রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪ | ১ বৈশাখ ১৪৩১
Dhaka Prokash

তৃণমূল পর্যায়ে স্বাস্থ্যসেবা এবং স্থানীয় সরকারের দায়বদ্ধতা

স্বাস্থ্য নিরাপত্তা মানব উন্নয়নের একটি গুরুত্বপূর্ণ সূচক। বাংলাদেশের সংবিধান প্রজাতন্ত্রের প্রতিটি নাগরিকের মৌলিক অধিকার হিসেবে স্বাস্থ্য সেবার স্বীকৃতি দিয়েছে। স্বাস্থ্য মানব উন্নয়নের জন্য মৌলিক। জীবনযাত্রার মান উন্নয়নের জন্য স্বাস্থ্য নিরাপত্তা অপরিহার্য। জাতীয় অর্থনৈতিক ও সামাজিক উন্নয়নও নির্ভর করে একটি দেশের কার্যকর স্বাস্থ্য সেবা ব্যবস্থাপনার ওপর। এই লেখাটি আমি কয়েক বছর আগে ইংল্যান্ডের লন্ডন স্কুল অফ ইকোনমিক্স অ্যান্ড পলিটিকাল সায়েন্সের জন্য লিখেছিলাম। ঢাকাপ্রকাশের সম্মানিত পাঠকদের জন্য স্বাস্থ্য নিরাপত্তার উপর কোভিড মহামারীর বিরূপ প্রভাবের কথা মাথায় রেখে লেখাটি আপডেট করা হয়েছে।

দেশের স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ সম্পর্কিত নীতি প্রণয়ন, পরিকল্পনা এবং প্রয়োগের জন্য প্রাথমিক দায়িত্ব স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের উপর অর্পিত হয় । স্বাস্থ্য নীতি ও কর্মসূচি বাস্তবায়নের জন্য মন্ত্রণালয়কে সাহায্য করা জন্য রয়েছে পাঁচটি অধিদপ্তর (স্বাস্থ্য পরিষেবা, পরিবার পরিকল্পনা, নার্সিং পরিষেবা, ওষুধ প্রশাসন এবং স্বাস্থ্য প্রকৌশল)।

সাম্প্রতিক বছরগুলিতে বাংলাদেশ সরকার স্বাস্থ্যনীতি জনসংখ্যা, বিশেষ করে নিম্ন-পরিষেধিত গ্রামীণ সম্প্রদায়ের জন্য মৌলিক পরিষেবা প্রদানের উপর দৃষ্টি নিবদ্ধ করেছে। বিশেষ করে, কোভিড মহামারীর শুরু থেকেই সরকার স্বাস্থ্য সুরক্ষায় গ্রামীণ জনগণের প্রবেশাধিকার নিশ্চিত করার জন্য স্বাস্থ্য পরিষেবা স্থানীয়করণের সর্বোত্তম চেষ্টা করছে।

বিশ্বের অন্যতম ঘনবসতিপূর্ণ দেশ হিসেবে বাংলাদেশ কোভিড-১৯ মহামারীর জন্য মারাত্মকভাবে ঝুঁকিপূর্ণ। বাংলাদেশের গ্রামীণ এলাকায় স্বাস্থ্য নিরাপত্তা একটি বড় চ্যালেঞ্জ এবং বর্তমান পরিস্থিতিতে তা আরও তীব্র হয়েছে। সরকার দরিদ্রদের সহায়তার জন্য বেশ কয়েকটি প্যাকেজ ঘোষণা করলেও বাস্তবায়ন সঠিকভাবে হয়নি। স্থানীয় রাজনৈতিক অযাচিত প্রভাব, স্বজনপ্রীতি এবং দুর্নীতি অধিকাংশ ক্ষেত্রে দায়ী যা আমরা সমসাময়িক গবেষণা ফলাফলে পায় ।

ইউনিয়ন পরিষদ বাংলাদেশের স্থানীয় সরকারের সর্বনিম্ন স্তর এবং গ্রামীণ স্বাস্থ্য সুরক্ষায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। বাস্তবতা হল গ্রামীণ এলাকায় সীমিত অবকাঠামো এবং স্বাস্থ্যসেবা পেশাদারদের যথেষ্ট অভাব রয়েছে। সরকারের অঙ্গীকার ও সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, ইউনিয়ন পরিষদ পর্যায়ে একটি স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্র এবং গ্রাম পর্যায়ে কমিউনিটি ক্লিনিক থাকার কথা।

স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রগুলি স্থানীয় জনগণের জন্য সাধারণ স্বাস্থ্য পরিষেবা এবং মৌলিক প্রজনন, মা ও শিশু স্বাস্থ্য পরিষেবা বিনামূল্যে প্রদান করে। প্রত্যেক স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রে একজন মেডিকেল অ্যাসিস্ট্যান্ট আছে, রোগ প্রতিরোধ, স্বাস্থ্য শিক্ষা এবং প্রাথমিক প্রাথমিক চিকিৎসায় প্রশিক্ষিত একজন পরিবার কল্যাণ ভিজিটর যিনি পরিবার পরিকল্পনা, প্রজনন স্বাস্থ্য এবং প্রসব-পরবর্তী যত্ন নিশ্চিত করার জন্য নিযুক্ত করা হয়েছে।

কমিউনিটি ক্লিনিক সরকার পরিচালিত। সাম্প্রতিক গবেষণার ফলাফল বলছে যে, প্রায় ৫০% গ্রামীণ মহিলা তাদের অস্তিত্ব সম্পর্কে সচেতন নন এবং বেশিরভাগ গ্রামবাসী কোনও আনুষ্ঠানিক স্বাস্থ্যসেবা প্রশিক্ষণ ছাড়াই একজন পল্লী ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করতে পছন্দ করেন। ক্লিনিকের অব্যবস্থাপনা, কারিগরি কর্মীদের অভাব, দুর্বল প্যাথলজি এবং ডাক্তারের অনুপস্থিতি গ্রামীণ বাংলাদেশের দুর্বল স্বাস্থ্য পরিষেবার জন্য বেশিরভাগই দায়ী। এছাড়া, যথাযথ অবকাঠামো, বাসস্থান, মানসম্মত শিক্ষা, পরিবহন সুবিধা এবং ক্যারিয়ারের সম্ভাবনার অভাবের কারণে ডাক্তাররা গ্রামে সেবা করার আগ্রহ দেখায় না।

ইতিবাচক দিক হল, অনেক স্থানীয় এনজিও, যেমন ব্র্যাকের, প্রসবপূর্ব এবং নিরাপদ প্রসবের যত্ন প্রদানের জন্য বিশেষ প্রজনন স্বাস্থ্য সেবা কার্যক্রম এবং সুবিধা রয়েছে। সারা দেশে অসংখ্য বেসরকারি, বাণিজ্যিকভাবে পরিচালিত ক্লিনিক রয়েছে যেগুলি ব্যয়বহুল, কিন্তু যারা তাদের সামর্থ্য রাখে তারা তাদের পছন্দ করে কারণ তারা সরকারি হাসপাতালের তুলনায় উন্নত মানের স্বাস্থ্যসেবা প্রদান করে। যাইহোক, বেসরকারি ক্লিনিকগুলির মানসম্মত সেবা এবং জবাবদিহিতার যথেষ্ট অভাব রয়েছে।

অনেক ক্ষেত্রে, গ্রামীণ স্বাস্থ্য পরিষেবাগুলি ছয়টি মৌলিক সরঞ্জাম (থার্মোমিটার, স্টেথোস্কোপ, রক্তচাপ মাপক, শিশু এবং প্রাপ্তবয়স্কদের জন্য ওজন মাপকাঠি, এবং টর্চলাইট) নিশ্চিত করতে পারে না। পরিসংখ্যান বলে, আমাদের দেশে প্রতি এক মিলিয়ন লোকের জন্য মাত্র ২৪১ জন চিকিত্সক, ১৩৬ জন নিবন্ধিত নার্স এবং ১০টি হাসপাতাল (৪০০০ জনের জন্য একটি হাসপাতালের বেডের প্রাপ্যতা তৈরি করে)। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তথ্য অনুযায়ী, বাংলাদেশে বর্তমান ডাক্তার-রোগীর অনুপাত প্রতি ১০ হাজার জনসংখ্যার মাত্র ৫ দশমিক ২৬, যা দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলির মধ্যে দেশটিকে নিচের দিক থেকে দ্বিতীয় স্থানে রেখেছে।

২০১১ সালের জাতীয় স্বাস্থ্য নীতি প্রতিটি নাগরিকের পর্যাপ্ত স্বাস্থ্যসেবা পাওয়ার মৌলিক অধিকার নিশ্চিত করার পাশাপাশি প্রয়োজনীয় অবকাঠামো প্রদানের জন্য সরকারের সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতার পুনরাবৃত্তির উপর জোর দেয়। সকলের জন্য প্রাথমিক স্বাস্থ্য এবং জরুরি যত্নকে শক্তিশালী করা, মানসম্পন্ন স্বাস্থ্যসেবা পরিষেবার প্রাপ্যতা প্রসারিত করা এবং স্বাস্থ্যের অধিকারের ভিত্তিতে লোগণমানুষের যত্ন নেওয়ার জন্য উত্সাহিত করা। যাইহোক, এটি কার্যকরভাবে প্রয়োগ করা হয়নি এবং তাই, স্বাস্থ্যসেবা এখনও সকলের জন্য অসম এবং দুর্গম।

তৃণমূল পর্যায়ে স্থ্যসেবার উন্নতির জন্য ইউনিয়ন পরিষদতে স্থায়ী কমিটির কাজ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। স্থানীয় সরকারের একটি স্বচ্ছ, জবাবদিহিমূলক এবং কার্যকর পরিষেবার উল্লেখযোগ্য সত্তা হিসাবে, ইউনিয়ন পরিষদর উচিত তাদের স্থায়ী কমিটিগুলি কার্যকর করা। স্বাস্থ্য সংক্রান্ত স্থায়ী কমিটিগুলিকে স্বাস্থ্য সুবিধা, স্বাস্থ্যসেবা, স্যানিটেশন এবং হাসপাতাল ও ক্লিনিকগুলির কার্যকারিতা পর্যবেক্ষণ করতে হবে। ইউনিয়ন পরিষদের স্থায়ী কমিটিকে গ্রামীণ স্বাস্থ্য পরিষেবার নিয়মিত মনিটরিং নিশ্চিত করতে হবে এবং দরিদ্র জনগণের সাশ্রয়ী মূল্যে স্বাস্থ্য সুবিধার অ্যাক্সেস নিশ্চিত করার জন্য প্রাইভেট ক্লিনিক এবং প্রাসঙ্গিক এনজিওগুলির সাথে সমন্বয় ত্বরান্বিত করতে হবে ।

স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিশ্চিত করার জন্য পাবলিক পলিসি প্রণয়নে একটি বটম-আপ পলিসি প্ল্যানিং সিস্টেম চালু করা উচিত এবং গ্রামীণ জনগণের জন্য যথাযথ স্বাস্থ্যসেবা সুবিধা নিশ্চিত করার জন্য কেন্দ্রীয় পর্যবেক্ষণ ও মূল্যায়ন ব্যবস্থাকে শক্তিশালী করা প্রয়োজন। স্থানীয় সরকারের সর্বনিম্ন স্তর ইউনিয়ন পরিষদকে শক্তিশালী করতে হবে এবং গ্রামীণ স্বাস্থ্যসেবা সকলের জন্য সহজলভ্য করার দায়িত্ব পরিষদকে দেওয়া উচিত। ২০১১ সালের জাতীয় স্বাস্থ্য নীতির বিধানগুলির পর্যাপ্ত প্রয়োগ সমস্ত স্তরে স্বাস্থ্য সুরক্ষা নিশ্চিত করতে পারে। গ্রামীণ সমাজে মৌলিক স্বাস্থ্যসেবার উচ্চ মান নিশ্চিত করতে সামাজিক গবেষণা গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখতে পারে।

 

লেখক: ড. মোহাম্মদ তারিকুল ইসলাম, সহযোগী অধ্যাপক, সরকার ও রাজনীতি বিভাগ, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় এবং ভিজিটিং স্কলার (অক্সফোর্ড, কেমব্রিজ)।
ইমেইল: t.islam@juniv.edu

আবারো বাংলাদেশে ঢুকল মিয়ানমারের ৯ বিজিপি সদস্য

বাংলাদেশে ঢুকল মিয়ানমারের ৯ বিজিপি সদস্য। ছবি: সংগৃহীত

জীবন বাঁচাতে মিয়ানমার থেকে পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছেন সে দেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনী বর্ডার গার্ড পুলিশের (বিজিপি) আরও নয় সদস্য।

রোববার (১৪ এপ্রিল) সকালে টেকনাফের হোয়াইক্যংয়ের বিভিন্ন সীমান্ত দিয়ে তারা বাংলাদেশে প্রবেশ করেন। বর্তমানে তারা বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের (বিজিবি) হেফাজতে রয়েছেন।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, সকালে মিয়ানমারের অভ্যন্তরে বলিবাজার এলাকার ৭ বিজিপি ক্যাম্প দখলে নেওয়াকে কেন্দ্র করে বিদ্রোহী গোষ্ঠী আরাকান আর্মি ও বিজিপি সদস্যদের মধ্যে ব্যাপক সংঘর্ষ হয়। এতে অনেকে নিহত ও আহত হয়। একপর্যায়ে বিদ্রোহীদের সামনে অপরাপর বিজিপি সদস্যরা টিকে থাকতে না পেরে বিজিপির অনেক সদস্য মিয়ানমারের অভ্যন্তরে বিভিন্ন স্থানে পালিয়ে গেলেও ৯ জন সদস্য বাংলাদেশ সীমান্তে পালিয়ে আশ্রয় নেয়।

খবর পেয়ে বিজিবি সদস্যরা গিয়ে তাদের নিরস্ত্রীকরণ করেন এবং পালিয়ে আসা বিজিপি সদস্যরা বিজিবির কাছে আত্মসমর্পণ করেন। তবে এই ৯ জনের মধ্যে ২ জন গুলিবিদ্ধ হয়ে গুরুতর আহত হওয়ায় তাদের উন্নত চিকিৎসার জন্য কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে নেওয়া হতে পারে বলে একটি বিশ্বস্ত সূত্র জানিয়েছেন। তাদেরকে একটি অ্যাম্বুলেন্সযোগে আপাতত হ্নীলা উচ্চ বিদ্যালয়ে রাখা হয়েছে। তাদের নিরাপত্তায় বিজিবি সদস্যরা রয়েছেন।

টেকনাফ ব্যাটালিয়ন-২ বিজিবির অধিনায়ক লে. কর্নেল মোহাম্মদ মহিউদ্দিন আহাম্মদ জানান, সীমান্তের নিরাপত্তার জন্য আমাদের টহল কার্যক্রম জোরদার রয়েছে বলেই মিয়ানমারের বিজিপি সদস্যরা অনুপ্রবেশের সঙ্গে সঙ্গে আমাদের বিজিবি সদস্যরা তাদের আটক করতে সক্ষম হয়েছে। তবে কোনো রোহিঙ্গা যেন অনুপ্রবেশ করতে না পারে সে জন্য বিজিবি সব সময় প্রস্তুত রয়েছে।

রেকর্ড দর্শকের সামনে মেসি-সুয়ারেজের গোলে মায়ামির জয়

ছবি: সংগৃহীত

সময়টা ভালো যাচ্ছিলো না ইন্টার মায়ামির। শেষ পাঁচ ম্যাচের একটাতেও জিততে পারেনি তারা। শেষ ম্যাচে গোল করেও মেসি জেতাতে পারেননি দলকে। তবে আজ আর ভুল করেননি, গোল করে, করিয়ে মায়ামির ব্যর্থতার বৃত্ত ভেঙে দিলেন তিনি।

রোববার (১৪ এপ্রিল) সকালে মেজর সকার লিগে কানসাস সিটির বিপক্ষে তাদের ঘরের মাঠে খেলতে নামে ইন্টার মায়ামি। দারুণ লড়াই হলেও শেষ পর্যন্ত ৩-২ গোলের জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে সফরকারীরা। এ জয়ে ইস্টার্ন কনফারেন্সের শীর্ষস্থান ফিরে পেয়েছে মায়ামি। ৯ ম্যাচে পয়েন্ট ১৫।

চোটের কারণে টানা পাঁচ ম্যাচ খেলতে পারেননি মেসি। মন্তেরির বিপক্ষে কনক্যাকাফ চ্যাম্পিয়নস কাপের ম্যাচ দিয়ে দ্বিতীয়ার্ধে ফিরলেও সেদিন পুরোপুরি ছন্দে দেখা যায়নি আর্জেন্টাইন অধিনায়ককে। তবে আজ ম্যাচের শুরু থেকেই মেসি ছিলেন উজ্জ্বল। তাতে আলোর মুখ দেখে মায়ামিও।

তবে কানসাসের মাঠে প্রায় ৭৩ হাজার দর্শকের সামনে শুরুতে পিছিয়ে পড়ে মেসির মায়ামি। ম্যাচের ষষ্ঠ মিনিটেই বাঁ প্রান্ত দিয়ে এরিক টমির গোলে এগিয়ে যায় এসকেসি। অবশ্য সমতায় ফিরতে খুব একটা অপেক্ষা করতে হয়নি মায়ামিকে। মেসির সুবাদে দ্রুত ফেরে সমতায়।

ম্যাচের ১৮তম মিনিটে মেসির অসাধারণ অ্যাসিস্টে দলকে সমতায় ফেরান গোমেজ। এরপর আরো বেশকিছু আক্রমণ করলেও ব্যবধান বাড়াতে পারেনি মায়ামি। প্রথমার্ধের বাকি সময়ে তেমন কোনো জোরালো আক্রমণ না হওয়ায় সমতায় থেকে বিরতিতে যায় দু’দল।

তবে দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই মায়ামিকে এগিয়ে দেন মেসি। ৫১ মিনিটে গোলের দেখা পান বিশ্বকাপজয়ী এই তারকা। ডেভিড রুইজের কাছ থেকে বক্সের বাইরে বল পেয়ে চোখ ধাঁধানো শটে বল জালে জড়ান তিনি। চলতি মৌসুমে মায়ামির হয়ে ৫ ম্যাচে যা মেসির পঞ্চম গোল, সাথে আছে পাঁচ অ্যাসিস্টও।

এগিয়ে যাওয়ার আনন্দটা বেশিক্ষণ স্থায়ী হয়নি মায়ামির। ৫৮ মিনিটে নিজের ও দলের দ্বিতীয় গোলে কানসাসকে সমতায় ফেরান টমি। ২-২ সমতায় খেলা তখন জমে ক্ষীর। জয়সূচক গোলের জন্যে দুই দলই চালাতে থাকে একের পর এক আক্রমণ।

তবে সব সংশয় উড়িয়ে দেন লুইস সুয়ারেজ। ৭১ মিনিটে অবশ্য কানসাস সমর্থকদের উল্লাস থামিয়ে মায়ামিকে আবার এগিয়ে দেন তিনি। ৩-২ ব্যবধানে এগিয়ে যায় মেসির দল। শেষ পর্যন্ত আর গোল না হলে এই ব্যবধানেই জয় নিশ্চিত করে মায়ামি।

মুক্তিপণের বিষয়ে কথা না বলতে অ্যাগ্রিমেন্ট হয়েছে: জাহাজের মালিকপক্ষ

সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখছেন এসআর শিপিংয়ের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) মেহেরুল করিম। ছবি: সংগৃহীত

৩১ দিন পর সোমালিয়ার জলদস্যুদের কবল থেকে ২৩ নাবিকসহ বাংলাদেশি জাহাজ এমভি আবদুল্লাহ মুক্তি পেয়েছে।

বাংলাদেশ সময় শনিবার (১৩ এপ্রিল) দিবাগত রাত ৩টা ৮ মিনিটের দিকে জাহাজ থেকে নেমে যায় দস্যুরা। এরপর জাহাজ সংযুক্ত আরব আমিরাতের দুবাইয়ের একটি বন্দরের উদ্দেশ্যে রওনা দেয়।

এদিকে উদ্ধারের পরপরই জাহাজ মুক্ত করতে দস্যুদের কত টাকা মুক্তিপণ দিতে হয়েছে এবং কীভাবে এসব টাকা দেওয়া হয়েছে তা নিয়ে বিভিন্ন গুঞ্জন ওঠে। এ বিষয়ে রোববার (১৪ এপ্রিল) চট্টগ্রামের আগ্রাবাদ এলাকায় কেএসআরএমের কর্পোরেট কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে প্রশ্ন করা হয় মালিকপক্ষকে।

এ বিষয়ে কেএসআরমের মালিকানাধীন এসআর শিপিংয়ের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) মেহেরুল করিম বলেন, আমি উদ্ধার প্রক্রিয়া হ্যান্ডেলিংয়ের জন্য জাতীয় এবং আন্তর্জাতিকভাবে মনোনীত প্রতিনিধি। আমাদের সঙ্গে ওদের কনফারেন্সিয়াল অ্যাগ্রিমেন্ট হয়েছে মুক্তিপণের বিষয়ে আলোচনা না করার জন্য। সেই অ্যাগ্রিমেন্ট অনুযায়ী আমি আপনাদের সঙ্গে কিছু শেয়ার করতে পারব না। কারণ এটা আমি সই করেছি। উদ্ধার প্রক্রিয়ায় আমরা আমেরিকান নিয়ম মেনেছি এবং ইউকে (যুক্তরাজ্য) ও সোমালিয়ার নিয়ম মেনেছি। ফাইনালি কেনিয়ার নিয়মও মেনেছি। সবার সঙ্গে আমাদের অ্যাগ্রিমেন্ট করা আছে এ বিষয়ে আলোচনা না করার জন্য। তবে আমি আবার বলি, আমরা সবকিছু আইন মেনে করেছি।

তবে এ বিষয়ে জানা গেছে, জলদস্যুদের দাবি অনুয়ায়ী মুক্তিপণ নিয়ে একটি উড়োজাহাজ বাংলাদেশ সময় শনিবার বিকেলে জিম্মি জাহাজের ওপর চক্কর দেয়। এসময় জাহাজের ওপরে ২৩ নাবিক অক্ষত থাকার বিষয়টি নিশ্চিত হয়। এরপর উড়োজাহাজ থেকে ডলারভর্তি ৩টি ব্যাগ সাগরে ফেলা হয়। স্পিডবোট দিয়ে এসব ব্যাগ জলদস্যুরা কুড়িয়ে নেয়। জাহাজে ওঠে দাবি অনুযায়ী মুক্তিপণ গুনে নেয় জলদস্যুরা। তবে চুক্তি অনুযায়ী জাহাজটি যথাসময়ে ছেড়ে দেয়নি দস্যুরা। পরে তারা আশেপাশে কেউ আটক করছে কি না সেটি নিশ্চিত হয়ে জাহাজটি থেকে দস্যুরা নেমে যায়।

সংবাদ সম্মেলনে কেএসআরএম গ্রুপের উপ-মহাব্যবস্থাপক শাহরিয়ার জাহান রাহাত বলেন, আমাদের কাছে নাবিকদের নিরাপত্তার বিষয়টি সর্বোচ্চ গুরুত্বপূর্ণ ছিল। তাই, কোনো সামারিক অভিযানে পক্ষে আমরা সম্মতি দেইনি। ভারতীয় যুদ্ধজাহাজ কর্তৃক এমভি আবদুল্লাহকে উদ্ধার অভিযান চালানোর পরিকল্পনাকেও নিরুৎসাহিত করা হয়। ভারতীয় যুদ্ধজাহাজ এমভি আব্দুল্লাহর পিছু নেওয়ার খবর জানার পর আমরা দ্রুত সরকারকে অবহিত করি। চট্টগ্রামের একাধিক মন্ত্রীকে বিষয়টি জানানোর পর মাত্র ৩০ মিনিটের মধ্যেই ভারতীয় যুদ্ধজাহাজ এমভি আবদুল্লাহর সঙ্গ ত্যাগ করে। এজন্য প্রধানমন্ত্রী, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও শিক্ষামন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানায় কেএসআরএম গ্রুপ।

উল্লেখ্য, গত ১২ মার্চ দুপুরে কেএসআরএমের মালিকানাধীন এসআর শিপিংয়ের জাহাজটি জিম্মি করে সোমালিয়ান দস্যুরা। সেখানে থাকা ২৩ নাবিককে একটি কেবিনে আটকে রাখা হয়। আটকের পর জাহাজটিকে সোমালিয়ার উপকূলে নিয়ে যাওয়া হয়। ৫৮ হাজার মেট্রিক টন কয়লা নিয়ে গত ৪ মার্চ আফ্রিকার মোজাম্বিকের মাপুটো বন্দর থেকে যাত্রা শুরু করে এমভি আবদুল্লাহ। ১৯ মার্চ সেটি সংযুক্ত আরব আমিরাতের হামরিয়াহ বন্দরে পৌঁছানোর কথা ছিল।

সর্বশেষ সংবাদ

আবারো বাংলাদেশে ঢুকল মিয়ানমারের ৯ বিজিপি সদস্য
রেকর্ড দর্শকের সামনে মেসি-সুয়ারেজের গোলে মায়ামির জয়
মুক্তিপণের বিষয়ে কথা না বলতে অ্যাগ্রিমেন্ট হয়েছে: জাহাজের মালিকপক্ষ
বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে টাঙ্গাইলে মঙ্গল শোভাযাত্রা
ইরানের হামলার পর বাইডেন-নেতানিয়াহু ফোনালাপ
ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সেপটিক ট্যাংকে কাজ করতে নেমে ৩ শ্রমিকের মৃত্যু
বান্দরবানে ব্যাংক ডাকাতি: কেএনএফের আরও ৪ সদস্য কারাগারে
সালমান খানের বাড়ির সামনে দুর্বৃত্তদের গুলি
নওগাঁয় বর্ণাঢ্য আয়োজনে বাঙালির বর্ষবরণ
আজ রাজধানীতে বন্ধ থাকবে যেসব সড়ক
ইসরায়েলে ড্রোন ও ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালিয়েছে ইরান
বিএনপি বাঙালির সংস্কৃতি সহ্য করতে পারে না: ওবায়দুল কাদের
৩১ দিন পর মুক্ত ২৩ নাবিক ও জিম্মি জাহাজ এমভি আবদুল্লাহ
আজ পহেলা বৈশাখ, চারুকলা অনুষদ থেকে মঙ্গল শোভাযাত্রা শুরু
নতুন বছর অপশক্তির বিরুদ্ধে লড়াইয়ে প্রেরণা জোগাবে : প্রধানমন্ত্রী
বিশ্ববাজারে রেকর্ড উচ্চতায় স্বর্ণের দাম
চাঁদপুরে যুবকের পায়ুপথে ৬ ইঞ্চি ডাব, অস্ত্রোপচারে অপসারণ
ঈদের আনন্দে যমুনার পাড়ে বিনোদন প্রেমীদের ঢল
চালের বস্তায় লিখতে হবে ধানের জাত ও মিল গেটের মূল্য
আজ চৈত্র সংক্রান্তি