তৃণমূল পর্যায়ে স্বাস্থ্যসেবা এবং স্থানীয় সরকারের দায়বদ্ধতা

০৮ জুন ২০২২, ০৩:৫৯ পিএম | আপডেট: ২৯ নভেম্বর ২০২২, ০৬:০৬ পিএম


তৃণমূল পর্যায়ে স্বাস্থ্যসেবা এবং স্থানীয় সরকারের দায়বদ্ধতা

স্বাস্থ্য নিরাপত্তা মানব উন্নয়নের একটি গুরুত্বপূর্ণ সূচক। বাংলাদেশের সংবিধান প্রজাতন্ত্রের প্রতিটি নাগরিকের মৌলিক অধিকার হিসেবে স্বাস্থ্য সেবার স্বীকৃতি দিয়েছে। স্বাস্থ্য মানব উন্নয়নের জন্য মৌলিক। জীবনযাত্রার মান উন্নয়নের জন্য স্বাস্থ্য নিরাপত্তা অপরিহার্য। জাতীয় অর্থনৈতিক ও সামাজিক উন্নয়নও নির্ভর করে একটি দেশের কার্যকর স্বাস্থ্য সেবা ব্যবস্থাপনার ওপর। এই লেখাটি আমি কয়েক বছর আগে ইংল্যান্ডের লন্ডন স্কুল অফ ইকোনমিক্স অ্যান্ড পলিটিকাল সায়েন্সের জন্য লিখেছিলাম। ঢাকাপ্রকাশের সম্মানিত পাঠকদের জন্য স্বাস্থ্য নিরাপত্তার উপর কোভিড মহামারীর বিরূপ প্রভাবের কথা মাথায় রেখে লেখাটি আপডেট করা হয়েছে।

দেশের স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ সম্পর্কিত নীতি প্রণয়ন, পরিকল্পনা এবং প্রয়োগের জন্য প্রাথমিক দায়িত্ব স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের উপর অর্পিত হয় । স্বাস্থ্য নীতি ও কর্মসূচি বাস্তবায়নের জন্য মন্ত্রণালয়কে সাহায্য করা জন্য রয়েছে পাঁচটি অধিদপ্তর (স্বাস্থ্য পরিষেবা, পরিবার পরিকল্পনা, নার্সিং পরিষেবা, ওষুধ প্রশাসন এবং স্বাস্থ্য প্রকৌশল)।

সাম্প্রতিক বছরগুলিতে বাংলাদেশ সরকার স্বাস্থ্যনীতি জনসংখ্যা, বিশেষ করে নিম্ন-পরিষেধিত গ্রামীণ সম্প্রদায়ের জন্য মৌলিক পরিষেবা প্রদানের উপর দৃষ্টি নিবদ্ধ করেছে। বিশেষ করে, কোভিড মহামারীর শুরু থেকেই সরকার স্বাস্থ্য সুরক্ষায় গ্রামীণ জনগণের প্রবেশাধিকার নিশ্চিত করার জন্য স্বাস্থ্য পরিষেবা স্থানীয়করণের সর্বোত্তম চেষ্টা করছে।

বিশ্বের অন্যতম ঘনবসতিপূর্ণ দেশ হিসেবে বাংলাদেশ কোভিড-১৯ মহামারীর জন্য মারাত্মকভাবে ঝুঁকিপূর্ণ। বাংলাদেশের গ্রামীণ এলাকায় স্বাস্থ্য নিরাপত্তা একটি বড় চ্যালেঞ্জ এবং বর্তমান পরিস্থিতিতে তা আরও তীব্র হয়েছে। সরকার দরিদ্রদের সহায়তার জন্য বেশ কয়েকটি প্যাকেজ ঘোষণা করলেও বাস্তবায়ন সঠিকভাবে হয়নি। স্থানীয় রাজনৈতিক অযাচিত প্রভাব, স্বজনপ্রীতি এবং দুর্নীতি অধিকাংশ ক্ষেত্রে দায়ী যা আমরা সমসাময়িক গবেষণা ফলাফলে পায় ।

ইউনিয়ন পরিষদ বাংলাদেশের স্থানীয় সরকারের সর্বনিম্ন স্তর এবং গ্রামীণ স্বাস্থ্য সুরক্ষায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। বাস্তবতা হল গ্রামীণ এলাকায় সীমিত অবকাঠামো এবং স্বাস্থ্যসেবা পেশাদারদের যথেষ্ট অভাব রয়েছে। সরকারের অঙ্গীকার ও সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, ইউনিয়ন পরিষদ পর্যায়ে একটি স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্র এবং গ্রাম পর্যায়ে কমিউনিটি ক্লিনিক থাকার কথা।

স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রগুলি স্থানীয় জনগণের জন্য সাধারণ স্বাস্থ্য পরিষেবা এবং মৌলিক প্রজনন, মা ও শিশু স্বাস্থ্য পরিষেবা বিনামূল্যে প্রদান করে। প্রত্যেক স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রে একজন মেডিকেল অ্যাসিস্ট্যান্ট আছে, রোগ প্রতিরোধ, স্বাস্থ্য শিক্ষা এবং প্রাথমিক প্রাথমিক চিকিৎসায় প্রশিক্ষিত একজন পরিবার কল্যাণ ভিজিটর যিনি পরিবার পরিকল্পনা, প্রজনন স্বাস্থ্য এবং প্রসব-পরবর্তী যত্ন নিশ্চিত করার জন্য নিযুক্ত করা হয়েছে।

কমিউনিটি ক্লিনিক সরকার পরিচালিত। সাম্প্রতিক গবেষণার ফলাফল বলছে যে, প্রায় ৫০% গ্রামীণ মহিলা তাদের অস্তিত্ব সম্পর্কে সচেতন নন এবং বেশিরভাগ গ্রামবাসী কোনও আনুষ্ঠানিক স্বাস্থ্যসেবা প্রশিক্ষণ ছাড়াই একজন পল্লী ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করতে পছন্দ করেন। ক্লিনিকের অব্যবস্থাপনা, কারিগরি কর্মীদের অভাব, দুর্বল প্যাথলজি এবং ডাক্তারের অনুপস্থিতি গ্রামীণ বাংলাদেশের দুর্বল স্বাস্থ্য পরিষেবার জন্য বেশিরভাগই দায়ী। এছাড়া, যথাযথ অবকাঠামো, বাসস্থান, মানসম্মত শিক্ষা, পরিবহন সুবিধা এবং ক্যারিয়ারের সম্ভাবনার অভাবের কারণে ডাক্তাররা গ্রামে সেবা করার আগ্রহ দেখায় না।

ইতিবাচক দিক হল, অনেক স্থানীয় এনজিও, যেমন ব্র্যাকের, প্রসবপূর্ব এবং নিরাপদ প্রসবের যত্ন প্রদানের জন্য বিশেষ প্রজনন স্বাস্থ্য সেবা কার্যক্রম এবং সুবিধা রয়েছে। সারা দেশে অসংখ্য বেসরকারি, বাণিজ্যিকভাবে পরিচালিত ক্লিনিক রয়েছে যেগুলি ব্যয়বহুল, কিন্তু যারা তাদের সামর্থ্য রাখে তারা তাদের পছন্দ করে কারণ তারা সরকারি হাসপাতালের তুলনায় উন্নত মানের স্বাস্থ্যসেবা প্রদান করে। যাইহোক, বেসরকারি ক্লিনিকগুলির মানসম্মত সেবা এবং জবাবদিহিতার যথেষ্ট অভাব রয়েছে।

অনেক ক্ষেত্রে, গ্রামীণ স্বাস্থ্য পরিষেবাগুলি ছয়টি মৌলিক সরঞ্জাম (থার্মোমিটার, স্টেথোস্কোপ, রক্তচাপ মাপক, শিশু এবং প্রাপ্তবয়স্কদের জন্য ওজন মাপকাঠি, এবং টর্চলাইট) নিশ্চিত করতে পারে না। পরিসংখ্যান বলে, আমাদের দেশে প্রতি এক মিলিয়ন লোকের জন্য মাত্র ২৪১ জন চিকিত্সক, ১৩৬ জন নিবন্ধিত নার্স এবং ১০টি হাসপাতাল (৪০০০ জনের জন্য একটি হাসপাতালের বেডের প্রাপ্যতা তৈরি করে)। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তথ্য অনুযায়ী, বাংলাদেশে বর্তমান ডাক্তার-রোগীর অনুপাত প্রতি ১০ হাজার জনসংখ্যার মাত্র ৫ দশমিক ২৬, যা দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলির মধ্যে দেশটিকে নিচের দিক থেকে দ্বিতীয় স্থানে রেখেছে।

২০১১ সালের জাতীয় স্বাস্থ্য নীতি প্রতিটি নাগরিকের পর্যাপ্ত স্বাস্থ্যসেবা পাওয়ার মৌলিক অধিকার নিশ্চিত করার পাশাপাশি প্রয়োজনীয় অবকাঠামো প্রদানের জন্য সরকারের সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতার পুনরাবৃত্তির উপর জোর দেয়। সকলের জন্য প্রাথমিক স্বাস্থ্য এবং জরুরি যত্নকে শক্তিশালী করা, মানসম্পন্ন স্বাস্থ্যসেবা পরিষেবার প্রাপ্যতা প্রসারিত করা এবং স্বাস্থ্যের অধিকারের ভিত্তিতে লোগণমানুষের যত্ন নেওয়ার জন্য উত্সাহিত করা। যাইহোক, এটি কার্যকরভাবে প্রয়োগ করা হয়নি এবং তাই, স্বাস্থ্যসেবা এখনও সকলের জন্য অসম এবং দুর্গম।

তৃণমূল পর্যায়ে স্থ্যসেবার উন্নতির জন্য ইউনিয়ন পরিষদতে স্থায়ী কমিটির কাজ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। স্থানীয় সরকারের একটি স্বচ্ছ, জবাবদিহিমূলক এবং কার্যকর পরিষেবার উল্লেখযোগ্য সত্তা হিসাবে, ইউনিয়ন পরিষদর উচিত তাদের স্থায়ী কমিটিগুলি কার্যকর করা। স্বাস্থ্য সংক্রান্ত স্থায়ী কমিটিগুলিকে স্বাস্থ্য সুবিধা, স্বাস্থ্যসেবা, স্যানিটেশন এবং হাসপাতাল ও ক্লিনিকগুলির কার্যকারিতা পর্যবেক্ষণ করতে হবে। ইউনিয়ন পরিষদের স্থায়ী কমিটিকে গ্রামীণ স্বাস্থ্য পরিষেবার নিয়মিত মনিটরিং নিশ্চিত করতে হবে এবং দরিদ্র জনগণের সাশ্রয়ী মূল্যে স্বাস্থ্য সুবিধার অ্যাক্সেস নিশ্চিত করার জন্য প্রাইভেট ক্লিনিক এবং প্রাসঙ্গিক এনজিওগুলির সাথে সমন্বয় ত্বরান্বিত করতে হবে ।

স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিশ্চিত করার জন্য পাবলিক পলিসি প্রণয়নে একটি বটম-আপ পলিসি প্ল্যানিং সিস্টেম চালু করা উচিত এবং গ্রামীণ জনগণের জন্য যথাযথ স্বাস্থ্যসেবা সুবিধা নিশ্চিত করার জন্য কেন্দ্রীয় পর্যবেক্ষণ ও মূল্যায়ন ব্যবস্থাকে শক্তিশালী করা প্রয়োজন। স্থানীয় সরকারের সর্বনিম্ন স্তর ইউনিয়ন পরিষদকে শক্তিশালী করতে হবে এবং গ্রামীণ স্বাস্থ্যসেবা সকলের জন্য সহজলভ্য করার দায়িত্ব পরিষদকে দেওয়া উচিত। ২০১১ সালের জাতীয় স্বাস্থ্য নীতির বিধানগুলির পর্যাপ্ত প্রয়োগ সমস্ত স্তরে স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিশ্চিত করতে পারে। গ্রামীণ সমাজে মৌলিক স্বাস্থ্যসেবার উচ্চ মান নিশ্চিত করতে সামাজিক গবেষণা গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখতে পারে।

 

লেখক: ড. মোহাম্মদ তারিকুল ইসলাম, সহযোগী অধ্যাপক, সরকার ও রাজনীতি বিভাগ, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় এবং ভিজিটিং স্কলার (অক্সফোর্ড, কেমব্রিজ)।
ইমেইল: [email protected]


বিভাগ : মতামত