রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪ | ১ বৈশাখ ১৪৩১
Dhaka Prokash

যৌথ ব্যবস্থাপনায় শিক্ষা কতটা শিক্ষার্থীবান্ধব

জাতিসংঘের শিক্ষা, বিজ্ঞান ও সংস্কৃতিবিষয়ক সংস্থা ইউনেস্কোর ‘গ্লোবাল এডুকেশন মনিটরিং রিপোটং-২০২২’ প্রকাশিত হয়েছে ৩ জানুয়ারি। শিক্ষামন্ত্রী, মাউশি ও নায়েমের ডিজিসহ দেশের শিক্ষা সেক্টরের বিশেষজ্ঞসহ কিছুসংখ্যক শিক্ষক ও শিক্ষাবিষয়ক এনজিও প্রতিনিধিদল ওই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন। মূল প্রতিবেদনটি উপস্থাপন করেন ইউনেস্কো জেম রিপোর্টের পরিচালক ম্যানোস আন্তোনিনিস।

গবেষণার বাংলাদেশ পর্ব নিয়ে কথা বলেন ব্রাক ইনস্টিটিউট অব এডুকেশনাল ডেভেলপটমেন্টের ইমেরিটাস অধ্যাপক মনজুর আহমেদ। ইন্টারেক্টিভ সেশন পরিচালনা ও সমাপনী বক্তব্য দেন ব্র্যাকের চেয়ারপারসন ড. হোসেন জিল্লুর রহমান। অনুষ্ঠানটিতে আমারও থাকার সুযোগ হয়েছিল আর তাই শিক্ষাসংশ্লিষ্ট বেশকিছু বিষয় সরাসরি আলোচনায় অংশ নেওয়া ও অনেকের বক্তব্য শ্রবণ করতে পেরেছি। অনুষ্ঠানটি হয়েছে সোনারগাঁও প্যান প্যাসিফিক হোটেলে।

ইউনেস্কো বলছে, করোনা মহামারির পর বাংলাদেশসহ দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোয় শিক্ষার ব্যয় বেড়েছে, ফলে অনেক পরিবার সন্তানের শিক্ষার খরচ জোগাতে ঋণগ্রস্ত হয়ে পড়েছে। প্রাইভেট টিউশন, শিক্ষা উপকরণসহ শিক্ষাসংক্রান্ত খরচগুলো সরকারি-বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের জন্য একই। ফলে ক্রমবর্ধমান মূল্যস্ফীতিতে এটি অনেক পরিবারের জন্য বোঝা হয়ে দাঁড়িয়েছে। ইউনেস্কোর প্রতিবেদনে শিক্ষাখাতে বেসরকারি খাতের আধিপত্য বেশি থাকাকে পরিবারভিত্তিক শিক্ষাব্যয় বেশি হওয়ার অন্যতম কারণ হিসেবে দেখানো হয়েছে। এক্ষেত্রে দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর শিক্ষাব্যবস্থার মধ্যে বেসরকারি খাতের উপর সবচেয়ে বেশি নির্ভরশীল বাংলাদেশ। মাউশির ডিজি অবশ্য বাংলাদেশে শিক্ষার বেসরকারি খাত কথাটি পুনঃসংজ্ঞায়নের কথা বলেছেন।

তিনি বলতে চাচ্ছেন এমপিও-র মাধ্যমে শিক্ষকদের পুরো বেতন দিচ্ছে সরকার, বিদ্যালয় ভবন তৈরি করে দিচ্ছে সরকার, শিক্ষার্থীদের উপবৃত্তি দিচ্ছে সরকার এবং শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে যে টিউশন ফি নেওয়া হয় সেটিও শিক্ষকদের বাকি চাহিদা মেটাতে বিদ্যালয় রেখে দিচ্ছে। তাহলে এই বিদ্যালয়গুলোকে আমরা বেসরকারি বলব কি না প্রশ্ন রেখেছেন ডিজি।

বক্তাদের কেউ কেই বলেছেন প্রাথমিক শিক্ষাকে জাতীয়করণ করে শিক্ষায় কমিউনিটির অংশগ্রহণ বাধাগ্রস্ত করা হয়েছে এবং প্রাথমিক শিক্ষা এক মানহীন শিক্ষায় পরিণত হয়েছে যার ফলে শিক্ষার্থী ও অভিভাবকগরা প্রাক-প্রাথমিক ও প্রাথমিক পর্যায়ের শিক্ষা রাষ্ট্র পরিচালিত বিদ্যালয়ের পরিবর্তে বেসরকারি খাতে প্রতিষ্ঠিত বিদ্যালয়গুলোকে গুরুত্ব দিচ্ছেন। জেম রিপোর্টেও চলে এসেছে যে, বাংলাদেশের প্রাক-প্রাথমিক পর্যায়ের শিক্ষার একটা বড় অংশ এখনো কিন্ডারগার্টেন ও ইংরেজি মাধ্যম প্রতিষ্ঠানের দখলে। প্রাথমিক বিদ্যালয় ব্যাপক জাতীয়করণের পরও প্রায় এক-চতুর্থাংশ শিশু পাঠদান নিতে বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে যাচ্ছে।

মাধ্যমিক পর্যায়ে ৯৪ শতাংশ শিক্ষার্থীই পড়ছে বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় পরিচালিত বিদ্যালয়ে। আর উচ্চশিক্ষায় এক-তৃতীয়াংশের বেশি ডিগ্রি দিচ্ছে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়। সব মিলিয়ে দেশের শিক্ষাখাত এখনো অনেকাংশেই বেসরকারি প্রতিষ্ঠাননির্ভর। সরকারি বিদ্যালয়ে শিক্ষার মান সন্তোষজনক নয় বলায় শিক্ষামন্ত্রী একটি পরিসংখ্যান দিয়ে বলেছেন যে, এবার দেশের সরকারি-বেসরকারি পর্যায়ের মাধ্যমিক একটি অংশের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছে তাতে বেসরকারি পর্যায়ে আসন সংখ্যা ছিল ৯ লাখ ২৫ হাজার ৭৮০। ভর্তির আবেদন পড়েছিল ২ লাখ ৭৬ হাজার। আর সরকারিতে আসন সংখ্যা ছিল ১ লাখ ৭ হাজার ৯০৭ জন, সেখানে আবেদন পড়েছে ৫ লাখ ৩৪ হাজার। তার মানে বেশি শিক্ষার্থী ও বেশি অভিভাবক সরকারি বিদ্যালয়ে তাদের বাচ্চাদের পড়াতে চাচ্ছেন। এটি অবশ্য মাধ্যমিকের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য, প্রাথমিকে নয়।

ব্র্যাকের চেয়ারপারসন ড. হোসেন জিল্লুর রহমান বিষয়টির উপর চমৎকার এক মন্তব্য করে বলেছেন, এটি দুটি মেসেজ বহন করে। এক, সরকারি বিদ্যালয়ের প্রতি শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের আগ্রহ বেশি, বিশ্বাস বেশি কারণ সরকারিতে শিক্ষার মান ভালো। তার মানে হচ্ছে, দেশে সরকারি বিদ্যালয়ের সংখ্যা কমপক্ষে পাঁচগুণ বাড়াতে হবে, যেটি সরকার করছে না। অন্য আর একটি মেসেজ বহন করে, সেটি হচ্ছে এমপিওভুক্ত বিদ্যালয়ের দিকে শিক্ষার্থী কিংবা অভিভাবকদের আগ্রহ কম। তাহলে রাষ্ট্র এখানে যে অর্থ ব্যয় করছে সেটি প্রশ্নসাপেক্ষ।

জেম রিপোর্টের মূল উপস্থাপক বাংলাদেশ অংশের মূল উপস্থাপক ড. মনজুর আহমদ বলেছেন, সরকারি ও বেসরকারি যৌথ উদ্যোগে যে শিক্ষা অর্থাৎ এমপিওভুক্ত বিদ্যালয়ে শিক্ষাদান বিষয়টিকে পূর্ণ অর্থবহ করতে হবে। এখানে আমিসহ আরও কেউ কেউ একই মন্তব্য করেছেন এবং একমত পোষণ করেছেন।

আলোচনায় উঠে আসে যে, কেজরিওয়াল দিল্লির শিক্ষার চেহারা বদলে দিয়েছেন। এখন সেখানে ৯০ ভাগ শিক্ষার্থীর রাষ্ট্র পরিচালিত বিদ্যালয়ে যায়। পুরো শিক্ষার্থীবান্ধব করা হয়েছে প্রতিষ্ঠানগুলোকে। সেভাবে শিক্ষক নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। মনিটরিং করা হচ্ছে ঠিকমতো। এই ইতিহাস আমাদের জানা উচিত বলে মন্তব্য করেছেন রাশেদা কে চৌধুরী ক্যাম্পের নির্বাহী পরিচালক। মেয়ে শিক্ষার্থীদের উপযুক্ত টয়লেটের ব্যবস্থা, শিক্ষার্থীদের জন্য চমৎকার টয়লেট, ছিমছাম বিদ্যালয়, শিক্ষকদের প্রশিক্ষণ ও জবাবদিহি নিশ্চিত করা হয়েছে দিল্লির সরকারি বিদ্যালয়গুলোতে। আর একটি করা সম্ভব হয়েছে শিক্ষা ব্যবস্থাপনার বিকেন্দ্রীকরণের কারণে।

ড. মনজুর আহমেদ বলেছেন, বাংলাদেশের মতো এত বিশাল বহরের শিক্ষাকে বিকেন্দ্রীকরণ করা প্রয়োজন জেলা পর্যায় থেকেই। সবকিছু কেন্দ্রীভূত হওয়ার কারণে শিক্ষার অগ্রগতি ও মান ব্যাহত হচ্ছে। তিনি আরও বলেন, বিশ্বের কোথাও শিক্ষার দুটি মন্ত্রণালয় নেই, শিক্ষামন্ত্রী অবশ্য বলেছেন, রিলে রেসের মতো, প্রাথমিক একটি পর্যায় পর্যন্ত শিক্ষা সমাপ্ত করে আর একটি স্তরের হাতে ছেড়ে দেওয়া হচ্ছে, এটি একেবারে বিচিছন্নভাবে ঘটছে না।

দক্ষিণ এশিয়ায় সন্তানদের লেখাপড়ার জন্য অভিভাবকরা বেসরকারি স্কুলকে প্রাধান্য দেন। মূলত ইংরেজি ভাষা শিক্ষা ও উচ্চতার শ্রেণির প্রতীক হিসেবে তারা এস স্কুল প্রাধান্য দেন। ফলে বাড়ছে এ ধরনের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান।বাংলাদেশেও বাড়ছে এ ধরনের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সংখ্যা। তবে, মাধ্যমিক শিক্ষায় এ প্রবণতা বেশি। আমাদের দেশে মাধ্যমিক পর্যায়ের ৯৪শতাংশ শিক্ষার্থী বেসরকারি স্কুলে পড়াশুনা করে। সরকারি স্কুলের তুলনায় এনজিও পরিচালিত স্কুলে খরচ তিনগুণ বেশি, বেসরকারি কিন্ডারগার্টেনগুলোতে ৯ গুণ বেশি। বেসরকারি পর্যায়ে দেশের প্রাক-প্রাথমিকের শিক্ষার্থীর হার ৫৫ শতাংশ, প্রাথমিক পর্যায়ে ২৪ শতাংশ, মাধ্যমিক পর্যায়ে ৯৪ শতাংশ এবং উচ্চ শিক্ষায় ৩৬ শতাংশ।

২০০০ থেকে ২০১০ সাল পর্যন্ত শিক্ষকদের পরিবারগুলোর জন্য ব্যয় গ্রামীণ এলাকায় ২৮-৫৪ শতাংশ, শহরাঞ্চলে তা ৪৮-৬৭ শতাংশ বেড়েছে। যেখানে ২০১৭-১৮ সালে ভারতে উচ্চশিক্ষার ক্ষেত্রে ১৩ শতাংশ শিক্ষার্থী প্রাইভেট শিক্ষকের কাছে পড়াশুনা করেছে। বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পাঠদানের ক্ষেত্রে পরিবারগুলোকে ঋণ করতে হয়। দক্ষিণ এশিয়ার প্রায় ছয় শতাংশ পরিবার বিদ্যালয়ের ফি মেটাতে ঋণ করে থাকে। বাংলাদেশের প্রায় এক তৃতীয়াংশ পরিবার ঋণ করে বেসরকারি পলিটেকনিক পড়াশুনা ও খরচ মেটায়। ভুটান, পাকিস্তান ও শ্রীলংকায় এসব প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের জন্য স্বল্প সুদে ঋণ দিতে সরকারি ঋণ কর্মসূচি নেওয়া হয়েছে।
বিশ্বজুড়ে প্রযুক্তিনির্ভর লেখাপড়ার আগ্রহ বাড়ছে। বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো নথিভুক্ত না থাকায় শিক্ষার্থীরা নির্বাচিত কারিগরি বৃত্তিমূলক শিক্ষা ও প্রশিক্ষণ কোর্সের জন্য উপবৃত্তি পায় না। এ প্রতিষ্ঠানগুলো শিক্ষার্থীদের থেকে আদায় করা বিভিন্ন ধরনের ফির উপর বেশি পরিমাণে নির্ভরশীল। অর্থাৎ এক্ষেত্রেও আমরা পিছিয়ে আছি। ভুটানে বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে দ্বিগুণ শিক্ষার্থীর অংশগ্রহণ। তাদের শিক্ষানীতিতে সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলোকে এক ছাতার নিচে নিয়ন্ত্রণের কথা বলা হয়েছে।

আলোচনায় উঠে আসে যে, সরকারি ও বেসরকারি যৌথ ব্যবস্থাপনায় শিক্ষার অনন্য মডেল হচ্ছে এমপিওভুক্ত বিদ্যালয়। সেটিকে কীভাবে আরও অর্থবহ ও কার্যকারী করা যায় সেটি দেখতে হবে। দক্ষিণ এশিয়ার অন্যান্য দেশেও প্রাইভেট কোচিং আছে তবে এ খাতে বাংলাদেশের অভিভাবকদের ব্যয় করতে হয় সবচেয়ে বেশি। এ হার এখানে ৬৭ শতাংশ। আর গ্রামীণ এলাকায় ৫৪ শতাংশ শিক্ষার্থীদের প্রাইভেট পড়তে হয়। শ্রীলংকায় শহরে ৬৫ শতাংশ, গ্রামে ৬২ শতাংশ, পাকিস্তানে সরকারি স্কুলের শিক্ষার্থীদের ২৫ শতাংশ ও বেসরকারি স্কুলের শিক্ষার্থীদের ৪৫ শতাংশ এবং ভারতে উচ্চশিক্ষার ক্ষেত্রেও ১৩ শতাংশ শিক্ষার্থী প্রাইভেট পড়ে।
পাকিস্তানে শিক্ষাব্যয়ের ৫৭ শতাংশ ব্যয় করে পরিবার, বাংলাদেশে এটি ৭১ শতাংশ। আমাদের শিক্ষাকে বৈশ্বিক পরিস্থিতির সঙ্গে খাপ খাওয়ানোর জন্য এবং শিক্ষাকে আনন্দময় করার ও প্রাইভেট কোচিং বন্ধ করার জন্য নতুন শিক্ষাক্রম চালু করা হয়েছে; যেখানে পরীক্ষার পরিবর্তে শিখন-কার্যক্রমকে বেশি গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। এ শিক্ষাক্রম অনুসারে শ্রেণিকক্ষেই শিক্ষার্থীদের মূল্যায়ণ করবেন শিক্ষকরা। তবে, এগুলো সবই আশার কথা। নতুন শিক্ষাক্রমে পরীক্ষা কম থাকলেও প্রাইভেট কোচিং বন্ধ হবে কি না সেই বিষয়টি নিয়ে যৌক্তিক কারণেই অনেক অভিভাবক সন্দিহান। কারণ বিদ্যালয়ে ৮০ থেকে ৯০ জন শিক্ষার্থীদের জন্য একজন শিক্ষক আর ক্লাসের সময়কাল ৪০-৪৫মিনিট। ফলে ক্লাসরুমে পাঠদান কতটা শেষ করা যাবে সেটিও প্রশ্নসাপেক্ষ।

একজন শিক্ষক কতজন শিক্ষার্থীর দিকে সরাসরি নজর দিতে পারবেন সেটিও প্রশ্নসাপেক্ষ। শিক্ষকদের প্রশিক্ষণ যেভাবে হচ্ছে সেখানেও প্রশ্ন থেকে যাচ্ছে। অনেক শিক্ষার্থীর পক্ষে অনেক কিছুই বোঝা সম্ভব হয় না শ্রেণিকক্ষে, তাই প্রাইভেট পড়তেই হয়। এ বিষয়গুলো কীভাবে অ্যাড্রেস করা হবে সেই প্রশ্ন থেকেই যাচ্ছে। এসব ক্ষেত্রে শিক্ষকদের নিজ উদ্যোগে অনেক কিছু শিখতে হবে এবং জানতে হবে তা না হলে শিক্ষার বিদ্যমান সমস্যা খুব একটা সমাধান হবে বলে মনে হচ্ছে না। এ ধরনের গবেষণার ফল আমাদের সেনসেটাইজ করে, কিন্তু সমাধান আমাদেরই বের করতে হবে।

মাছুম বিল্লাহ: শিক্ষা বিশেষজ্ঞ ও গবেষক

এসএন

চুয়াডাঙ্গায় পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ২, কলেজছাত্রীসহ আহত ৪

নিহত ২ মোটরসাইকেল আরোহী। ছবি: ঢাকাপ্রকাশ

চুয়াডাঙ্গায় পৃথক দুটি মোটরসাইকেল দূর্ঘটনায় দুই কিশোর নিহত হয়েছে। এসব ঘটনায় এক কলেজছাত্রীসহ ৪ জন আহত হয়েছেন। আহত কলেজছাত্রীর অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকায় পাঠানো হয়েছে।

দূর্ঘটনা দুটি ঘটেছে রবিবার (১৪ এপ্রিল) সকাল ৬টার দিকে জেলার আলমডাঙ্গা উপজেলার পারলক্ষীপুর গ্রামে। অন্যদিকে এদিন বেলা ১১টায় সদর উপজেলার আকুন্দবাড়ীয়া-জীবননগর সড়কের সিংনগর গ্রামের মাঝামাঝি স্থানে দুটি দ্রুতগতির মোটরসাইকেল সংঘর্ষের ঘটনাটি ঘটে।

চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গায় দ্রুতগতির মোটরসাইকেল নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে গাছের সঙ্গে ধাক্কায় ঘটনাস্থলেই নিহত হয় মোটরসাইকেল আরোহী খালিদ হোসেন (১৭) ও তামিম হোসেন (১৭) নামের দু’কিশোর। এ সময় আহত হয়েছে আরেক আরোহী সজিব হোসেন (১৬)।

নিহত ও আহতরা সম্পর্কে চাচাতো ভাই। নিহত খালিদ ঝিনাইদহ জেলার বুড়া গ্রামের সেন্টুর মিয়ার ছেলে এবং তামিম একই এলাকার আরিফ হোসেনের ছেলে। আহত সজিবকে উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রাখা হয়েছে।

আলমডাঙ্গা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) শেখ গণি মিয়া ঢাকাপ্রকাশকে বলেন, রবিবার সকালে কৃষকরা মাঠে যাওয়ার পথে চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গা উপজেলার পারলক্ষীপুর গ্রামীণ সড়কে একটি মোটরসাইকেল গাছের সঙ্গে ধাক্কা লেগে তিনজনকে পড়ে থাকতে দেখে পুলিশে খবর দেয়। ঘটনাস্থলে পৌঁছে পুলিশ দুজনকে মৃত অবস্থায় এবং একজনকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে। আহত ছেলেটিকে উদ্ধার করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে নেয়া হয়।

তিনি আরও বলেন, মরদেহের সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরী করে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। পরবর্তী আইন মোতাবেক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এদিকে এদিন বেলা ১১টায় সদর উপজেলার আকুন্দবাড়ীয়া-জীবননগর সড়কের সিংনগর গ্রামের মাঝামাঝি স্থানে দুটি দ্রুতগতির মোটরসাইকেল দূর্ঘটনায় এক কলেজছাত্রীসহ ৪ জন আহত হয়েছে। আহত কলেজছাত্রীর অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতাল থেকে ঢাকায় পাঠানো হয়েছে। তবে এ দূর্ঘটনার পর আহত ৩ জন দুর্ঘটনা কবলিত মোটরসাইকেল নিয়ে পালিয়ে যাওয়ার কারণে তাদের পরিচয় জানা যায়নি।

প্রত্যক্ষদর্শীর বরাত দিয়ে আহত কলেজছাত্রী রিপা ওরফে রিংকীর মামা গাড়ী চালক আব্দুল আলিম জানায়, আকুন্দবাড়ীয়া-জীবননগর সড়কের সিংনগর গ্রামের মাঝামাঝি স্থানে দুটি দ্রুতগতির মোটরসাইকেল মুখোমুখী সংঘর্ষ হলে ওই ৪জন আহত হয়। ওই সংঘর্ষে দর্শনা পৌর এলাকার ঈশ্বরচন্দ্রপুর ঈদগাপাড়ার গাড়ী চালক রিপনের মেয়ে মোটরসাইকেল আরোহী দর্শনা সরকারী কলেজের ছাত্রী রিপা ওরফে রিংকী গুরুতরভাবে আহত হলে তাকে দর্শনা মর্ডান ক্লিনিকে ভর্তী করা হয়। সেখান থেকে তাকে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে নিলে তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য রেফার করা হলে, তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

তিনি আরো বলেন, মেয়েটি কার মোটরসাইকেলে চেপে দূর্ঘটনার শিকার হয়েছে তা জানা যায়নি। কারণ দূর্ঘটনা ঘটার সঙ্গে সঙ্গে তারা পালিয়ে যায়।

চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের জরুরী বিভাগের চিকিৎসক জুবাইদা জয়া বলেন, কলেজছাত্রী রিপা ওরফে রিংকী মাথায় আঘাত পেয়েছে। সে কারণে তাকে রেফার করা হয়েছে।

আবারো বাংলাদেশে ঢুকল মিয়ানমারের ৯ বিজিপি সদস্য

বাংলাদেশে ঢুকল মিয়ানমারের ৯ বিজিপি সদস্য। ছবি: সংগৃহীত

জীবন বাঁচাতে মিয়ানমার থেকে পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছেন সে দেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনী বর্ডার গার্ড পুলিশের (বিজিপি) আরও নয় সদস্য।

রোববার (১৪ এপ্রিল) সকালে টেকনাফের হোয়াইক্যংয়ের বিভিন্ন সীমান্ত দিয়ে তারা বাংলাদেশে প্রবেশ করেন। বর্তমানে তারা বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) হেফাজতে রয়েছেন।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, সকালে মিয়ানমারের অভ্যন্তরে বলিবাজার এলাকার ৭ বিজিপি ক্যাম্প দখলে নেওয়াকে কেন্দ্র করে বিদ্রোহী গোষ্ঠী আরাকান আর্মি ও বিজিপি সদস্যদের মধ্যে ব্যাপক সংঘর্ষ হয়। এতে অনেকে নিহত ও আহত হয়। একপর্যায়ে বিদ্রোহীদের সামনে অপরাপর বিজিপি সদস্যরা টিকে থাকতে না পেরে বিজিপির অনেক সদস্য মিয়ানমারের অভ্যন্তরে বিভিন্ন স্থানে পালিয়ে গেলেও ৯ জন সদস্য বাংলাদেশ সীমান্তে পালিয়ে আশ্রয় নেয়।

খবর পেয়ে বিজিবি সদস্যরা গিয়ে তাদের নিরস্ত্রীকরণ করেন এবং পালিয়ে আসা বিজিপি সদস্যরা বিজিবির কাছে আত্মসমর্পণ করেন। তবে এই ৯ জনের মধ্যে ২ জন গুলিবিদ্ধ হয়ে গুরুতর আহত হওয়ায় তাদের উন্নত চিকিৎসার জন্য কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে নেওয়া হতে পারে বলে একটি বিশ্বস্ত সূত্র জানিয়েছেন। তাদেরকে একটি অ্যাম্বুলেন্সযোগে আপাতত হ্নীলা উচ্চ বিদ্যালয়ে রাখা হয়েছে। তাদের নিরাপত্তায় বিজিবি সদস্যরা রয়েছেন।

টেকনাফ ব্যাটালিয়ন-২ বিজিবির অধিনায়ক লে. কর্নেল মোহাম্মদ মহিউদ্দিন আহাম্মদ জানান, সীমান্তের নিরাপত্তার জন্য আমাদের টহল কার্যক্রম জোরদার রয়েছে বলেই মিয়ানমারের বিজিপি সদস্যরা অনুপ্রবেশের সঙ্গে সঙ্গে আমাদের বিজিবি সদস্যরা তাদের আটক করতে সক্ষম হয়েছে। তবে কোনো রোহিঙ্গা যেন অনুপ্রবেশ করতে না পারে সে জন্য বিজিবি সব সময় প্রস্তুত রয়েছে।

রেকর্ড দর্শকের সামনে মেসি-সুয়ারেজের গোলে মায়ামির জয়

ছবি: সংগৃহীত

সময়টা ভালো যাচ্ছিলো না ইন্টার মায়ামির। শেষ পাঁচ ম্যাচের একটাতেও জিততে পারেনি তারা। শেষ ম্যাচে গোল করেও মেসি জেতাতে পারেননি দলকে। তবে আজ আর ভুল করেননি, গোল করে, করিয়ে মায়ামির ব্যর্থতার বৃত্ত ভেঙে দিলেন তিনি।

রোববার (১৪ এপ্রিল) সকালে মেজর সকার লিগে কানসাস সিটির বিপক্ষে তাদের ঘরের মাঠে খেলতে নামে ইন্টার মায়ামি। দারুণ লড়াই হলেও শেষ পর্যন্ত ৩-২ গোলের জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে সফরকারীরা। এ জয়ে ইস্টার্ন কনফারেন্সের শীর্ষস্থান ফিরে পেয়েছে মায়ামি। ৯ ম্যাচে পয়েন্ট ১৫।

চোটের কারণে টানা পাঁচ ম্যাচ খেলতে পারেননি মেসি। মন্তেরির বিপক্ষে কনক্যাকাফ চ্যাম্পিয়নস কাপের ম্যাচ দিয়ে দ্বিতীয়ার্ধে ফিরলেও সেদিন পুরোপুরি ছন্দে দেখা যায়নি আর্জেন্টাইন অধিনায়ককে। তবে আজ ম্যাচের শুরু থেকেই মেসি ছিলেন উজ্জ্বল। তাতে আলোর মুখ দেখে মায়ামিও।

তবে কানসাসের মাঠে প্রায় ৭৩ হাজার দর্শকের সামনে শুরুতে পিছিয়ে পড়ে মেসির মায়ামি। ম্যাচের ষষ্ঠ মিনিটেই বাঁ প্রান্ত দিয়ে এরিক টমির গোলে এগিয়ে যায় এসকেসি। অবশ্য সমতায় ফিরতে খুব একটা অপেক্ষা করতে হয়নি মায়ামিকে। মেসির সুবাদে দ্রুত ফেরে সমতায়।

ম্যাচের ১৮তম মিনিটে মেসির অসাধারণ অ্যাসিস্টে দলকে সমতায় ফেরান গোমেজ। এরপর আরো বেশকিছু আক্রমণ করলেও ব্যবধান বাড়াতে পারেনি মায়ামি। প্রথমার্ধের বাকি সময়ে তেমন কোনো জোরালো আক্রমণ না হওয়ায় সমতায় থেকে বিরতিতে যায় দু’দল।

তবে দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই মায়ামিকে এগিয়ে দেন মেসি। ৫১ মিনিটে গোলের দেখা পান বিশ্বকাপজয়ী এই তারকা। ডেভিড রুইজের কাছ থেকে বক্সের বাইরে বল পেয়ে চোখ ধাঁধানো শটে বল জালে জড়ান তিনি। চলতি মৌসুমে মায়ামির হয়ে ৫ ম্যাচে যা মেসির পঞ্চম গোল, সাথে আছে পাঁচ অ্যাসিস্টও।

এগিয়ে যাওয়ার আনন্দটা বেশিক্ষণ স্থায়ী হয়নি মায়ামির। ৫৮ মিনিটে নিজের ও দলের দ্বিতীয় গোলে কানসাসকে সমতায় ফেরান টমি। ২-২ সমতায় খেলা তখন জমে ক্ষীর। জয়সূচক গোলের জন্যে দুই দলই চালাতে থাকে একের পর এক আক্রমণ।

তবে সব সংশয় উড়িয়ে দেন লুইস সুয়ারেজ। ৭১ মিনিটে অবশ্য কানসাস সমর্থকদের উল্লাস থামিয়ে মায়ামিকে আবার এগিয়ে দেন তিনি। ৩-২ ব্যবধানে এগিয়ে যায় মেসির দল। শেষ পর্যন্ত আর গোল না হলে এই ব্যবধানেই জয় নিশ্চিত করে মায়ামি।

সর্বশেষ সংবাদ

চুয়াডাঙ্গায় পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ২, কলেজছাত্রীসহ আহত ৪
আবারো বাংলাদেশে ঢুকল মিয়ানমারের ৯ বিজিপি সদস্য
রেকর্ড দর্শকের সামনে মেসি-সুয়ারেজের গোলে মায়ামির জয়
মুক্তিপণের বিষয়ে কথা না বলতে অ্যাগ্রিমেন্ট হয়েছে: জাহাজের মালিকপক্ষ
বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে টাঙ্গাইলে মঙ্গল শোভাযাত্রা
ইরানের হামলার পর বাইডেন-নেতানিয়াহু ফোনালাপ
ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সেপটিক ট্যাংকে কাজ করতে নেমে ৩ শ্রমিকের মৃত্যু
বান্দরবানে ব্যাংক ডাকাতি: কেএনএফের আরও ৪ সদস্য কারাগারে
সালমান খানের বাড়ির সামনে দুর্বৃত্তদের গুলি
নওগাঁয় বর্ণাঢ্য আয়োজনে বাঙালির বর্ষবরণ
আজ রাজধানীতে বন্ধ থাকবে যেসব সড়ক
ইসরায়েলে ড্রোন ও ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালিয়েছে ইরান
বিএনপি বাঙালির সংস্কৃতি সহ্য করতে পারে না: ওবায়দুল কাদের
৩১ দিন পর মুক্ত ২৩ নাবিক ও জিম্মি জাহাজ এমভি আবদুল্লাহ
আজ পহেলা বৈশাখ, চারুকলা অনুষদ থেকে মঙ্গল শোভাযাত্রা শুরু
নতুন বছর অপশক্তির বিরুদ্ধে লড়াইয়ে প্রেরণা জোগাবে : প্রধানমন্ত্রী
বিশ্ববাজারে রেকর্ড উচ্চতায় স্বর্ণের দাম
চাঁদপুরে যুবকের পায়ুপথে ৬ ইঞ্চি ডাব, অস্ত্রোপচারে অপসারণ
ঈদের আনন্দে যমুনার পাড়ে বিনোদন প্রেমীদের ঢল
চালের বস্তায় লিখতে হবে ধানের জাত ও মিল গেটের মূল্য