বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ | ১৪ ফাল্গুন ১৪৩০
বেটা ভার্সন
Dhaka Prokash

ধারাবাহিক উপন্যাস: পর্ব-১৯

যারা যুদ্ধ করেছিল

লুকোতে চাইলেও সব কথা লুকনো যায় না। সাকিবের লিঙ্গ কর্তনের কথা রাতারাতি সর্বত্র ছড়িয়ে পড়ে। যারা মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে তারা এই ঘটনা নিয়ে নানা রসিকতা করতে থাকে। আর যারা পাকিস্তানপন্থী তারা আতঙ্কগ্রস্ত হয়ে পড়ে। ফজলুর রহমানের মতো ডাক সাইটের মুসলিম লীগার শান্তি কমিটির নেতাকেও মুক্তিবাহিনী ছাড় দেয়নি। বাকিরাতো চুনোপুটি। তারা এর আগে একটু আধটু মুক্তিবাহিনীর বিরুদ্ধে কিছু বললেও এই ঘটনার পর তারা মুখে কুলুপ এঁটেছে।

লজ্জা শরমে সাকিব বাড়ির বাইরে যায় না। একা একা যাওয়াও সমস্যা। যারা জন্মান্ধ তাদের পথঘাট চিনতে সমস্যা হয় না। তারা পথের নমুনা হৃদয় দিয়ে অনুমান করতে পারে। সাকিব অন্ধ হয়েছে সদ্য। তাকে অন্ধ করেছে মুক্তিবাহিনী। এই লজ্জায়ও সে ঘর থেকে বেরিয়ে কারও সামনে মুখ দেখাতে পারছে না।

সাকিব বাইরে যাচ্ছে না বটে কিন্তু গ্রামবাসির কৌতূহল অবদমন করবে কে? খবর পেয়ে তারা দলে দলে ছুটে আসছে। সাকিবকে ঘিরে তাদের নানা জিজ্ঞাসা। সাকিব নিরব নিঃস্তব্ধ। ঘরে গিয়ে মুখ ঢেকে শুয়ে থাকে। গ্রামবাসি তা সত্ত্বেও ঘরে গিয়ে সাকিবের পাশে বসে। কেউ কেউ সহানুভূতি জানায়। কেউ মুচকি হেসে পরিহাসমূলক কথা বলে।

‘ফজলু চাচাকে তখনই কইছিলাম, ‘মুক্তিবাহিনীর সঙ্গে বাড়াবাড়ি না করতে। চাচা আমার কথা শুনলো না। উল্টা আমারে আরও নানা ভয় দেখাইলো। এখন কেবা হইল। গরীবের কথা বাসি অইলে ফলে।’

একজন যুবক রহস্য করে বললো, ‘তুইতো নাটকের ডায়লগ ঝাড়া শুরু করলি?’
আরেকজন যুবক থামিয়ে বললো, ‘তোরা কি শুরু করলি? সাকিব ভাইয়ের সর্বনাশ আর তোগো পৌষ মাস।’
‘এটাওতো তুই নাটকের ডায়লগ কইলি।’ চাপা হাসির শব্দ শোনা গেল তারপর।

সাকিবের বুক ফেটে কান্না আসছিল। বার বার মনে হচ্ছিল এটা তার পাপের ফল। আজ যারা তাকে নিয়ে মজা করছে এটা তার প্রাপ্য। নিজেই সে দুর্ভোগ কপালে তুলে নিয়েছে। বন্ধুর বোনকে বাঁচানোর নামে সে যা করেছে এটা খুবই জঘন্য কাজ। পরিণামের কথাটা আগে ভাবা উচিত ছিল। এখন কেঁদে আর কি হবে? এখন আমি নপুংসক। খোজা। বিয়ে করার যোগ্যতা হারিয়েছি। সন্তানের মুখ দেখার সুযোগ হবে না। লোকজনের সামনে মুখই বা কি করে দেখাবো? তার উপর জ্যান্ত মরা হয়ে বেঁচে থাকতে হবে। পৃথিবীর আলো দেখতে পাবো না। এ জীবন রাখার চেয়ে মরে যাওয়া অনেক ভালো।

এদিকে সাকিব অর্ন্তজ্বালায় দগ্ধ হচ্ছে অন্যদিকে সাকিবকে দেখতে আসা প্রতিবেশীদের মজার রসিকতার কমতি হচ্ছে না। তারা দুখির সঙ্গে দুঃখ প্রকাশ না করে ব্যঙ্গ বিদ্রুপ করছে। কদিন আগেও এমন করার সাহস তাদের ছিল না। মুক্তিবাহিনী সাকিবের বাপকে হত্যা এবং সাকিবকে অন্ধ আর খোজা করার পর প্রতিবেশীরা এতটা সাহস পেয়েছে। ফজলুর রহমান শান্তি কমিটির নেতা হওয়াতে প্রতিবেশীরা ছিল হুমকির মুখে। এদের মধ্যে যারা স্বাধীনতাকামী তারা ফজলুর রহমানের শান্তি কমিটিতে যোগ দেওয়া কোনোভাবেই মেনে নিতে পারেনি। একের পর এক তার বিতর্কিত কাজ তারা কোনোভাবেই সমর্থন করতে পারছিল না। তারা সুযোগের অপেক্ষায় ছিল। সেই সুযোগ এমনভাবে হাতে নাতে ফলে যাবে তারাও আশা করতে পারেনি। তাই চাপা আনন্দ তারা চেপে রাখতে পারছে না।
সাকিবের প্রতিবেশী আফজাল হোসেন তারা মামাতো ফুপাতো ভাই। এক সঙ্গে লেখাপড়া করেছে। কলেজে পড়ার সময় প্রেম করে বিয়ে করার পর আর লেখাপড়া করা হয়নি। এখন জুটমিলে জুনিয়র অ্যাকাউন্ট অফিসার পদে চাকরি করে। ২৫ মার্চের পর কিছুদিন মিলে যায়নি। তারপর পরিস্থিতি খানিকটা স্বাভাবিক হলে মামা ফজলুর রহমানের কথা মতো চাকরিতে জয়েন করে। আজই কয়েকদিনের ছুটি নিয়ে বাড়ি এসেছে। এসেই সাকিব এবং ফজলু মামার কাহিনি শুনে দেরি না করে অমনি ছুটে এসেছে সাকিবকে দেখতে। আফজাল এসেই সাকিবের গা ঘেষে বসে। গায়ে হাত বুলায়।

সাকিব জিজ্ঞেস করে, ‘কে?’
আফজাল বলে, ‘আমি আফজাল।’ আফজালকে দেখে অনেকে উঠে চলে যায়। যারা থাকে তারাও আর রঙ্গরসের কথা বলে না। চাপা হাসিও বন্ধ হয়ে যায়।

আফজাল জিজ্ঞেস করে, ‘কিভাবে এমন হলো?’
সাকিব কিছু বলে না। লম্বা করে শ্বাস ফেলে।
আফজাল বলে, ‘মামা শান্তি কমিটি করছে তাকে ধরছে ঠিকআছে। কিন্তু তোকে? তোর জীবনটা এমন করে বরবাদ করলো কেন? তুই কি করেছিস?’ সাকিব এবার শব্দ করে কেঁদে ফেলে।
আফজাল আবার জিজ্ঞেস করে, ‘তুই কি কাউকে চিনতে পেরেছিস?’
‘চিনে লাভ কি? তাদের তুই কিছু করতে পারবি? শক্তিশালী পাকিস্তানি বাহিনী তাদের কিছু করতে পারছে না, তুই সেখানে কি করবি?’
আফজাল বলে, ‘কিছু করতে পারি আর না পারি অন্তত চিনে রাখতাম।’
‘চেনার দরকার নেই। বাপের দেওয়া জানটা আর হারানোর কাম নাই।’
‘চিনা থাকলে তুই নাম ক।’
‘বললাম না বাপের দেওয়া জানটা আর হারানোর কাম নাই।’
‘তুই না বলছিলি মুক্তিবাহিনী এক সপ্তাহের মধ্যে হাওয়ায় মিলিয়ে যাবে। পাকিস্তানি মিলিটারির সামনে পুচকে মুক্তিবাহিনীরা দাঁড়াতেই পারবে না।’
‘তখন বুঝতে পারিনিরে। পরে বুঝছি শালারা এক একটা ধাইনা মরিচ। পোদ ভরা ঝাল।’
‘মামাকে কোথায় মেরেছে? তার লাশ পাওয়া গেছে?’
‘না।’
‘মামাকে আমি না করছিলাম। মামা হুনলো না। কিন্তু একটা জিনিস আমি কিছুতেই বুঝতে পারছি না, তোকে তারা নিয়া গেল ক্যা? ওরাতো বাপের শাস্তি পোলাকে দেয় না।’

সাকিব জবাব দেয় না। এইসময় বড় ঘর থেকে দুজন মহিলার উচ্চস্বরে কান্নার আওয়াজ ভেসে আসে। আফজাল সচকিত হয়ে সেইদিকে তাকায়। প্রতিবেশী যারা এসেছিল তারা এই ফাঁকে উঠে চলে যায়। আফজাল উঠে বড় ঘরের দিকে যায়। গিয়ে দেখে সাকিবের ছোটখালা আর খালাতো বোন পপি এসেছে। দুই গ্রাম পরেই তাদের বাড়ি। বোনের দুঃখের কাহিনি শুনে থাকতে পারেনি। বিপদের মধ্যেই ছুটে এসেছে। দুই বোন গলা জড়িয়ে ধরে কাঁদছে। এই দৃশ্য দেখে আফজালেরও চোখ ভিজে আসে।

ছোট খালা বলে. ‘এইসময় দুলাভাইয়ের বাড়িতে থাকার কি দরকার ছিল? সময় খারাপ দুলাভাই বুঝতে পারেনি?’
‘আমিও বারে বারে সাবধান করেছি। আমার কথা কানেই তোলেনি। উল্টা আমাকে ধমক দিয়ে থামিয়ে দিয়েছে।’
ছোটখালা বলে, ‘সাকিবকে দিয়ে বলাতে পারতিস।’
আয়েশা বেগম ক্রুব্ধ কণ্ঠে বলে, ‘বাপ-বেটা সমান হইছিল। তোর দুলাভাইকে মাইরা ফেলছে তাও আমি মানতে পারতাম। আমার আদরের ছোয়ালটাকে ওরা জ্যান্ত মরা করছে। ওরা সাকিবের দুই চোখ তুইলা দিছে। ছোয়াল আমার জনমের মতো অন্ধ হয়া গেছে।’ এই কথা শুনে পপির শরীর কেঁপে ওঠে। সাকিব ভাই অন্ধ তাহলে তার কি হবে? তাদের যে অদম্য প্রেম। সেই প্রেমের কি হবে? ফুঁপিয়ে কেঁদে ওঠে পপি।

ছোটখালা জিজ্ঞেস করে, ‘সাকিবের চোখ তুলছে ক্যা?’
‘সে কথা আর জিগাইস না। মধ্যপাড়ার মমিন গেছে মুক্তিবাহিনীতে। সাকিব ওর বোন সাথীকে ধইরা নিয়া আইসা এই বাড়িতে রাখতো। রাইতে একসাথে থাকতো। আমি বারে বারে না করছি। বলছি এটা ঘোর অন্যায়, মহাপাপ। এই পাপ আল্লাহ কোনোদিন মাফ করবে না। তারা বাপ-বেটা মিলা আমারে বুঝায়, সাথীর ভাই পাকিস্তান ভাঙার লাইগা ভারতের হিন্দুদের সাথে হাত মিলাইছে। সেই কারণে সাথী নাকি এখন শত্রুর বোন, গণিমতের মাল। তাকে ভোগ করার কথা নাকি হাদীসে আছে।’

ছোটখালা মিন মিন করে বলে, ‘আছেতো। হাদীস কোরআনে এ সব কথা উল্লেখ আছে।’
‘এইটা কোন কথা হইল?’ আয়েশা বেগম আবারও কান্না গলায় ফুঁপিয়ে ওঠে। সব হারিয়ে মানুষ যেমন দিশেহারা হয়ে পড়ে আয়েশা বেগমও তেমনি দিশেহারা হয়ে কথার তাল হারিয়ে ফেলেছে। সে কি বলছে নিজেই বুঝতে পারছে না। তার যেন স্বাভাবিক জ্ঞান লোপ পেয়েছে। কি বলা যাবে আর কি বলা যাবে না এ সব তার মাথায় কাজ করছে না। সে রাগতঃ বলে উঠলো, ‘বোনকে গণিমতের মাল বানানোর প্রতিশোধ নিতে একরাতে সাথীর ভাই দলবল নিয়া এসে আমার ছেলে আর ওর বাপকে ধরে নিয়ে যায়। তোর দুলাভাইকে জবাই করে। তার লাশটা পর্যন্ত পাই নাই। আর সাকিবকে অন্ধ কইরা...... ’

আয়েশা বেগমর কথা শেষ হয় না। টিনের ঘরের ছাদ কাঁপিয়ে ও...বাবাগো বলে শব্দ করে কেঁদে ওঠে। কাঁদতে কাঁদতে বলে, ‘ছোয়াল আমার জন্মের নুলা হইছে। তাকে আমি বিয়াও করাইতে পারমু না।’
‘ক্যা?’ ছোটখালা বিষ্ময়ে জিজ্ঞেস করে।
‘ওরা সাকিবরে খোজা বানায়া দিছে।’
‘সর্বনাশ! এই কথা মাইনষের কাছে কওয়া যাইবো? বুবু তুমি চুপ করো।’
‘আমি চুপ করলে কি ঘটনা থেমে থাকবে?’

মুহূর্তে পপির কান্না বিপরীতমুখী হয়ে ওঠে। এ কি শুনছে সে। সাকিব ভেতরে ভেতরে এতোটা শয়তান। পপি ঘুণাক্ষরেও ধারণা করতে পারেনি। সাকিব মুক্তিযুদ্ধের বিরোধী এটাও পপি মানতে পারেনি। সাকিবকে চিঠি লিখে সে মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিতে অনুরোধ করেছিল। একবার ভেবেছিল তাকে বুঝিয়ে-সুঝিয়ে বিরুদ্ধ মত সে বদলিয়ে দেবে। তাকে যুদ্ধে পাঠাবে। অন্তত জামাতের সমর্থক পিতার পাপ খানিকটা পুত্র কাধে নিয়ে পিতার শাস্তি খানিকটা হাল্কা করতে পারে। তাছাড়া একজন যুবক হিসেবে দেশের স্বাধীনতার জন্য শত্রুর মুখোমুখি বুক চিতিয়ে না দাঁড়ালে কিসের সে দেশের সে দেশের সন্তান? কোথায় তার দেশ প্রেম? যেখানে পাকিস্তানিরা এদেশের নারীদের নির্বিচারে ধর্ষণ করছে। এমন ঘটনা শুনে একজন যুবক কিভাবে ঘরে বসে থাকতে পারে? তাহলে সে কিসের পুরুষ?
পপি এখন যা শুনছে তাতে আর কষ্ট হচ্ছে না। মনে হচ্ছে সাকিব তার কাজের উপযুক্ত শাস্তি পেয়েছে।

পপি পায়ে পায়ে সাকিবের ঘরে যায় নিঃশব্দে। সাকিব মাথার নিচে হাত দিয়ে উদাসভাবে শুয়ে আছে। তার দুচোখে ব্যান্ডেজ। চোখের ঘা পুরোপুরি ঠিক হয়নি। ব্যথা বেদনা এখনো সাকিবকে ঘুমোতে দেয় না। পপি নিঃশব্দে ঢুকলেও সাকিব বুঝতে পারে তার ঘরে কে যেন ঢুকেছে। সাকিব অনুস্বরে জিজ্ঞেস করে, ‘কে?’
‘আমি।’ পপি জবাব দেয়।
‘তুমি কখন এলে?’
‘অনেকক্ষণ।’
সাকিব হতাশ কণ্ঠে বলে, ‘পপি, কি চেয়েছিলাম আর কি হলো?’
পপি আকস্মিক জিজ্ঞেস করে, ‘সাথী কে?’

সাকিব সহজভাবে জবাব দিতে থাকে। পপি ভেবেছিল সাথীর প্রশ্নে সাকিব নির্বাক হয়ে যাবে। সাকিব করে উল্টোটি। জীবনে সবই হারিয়ে গেছে এখন আর ভনিতা করে কি লাভ? জবাবে সাকিব বলে, ‘মধ্যপাড়ার আমার বন্ধু মমিনের ছোটবোন সাথী। কলেজে প্রথম বর্ষে পড়ে। আর কিছু?’
‘না। আর কি বলবো? বলার ভাষা হারিয়ে ফেলেছি।’ পপি নিরুত্তাপ কণ্ঠে বলে।

সাকিব দম নিয়ে হতাশ কণ্ঠে বলে, ‘আমাদের সম্পর্কের কথা ভুলে যাও পপি। পারলে আমাকে ক্ষমা করে দিও।’
‘ক্ষমা না করে উপায় কি? তুমিতো তোমার কর্মফল পেয়ে গেছ। অথচ আমি তোমাকে চেয়েছিলাম দেশপ্রেমিক বীর যোদ্ধা হিসেবে। তোমাকে সে কথা চিঠিতে লিখেছিলাম। তুমি কানে তোলনি। উল্টো তুমি রাজাকারের পক্ষ নিয়ে স্বাধীনতা যুদ্ধের বিরোধিতা করেছ। তুমি যা করেছ সেটা তোমার ব্যাপার। তুমি ভুলে যেতে না বললেও আমি ঠিকই ভুলে যেতাম। অন্তত ভুলে যাওয়ার চেষ্টা করতাম। কারণ পলাশীর যুদ্ধের আড়াইশো বছর পরও মানুষ মীরজাফরকে ঘৃণা করে। কেন করে জানো, দেশের প্রতি বিশ্বাসঘাতকতার জন্য।’

কথাগুলো ঝড়ের গতিতে বলে পপি আর দেরি করে না। দ্রুত বেরিয়ে যায়।

চলবে…

আগের পর্বগুলো পড়ুন>>>

যারা যুদ্ধ করেছিল: পর্ব-১৮

যারা যুদ্ধ করেছিল: পর্ব-১৭

যারা যুদ্ধ করেছিল: পর্ব- ১৬

যারা যুদ্ধ করেছিল: পর্ব- ১৫

যারা যুদ্ধ করেছিল: পর্ব-১৪

দুই দিন বাড়ল বইমেলার সময়

ছবি: সংগৃহীত

অমর একুশে বইমেলা-২০২৪ এর সময় আরও দুই দিন বাড়ানো হয়েছে। মেলা চলবে আগামী ২ মার্চ (শনিবার) পর্যন্ত।

মঙ্গলবার সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের সচিব খলিল আহমদের বরাতে মেলা পরিচালনা কমিটির সদস্য ও আগামী প্রকাশনীর প্রকাশক ওসমান গনি বিষয়টি সংবাদ মাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, মেলা দুই দিন বৃদ্ধির কথা সংস্কৃতি সচিব জানিয়েছেন। কালকে চিঠি পাঠাবেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বইমেলার সময়সীমা দুদিন বাড়ানোর আবেদনে অনুমোদন দিয়েছেন। তাই বইমেলা চলবে আগামী ২ মার্চ পর্যন্ত।

বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক মুহাম্মদ নুরুল হুদা রাত ৯টায় বইমেলায় ঘোষণা কেন্দ্র থেকেও বইমেলার মেয়াদ বাড়ানো ঘোষণা দেন। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর সদয় সম্মতিক্রমে বই মেলা দুই দিন বাড়ানো হয়েছে।

এর আগে ১৮ ফেব্রুয়ারি একুশে বইমেলার সময় দুদিন বাড়ানোর জন্য বাংলা একাডেমিকে চিঠি দেয় বাংলাদেশ পুস্তক প্রকাশক বিক্রেতা সমিতি।

অশ্লীল অঙ্গভঙ্গির কারণে নিষেধাজ্ঞার মুখে রোনালদো

ছবি: সংগৃহীত

রিয়াদ ডার্বিতে অনুষ্ঠিত সৌদি প্রো লিগে আল শাবাবকে ৩-২ গোলে হারায় ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদোর আল নাসর। এই ম্যাচে গোলের দেখা পান রোনালদো। ক্লাব ফুটবল ক্যারিয়ারে ৭৫০ তম গোলের মাইলফলকও স্পর্শ করেন তিনি। তবে মাইলফলকের ম্যাচে অশালীন অঙ্গভঙ্গি করে খবরের শিরোনাম হন রোনালদো। অশ্লীল অঙ্গভঙ্গি করায় নিষেধাজ্ঞার শঙ্কায় পড়েছেন পাঁচবারে ব্যালন ডি'অর জয়ী এই ফুটবলার।

সৌদি সংবাদমাধ্যমের বরাত দিয়ে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম ডেইলি মেইল অনলাইন জানিয়েছে, দৃষ্টিকটু আচরণের জন্য দুই ম্যাচ নিষেধাজ্ঞার পাশাপাশি জরিমানাও দিতে হতে পারে রোনালদোকে।

রোববার রাতে আল শাবাবের বিপক্ষে ৩-২ গোলের ব্যবধানে জয় পায় আল নাসর। ম্যাচের ২১ মিনিটে স্পটকিক থেকে ক্লাব ফুটবল ক্যারিয়ারে ৭৫০তম গোলের মাইলফলক স্পর্শ করেন রোনালদো। ম্যাচ শেষে আল শাবাবের সমর্থকরা 'মেসি, মেসি' বলে স্লোগান দিতে থাকেন। আর এতেই মেজাজ হারিয়ে ফেলেন সিআরসেভেন।

এই সময় কানের পেছনে হাত নিয়ে সেই স্লোগান শুনছেন এমন ভঙ্গি করেন রোনালদো। এরপর আল শাবাব সমর্থকদের উদ্দেশ্য করে অশ্লীল অঙ্গভঙ্গি করেই জয় উদযাপন করেন তিনি। এর আগেও এমন ঘটনা ঘটিয়েছেন রোনালদো।

গত ৯ ফেব্রুয়ারি আল হিলালের বিপক্ষে এক প্রীতি ম্যাচে ২-০ গোলে হারের পর বাজে অঙ্গভঙ্গি করেছিলেন রোনালদো। ম্যাচ শেষে টানেলে ফেরার পর 'মেসি, মেসি' স্লোগান দিয়ে রোনালদোর দিকে স্কার্ফ ছুঁড়ে দেন আল হিলাল সমর্থকরা। সেই স্কার্ফ তুলে নিজের শর্টসের মধ্যে ঢুকিয়ে তা ফেলে দেন এই পর্তুগিজ সুপারস্টার।

সৌদি আরবে একদিনে সাতজনের শিরশ্ছেদ

ছবি: সংগৃহীত

স্থানীয় সময় আজ মঙ্গলবার ‘সন্ত্রাসবাদের’ অভিযোগে সৌদি আরবে একদিনে সাতজনের শিরশ্ছেদের মাধ্যমে তাদের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়েছে।

২০২২ সালে একবার দেশটিতে একদিনে ৮১ জনের শিরশ্ছেদ করা হয়েছিল। ওইদিনের পর আজই আবার একদিনে সর্বোচ্চ সংখ্যক মানুষের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হলো।

সৌদির রাষ্ট্রয়ত্ত বার্তাসংস্থা সৌদি প্রেসি এজেন্সি দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের বরাতে জানিয়েছে, এই সাতজন “সন্ত্রাসী সংগঠন তৈরি ও অর্থায়নের” অভিযোগে অভিযুক্ত হয়েছিলেন।

বিশ্বে মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের দিক দিয়ে শীর্ষ তিন দেশের মধ্যে রয়েছে সৌদি আরব। এ বছর এখন পর্যন্ত দেশটিতে ২৯ জনের শিরশ্ছেদ করা হয়েছে। এর আগে ২০২৩ সালে সৌদিতে ১৭০ জনের মৃত্যুদণ্ড কার্যকরা করা হয়েছিল।

দুই বছর আগে একদিনে ৮১ জনের শিরশ্ছেদ করার পর বিশ্বজুড়ে তুমুল সমালোচনার মুখে পড়েছিল সৌদি আরব।

আজ যাদের মৃত্যুদণ্ড কার্যকরা করা হয়েছে তাদের জাতীয়তা প্রকাশ করা হয়নি। তবে তাদের নামের বিষয়টি ইঙ্গিত করছে তারা সবাই সৌদির নাগরিক ছিলেন।

সৌদি প্রেস এজেন্সির খবরে আরও বলা হয়েছে, এই সাতজন “সন্ত্রাসবাদের পথ বেঁছে নেওয়ার অভিযোগে অভিযুক্ত হয়েছেন যেটির মাধ্যমে রক্ত ঝরানোর আহ্বান জানানো হয়, তারা সন্ত্রাসী সংগঠন ও প্রতিষ্ঠান তৈরি এবং অর্থায়ন করেছিলেন এবং সমাজের শান্তি ও স্থিতিশীলতা বিনষ্টের জন্য সন্ত্রাসী সংগঠনের সঙ্গে যোগাযোগ করেছিলেন।”

তবে তারা কোন দল তৈরি করেছিলেন বা কি ধরনের সন্ত্রাসী কার্যক্রমের সঙ্গে যুক্ত হয়েছিলেন সে ব্যাপারে বিস্তারিত কোনো কিছু জানায়নি সৌদি প্রেস এজেন্সি।

সৌদির কর্তৃপক্ষের বক্তব্য হলো, আইন ও কোরআনভিত্তিক শরীয়াহ শাসন অক্ষুন্ন রাখতে মৃত্যুদণ্ড অপরিহার্য।

সর্বশেষ সংবাদ

দুই দিন বাড়ল বইমেলার সময়
অশ্লীল অঙ্গভঙ্গির কারণে নিষেধাজ্ঞার মুখে রোনালদো
সৌদি আরবে একদিনে সাতজনের শিরশ্ছেদ
আইসিইউতে তরুণীকে ধর্ষণ
বায়তুল মোকাররমে বিক্ষোভ-মিছিল নিষিদ্ধের নির্দেশ হাইকোর্টের
শিক্ষাব্যবস্থা থেকে ইসলাম-নৈতিকতাকে সরিয়ে তরুণ প্রজন্মকে ধ্বংস করা হচ্ছে : ড. মাসুদ
মালয়েশিয়ায় গাড়িচাপায় বাংলাদেশি যুবকের মৃত্যু
ধান খেতের পোকা দমনে পার্চিং উৎসব
এবার ঘুষের মামলায় নতুন করে অভিযুক্ত কারাবন্দি ইমরান খান
২৮ বছর পর যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত হত্যা মামলার পলাতক আসামি গ্রেপ্তার
দেশে খাদ্যশস্য মজুদ আছে ১৬ লাখ ৭৯ হাজার মেট্রিক টন : খাদ্যমন্ত্রী
বেঁচে আছেন ‘পঞ্চায়েত ২’ খ্যাত অভিনেত্রী আঁচল তিওয়ারি
সব বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়কে দিতে হবে ১৫ শতাংশ ট্যাক্স: আপিল বিভাগ
দেশের উন্নয়নকে আরও কাছ থেকে দেখবেন বিদেশি কূটনীতিকরা: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
বিয়ে করে হানিমুনে জায়েদ খান !
কারও অবহেলায় এখন কিছু যায় আসে না পরীমণির
ওষুধ ও হার্টের রিংয়ের দাম কমাতেই হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী
রমজানে দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণসহ প্রধানমন্ত্রীর ১৫ নির্দেশনা
যে কারণে ধূমপান ছেড়েছেন শহিদ কাপুর
বাড়ছে বিদ্যুৎ-গ্যাসের দাম, রমজানের আগেই কার্যকর