সোমবার, ২৭ মে ২০২৪ | ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
Dhaka Prokash

বর্তমান সংসদ গোপাল ভাঁড়ের ক্লাবে পরিণত হয়েছে : নুর

ছবি: সংগৃহীত

বর্তমান সংসদ গোপাল ভাঁড়ের ক্লাবে পরিণত হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন গণঅধিকার পরিষদের সভাপতি ও ডাকসুর সাবেক ভিপি নুরুল হক নুর। তিনি বলেছেন, ‘এখানে রাজাকে বিনোদন দেওয়াই সংসদ সদস্যদের কাজ। এ সংসদে কার্যত জনগণের কোনো প্রতিনিধি নেই।’

মঙ্গলবার (২০ ফেব্রুয়ারি) জাতীয় প্রেস ক্লাবের তফাজ্জল হোসেন মানিক মিয়া হলে জাতীয়তাবাদী গণতান্ত্রিক আন্দোলন (এনডিএম) আয়োজিত ‘একুশের চেতনায় নতুন বিপ্লব : এবার হবে জনতার সংসদ’ শীর্ষক আলোচনা সভায় এসব কথা বলেন নুর।

গণঅধিকার পরিষদের সভাপতি বলেন, ‘২০১৪ সালের সংসদ ছিল একটি ভুয়া সংসদ, ’১৮ সালে একটি নিয়ন্ত্রিত সংসদ ছিল এবং ’২৪ সালের সংসদ ডামি সংসদ। আমাদের সামনে সমস্যা আমরা জানি, এটার সমাধান কি হবে সেটাও জানি। কিন্তু কোনো কারণে আমরা সেটির পরিবর্তন করতে পারছি না।’

নুরুল হক নুর বলেন, ‘আমরা এমন এক জাতিতে পরিণত হয়েছি যেখানে আমাদের বই ছাপাতে প্রিন্টিং প্রেস পর্যন্ত নেই। আজ আমাদের পাঠ্যপুস্তক ছাপানো হচ্ছে ভারত থেকে। পাঠ্যপুস্তকের কারিকুলাম সিস্টেম কি হবে সেটাও ভারত থেকে ঠিক করে দেওয়া হয়। এই হচ্ছে দেশের অবস্থা।’

আলোচনা সভায় জাতীয়তাবাদী গণতান্ত্রিক আন্দোলনের (এনডিএম) চেয়ারম্যান ববি হাজ্জাজ বলেন, ‘একুশের যে চেতনা সেই চেতনা থেকে আজ ফ্যাসিবাদী সরকার পুরোপুরি বিচ্যুত। এই ফ্যাসিস্ট সরকার শুধু দুটো কাজ করছে, সেগুলো হলো তারা নিজেদের দুনিয়া গোছাচ্ছে এবং ভারতের দাসত্ব করছে। আজ ফ্যাসিস্ট আওয়ামী সরকার সংসদে বসে থাকার জন্য আমরাসহ সব বিরোধী দলের দায় রয়েছে। এই ফ্যাসিস্ট সরকারের বিরুদ্ধে জনতার সংসদ সৃষ্টি করতে হবে।’

জাতীয় গণতান্ত্রিক পার্টির (জাগপা) সহ সভাপতি রাশেদ প্রধান বলেন, ‘আমি ’৭১ আর ’২৪ এর মধ্যে কোনো পার্থক্য খুঁজে পাইনি। ২০২৪ সালে শেখ হাসিনা দেশের মানুষের বাকস্বাধীনতা, ভোটের স্বাধীনতাসহ সবকিছু কেড়ে নিয়েছেন। বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশকে নিয়ে যে আশা-আকাঙ্ক্ষা দেখেছিলেন শেখ হাসিনা সেই আশা-আকাঙ্ক্ষাকে গলা টিপে হত্যা করেছে।’

আলোচনা সভায় আরও বক্তব্য দেন জাতীয়তাবাদী গণতান্ত্রিক আন্দোলনের (এনডিএম) মহাসচিব মোমিনুল আমিন, মুসলিম লীগের মহাসচিব কাজী আবুল খায়ের, এবি পার্টির যুগ্ম সদস্য সচিব ব্যারিস্টার আসাদুজ্জামান ফুয়াদ, ইসলামি আন্দোলন বাংলাদেশের প্রেসিডিয়াম সদস্য আশরাফ আলি আকন, জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের সহ সভাপতি মাওলানা আব্দুর রব ইউসুফী প্রমুখ।

Header Ad

ইরান সফরের আমন্ত্রণ গ্রহণ করেছেন সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান

সৌদি আরবের ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমান। ছবি: সংগৃহীত

ইরানের অন্তর্বর্তীকালীন প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ মোখবারের সঙ্গে কথা বলেছেন সৌদি আরবের ক্রাউন প্রিন্স মোহাম্মদ বিন সালমান। এ সময় দুই নেতা পরস্পরকে নিজ দেশ সফরের আমন্ত্রণ জানান। ইরান সফরের আমন্ত্রণ গ্রহণ করেছেন।

ইরানের রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা জানিয়েছে, শুক্রবার রাতে মোহাম্মদ বিন সালমান ও মোখবারের মধ্যে ফোনালাপ অনুষ্ঠিত হয়। যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান ইরানের অন্তর্বর্তীকালীন প্রেসিডেন্টকে টেলিফোন করে সাবেক প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসির মৃত্যুতে সমবেদনা জানিয়েছেন।

কথোপকথনের সময়, দুই নেতা দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক এবং আঞ্চলিক বিষয় নিয়ে আলোচনা করেন।

ইরানের অন্তর্বর্তীকালীন প্রেসিডেন্ট ইরানি হজযাত্রীদের উষ্ণ অভ্যর্থনা জানানোর জন্য বিন সালমানের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন এবং বিন সালমানকে তেহরান সফরের আমন্ত্রণ জানান।

বিন সালমান সেই আমন্ত্রণ গ্রহণ করেন এবং ইরানের অন্তর্বর্তীকালীন প্রেসিডেন্টকেও রিয়াদ সফরের আমন্ত্রণ জানান।

আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, গত দুই দশকের মধ্যে এই প্রথম সৌদি রাজপরিবারের কোনো সদস্যের তেহরান সফর হতে যাচ্ছে, যা কয়েক বছরের টানাপোড়েনের পর ইতিবাচক কূটনৈতিক সম্পর্কের দিকে আরেক ধাপ এগিয়ে যাওয়ার ইঙ্গিত দিচ্ছে।

২০১৬ সালে আনুষ্ঠানিকভাবে সৌদি-ইরান তাদের কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করে। সৌদি সরকার রাষ্ট্রদ্রোহিতার দায়ে শিয়া সম্প্রদায়ের ধর্মীয় নেতা নিমর আল-নিমরের শিরোচ্ছেদ করলে ইরানে বড় আকারে বিক্ষোভ দেখা দেয়। তেহরানে অবস্থিত সৌদি দূতাবাসে বিক্ষোভকারীরা আগুন ধরিয়ে দিলে দুই দেশের সম্পর্কে তলানিতে ঠেকে। গত বছর থেকে এ সম্পর্ক ফের স্বাভাবিক হয়।

‘ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত সাড়ে ৩৭ লাখ মানুষ, বিধ্বস্ত ৩৫ হাজার ঘরবাড়ি’

ছবি: সংগৃহীত

ঘূর্ণিঝড় রেমালের প্রভাবে দেশের ১৯টি জেলা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এতে প্রায় ৩৫ হাজার ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত হয়েছে এবং এক লাখ ১৪ হাজার ৯০০ ঘরবাড়ির আংশিক ক্ষতি হয়েছে। এখন পর্যন্ত মারা গেছেন ১০ জন এবং ৩৭ লাখ ৫৮ হাজার মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন বলে জানিয়েছেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী মহিবুর রহমান।

সোমবার (২৭ মে) সচিবালয়ে ঘূর্ণিঝড় পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব তথ্য জানান।

প্রতিমন্ত্রী বলেছেন, ঘূর্ণিঝড় রেমালের কারণে খুলনা, সাতক্ষীরা ও পটুয়াখালী জেলাসহ উপকূলীয় ১৯ জেলার ১০৭ উপজেলায় ৯১৪টি ইউনিয়ন ও পৌরসভা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তবে সরকারের প্রস্তুতির কারণে বড় ক্ষয়ক্ষতি হয় নেই। ঘূর্ণিঝড়ে এ পর্যন্ত ১০ জনের প্রাণহানি হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে।

তিনি বলেন, ইতোমধ্যে ক্ষতিগ্রস্তদের সহযোগিতার জন্য ৬ কোটি ৮৫ লাখ টাকা দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে ১৫টি জেলায় জিআর হিসেবে ৩ কোটি ৮৫ লাখ নগদ টাকা, পাঁচ হাজার পাঁচশ মেট্রিক টন চাল ও পাঁচ হাজার প্যাকেট শুকনো খাবার দেওয়া হয়েছে। এ ছাড়া শিশুখাদ্য কেনার জন্য ১ কোটি ৫০ লাখ টাকা সহযোগিতা করা হয়েছে। এসব সহযোগিতা ক্ষতিগ্রস্তদের মোবাইল অ্যাকাউন্টে যাবে।

মহিবুর রহমান আরও জানান, ঝুঁকিপূর্ণ এলাকাগুলোতে ৯ হাজার ৪২৪টি আশ্রয় কেন্দ্র খোলা হয়েছে। এসব আশ্রয়কেন্দ্রে বা স্থায়ী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ৮ লাখ মানুষ আশ্রয় নিয়েছেন।

তিনি আরও জানান, মঙ্গলবার (২৮ মে) পর্যন্ত সারাদেশেই বৃষ্টি ও দমকা হাওয়া থাকবে। এদিন বিকেল থেকে সন্ধ্যার মধ্যে ক্রমান্বয়ে সিলেট দিয়ে বৃষ্টি ও দমকা হাওয়া বয়ে যাবে।

ঘূর্ণিঝড় রেমালের তাণ্ডব: বিদ্যুৎহীন উপকূলের দেড় ১ কোটি পরিবার

ছবি: সংগৃহীত

ঘূর্ণিঝড় রেমালের কারণে সম্ভাব্য ক্ষয়ক্ষতি এড়াতে দেশের উপকূলীয় জেলাগুলোর প্রায় দেড় কোটি গ্রাহকের সংযোগ বন্ধ রেখেছে পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি। ফলে অনেক এলাকা ১৬ থেকে ১৭ ঘণ্টা যাবত বিদ্যুৎবিহীন রয়েছে। ঝড় পুরোপুরি থেমে গেলে বিদ্যুৎ সংযোগ ফিরিয়ে দেওয়ার প্রস্তুতি নিয়ে অপেক্ষায় আছেন পল্লীবিদ্যুতের কর্মীরা।

এ প্রসঙ্গে বাংলাদেশ পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ডের (আরইবি) পরিচালক (কারিগরি) মো. রফিকুল ইসলাম বলেন, ঘূর্ণিঝড়ের মধ্যে দুর্ঘটনা এড়াতে সোমবার (২৭ মে) দুপুর ১২টা পর্যন্ত পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির ১ কোটি ৫৫ লাখ গ্রাহকের বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ রয়েছে। ঝড়ের তাণ্ডব কমে যাওয়ার পর দ্রুত বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক করে দিতে আমাদের কর্মীরা প্রস্তুত রয়েছেন। ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে এলাকায় অনেক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে, তবে এর পরিমাণ এখনো জানা যায়নি।

বাংলাদেশ পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ডের চিফ ইঞ্জিনিয়ার (প্ল্যানিং অ্যান্ড অপারেশন) বিশ্বনাথ শিকদার বলেন, উপকূলীয় জেলাগুলোতে প্রচণ্ড ঝড় বয়ে যাওয়ায় সাতক্ষীরা, খুলনা, বাগেরহাট, পিরোজপুর, ভোলা, পটুয়াখালী ও বরিশাল জেলা পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির অধিকাংশ গ্রাহকের সংযোগ বন্ধ রাখা হয়েছে। আরও কয়েকটি জেলায় আংশিকভাবে বিদ্যুৎ সংযোগ বন্ধ রাখা হয়েছে। সব মিলিয়ে হয়তো দেড় কোটি গ্রাহক এখন বিদ্যুৎবিহীন অবস্থায় আছেন।

পল্লী বিদ্যুতের কর্মকর্তারা বলছেন, উপকূলীয় কয়েকটি জেলার সাগর তীরবর্তী উপজেলাগুলো স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি উচ্চতার জোয়ারে তলিয়ে গেছে। এই পরিস্থিতিতে বিদ্যুতের লাইন চালু থাকলে জানমালের ক্ষতি হতে পারে। আবার বিদ্যুৎ উপকেন্দ্রগুলো পানির নিচে তলিয়ে গেলে দীর্ঘমেয়াদি ক্ষতি হতে পারে, যা মেরামত করতে অন্তত ৭ দিন সময় লাগবে। এসব দিক বিবেচনায় বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ রাখা হয়েছে।

সর্বশেষ সংবাদ

ইরান সফরের আমন্ত্রণ গ্রহণ করেছেন সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান
‘ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত সাড়ে ৩৭ লাখ মানুষ, বিধ্বস্ত ৩৫ হাজার ঘরবাড়ি’
ঘূর্ণিঝড় রেমালের তাণ্ডব: বিদ্যুৎহীন উপকূলের দেড় ১ কোটি পরিবার
কুমিল্লায় ভবন ধসে শ্রেণিকক্ষেই প্রাণ গেল শিক্ষার্থীর
হেরে গেলেন নিপুণ, শিল্পী সমিতির সম্পাদক পদ ফিরে পেলেন ডিপজল
পাপুয়া নিউ গিনিতে ভূমিধস: জীবিত সমাহিত দুই হাজারেরও বেশি মানুষ
বিএনপি সহযোগিতার নামে ফটোশেসন করে: ওবায়দুল কাদের
ঘূর্ণিঝড় রেমালের কারণে ১৯ উপজেলায় নির্বাচন স্থগিত
ঘূর্ণিঝড় রেমালের তাণ্ডব: নিহত বেড়ে ১০
গোবিন্দগঞ্জে ৮ হাজার ৮৮৪ পিস ট্যাপেন্টাডলসহ মাদক কারবারি গ্রেফতার
‘রেমালের কেন্দ্রভাগ বিকেলের মধ্যে ঢাকায় ঢুকবে’
ইরানের প্রেসিডেন্ট প্রার্থী হওয়ার ঘোষণা দিলেন আহমাদিনেজাদ
ঢাকায় রেমালের প্রভাব, দমকা বাতাসের সঙ্গে ঝরছে বৃষ্টি
টাঙ্গাইলে ৪ লাখ ৯৩ হাজার শিশুকে খাওয়ানো হবে ‘ভিটামিন এ প্লাস ক্যাপসুল’
যুক্তরাষ্ট্রে টর্নেডোর তাণ্ডব, ১৫ জনের মৃত্যু
ঘূর্ণিঝড় রেমালে দেশের বিভিন্ন জেলায় ৬ জনের মৃত্যু
বিভিন্ন খালে জাল ফেলে এখনও মেলেনি এমপি আনারের লাশ
ভয়াবহ ইসরাইলি হামলা, গাজায় নারী-শিশুসহ নিহত ৩৫
৪৫ হাজার হজযাত্রী সৌদি পৌঁছেছেন, ৬ বাংলাদেশির মৃত্যু
উপকূল অতিক্রম করে দুর্বল হচ্ছে ‘রেমাল’