পর্যটক আসমা আজমেরী এখন ১৩২তম দেশে

২৩ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০২:৩৩ পিএম | আপডেট: ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১২:৪৬ এএম


পর্যটক আসমা আজমেরী এখন ১৩২তম দেশে

বিশ্ব ভ্রমণকারী পর্যটক আসমা আজমেরী। বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ঘুরে বেড়ান বাংলাদেশের পতাকা নিয়ে। তিনি এখন অবস্থান করছেন দ্বীপ অঞ্চল রিইউনিয়নে। রেইউনিয়ন আগ্নেয়গিরি, রেইনফরেস্ট, প্রবাল প্রাচীর এবং সমুদ্র সৈকতের জন্য পরিচিত।

আসমা আজমেরী জানান, তিনি পৌঁছেছেন রেইউনিয়নে। দেশটির লোকজনের ভাষা ফরাসি। Mauritius, Réunion, Seychelles. এক সময় এসব ফ্রান্সের অধীনেই ছিল। তবে মরিশাস পরে ব্রিটেনের অধীনে চলে যায়। সেখানে কিছু ইংরেজি ভাষাভাষীদের দেখা গিয়েছে। তবে রেইউনিয়নে ফরাসি ভাষারই আধিপত্য রয়েছে। এটি আসমা আজমেরীর ভ্রমণ করা দেশের মধ্যে ১৩২তম।

২১ সেপ্টেম্বর সকালে আজমেরী পৌঁছেছেন réunion. St.Denis বন্দর এলাকায়। তিনি বলেন, ব্যক্তিগত বোটে যাওয়ায় ইমিগ্রেশনের ওখানেই ছাড়া হয়। Port Louis, Mauritius থেকে perviate boat (Arribasaia) আমার ব্রাজিলিয়ান বন্ধু বোর্নোর সঙ্গে তার বোর্ডে করে ২৫ ঘণ্টা সেলিং করে পৌঁছায়। নিউজিল্যান্ডে ও ক্যারিবিল্যান্ডে অনেক বোর্ডে থাকায় তেমন একটা ঘোরা হয়নি।
নীল সমুদ্রের উপর দিয়ে অনেকটা ভাসতে ভাসতেই চলে এসেছি। এই নতুন দেশ রেইউনিয়নের রাজধানীতে। দেশটি মরিশাসের চেয়েও ছোট।

রেইউনিয়নের অধিকাংশ লোক ফরাসি ভাষায় কথা বলায় তাদের সঙ্গে কথা বলা বা আড্ডা দেওয়া আজমেরীর জন্য খানিকটা কঠিন হয়েছে বলে তিনি জানান। সেখানে সচরাচর পর্যটকের দেখাও মেলে না। তবে সেখানে ভারতীয় বংশাদ্ভুত কিছু লোকজনও রয়েছেন বলে জানান তিনি।

আজমেরী বলেন, চমৎকার সমুদ্রের এই দেশে খুবই নীল আকাশ আর ধূসর ভলকানো যেন আরও সুন্দর করে তুলেছে। ২০ তারিখ দুপুর বেলা আমরা রওনা হয়েছিলাম মরিশাস থেকে রেইউনিয়নের উদ্দেশে। টানা ২৫ ঘণ্টা সেলিংয়ের উপরেই পৌঁছালাম লক্ষ্যে। কাল এখানে আমাদের খুব মজার বোট পার্টি হয়েছে। লোকাল লোকজন আমাদের সঙ্গে অংশ গ্রহণ করেছে। তারা আমাদের নতুন বন্ধু হয়ে গিয়েছে।

‘কিছুটা টাইম কাজ করে আমি চলে গেলাম সেন্ট পল শহরে। সুন্দর অনেক জায়গা আছে, সাদা বালি আর নীল সমুদ্র এবং পাহাড় অনেক সুন্দর করেছে এই দেশে। দুই দিন থাকার পরে ২৩ তারিখ চলে যাব মরিশাসে ওখান থেকে ২৪ তারিখে আবারও নতুন কোনো দেশের উদ্দেশে।’

তবে ভিসা পেতে তাকে অনেকটাই ভোগান্তির শিখার হতে হয়েছে বলে জানিয়েছেন। ফ্রান্স অ্যাম্বাসি থেকে এখানকার ভিসা নিয়েছেন। তিনি ট্রানজিট ভিসা নিয়েছেন।

তিনি জানান, রেইউনিয়ন দ্বীপের সবচেয়ে আইকনিক ল্যান্ডমার্ক হলো Piton de la Fournaise, একটি আরোহণযোগ্য সক্রিয় আগ্নেয়গিরি। Piton des Neiges, একটি বিশাল বিলুপ্ত আগ্নেয়গিরি ও Réunion's 3 calderas (ধসে পড়া আগ্নেয়গিরি দ্বারা গঠিত প্রাকৃতিক অ্যাম্ফিথিয়েটার) রয়েছে।

এসএন


বিভাগ : পর্যটন