮ সালে বাংলাদেশের কমিউনিস্ট পার্টি মৌলভীবাজার মহকুমা কমিটির সহ- সাধারণ সম্পাদক পদে অধিষ্ঠিত হোন। পরবর্তীতে দীর্ঘদিন সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। এরই ধারাবাহিকতায় ১৯৯১ সালে পার্টির ৫ম কংগ্রেসে তিনি কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য, ১৯৯৫ সালে ৬ষ্ঠ কংগ্রেসে সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য এবং ২০১২ ও ২০১৬ সালে যথাক্রমে দশম ও একাদশ কংগ্রেসে পার্টির সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হোন। তবে অসুস্থতার কারণে ২০১৭ সালে তিনি সাধারণ সম্পাদকের পদ থেকে অব্যাহতি নিয়ে আমৃত্যু প্রেসিডিয়াম সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

সার্বক্ষণিক রাজনীতিবিদ সৈয়দ আবু জাফর আহমদ সামরিক স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলন ছাড়াও প্রতিটি গণতান্ত্রিক আন্দোলনে ছিলেন সদা সোচ্চার। কৃষক, ক্ষেতমজুর, চা শ্রমিক, পরিবহন শ্রমিক, শব্দকার জনগোষ্ঠী তথা মেহনতি মানুষের অধিকার আদায়ের আন্দোলনসহ স্বাধীনতা বিরোধীদের বিচার, জাতীয় সম্পদ রক্ষার আন্দোলন, জঙ্গিবাদ ও সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে প্রতিটি আন্দোলনে তিনি ছিলেন সামনের কাতারে। তেল গ্যাস বিদ্যুৎ বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটির ২০০২ সালের ঢাকা- বিবিয়ানা লংমার্চে তিনি ছিলেন সিলেট বিভাগীয় সমন্বয়ক।

পার্টির প্রতিনিধি হিসেবে সুবক্তা সৈয়দ আবু জাফর আহমদ ভারত, নেপাল, সোভিয়েত ইউনিয়ন(রাশিয়া), চীন, ইংল্যান্ড, মালয়েশিয়া, হংকং, তুরস্ক প্রভৃতি দেশের রাজনৈতিক কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ করেছেন। তা ছাড়া, ১৯৭৯ সালে তিনি এক বছরের জন্যে মার্ক্সবাদ এবং লেনিনবাদ সর্ম্পকে উচ্চতর জ্ঞান লাভের জন্যে জার্মানীতে গমন করেন।

রাজনৈতিক পাঠে অক্লান্ত এবং লেখালেখিতেও দক্ষ ছিলেন তিনি। জাতীয় ও আন্তর্জাতিক বিষয়ে অনেক প্রবন্ধ লিখেছেন। সাহিত্য ও সংস্কৃতি বিষয়েও ছিলেন নিবেদিত। ১৯৯১ সালে তার সম্পাদনায় মৌলভীবাজার থেকে প্রকাশিত হয় সাপ্তাহিক মনুবার্তা। পত্রিকাটি অল্পদিনেই সুধীজনসহ সবার দৃষ্টি আকর্ষণ করে। পত্রিকা অফিসটি অনেক লেখক, সাংবাদিকদের যোগাযোগের কেন্দ্রস্থলে পরিণত হয়। নতুন লেখক সৃষ্টিতেও পত্রিকাটির ভূমিকা উল্লেখযোগ্য।

সার্বক্ষণিক এই রাজনীতিবিদের ৪র্থ মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে জানাচ্ছি বিনম্র শ্রদ্ধা।

জাহাঙ্গীর জয়েস: কবি ও শিক্ষক।

Header Ad

কুমিল্লায় ভবন ধসে শ্রেণিকক্ষেই প্রাণ গেল শিক্ষার্থীর

কুমিল্লায় ভবন ধসে শ্রেণিকক্ষেই এক শিক্ষার্থীর মৃত্যু হয়েছে। ছবি: সংগৃহীত

কুমিল্লায় বিদ্যালয়ে ক্লাসরত অবস্থায় পার্শ্ববর্তী নির্মাণাধীন সাততলা ভবনের দেয়াল (লিংটার) ধসে সাইফুল ইসলাম সাগর (১২) নামে এক শিক্ষার্থী নিহত হয়েছেন।

সোমবার (২৭ মে) বেলা পৌনে ১১টার দিকে জেলার সদর দক্ষিণ উপজেলার নোয়াগাঁও চৌমুহনী এলাকায় নুর আইডিয়াল স্কুলে এ দুর্ঘটনা ঘটে। নিহত স্কুলছাত্র সাইফুল ইসলাম সাগর ওই প্রতিষ্ঠানের পঞ্চম শ্রেণির ছাত্র। সে শাকতলা এলাকার অলী আহমেদের ছেলে।

নূর আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজের প্রধান শিক্ষক মো. আশিকুর রহমান বলেন, বেলা ১১টা ৪০ মিনিটের দিকে পঞ্চম শ্রেণির ক্লাস চলছিল। হঠাৎ স্কুলের পূর্বপাশে নির্মাণাধীন একটি ভবনের ৭তলার দেওয়ালের একটি অংশ স্কুলের টিনের চালায় ভেঙে পড়ে। এতে স্কুলের চেয়ার-টেবিলের ব্যাপক ক্ষতি হয়। এ সময় ইটের আঘাতে সাইফুল ইসলাম সাগর গুরুতর আহত হয়। দ্রুত তাকে কুমিল্লা সদর হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত ডাক্তার মৃত ঘোষণা করেন।

প্রধান শিক্ষক আশিকুর রহমানের অভিযোগ, কোনো প্রকার সেফটি ছাড়াই ভবন কর্তৃপক্ষ নির্মাণকাজ চালাচ্ছিল। তাদের অবহেলার কারণেই আজ শিশুটির মৃত্যু হয়েছে। প্রশাসনের কাছে এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচার দাবি করেন তিনি।

এ বিষয়ে কুমিল্লা সদর দক্ষিণ মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) খাদেমুল বাহার জাগো নিউজকে বলেন, খবর পেয়ে নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। অভিযোগের ভিত্তিতে এ বিষয়ে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

হেরে গেলেন নিপুণ, শিল্পী সমিতির সম্পাদক পদ ফিরে পেলেন ডিপজল

নিপুণ আক্তার এবং ডিপজল। ছবি: সংগৃহীত

চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির এবারের নির্বাচনে সাধারণ সম্পাদক পদে মনোয়ার হোসেন ডিপজলের দায়িত্ব পালনে হাইকোর্টের দেওয়া নিষেধাজ্ঞার আদেশ স্থগিত করেছেন চেম্বার আদালত।

সোমবার (২৭ মে) আপিল বিভাগের চেম্বার বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিম হাইকোর্ট থেকে দেওয়া আদেশ স্থগিতের রায় দেন।

এর ফলে সমিতির সম্পাদক পদে ডিপজলের দায়িত্ব পালনে আর কোনো বাধা রইল না। টিকল না সাবেক সাধারণ সম্পাদক নিপুণ আক্তারের করা রিট। আইনি লড়াইয়ে ডিপজলের কাছে হেরে গেলেন তিনি।

নিপুণের করা রিট আবেদনের প্রেক্ষিতে গত ২০ মে শিল্পী সমিতির সাধারণ সম্পাদক পদে দায়িত্ব পালনের ওপর নিষেধাজ্ঞা দেন হাইকোর্ট। সেই পদ ফিরে পেতে শনিবার চেম্বার আদালতে আবেদন করেন ডিপজল। সোমবার তিনি রায় পেলেন নিজের পক্ষে।

গত ১৫ মে নিপুণের পক্ষে আইনজীবী অ্যাডভোকেট পলাশ চন্দ্র রায় হাইকোর্টে একটি রিট আবেদন করেন। তাতে শিল্পী সমিতির নির্বাচনে অনিয়ম ও কারচুপির অভিযোগ আনার পাশাপাশি নতুন নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা এবং মিশা-ডিপজলের নেতৃত্বাধীন কমিটির দায়িত্ব পালনে নিষেধাজ্ঞা চাওয়া হয়।

সেই রিটের শুনানিতে গত ২০ মে ডিপজলের সাধারণ সম্পাদক পদের ওপর নিষেধাজ্ঞা দেন বিচারপতি নাইমা হায়দার ও বিচারপতি কাজী জিনাত হকের হাইকোর্ট বেঞ্চ। সেই সঙ্গে পরাজিত প্রার্থী নিপুণ আক্তারের অভিযোগ তদন্তের জন্য সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়কে নির্দেশও দেন।

গত ১৯ এপ্রিল এফডিসিতে অনুষ্ঠিত হয় শিল্পী সমিতির ২০২৪-২৬ মেয়াদের নির্বাচন। ফলাফল ঘোষণা হয় পরদিন সকালে। তাতে নতুন সভাপতি নির্বাচিত হন মিশা সওদাগর। অন্যদিকে, নিপুণকে ১৬ ভোটে হারিয়ে সাধারণ সম্পাদক হন মনোয়ার হোসেন ডিপজল।

সে সময় বিজয়ী প্রার্থীদের গলায় ফুলের মালা পরিয়ে অভিনন্দন জানান বিদায়ী সাধারণ সম্পাদক নিপুণ আক্তার।

এর প্রায় এক মাস পর হাইকোর্টে রিট করেন তিনি। স্থগিত হয়ে যায় সাধারণ সম্পাদক পদে ডিপজলের দায়িত্ব পালন। চেম্বার আদালতের রায়ে আবার তা ফিরেও পেলেন।

পাপুয়া নিউ গিনিতে ভূমিধস: জীবিত সমাহিত দুই হাজারেরও বেশি মানুষ

ছবি: সংগৃহীত

প্রশান্ত মহাসাগরীয় দ্বীপ রাষ্ট্র পাপুয়া নিউ গিনির এনগা প্রদেশের একটি প্রত্যন্ত গ্রামে গত শুক্রবার ভয়াবহ ভূমিধসের পরে দুই হাজারেরও বেশি মানুষ মাটির নিচে চাপা পড়ে জীবিত সমাহিত হয়েছেন বলে অনুমান করেছে কতৃপক্ষ।

সোমবার (২৭ মে) এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানিয়েছে বার্তাসংস্থা এএফপি।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, দেশের একটি প্রত্যন্ত গ্রামে প্রবল ভূমিধসে ২ হাজারেরও বেশি লোক চাপা পড়েছে বলে পাপুয়া নিউ গিনি সোমবার জাতিসংঘকে অবহিত করেছে। মূলত একটি চিঠিতে দেশটি জাতিসংঘকে এই তথ্য জানায় এবং সেই চিঠির একটি অনুলিপি এএফপির হাতে এসেছে।

পাপুয়া নিউ গিনির জাতীয় দুর্যোগ কেন্দ্র রাজধানী পোর্ট মোরেসবিতে অবস্থিত জাতিসংঘের অফিসকে বলেছে, ‘ভূমিধসে ২ হাজারেরও বেশি লোক জীবিত সমাহিত হয়েছে এবং এই ভূমিধস বড় ধরনের ধ্বংসযজ্ঞের সৃষ্টি করেছে।’

গত বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে পাপুয়া নিউ গিনির এঙ্গা প্রদেশে যে ভূমিধস হয়েছে, তাতে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে প্রদেশের ৬টিরও বেশি গ্রাম। তবে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে কাওকালাম নামের একটি গ্রাম।

কাওকালাম গ্রামের বাসিন্দা নিঙ্গা রোলে জানিয়েছেন, বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত ৩ টায় এই ভূমিধস ঘটেছে। গভীর রাতে সবাই ঘুমিয়েছিলেন, তাই দুর্যোগের সময় অধিকাংশ মানুষই বাড়ি থেকে বের হতে পারেননি।

দুর্যোগ অফিস বলেছে, ভূমিধসের ফলে ভবন, খাবারের গাছের বাগানের বড় ধরনের ক্ষতি হয়েছে এবং দেশের অর্থনৈতিক লাইফলাইনে বড় ধরনের প্রভাব পড়েছে।

সোমবার সকালে জাতিসংঘের কর্মকর্তারা এই চিঠিটি পেয়েছেন। সেখানে আরও বলা হয়েছে, পোরগেরা মাইনে যাওয়ার প্রধান মহাসড়কটি ‘সম্পূর্ণভাবে অবরুদ্ধ’।

এতে বলা হয়েছে, ‘পরিস্থিতি এখনও অস্থিতিশীল রয়ে গেছে। কারণ ল্যান্ডস্লিপটি ধীরে ধীরে স্থানান্তরিত হচ্ছে, আর এটি উদ্ধারকারী দল এবং বেঁচে থাকা বাসিন্দা উভয়ের জন্যই বিপজ্জনক।’

সর্বশেষ সংবাদ

কুমিল্লায় ভবন ধসে শ্রেণিকক্ষেই প্রাণ গেল শিক্ষার্থীর
হেরে গেলেন নিপুণ, শিল্পী সমিতির সম্পাদক পদ ফিরে পেলেন ডিপজল
পাপুয়া নিউ গিনিতে ভূমিধস: জীবিত সমাহিত দুই হাজারেরও বেশি মানুষ
বিএনপি সহযোগিতার নামে ফটোশেসন করে: ওবায়দুল কাদের
ঘূর্ণিঝড় রেমালের কারণে ১৯ উপজেলায় নির্বাচন স্থগিত
ঘূর্ণিঝড় রেমালের তাণ্ডব: নিহত বেড়ে ১০
গোবিন্দগঞ্জে ৮ হাজার ৮৮৪ পিস ট্যাপেন্টাডলসহ মাদক কারবারি গ্রেফতার
‘রেমালের কেন্দ্রভাগ বিকেলের মধ্যে ঢাকায় ঢুকবে’
ইরানের প্রেসিডেন্ট প্রার্থী হওয়ার ঘোষণা দিলেন আহমাদিনেজাদ
ঢাকায় রেমালের প্রভাব, দমকা বাতাসের সঙ্গে ঝরছে বৃষ্টি
টাঙ্গাইলে ৪ লাখ ৯৩ হাজার শিশুকে খাওয়ানো হবে ‘ভিটামিন এ প্লাস ক্যাপসুল’
যুক্তরাষ্ট্রে টর্নেডোর তাণ্ডব, ১৫ জনের মৃত্যু
ঘূর্ণিঝড় রেমালে দেশের বিভিন্ন জেলায় ৬ জনের মৃত্যু
বিভিন্ন খালে জাল ফেলে এখনও মেলেনি এমপি আনারের লাশ
ভয়াবহ ইসরাইলি হামলা, গাজায় নারী-শিশুসহ নিহত ৩৫
৪৫ হাজার হজযাত্রী সৌদি পৌঁছেছেন, ৬ বাংলাদেশির মৃত্যু
উপকূল অতিক্রম করে দুর্বল হচ্ছে ‘রেমাল’
মধ্যরাতে বাংলাদেশের বিশ্বকাপ জার্সি উন্মোচন
সরকার তারেককে ফিরিয়ে এনে অবশ্যই আদালতের রায় কার্যকর করবে: প্রধানমন্ত্রী
উপকূলজুড়ে চলছে রিমালের তাণ্ডব, সমুদ্রবন্দরে মহাবিপদ সংকেত